Logo
আজঃ Wednesday ২৬ January ২০২২
শিরোনাম
অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে সহ-শিল্পীদের নগ্ন ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। বিদেশের মাটিতে কৃষিপণ্য সরবরাহ বাড়াণোর লক্ষ্যে : ইরান রাজনৈতিক কঠিন চাপে রয়েছেন মেয়র আরিফুল স্বপ্নের মেট্রোরেল রওনা হলো আগারগাঁওয়ের উদ্দেশে ওমিক্রনের সংক্রমণে ভারতে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ মুরাদ হাসান এমিরেটসের ফ্লাইটে কানাডা গেলেন সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আগামী বিশ্বকাপে ব্যাটসম্যানদের উন্নতি দেখতে চান করোনাভাইরাসে আরও ছয়জনের মৃত্যু বিশ্বের ৪৩তম ক্ষমতাধর নারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন বিদ্যুৎ গতিতে ছড়াচ্ছে

প্রকাশিত:Saturday ১৮ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১৫৫জন দেখেছেন
Image


অনলাইন ডেস্ক: ইউরোপে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন বিদ্যুৎ গতিতে ছড়াচ্ছে। আগামী বছরের শুরুতে ফ্রান্সে এর ভয়াবহ প্রভাব পড়তে পারে। ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী জিন ক্যাসটেক্স এসব কথা জানিয়েছেন বলে আজ শনিবার বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়।

ফরাসি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কয়েক মিলিয়ন ফরাসি করোনার টিকা না নিয়ে পুরো দেশবাসীর জীবনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে, যা গ্রহণযোগ্য নয়।’ আগামী বছর টিকাদানে নতুন পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান।

এর আগে ওমিক্রনের বিস্তার রোধে ব্রিটিশ পর্যটকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ফ্রান্স। তবে ফরাসি নাগরিক ও তাদের স্ত্রীরা এই নির্দেশনার আওতার বাইরে থাকবেন।

শুক্রবার যুক্তারাজ‌্যে প্রায় ১৫ হাজার লোকের ওমিক্রন শনাক্ত হয়। দক্ষিণ আফ্রিকার তুলনায়ও যুক্তরাজ‌্যে বেশি দ্রুত গতিতে ছড়িয়ে পড়ছে এই ভাইরাস।

এদিকে, করোনার নতুন এই ধরন রোধে শুক্রবার জার্মানি, আয়ারল্যান্ড, নেদারল্যান্ডও কঠোর বিধিনিষেধ ঘোষণা করে। ইতিমধ‌্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ওমিক্রনের বিস্তার রোধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাসহ নানা ধরনের বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। বাংলাদেশেও এখন পর্যন্ত তিনজনের ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। 


আরও খবর



অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের খেলা কখন, কীভাবে দেখবেন

প্রকাশিত:Saturday ১৫ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
Image

স্পোর্টস ডেস্ক: ক্রিকেটে বয়সভিত্তিক পর্যায়ের সর্বোচ্চ টুর্নামেন্ট হিসেবে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপকে ধরা হয়ে থাকে। সেই টুর্নামেন্টের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় সাফল্যের সংক্ষিপ্ত তালিকাতে থাকবে এটি। শুক্রবার থেকে আবারও শুরু হচ্ছে এই টুর্নামেন্ট। তবে বাংলাদেশের ম্যাচ উদ্বোধনী ম্যাচের দুদিন পর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দিয়ে শুরু হবে।

গ্রুপ পর্বে প্রতিটি দলই তিনটি করে ম্যাচ খেলবে। সেখানে বাংলাদেশ প্রতিপক্ষ হিসেবে পাচ্ছে, ইংল্যান্ড, কানাডা ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকে। গ্রুপ পর্বের সবগুলো ম্যাচই অনুষ্ঠিত হবে সন্ধ্যা ৭টায়।

কীভাবে দেখবেন?

গ্রুপ পর্বের প্রথম দুই ম্যাচ দেখাবে গাজী টেলিভিশন ও র‌্যাবিটাহোল। তৃতীয় ম্যাচটি দেখাবে না তারা। আইসিসি যদিও জানিয়েছে, ওয়েবসাইটে সরাসরি সম্প্রচার করবে তারাও।

বাংলাদেশের ম্যাচ কবে, কখন, কোথায় :

তারিখ প্রতিপক্ষ ভেন্যু সময়


১৬ জানুয়ারি ইংল্যান্ড ওয়ার্নার পার্ক, সেন্ট কিটস সন্ধ্যা ৭টা


২০ জানুয়ারি কানাডা কেনারি স্পোর্টস ক্লাব, সেন্ট কিটস সন্ধ্যা ৭টা


২২ জানুয়ারি আমিরাত ওয়ার্নার পার্ক, সেন্ট কিটস সন্ধ্যা ৭টা


আরও খবর



মঞ্জুকে অব্যাহতি : খুলনায় বিএনপির ৫৬১ নেতাকর্মীর পদত্যাগ

প্রকাশিত:Monday ২৭ December ২০২১ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ১৩০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ থেকে নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে অব্যাহতি দেওয়ার প্রতিবাদে খুলনা সদর ও সোনাডাঙ্গা থানার ১৬টি ওয়ার্ড ও অঙ্গসংগঠনের ৫৬১ নেতাকর্মী একসঙ্গে পদত্যাগ করেছেন। গতকাল রোববার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে সদ্য বিলুপ্ত সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আরিফুজ্জামান অপু এবং সোনাডাঙ্গা থানার সাধারণ সম্পাদক ও সিটি কলেজছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি আসাদুজ্জামান মুরাদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নজরুল ইসলাম মঞ্জুকে অব্যাহতি দেওয়ার প্রতিবাদে এর আগে গত শনিবার খালিশপুর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এস এম আরিফুর রহমান এবং ২২ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি তরিকুল্লাহ খান, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ কামালসহ ওই ওয়ার্ডের ১৪ নেতা আনুষ্ঠানিকভাবে পদত্যাগের ঘোষণা দেন।

শনিবার রাতে খুলনা নগরের কে ডি ঘোষ রোডে অবস্থিত বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে বিশেষ সাংগঠনিক সভায় খুলনা মহানগর বিএনপির পাঁচটি থানা কমিটি বিলুপ্ত করা হয়। এর আগে নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষিত হওয়ার পর কমিটির পক্ষ থেকে করা সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়েছিল, আগে মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হবে। পরে থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হবে। কিন্তু তা না করে আগেই থানা কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।

নজরুল ইসলাম মঞ্জু ছিলেন খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি। ৯ ডিসেম্বর নতুন ঘোষিত কমিটিতে তাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এর প্রতিবাদ জানিয়ে ১২ ডিসেম্বর খুলনা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়। সর্বশেষ শনিবার দুপুরে তাকে বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি দিয়ে চিঠি দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি।


আরও খবর



তানোরে নানা আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালনে জনতার ঢল

প্রকাশিত:Tuesday ১১ January ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৪ January ২০২২ | ১০৯জন দেখেছেন
Image
তানোর প্রতিনিধি 
রাজশাহীর তানোরে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতার স্থপতি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাংগালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উৎযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে  সোমবার বিকেলের দিকে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে পরিষদ চেয়ারম্যান ময়নার বাস ভবন থেকে  আনন্দ র্যালি বের হয়ে  পরিষদ চত্বরে  বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে শ্রদ্ধা জানিয়ে থানা মোড়ে পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সদস্য শরিফ খানের সভাপতিত্বে এবং তানোর পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ প্রদীপ সরকারের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত পথসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি লুৎফর হায়দার রশিদ ময়না। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওহাব হোসেন লালু, দপ্তর সম্পাদক শিক্ষক জিল্লুর রহমান , মুন্ডুমালা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক তোফাজ্জুল হক খান, আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সাজেমান আলী,চান্দুড়িয়া ইউপির চেয়ারম্যান ইউপি আওয়ামী লীগ সভাপতি মজিবর রহমান, বাধাইড় ইউপির চেয়ারম্যান ইউপি আওয়ামী লীগ সম্পাদক আতাউর রহমান, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুবায়ের ইসলাম, যুবলীগ নেতা বদিউজ্জামাল নয়ন প্রমুখ।  অথিতি হিসেবে   ছিলেন,বীর মুক্তিযোদ্ধা অবশর প্রাপ্ত শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক,  উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা ভাইস-চেয়ারম্যান সোনিয়া  সরদার মুন্ডুমালা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আমির হোসেন আমিন  আমির হোসেন আমিন,উপজেলা  নির্বাহী সদস্য ও সরনজাই ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী আবু সাঈদ সরকার, কলমা ইউপির সভাপতি ল ইসলা ইসলাম স্বপন,সহসভাপতি আতাউর রহমান, কলমা ইউপি আওয়ামী নেতা আলাউদ্দিন, লুৎফর রহমান, কলমা ইউপি ছাত্র লীগের সভাপতি মুর্শেদুল মোমেনিন রিয়াদ, রামিল হাসান সুইট ও মাহাবুর রহমান মাহাম,ভুট্ট, মমিন, প্রমুখ।কলমা ইউপির সদস্য নাজিমুদ্দি ঘোড়া আলা ছয়টির মত ঘোড়া র্যালিতে এনে চমক দেখান।এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী  সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীগণ উপস্থিত ছিলেন। পথসভায় 
জনসভায় রুপ নেয়।শেষে বঙ্গবন্ধুর আত্মার মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। 

আরও খবর



১২ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীরা টিকা ছাড়া স্কুলে যেতে পারবে না

প্রকাশিত:Thursday ০৬ January ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৫ January ২০২২ | ১০২জন দেখেছেন
Image

করোনাভাইরাসের টিকা না নিয়ে শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাওয়া যাবে না বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, ১২ বছরের বেশি বয়সের শিক্ষার্থীরা অন্তত এক ডোজ টিকা নিয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেতে পারবে।

আজ বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে ব্রিফিংয়ে তিনি এ কথা জানান। ভিডিও কনফারেন্সে গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী এবং সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীরা বৈঠকে যোগ দেন।

খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, টিকা নেওয়া ছাড়া হোটেল-রেস্টুরেন্টের মতো শপিংমলে প্রবেশ করা যাবে না। একই সঙ্গে ট্রেন, প্লেন, লঞ্চেও চলাচল করা যাবে না। এমন বাধ্যবাধকতা রেখে দুয়েক দিনের মধ্যে আসছে সরকারি নির্দেশনা।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বাড়ির বাহিরে মাস্ক ছাড়া বের হওয়া যাবে না। কভিড সংক্রমণ আরও বাড়লে গণপরিবহনের অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচলের সিদ্ধান্ত হবে। তবে ভাড়া বাড়ানো যাবে না। রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানে সীমিত জনসমাগম করতে হবে।


আরও খবর



দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

প্রকাশিত:Thursday ০৬ January ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৬ January ২০২২ | ১১০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক" দেশের মানুষের আর্থসামাজিক উন্নয়ন ও ভাগ্য পরিবর্তনে সরকার কাজ করছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন,‘আমাদের সশস্ত্র বাহিনীতে উন্নয়ন, প্রযুক্তি জ্ঞান বৃদ্ধি এবং বিশ্ব দরবারে যেন তারা মাথা উঁচু করে চলতে পারে সেইভাবে আওয়ামী লীগ সরকার পদক্ষেপ নেয় এবং বাস্তবায়ন শুরু করে। কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে বেসরকারি খাতগুলো উন্মুক্ত করে দেই। সরকার জনগণের সেবক; সেটা আমরা প্রমাণ করেছি।’

আজ বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে রাজধানীর বিজয় সরণিতে অবস্থিত সামরিক জাদুঘর উদ্বোধনের পর তিনি এসব কথা বলেন।

জাদুঘরটি উদ্বোধন করে নিজেকে ধন্য মনে করেছেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন,‘এটি সশস্ত্র বাহিনীর জন্য মাইলফলক হয়ে থাকবে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং আমাদের তিন বাহিনী সম্পর্কে আমাদের তরুণ প্রজন্ম উদ্বুদ্ধ হবে। সম্যক জ্ঞান পাবে। মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারীসহ সশস্ত্র বাহিনীর সাবেক ও বর্তমান সদস্যদের মধ্যে একটি প্রেরণা আসবে। তারা তৃপ্ত হবেন।’

সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলার পেছনে বঙ্গবন্ধুর অবদানের কথা স্মরণ করে সরকারপ্রধান বলেন,‘স্বাধীনতার পরে তিনি সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী গঠন করেন। তাদের প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট গড়ে তোলেন। সাড়ে তিন বছর সময়ের মধ্যে রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলা ও আর্থ সামাজিক উন্নয়নের জন্য তিনি কাজ করেছেন। যুদ্ধ ক্ষতবিক্ষত দেশকে তিনি শূন্য থেকে দাঁড়িয়ে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গ্রাম পর্যায়ে উন্নয়ন ও তারা যাতে আত্মমর্যাদা নিয়ে বেঁচে থাকতে পারেন তার জন্য বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় বিপ্লবের কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলেন। কিন্তু দুর্ভাগ্য সেটা তিনি সম্পন্ন করে যেতে পারেননি। পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। একই সঙ্গে আমার মা ও ভাইসহ পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আপনজন হারিয়েছিলাম এটা সত্য কিন্তু বাংলাদেশ কী হারিয়েছিল? একের পর এক ক্যু হয়েছে। শত শত সেনা অফিসারকে জীবন দিতে হয়েছে। অনেক পরিবার এখনো তাদের খোঁজও পায়নি। পাশাপাশি রাজনৈতিক নেতাদের ওপর চলে অত্যাচার নির্যাতন। সেইসঙ্গে বাংলাদেশ যে আদর্শ নিয়ে স্বাধীন হয়েছিল তার থেকে বিচ্যুত হয়। বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা থেমে যায় যা কখনো হওয়ার কথা নয়।’

বারবার নির্বাচিত করার জন্য দেশবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন,‘আমরা দীর্ঘ সময় ক্ষমতায় থাকার কারণে কেবল দেশের উন্নয়ন নয় বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদায় উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি। ইশতিহারের ঘোষণা অনুযায়ী, সুনির্দিষ্টভাবে কাজ করার কারণেই এটা সম্ভব হয়েছে।’

জাদুঘরের গুরুত্বের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের যে ইতিহাস রয়েছে-স্বাধীনতার ইতিহাস, মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস এবং সেই সঙ্গে আমাদের সার্বভৌমত্ব রক্ষার প্রতীক সশস্ত্র বাহিনী-দেশের মানুষ যেন সে সম্পর্কে জানতে পারে, উপলব্ধি করতে পারে, আমাদের সামরিক বাহিনী অর্থাৎ সেনা, নৌ, বিমান বাহিনী কী কাজ করে, কিভাবে চলে বা অতীতে তারা কী করেছে সে বিষয়ে মানুষকে জানানো একান্তভাবে দরকার। বিশেষ করে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানা, একই সঙ্গে আমাদের ভবিষ্যৎ কী হতে যাচ্ছে-সে সম্পর্কে জানা দরকার।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘আজকে যে সামরিক জাদুঘরটি আমরা দেখছি-এটি প্রথমে নির্মিত হয়েছিল খুব ক্ষুদ্র পরিসরে। বিজয় সরণির পাশের জায়গাটিতে এটি প্রস্তুত করা হয়। আমার খুব আকাঙ্খা ছিল-এটিকে খুব আকর্ষণীয় স্থান হিসেবে গড়ে তোলার। তারই পাশে আরেকটি জায়গায় আমি প্রথমবার যখন সরকারে আসি, প্লানেটোরিয়াম করে ফেলি।’

তিনি বলেন, ‘যে কোনো কাজ আমি প্রথমবার যখন করতে গেছি, প্রতিটি ব্যাপারেই কিন্তু পরবর্তী সরকার এসে আমার বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। প্লানেটোরিয়াম যখন আমি করলাম এর জন্য আমার বিরুদ্ধে দুটো মামলা দেওয়া হয়েছিল। কেন দেওয়া হয়-আমি ঠিক জানি না। আমরা যখন প্লানেটোরিয়াম করেছি, তখনই সমস্ত ইউটিলিটি যেন সামরিক জাদুঘর এবং প্লানেটোরিয়াম-উভয়েই শেয়ার করতে পারে সে ব্যবস্থাও নিয়েছিলাম। আর সেই সঙ্গে সরকার প্রধান হিসেবে বিভিন্ন সময় বিদেশে যখন আমরা যাই বা কোনো সরকার প্রধান যখন আমাদের দেশে বেড়াতে আসে তখন যে উপহার দেয়-সেগুলো সংরক্ষণ করা এবং দৃষ্টিনন্দনভাবে রাখা ও মানুষের সামনে তুলে ধরার ব্যবস্থাও করি। আমাদের যে তোষাখানা জাদুঘর আছে বঙ্গভবনে, সেখানে স্টোর রুমের মতো জিনিসপত্রগুলো রাখা। কিন্তু সেগুলো মানুষের সামনে প্রদর্শন করবার ব্যবস্থা আমি নিয়েছি। এজন্য এই জায়গায় আমরা তোষাখানা জাদুঘরও নির্মাণ করি। এবং এটা সামরিক বাহিনীর হাতেই দিয়েছিলাম, একটা কমিটিও আমরা করে দেই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেই সঙ্গে সামরিক জাদুঘরটাকেও অত্যন্ত আধুনিক করে গড়ে তোলা এবং এটা যেন দৃষ্টিনন্দন হয়-সারা বিশ্বের যত সামরিক জাদুঘর হয়েছে, তারমধ্যে যেন শ্রেষ্ঠ জাদুঘর হিসেবে প্রতিষ্ঠা পায় সেটাই আমার আকঙ্খা ছিল। আমি এই জাদুঘরটি এখনো সরেজমিনে দেখিনি, প্রাথমিক পর্যায়ে যখন কাজ শুরু হয় তখন কিছুটা দেখেছি, যখন যতটুকু ডেভেলপ হয়েছে আমি ছবিতে দেখেছি, এবং যখন যেটা নির্দেশনা দেওয়ার আমি দিয়েছি, কিন্তু যতটুকু এখন দেখলাম—আমি মনে করি, এটা হবে সর্বশ্রেষ্ঠ, সুন্দর, আধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন একটি সামরিক জাদুঘর। কাজেই সেভাবে এটি তৈরি হোক সেটাই আমি চাই।’

তিনি বলেন, ‘জাদুঘর শুধু প্রদর্শনীর জন্য না, এটা দেখে আমাদের তরুণ প্রজন্ম দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হবে এবং দেশপ্রেমে জাগ্রত হয়ে তারা আমাদের সশস্ত্র বাহিনীতে, আমাদের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য যোগদান করতে আগ্রহী হবে, এগিয়ে আসবে।’


আরও খবর