Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

কুমিল্লায় হত্যাসহ ১৫ মামলার আসামি গ্রেফতার

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

কুমিল্লার কান্দিরপাড় এলাকা থেকে হত্যাসহ ১৫ মামলার আসামি জুয়েল মিয়া (৩০) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। জুয়েল মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার উত্তর চকবস্তা গ্রামের মৃত আবুল বাসারের ছেলে।

রোববার (১২ জুন) র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সিনিয়র সহকারী পরিচালক রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

jagonews24

রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই এলাকায় অভিযানে যায় র‌্যাবের একটি দল। এসময় ৬০০ পিস ইয়াবা, একটি বিদেশি রিভালবার ও দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধারসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার নামে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ, বরিশালসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় হত্যা-মাদকসহ বিভিন্ন অপরাধে ১৫ মামলা রয়েছে। এর মধ্যে পাঁচ মামলায় তিনি ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি।


আরও খবর



হলুদ গাছের ডগা ছিদ্রকারী পোকা দমনের উপায়

প্রকাশিত:Thursday ০৪ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

রান্নার মসলার মধ্যে হলুদ একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য। আমাদের প্রতিদিনের রান্নায় হলুদের ব্যবহার হয় সবচেয়ে বেশি। মসলা হিসেবে ব্যবহার ছাড়াও বিভিন্ন ধরণের প্রসাধনী তৈরির কাজে ও রং শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে হলুদ ব্যবহার করা হয়। তাই দিন দিন আমাদের দেশে হলুদ চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আমাদের দেশে হলুদ চাষ বাড়লেও অনেক চাষি বিভিন্ন রোগবালাইয়ের কারণে হলুদের প্রত্যাশিত ফলন পাচ্ছেন না। এসব রোগবালাইয়ের মধ্যে হলুদের ডগা ছিদ্রকারী পোকা অন্যতম। তাই জেনে নিন এই পোকা দমনের উপায়।

হলুদের ডগা ছিদ্রকারী পোকা কাণ্ড আক্রমণ করে ফলে গাছের বৃদ্ধি ঠিক মতো হয় না। ফলে উৎপাদন কম হয়। এ পোকার মথ কমলা হলুদ রংয়ের এবং পাখার উপর কালো বর্ণের ফোটা থাকে। কীড়া হালকা বাদামী বর্ণের।

পোকা কাণ্ড ছিদ্র করে ভিতরের দিকে খায় বলে পাতা হলুদ হয়ে যায়। নেক সময় ডেড হার্ট লঙ্গন দেখা যায়। আক্রান্ত কাণ্ডে ছিদ্র ও কীড়ার মল দেখা যায়। আদ্র আবহাওয়ায় এই পোকার আক্রমণ বেশি দেখা দেয়।

স্ত্রী মথ পাতা বা গাছের নরম অংশে ডিম পাড়ে। ৭ দিনে ডিম থেকে কীড়া বের হয় এবং ২-৩ সপ্তাহ কীড়া অবস্থায় থাকে। পুত্তলি ধাপ সম্পন্ন করতে ১ সপ্তাহ লাগে। এরা বছরে ৩ বার বংশ বিস্তার করে।

হলুদ গাছের আক্রান্ত ডগা তুলে ফেলা ও সম্ভব হলে পোকার কীড়া ধরে মেরা ফেলতে হবে। প্রতি লিটার পানিতে ৪ মিলিগ্রাম হারে বিটি মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে। অধিক আক্রমণে অনুমোদিত কীটনাশক প্রয়োগ করতে হবে।

তথ্য সূত্র: তথ্য কৃষি তথ্য সার্ভিস


আরও খবর



বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম কমেছে

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

জ্বালানি তেলের দাম কমলো বিশ্ববাজারে। গত জুলাই মাসে চীন ও জাপানে জ্বালানি তেলের উৎপাদন কম হওয়ার কারণেই দাম কমেছে বলে উল্লেখ করেছেন বিশ্লেষকরা। এদিকে বিশ্বের তেল রপ্তানিকারী দেশগুলোর সংগঠন ওপেক এবং অন্যান্য বড় তেল উৎপাদনকারী দেশের কর্মকর্তাদের সঙ্গে চলতি সপ্তাহে বিনিয়োগকারীদের বৈঠকে বসার কথা।

ওই বৈঠকে তেলের সরবরাহে সামঞ্জস্য রাখার বিষয়ে আলোচনা হবে বলে রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়। ওই প্রতিবেদন অনুযায়ী, ব্রেন্ট ক্রুড তেলের দাম প্রতি ব্যারেলে ০ দশমিক ৮ শতাংশ কমে হয়েছে ১০৩ দশমিক ১৫ ডলার, ওয়েস্ট টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট ক্রুড তেলের দাম প্রতি ব্যারেলে ১ দশমিক ১৮ ডলার বা ১ দশমিক ২ শতাংশ কমে হয়েছে ৯৭ দশমিক ৪৪ ডলার।

গত জুনে উৎপাদনের গতি অনেকটাই বেড়ে গিয়েছিল বিশ্বের বৃহত্তম ক্রুড তেল আমদানিকারক দেশ চীনে। কিন্তু দেশটিতে করোনা সংক্রমণ ফের বাড়তে থাকায় নতুন করে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এতে জুলাইয়ে প্রত্যাশার চেয়ে কম উৎপাদন হয়েছে।

কেইশিন/মার্কিটের ম্যানুফ্যাকচারিং পার্চেসিং ম্যানেজারস ইনডেক্সে (পিএমআই) গত জুনে চীনের পয়েন্ট ছিল ৫১ দশমিক ৭। কিন্তু গত মাসে এই পয়েন্ট কমে হয়েছে ৫০ দশমিক ৪। সোমবারের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, প্রত্যাশিত পয়েন্ট অনেকটাই কমেছে।

অপরদিকে জাপানে গত ১০ মাসের মধ্যে জুলাইয়ে সবচেয়ে কম উৎপাদন হয়েছে। সিএমসি মার্কেটসের বিশ্লেষক টিনা টেং বলেন, আজ তেলের দাম কমার প্রথম ও মূল কারণ চীনের উৎপাদন হতাশজনকভাবে কমে যাওয়া।


আরও খবর



ফরিদপুরের চাঁপাই বিলে সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে গোলাপি পদ্ম

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

ফরিদপুরের সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের রনকাইল গ্রামের বিশাল একটি বিলের নাম ‘চাঁপাই বিল’। এ বিলটিতে প্রায় আট থেকে ১০ মাস থাকে পানি। এখন চাঁপাই বিলে সৌন্দর্যের আভা ছড়াচ্ছে ফুটে থাকা রাশি রাশি গোলাপি পদ্মফুল। বিলে প্রস্ফুটিত পদ্ম ফুলের সৌন্দর্য দেখতে প্রতিদিনই ছুটে আসছেন কাছে-দূরের দর্শনার্থীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার শহরতলীর কানাইপুর বাজার থেকে মাত্র সাড়ে তিন কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এ বিল। কয়েক যুগ আগে থেকে বর্ষাকালে এ বিলের অধিকাংশ জমিতেই প্রাকৃতিকভাবে জন্মে পদ্ম ফুল। আষাঢ় মাস থেকে কার্তিক মাস পর্যন্ত এই বিলে পদ্ম থাকে। এসময় পুরো বিল গোলাপি রঙের পদ্মে ভরে ওঠে, যা দেখলে যে কারও মন জুড়িয়ে যায়।

jagonews24

শীত মৌসুমে বিলটি প্রায় শুকিয়ে ছোট হয়ে যায়। তখন সেখানে বিভিন্ন ফসলের আবাদ হয়।
আর বাকি সময় থইথই পানিতে ভরা থাকে বিলটি। সেইসঙ্গে দেশি মাছের ছড়াছড়ি এ বিলে। ফলে বছরজুড়ে এ বিল থেকে মাছ ধরে জীবিকানির্বাহ করেন স্থানীয় মৎস্যজীবীরা।

সরেজমিনে দেখা যায়, সদর উপজেলার ৯ নম্বর কানাইপুর ইউনিয়নের নিভৃত পল্লীতে রনকাইল মৌজায় অবস্থিত বিস্তীর্ণ বিলজুড়ে সাদা ও গোলাপি রঙের পদ্মফুল ফুটে আছে। চাঁপাই বিল নামে পরিচিত এ বিলের পশ্চিমে রনকাইল গ্রাম। বিলের পানিতে শাপলা-শালুক আর পদ্মফুলের ছড়াছড়ি। বিশাল এ বিল জুড়ে এখন শুধুই গোলাপি-লাল-সাদার সংমিশ্রণে ফোটা রাশি রাশি পদ্ম ফুল। ফুলগুলো যেন প্রকৃতির অপার সৌন্দর্য বিলিয়ে দিচ্ছে। শরতের ফুল হলেও চাঁপাই বিলে বর্ষাতেই তার সৌন্দর্য ও শুভ্রতার প্রতীক নিয়ে হাজির হয় ‘পদ্ম’। প্রকৃতিতে নিজের রূপ বিলিয়ে দিচ্ছে ফুটে থাকা এ জলজ ফুলের রাণী। জেলা-উপজেলা ছাড়াও বিভিন্ন স্থান থেকে সৌন্দর্যপিপাসুরা বিলটিতে আসছেন। ছোট ছোট নৌকায় চড়ে বিলের সৌন্দর্য উপভোগ করছেন। পাশাপাশি তুলছেন ছবি-সেলফি, করছে ভিডিও। প্রতিদিন দুপুরের পর থেকেই নানা বয়সী নারী-পুরুষের মিলনমেলায় পরিণত হয় বিল এলাকা।

jagonews24

কানাইপুর বাজারের ব্যবসায়ী মো. আরিফুর রহমান চান জাগো নিউজকে বলেন, প্রতিদিন বিভিন্ন স্থান থেকে এ বিলে পদ্ম ফুলের শোভা দেখতে ছুটে আসে মানুষ। দুপুরের পর লোকজন আসা শুরু হয়ে অনেক সময় সন্ধ্যার পরও থাকেন তারা। তবে অনেকেই পদ্ম ফুল ছিঁড়ে নিয়ে যান। এটি বন্ধ হওয়া দরকার। তা না হলে বিলটির শোভা হারিয়ে যাবে।

বিলে পদ্ম ফুল দেখতে আসা নাসরিন সুলতানা, সাদিয়া আফরিন, মারিয়া পপি জাগো নিউজকে জানান, তারা ফরিদপুর শহর থেকে এসেছেন। অবসরে শিশুদের নিয়ে পদ্ম ফুলের বিল দেখতে এসেছেন। বিকেলটা তাদের বেশ ভালো কেটেছে। নৌকায় চড়ে বিল ঘুরে দেখে এবং ছবি-সেলফি তুলে বেশ আনন্দিত তারা।

jagonews24

স্থানীয় বাসিন্দা হরেন সরকার দর্শনার্থীদের বিলে নৌকায় ঘোরান। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, প্রতিদিন শতশত মানুষ এ বিলে ঘুরতে আসে। আগতদের নৌকায় নিয়ে বিল ঘুরতে সাহায্য করি। অনেকে খুশি হয়ে যা দেয় তা দিয়ে প্রতিদিন ভালোই আয় হয়।

তিনি আরও বলেন, ছোটবেলায় এ বিল থেকে শাপলা-শালুক তুলে হাটে-ঘাটে বিক্রি করতাম। এখন আর শাপলা-শালুক পাওয়া যায় না। কয়েক বছর ধরে এ বিলে বেশি পদ্ম ফুল ফুটছে।

jagonews24

জনপ্রিয় ফেসবুক গ্রুপ ‘ঘুরি-ফিরি ফরিদপুর’-এর মডারেটর ও সমাজকর্মী ম. ইকবাল মাহমুদ ইমন জাগো নিউজকে বলেন, প্রতিবছরই এসময় বিলটিতে যাই। এবারও বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের সঙ্গে একাধিকবার বিলটিতে গিয়েছি। বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে শতশত দর্শনার্থীর আগমন ঘটে। এ বিলটি রক্ষণাবেক্ষণের জন্য প্রশাসনের নজর দেওয়া উচিত। বিলটিতে বছরে প্রায় চার মাস পদ্ম ফুল ফোটে। এ ফুলগুলো টিকিয়ে রাখতে এবং সৌন্দর্যপ্রেমীদের যাতায়াত ব্যবস্থাসহ আনুষঙ্গিক কাজের জন্য একটি পর্যবেক্ষণ টিম করা যেতে পারে। এ বিলটি ঘিরে পর্যটনকেন্দ্র গড়ে তোলা যেতে পারে। এছাড়া ভ্রমণপিপাসুদের জন্য বিভিন্ন ব্যবস্থা রাখা যেতে পারে। অনেকেই ফুল-পাতা ও গাছ পর্যন্ত ছিঁড়ে ফেলে, নিয়ে যায়। দেখে খুব খারাপ লাগে। এগুলো বন্ধ হওয়া উচিত।

স্থানীয় কানাইপুর ইউনিয়ন (ইউপি) পরিষদের চেয়ারম্যান ফকির মো. বেলায়েত হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, এ বিলটি কানাইপুরের সুনাম বৃদ্ধি করেছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ভ্রমণ ও সৌন্দর্যপিপাসুরা আসেন এ বিলে। এ বিলে আসা মানুষ নানা সমস্যার মধ্যে পড়েন। সেই কথা চিন্তা করে সেখানে বিশুদ্ধ খাবার পানির জন্য টিউবওয়েল বসানো হয়েছে। যাতায়াতের জন্য একটি রাস্তা করে দেওয়া হয়েছে। সোলার লাইট লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে।

jagonews24

তিনি বিলটি ঘিরে একটি পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার জন্য স্থানীয় সরকার বিভাগ ও পর্যটন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

ফরিদপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ড. হযরত আলী জাগো নিউজকে বলেন, পদ্মফুলের একটি গাছে একটি ফুল ফোটে। সাধারণত এটি সাদা, লাল ও নীল রঙের হয়ে থাকে। ফুটন্ত ফুলে মিষ্টি সুগন্ধ থাকে। রাত থেকে সকালের মধ্যে ফুল ফোটে। আর রোদের তীব্রতায় সংকুচিত হয়ে পড়ে। রোদ কমে গেলে আবার প্রস্ফুটিত হয়। বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে খাল-বিলের পানিতে পদ্মফুল ফুটতে দেখা যায়। শরৎ ও হেমন্তেও পদ্মফুল ফুটে থাকে।


আরও খবর



দেশে অর্ধেকের বেশি প্রতিবন্ধী পুরুষ

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
Image

দেশে মোট প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ২৩ লাখ ৬১ হাজার ৬০৪ জন। যা মোট জনসংখ্যার ১ দশমিক ৪৩ শতাংশ। এর মধ্যে ১৩ লাখ ৩৪ হাজার ১০৫ জন পুরুষ আর ১ লাখ ২৭ হাজার ৪৯৯ জন নারী। মোট প্রতিবন্ধী জনসংখ্যার ১ দশমিক ৬৩ শতাংশ পুরুষ আর ১ দশমিক ২৩ শতাংশ নারী।

বুধবার (২৭ জুলাই) নগরীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের আওতায় বিবিএস-এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত প্রথম ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২ এর প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়।

এতে বলা হয়, দেশের মোট জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন। যেখানে ৮ কোটি ১৭ লাখ পুরুষ ও ৮ কোটি ৩৩ লাখ নারী আর ১২ হাজার ৬২৯ জন তৃতীয় লিঙ্গ।

প্রতিবেদনে জানানো হয়, বরিশাল, চট্টগ্রাম, ঢাকা, খুলনা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, সিলেটে প্রতিবন্ধীর হার যথাক্রমে- ১ দশমিক ৬১ শতাংশ, ১ দশমিক ৩৪ শতাংশ, ১ দশমিক ০৮, ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ, ১ দশমিক ৫৪ শতাংশ, ১ দশমিক ৬৪ শতাংশ, ১ দশমিক ৭৩ শতাংশ ও ১ দশমিক ৪৭ শতাংশ। সবচেয়ে বেশি প্রতিবন্ধিতা রয়েছে খুলনা বিভাগে ১ দশমিক ৭৭ শতাংশ আর সর্বনিম্ন ঢাকা বিভাগে ১ দশমিক ০৮ শতাংশ।

প্রতিবন্ধীদের মধ্যে অটিজম ৩ দশমিক ৭৮ শতাংশ, শারীরিক প্রতিবন্ধী ৩২ শতাংশ, মানসিক অসুস্থতাজনিত প্রতিবন্ধিতা ৯ দশমিক ৬৫ শতাংশ, দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতা ১১ দশমিক ৪৬ শতাংশ, বাক প্রতিবন্ধিতা ৮ দশমিক ৬০ শতাংশ, বুদ্ধি প্রতিবন্ধিতা ৫ দশমিক ৯০ শতাংশ, শ্রবণ প্রতিবন্ধিতা ৫ দশমিক ০৭ শতাংশ, শ্রবণ–দৃষ্টি প্রতিবন্ধিতা শূন্য দশমিক ৫৮ শতাংশ, সেরিব্রাল পলিসি ১ দশমিক ২৪ শতাংশ, ডাউন সিন্ড্রোম ১ দশমিক ০৮ শতাংশ, বহুমাত্রিক প্রতিবন্ধিতা ১২ দশমিক ৫৭৯ শতাংশ ও অন্যান্য প্রতিবন্ধিতা ৯ দশমিক ০৯ শতাংশ।


আরও খবর



ফিরোজা বেগমের জন্ম ও আহমদ ছফার প্রয়াণ

প্রকাশিত:Thursday ২৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

মানুষ ইতিহাস আশ্রিত। অতীত হাতড়েই মানুষ এগোয় ভবিষ্যৎ পানে। ইতিহাস আমাদের আধেয়। জীবনের পথপরিক্রমার অর্জন-বিসর্জন, জয়-পরাজয়, আবিষ্কার-উদ্ভাবন, রাজনীতি-অর্থনীতি-সমাজনীতি একসময় রূপ নেয় ইতিহাসে। সেই ইতিহাসের উল্লেখযোগ্য ঘটনা স্মরণ করাতেই জাগো নিউজের বিশেষ আয়োজন আজকের এই দিনে।

২৮ জুলাই ২০২২, বৃহস্পতিবার। ১৩ শ্রাবণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ঘটনা
১৮২১- স্পেনের নিয়ন্ত্রণ থেকে মুক্ত হয়ে পেরু স্বাধীনতা ঘোষণা করে।
১৯১৩- বঙ্গীয় কৃষক লীগ প্রতিষ্ঠা।
১৯৬৭-পূর্ব চীনের তাঙ্ক শান শহরে সাত দশমিক নয় মাত্রার ভয়াবহ ভুমিকম্প হয়েছিল।
১৯৭৬- চীনের টাংশানে ভয়াবহ ভূমিকম্পে আট লাখ লোকের প্রাণহানি।
১৯৮৮- চীনে টক্কর খেয়ে একশো জাহাজডুবি।

জন্ম
১৮০৪- জার্মানীর একজন বস্তুবাদী দার্শনিক লুডউইগ ফয়েরবাক।
১৯১২- আধুনিক সহজ সরল মেলোডি প্রধান বাংলা গানের সেরা সুরকার কমল দাশগুপ্ত।
১৯৩০- বাঙালি নজরুলসংগীত শিল্পী ফিরোজা বেগম। ফরিদপুরের গোপালগঞ্জ মহকুমার (বর্তমান জেলা) রাতইল ঘোনাপাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম জমিদার পরিবারে জন্ম তার। শৈশবেই তার সংগীতের প্রতি অনুরাগ জন্মে। ১৯৫৪ সাল থেকে কলকাতায় বসবাস করতে শুরু করেন। ১৯৫৫ সালে সুরকার, গায়ক ও গীতিকার কমল দাশগুপ্তের (যিনি বিয়ের আগে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন এবং নাম কামাল উদ্দিন আহমেদ রাখেন) সঙ্গে তার বিয়ে হয়। সমগ্র ভারতীয় উপমহাদেশে তিনি নজরুল সংগীতের জন্য বিখ্যাত হয়ে আছেন। ভারতীয় উপমহাদেশে পরবর্তী প্রজন্মের কাছে তাকে বাংলা সংগীতের প্রতীকীরূপ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
১৯৩৮- ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্রের একজন বিখ্যাত অভিনেতা এবং চলচ্চিত্র পরিচালক সুখেন দাস।

মৃত্যু
১৯৩৪- কানাডীয়-মার্কিন নির্বাক চলচ্চিত্র অভিনেত্রী ও কৌতুকাভিনেতা মারি ড্রেসলার।
১৯৭২- বাঙালি মার্কসবাদী বিপ্লবী চারু মজুমদার।
১৯৯৭- বাংলা চলচ্চিত্র ও নাট্যজগতের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব সত্য বন্দ্যোপাধ্যায়।
২০০১- বাংলাদেশি লেখক, চিন্তক ও ঔপন্যাসিক আহমদ ছফা। চট্টগ্রামের চন্দনাইশ উপজেলার হাশিমপুর ইউনিয়নের গাছবাড়িয়া গ্রামে জন্ম তার। জাতীয় অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক ও সলিমুল্লাহ খানসহ আরও অনেকের মতে, মীর মশাররফ হোসেন ও কাজী নজরুল ইসলামের পরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বাঙালি মুসলমান লেখক হলেন আহমদ ছফা। তার লেখায় বাংলাদেশি জাতিসত্তার পরিচয় নির্ধারণ প্রাধান্য পেয়েছে। ১৯৯৩ সালে বাংলা একাডেমির সাদত আলী আখন্দ পুরস্কার প্রত্যাখ্যান করেছিলেন। ২০০২ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে সাহিত্যে মরণোত্তর একুশে পদক প্রদান করেন।
২০১৬- ভারতীয় বাঙালি সাহিত্যিক ও মানবাধিকার আন্দোলনকর্মী মহাশ্বেতা দেবী।

দিবস
বিশ্ব প্রকৃতি সংরক্ষণ দিবস
বিশ্ব হেপাটাইটিস দিবস


আরও খবর