Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

কোন শাড়ির যত্ন কীভাবে করবেন?

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
Image

সব নারীর কাছে আছে বাহারি সব শাড়ি। বাঙালি নারীকে শাড়িতে যেমন মানায়, আর হয়তো কোনো পোশাকে তেমন সুন্দর দেখায় না! বিভিন্ন উৎসব অনুষ্ঠানে কমবেশি সব নারীই শাড়ি পড়েন।

আবার অনেকেই নিয়মিত অফিসেও পরে যান শাড়ি। অন্যান্য পোশাকের চেয়ে শাড়ির যত্ন ও সংরক্ষণের বিষয়ে সবারই সতর্ক হতে হয়। না হলে সামান্য ভুলেও পছন্দের শাড়িটি নষ্ট হতে পারে।

তবে কোন শাড়ির যত্ন ও সংরক্ষণ কীভাবে কীভাবে শাড়ির যত্ন করবেন তা জেনে নিন। তাহলে অনেক পুরোনো শাড়িও রাখতে পারবেন নতুনের মতোই।

>> সুতি ও লিনেনজাতীয় শাড়ি ধোয়ার সময় বিশেষ নজর দিতে হবে।

>> গুঁড়া সাবানের চেয়ে লিকুইড সাবান দিয়ে শাড়ি পরিষ্কার করুন।

>> সব সময় ছায়াঘেরা জায়গায় শাড়ি শুকাতে দিন। নাহলে রোদের তাপে রং নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

>> সুতির শাড়ি ভালো করে ভাঁজ করে হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে রাখুন। আর অবশ্যই একটি হ্যাঙ্গারে একটিই শাড়ি রাখুন।
প্লাস্টিকের হ্যাঙ্গার ব্যবহার করুন। লোহার বা স্টিলের হ্যাঙ্গার ব্যবহার করলে শাড়িতে দাগ ধরে যেতে পারে।

>> সুতির শাড়ি আয়রন করার প্রয়োজন হয়। শাড়ির উপর একটা কাপড় পেঁচিয়ে তারপর সঠিক তাপমাত্রায় আয়রন করে নিন।

>> আলমারিতে শাড়ি ভাঁজ করে রাখার পরিবর্তে হ্যাঙ্গারে ঝুলিয়ে রাখলে শাড়ি ভালো থাকবে।

>> কর্পূর বা ন্যাপথালিন কখনো শাড়ির ভেতরে রাখবেন না। কোনো ছোট কাপড়ে মুড়িয়ে তারপর রাখুন।

>> শাড়িতে সরাসরি কখনো বডি-স্প্রে বা পারফিউম ব্যবহার করবেন না। এতেও শড়িতে দাগ পড়ে যেতে পারে।


আরও খবর



জম্মু-কাশ্মীরে ৩ বছরে চাকরি পেয়েছে ২৯ হাজার, স্বনির্ভর ৫ লক্ষাধিক

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১১জন দেখেছেন
Image

২০১৯ সালে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা অর্থাৎ ৩৭০ ও ৩৫এ ধারা বাতিলের পর থেকে ওই অঞ্চলে সরকারি চাকরি পেয়েছে ২৯ হাজার মানুষ। এছাড়া আত্ম-কর্মসংস্থান প্রকল্পের মাধ্যমে স্বনির্ভর হয়েছে আরও ৫ লাখ ২০ হাজার জন। ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিত্যানন্দ রায় এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গত বুধবার রাজ্যসভায় ভারতীয় প্রতিমন্ত্রী এক লিখিত জবাবে বলেন, জম্মু ও কাশ্মীর সরকার ২০১৯ সাল থেকে সর্বমোট ২৯ হাজার ৮০৬ জনকে সরকারি খাতে নিয়োগ দিয়েছে। এছাড়া ২০১৯ সালের আগস্ট থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত আনুমানিক ৫ লাখ ২০ হাজার জনের জন্য আত্ম-কর্মসংস্থান প্রকল্পের মাধ্যমে কাজের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এসময় কংগ্রেস দলীয় এক সদস্য জম্মু-কাশ্মীরে কর্মসংস্থান হারের বিস্তারিত জানতে চাইলে নিত্যানন্দ রায় বলেন, কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলটির জেলাভিত্তিক কর্মসংস্থান হারের তথ্য তাদের কাছে নেই।

২০১৯ সালের ৫ আগস্ট জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা, তথা স্বায়ত্তশাসন বাতিল করে ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ ও ৩৫এ ধারা বিলোপ ঘোষণা করে বিজেপি সরকার। এর মাধ্যমে সাবেক রাজ্যটিকে ভেঙে দুই ভাগে ভাগ করা হয় এবং সেগুলোকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে অন্তর্ভুক্ত দেওয়া হয়।

সূত্র: এএনআই, টাইমস নাউ


আরও খবর



শতভাগ জয় নিয়ে ফাইনাল খেলতে চায় বাংলাদেশ

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

ভারতের ভুবনেশ্বরে চলমান সাফ অনূর্ধ্ব-২০ চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ লিগ পর্যায়ের শেষ ম্যাচ খেলতে নামছে মঙ্গলবার। প্রতিপক্ষ নেপাল। ভুবনেশ্বরের কলিঙ্গ স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৪টায়।

প্রথম তিন ম্যাচ জেতার পরই বাংলাদেশের ফাইনাল খেলা প্রায় নিশ্চিত হয়েছিল। রোববার নেপাল ও ভারতের ম্যাচের ফলাফলের পর জমে গেছে ফাইনালে ওঠার লড়াই। শেষ দিনের খেলার পরই নির্ধারণ হবে কোন দুটি দল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলবে।

ভারতের কাছে নেপাল হেরেছে ৮-০ গোলে। এই ফলাফলের কারণে নেপালের সামনে এখন কঠিন চ্যালেঞ্জ। নেপালকে ফাইনালে যেতে হলে বাংলাদেশকে তো হারাতেই হবে, সেই সঙ্গে বাড়িয়ে নিতে হবে গোলও।

ভুবনেশ্বর থেকে বাংলাদেশ দলের গোলরক্ষক কোচ বিপ্লব ভট্টাচার্য্য জানিয়েছেন, ‘নেপাল যদি বাংলাদেশকে ৫-০ গোলে হারাতে পারে, তবেই তারা খেলার সুযোগ পাবে ফাইনালে।’

তবে ভারত ও মালদ্বীপের খেলার ফলাফলের ওপরও বাংলাদেশের ফাইনাল অনেকটা নির্ভর করছে। ওই ম্যাচে ভারত পয়েন্ট হারালে বাংলাদেশ সরাসরি উঠে যাবে ফাইনালে।

ভারত জিতলে এবং বাংলাদেশ হারলে, তখন তিন দলের পয়েন্ট হবে ৯ করে। হেড টু হেডও সমান হয়ে গেলে গোল ব্যবধানে নির্ধারণ হবে দুই ফাইনালিস্ট। এখন বাংলাদেশের গোল ব্যবধান +৫, ভারত +১১ ও নেপাল -১।

তবে বাংলাদেশ এই সব সমীকরণ নিয়ে ভাবছে না। সহকারী কোচ রাশেদ আহমেদ পাপ্পু বলেছেন, ‘নেপালকে হারিয়েই ফাইনালে যেতে চাই। কোনো সমীকরণ নিয়ে ভাবছে না দল।’

বাংলাদেশ ড্র করলেই অবশ্য উঠে যাবে ফাইনালমঞ্চে। দলের সহকারী অধিনায়ক মইনুল ইসলাম বলেছেন, ‘আমরা ভালো খেলেই ফাইনালে যেতে চাই এবং ফাইনালেও যাতে ভালো খেলতে পারি, তার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাচ্ছি।’


আরও খবর



শেখ হাসিনাকে নিয়ে মিশরীয় লেখকের উপন্যাস ‘ডিভাইন ডেসটিনি’ বাজারে

প্রকাশিত:Friday ২৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ওপর মিশরীয় লেখক ও সাংবাদিক মোহসেন আরিশির লেখা একটি মহাকাব্যিক উপন্যাস ‘ডিভাইন ডেসটিনি- দ্য লেজেন্ড অফ আ ফাদার, এ ডটার অ্যান্ড আ হলি বন্ড’ বাংলাদেশের বাজারে এসেছে।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, খ্যাতনামা প্রকাশনা সংস্থা অনিন্দ্য প্রকাশ এ উপন্যাসটি প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়, ‘ডিভাইন ডেসটিনি- দ্য লেজেন্ড অফ আ ফাদার, আ ডটার অ্যান্ড আ হলি বন্ড’ উপন্যাসে মহাকাব্যিক স্বাদ রয়েছে।

উপন্যাসে উল্লেখ করা হয়েছে যে বঙ্গবন্ধু যখন কারাগারে ছিলেন, উপন্যাসের চরিত্র শেখ হাসিনার মা তাকে বিভিন্ন ধরনের বই সরবরাহ করেছিলেন এবং পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করার পরে লেখক একটি বিশুদ্ধ রসবোধ সঞ্চার করেন, যেমন ‘তবে বাড়িতে রান্না করা খাবারের চেয়ে বন্দীর (বঙ্গবন্ধু) কাছে বই ছিল বেশি পছন্দনীয়।’

বইটির আনুষ্ঠানিক উন্মোচন অনুষ্ঠানে যোগ দিতে মোহসেন আরিশির আজ বাংলাদেশে পৌঁছানোর সম্ভাবনা রয়েছে।


আরও খবর



বিএনপি নেতারা জেগে জেগে ঘুমাচ্ছেন: কাদের

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

‘মানুষকে জেগে উঠতে’ বিএনপি নেতারা যে বক্তব্য দিয়েছেন তার জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মানুষ ঠিকই জেগে আছে, কেউ ঘুমিয়ে নেই। বরং বিএনপি নেতারাই জেগে জেগে ঘুমাচ্ছেন।

শনিবার (৩০ জুলাই) নিজ বাসভবনে ব্রিফিংকালে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের প্রসঙ্গে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, যে দল নিজেদের নেত্রীকে মুক্ত করার জন্য আন্দোলন করতে পারে না তারা নাকি আবার সরকার পতন ঘটাবে, এটা পাগলের প্রলাপ ছাড়া আর কিছু নয়।

আন্দোলনের ফানুস উড়িয়ে তারা গভীর শীত নিন্দ্রায় চলে যাচ্ছেন- এমন দাবি করে আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির সরকার পতনের আন্দোলন মানে নিজ দলের নেতাকর্মীদের মাঝেই এক গভীর দীর্ঘশ্বাস আর হতাশার বহিঃপ্রকাশ।

‘কিছু একটা বলতে হবে, তাই এসব হাই সাউন্ডিং শব্দ তারা ব্যবহার করে। বাস্তবে তাদের সক্ষমতা কতটুকু তা আমরা জানি, আন্দোলনের বস্তুগত পরিস্থিতি বিরাজমান কি না সেটাও বিএনপি নেতারা জানে না।’

বিএনপিকে এখন ‘কুম্ভকর্ণ’ উল্লেখ করে তাদের কুম্ভকর্ণের নিন্দ্রা ভাঙানো দরকার সবার আগে বলে মনে করেন সেতুমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগকে নাকি ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেবে, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের প্রশ্ন রেখে বলেন, ধাক্কা দিয়ে কাকে ফেলে দেবেন? আওয়ামী লীগকে? আওয়ামী লীগ কি অত ঠুনকো দল? বন্দুকের নল থেকে আওয়ামী লীগ জন্ম নেয়নি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের শিকড় এদেশের মাটি ও মানুষের অনেক গভীরে। আওয়ামী লীগকে ধাক্কা দিলে নিজেরাই খাদের কিনারায় আছেন, আপনাদেরই খাদে পড়ে যেতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, যারা এদেশে বসে ফরমায়েশি রাজনীতি করে তারা জনপ্রত্যাশা থেকে যোজন যোজন দূরে অবস্থান করছে এবং তাদের অবস্থানই জনগণের কাছে ঠুনকো ও ভঙ্গুর।


আরও খবর



অক্টোবরে শুরু হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মানোন্নয়নে চলতি বছরের অক্টোবর মাস থেকে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরু করবে বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)। এজন্য বিশেষজ্ঞদের সমন্বয়ে যুগোপযোগী প্রশিক্ষণ মডিউল তৈরি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে সংগঠনটি।

সরকারের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান ফর হায়ার এডুকেশন ইন বাংলাদেশ: ২০১৮-২০৩০-এর অংশ হিসেবে ইউনিভার্সিটি টিচার্স ট্রেনিং একাডেমি (ইউটিটিএ) প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে ইউজিসি। সেখানেই পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এ লক্ষ্যে সম্ভাব্যতা যাচাই ও উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাব (ডিপিপি) প্রণয়নের কাজ চলছে।

রোববার (৩১ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত মডিউল প্রণয়নে গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটির এক সভায় এসব কথা জানানো হয়।

সভায় আরও জানানো হয়, প্রস্তাবিত ইউটিটিএ প্রতিষ্ঠার আগ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন সুবিধাজনক ভেন্যুতে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক, সহকারী অধ্যাপকসহ জ্যেষ্ঠ শিক্ষকদের জন্যও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে।

প্রাথমিকভাবে নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত প্রভাষকদের চার মাসের ফাউন্ডেশন ট্রেনিং দেওয়া হবে। ৬০ ভাগ একাডেমিক ডেভেলপমেন্ট ও ৪০ ভাগ নন-একাডেমিক বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

সভায় ইউজিসি সদস্য, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক আলমগীর বলেন, প্রাথমিক-মাধ্যমিক-কলেজ পর্যায়ের শিক্ষকদের জন্য প্রশিক্ষেণের ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য বাধ্যতামূলক কোনো প্রশিক্ষেণের ব্যবস্থা নেই।

‘বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য মানসম্মত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা গেলে পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। কীভাবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে, মডিউলের ধরন কী হবে তা নিয়ে কাজ চলছে।’

ইউসিজি সদস্য বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, এ ধরনের প্রশিক্ষণ মানসম্মত শিক্ষক তৈরিতে ভূমিকা রাখবে। তাছাড়া, ইউটিটিএ শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার স্থায়ী প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করবে।


আরও খবর