Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

কোমর বেধে বোরো রোপনে বিলের জমিতে তানোরের কৃষক

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ জানুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ৩৯৭জন দেখেছেন

Image
তানোর প্রতিনিধি; কনকনে শীত সাথে হিমেল হাওয়ার কারনে খুব সকালে বিলের জমিতে নামা কষ্টকর হয়ে পড়েছিল। কিন্ত গত বৃহস্পতিবার, শুক্রবার ও শনিবার এবং রোববারে ঠান্ডা অনেকটাই কম ছিল। সেই ফাকেই কোমর বেধে বিলের জমিতে আগাম বোরো রোপন শুরু করেছেন রাজশাহীর তানোরের কৃষকরা। কাক ডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলছে রোপন ও জমি তৈরির কাজ। আর রাতে সেচ পাম্প থেকে রোপনকৃত জমিতে সেচ পানি ও তৈরির জন্য পানি নিচ্ছেন কৃষকরা। এককথায় দিন রাত সমান তালে চলছে কৃষি কাজ। তবে টানা কনকনে শীত ও হিমেল বাতাসের কারনে বীজ তলা কিছুটা ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে বলেও জানান কৃষকরা। এছাড়াও আলু সরিষা পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার হচ্ছে। দেখা দিয়েছে শ্রমিক সংকট। তারপরও থেমে থাকার অবকাশ নেই। তবে বিদ্যুতের বাড়তি দামে বাড়তি সেচ হারে মরার উপর খাড়ার ঘায়ের মত অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

জানা গেছে, উপজেলার নিচু এলাকা বলতে বিল কুমারি বা শীবনদী। এই বিলের জমিতে আগাম আলু সরিষা ও আগাম বোর চাষ হয়ে থেকে। যদিও পোষ মাসেই বিলের জমি রোপন হয়ে যায়। কিন্তু এবারে প্রচন্ড শীত অনেকটাই বাগড়া দিয়েছে। টানা ঘন কুয়াসা আর উত্তরের হিমেল হাওয়া কাবু করে দেয় সবাইকে। গত বৃহস্পতিবার, শুক্রবার, শনিবার ও রোববারে তেমন ঠান্ডা না থাকায় কোমর বেধে বোরো রোপন চলছে। কারো রোপন শেয হয়েছে তো কেউ রোপন করছেন। 
উপজেলার চান্দুড়িয়া ইউপি, তানোর পৌরসভার কালিগঞ্জ, বুরুজ, জিওল, আমশো, গোল্লাপাড়া, কুঠিপাড়া, হিন্দুপাড়া, তানোর পাড়া, সিন্দুকাই, গুবিরপাড়া, ধানতৈড়, চাপড়া, গোকুল, তালন্দ, সুমাসপুর, হরিপুর ও কামারগা ইউপির, কামারগা, শ্রীখন্ডা, দমদমা, মাঝিপাড়া, বাতাসপুর, পারিশো, দূর্গাপুর, মাদারিপুর,জমসেদপুর, বিহারইল, মাড়িয়া, মালশিরা, কলমা ইউপির কুজি শহর,চন্দনকোঠা এলাকা জুড়ে বিল কুমারি বিলের জমিতে চলছে বোরো রোপনের কাজ।

পৌর সদর গুবিরপাড়া গ্রামের কৃষক সাহেব আলী জানান, গত ১৩ দিন আগে বিলের সাড়ে ৪ বিঘা জমিতে বোরো রোপন শেষ হয়েছে। রোপনের পরে প্রচুর কোয়াসা, ঠান্ডা সাথে হিমেল বাতাসে ধান গাছের চেহারা লাকচে হয়ে গিয়েছিল, কয়েকদিন ধরে ঠান্ডা না থাকার কারনে চেহারা ভালো লাগছে। তিনি আরো জানান, শাওনের ৬ বিঘা ও মফিজের ২ বিঘা ১০ কাঠা রোপন শেষ হয়েছে। ভূমিহীন কৃষক  ফারুক জানান, বিলের নিচে  ২৫ কাঠা জমি রোপন করব, বিলের পানি নেমেছে, দুএক দিনের মধ্যে রোপন করা হবে, মজিবর, দেড় বিঘা, সুনিল, ৭ বিঘা, জুল, দেড় বিঘাা রোপন করবেন। শীতলীপাড়া বঙ্গবন্ধু সমবায় সমিতির গভীর নলকুপের সেচ পানির দায়িত্বে থাকা ডলার, শাকির, মমিন জানান, বেশির ভাগ জমি রোপন হয়েছে। সামান্য বাকি আছে। প্রচন্ড শীত না হলে রোপন হয়ে যেত।

কামারগাঁ ইউপির কৃষক আব্দুর রহিম জানান, এই ইউপিতে আগাম বোরো রোপন হয়। প্রায় জমি রোপন হয়েছে। যাদের জমিতে সরিষা কিংবা আলু আছে তাদের রোপন হয়নি। তবে আগাম রোপন হয়,কারন বন্যা হলে ইউপির জমিগুলো ঢুবে যায়। মুলত এজন্যই পোষ মাসেই রোপন শেষ হয়ে যায়।

উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল্লাহ আহম্মেদ জানান, এবারে বোরো চাষের লক্ষমাত্রা ১২ হাজার ৫০০ হেক্টর জমি। এখন পর্যন্ত প্রায় ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে রোপন হয়েছে। বিলের জমি রোপন প্রায় শেষের দিকে, উপরের মাঠে জমি তৈরি চলছে বলে জানান তিনি।
আব্দুস সবুর

আরও খবর



পেঁয়াজের সাদা ফুলে সৌন্দর্যের আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে ‘কালো সোনা’

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ৪৩জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:সবুজ কান্ডের ডগায় কদমের মতো দেখতে সাদা সাদা ফুলে ভরে গেছে উত্তর জনপদের ধানের রাজ্য খ্যাত নওগাঁর আত্রাই উপজেলার মিরাপুর ফসলের মাঠ। যা প্রকৃতির মায়াজালে আবৃত্ত এক অনন্য দৃশ্য, যেখানে সাদা ফুলের সমারোহ নয়, বরং এক অপার সম্পদের আহ্ধসঢ়;বান। এই ফুলের প্রশান্ত সৌন্দর্যের আড়ালে লুকিয়ে রয়েছে ‘কালো সোনা’, যা বাংলাদেশের কৃষকদের অর্থনীতিতে এক অপূর্ব সংযোজন। পেঁয়াজের বীজের উচ্চ বাজার মূল্যের কারণে কৃষি জগতে ‘কালো সোনা’ নামে পরিচিত। যেখানে কৃষকের পরিশ্রম ও প্রকৃতির সমন্বয়ে সৃষ্টি হয় এই অমূল্য ‘কালো সোনা’।

উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের পূর্বমিরাপুর, মিরাপুর, হাতিয়াপাড়া ও তারাটিয়া গ্রামে চাষ করা হয়েছে পেঁয়াজের বীজ। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর পেঁয়াজ বীজের সঙ্গে সম্পৃক্ত কৃষকদের মুখে হাসি ফুটেছে।চাষিরা বলছেন, এবার আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় খরচ বাদে এই পেয়াজের বীজ চাষে লাভ হবে দ্বিগুণেরও বেশি, তাই এগুলো ‘কালো সোনা’ নামে খ্যাতি পেয়েছে।   

সরেজমিনে উপজেলার মিরাপুর, হাতিয়াপাড়া ও তারাটিয়া মাঠে গিয়ে দেখা যায়, মাঠে মাঠে এখন শোভা পাচ্ছে পেঁয়াজ বীজের সাদা ফুল।শেষ সময়ের পরিচর্যায় ব্যস্ত চাষিরা। অনেকে আবার পেঁয়াজ বীজের গাছে শক্তি যোগানোর জন্য কীটনাশক স্প্রে করছেন। মৌমাছি সংকট থাকায় অনেক কৃষক আবার হাত দিয়েই পেঁয়াজ ফুলের ‘মধু ফেলা’র কাজ করছেন। এখন পর্যন্ত রোপন করা পেঁয়াজ বীজ গাছের ফলন ভালো হওয়ায় লাভের স্বপ্ন বুনছেন তারা। 

উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের পূর্বমিরাপুর গ্রামের কৃষক সাদ্দাম হোসেন জানান, গত বছর পেঁয়াজ বীজের দাম ভালো পাওয়ায় এ বছর আগ্রহ নিয়ে বেশি জমিতে পেঁয়াজ বীজের আবাদ করেছি। তিনি আরো বলেন, “এই এলাকায় আমিই প্রথম দানা চাষ শুরু করি। এই ফসল চাষে যা খরচ হয় তার থেকে দ্বিগুণ লাভ থাকে। বর্তমানে আমার দেখাদেখি এলাকার অনেক কৃষকই এই ফসলের চাষ করছে।” ছেলে-মেয়েকে লেখা-পড়ার খরচ চালাচ্ছি, আল্লাহর রহমতে এই ক্ষেত করে আমি ভালো আছি।” 

ফুলবাড়ি গ্রামের কৃষক মো. আব্দুর রহিম বলেন, আমি দীর্ঘ দিন যাবৎ পেঁয়াজ বীজের আবাদ করে থাকি। এই ফসল চাষ করে লাভবান হয়েছি। এ বছর ১বিঘা জমিতে পেঁয়াজের বীজ চাষ করেছি। 

শাহাগোলা ইউনিয়নের হাতিয়াপাড়া গ্রামের কৃষক মো. উজ্জল হোসেন বলেন, এ বছর দেড় বিঘা জমিতে আমি পেঁয়াজ বীজ চাষ করেছি। ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছি। বিভিন্ন রোগবালাইয়ের জন্য কীটনাশক স্প্রে করতে হচ্ছে। সবকিছু ঠিক থাকলে দেড় লাখ টাকার ওপরে বীজ বিক্রির আশা করছেন তিনি।

এ বিষয়ে উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের তারাটিয়া ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. জাহিদ হাসান জনান, উপজেলায় চলতি অর্থবছওে ২১৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ বীজ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, এ বছর পেঁয়াজ বীজ উৎপাদনের যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে, তা ছাড়িয়ে যাবে। এছাড়া আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষকরা যাতে বাণিজ্যিকভাবে পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন করতে পারেন, এজন্য উপজেলা কৃষি অফিস বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ থেকে বাজারজাত করা পর্যন্ত পরামর্শের পাশাপাশি প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ প্রসেনজিৎ তালুকদার বলেন, পিঁয়াজের বীজ চাষে কৃষকরা যাতে লাভবান হতে পারেন এবং কৃষকরা যেন পিঁয়াজ চাষে কোনো প্রকার সমস্যায় না পড়েন এ জন্য আমরা সার্বক্ষণিক নজর রাখছি। যেখানেই সমস্যা সেখানেই আমাদের উপস্থিতি এবং সমস্যা সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। পিঁয়াজ চাষে যুক্ত উপজেলার কৃষকরা এবার বেশ উৎফুল্ল।কারণ তারা প্রাকৃতিক অনুকূল পরিবেশের জন্য এবার উৎপাদিত ফসলের ফলন ও দাম বেশ ভালো পাবেন বলে তিনি মনে করছেন।


আরও খবর



নন্দীগ্রামে চুরির অপবাদে দুই কিশোরকে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন, গ্রেফতার দুই

প্রকাশিত:সোমবার ০১ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image
মনির নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি:বগুড়ার নন্দীগ্রামে দুইশো টাকা চুরির অপবাদে দুই কিশোরকে বাজারের মধ্যে প্রকাশ্যে রশি দিয়ে গাছে বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে। কয়েক দফায় অমানবিক নির্যাতনের একাধিক ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

এঘটনায় রবিবার (৩১ মার্চ) রাতে নির্যাতনের শিকার কিশোর সুমনের বাবা মিজানুর রহমান বাদী হয়ে ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। ইতিমধ্যে সেই মামলায় পুলিশ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতাররা হলেন- নন্দীগ্রাম পৌর এলাকার নামুইট গ্রামের মাতব্বর নজরুল ইসলাম ও কাচু প্রামানিক।

বুধবার (২৭ মার্চ) নন্দীগ্রাম পৌর এলাকার নামুইট তিনমাথা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। সড়কের মাঝখানে কড়ইগাছে বেঁধে নির্যাতনের শিকার দুই কিশোর উপজেলার তাঁরাটিয়া এলাকার মৃত আব্দুস সালামের ছেলে মুর্শিদুল ও ভাটরা গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে সুমন।

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, নামুইট তিনমাথা বাজারে ওয়াক্ত নতুন জামে মসজিদের দানবাক্স থেকে টাকা চুরির অভিযোগ তুলে দুই কিশোরকে রাস্তা থেকে ধরে আনে নামুইট গ্রামের মাতব্বর নজরুল ইসলাম ও কাচু প্রামানিক। পরে গ্রামের কয়েকজন মোড়ল একত্রিত হয়ে দুই কিশোরকে রশি দিয়ে গাছে বেঁধে সালিশ বসায়। অমানবিক নির্যাতন ও গাছে বেঁধে হেনস্তার সময় গ্রাম্য মোড়লদের হাতে-পায়ে ধরেও রক্ষা পায়নি দুই কিশোর। এতিম মুর্শিদুলকে নির্যাতনের সময় তার ভিক্ষুক মা মোড়লদের পায়ে পড়ে কান্না করলেও সন্তানকে রক্ষা করতে পারেননি। তারা আহত হলেও চিকিৎসা করানো হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। সড়কের মোড়ে নির্যাতনের সময় শতশত জনতা ভিড় করেন। যানবাহন থামিয়ে চালক, যাত্রী, পথচারি ও স্থাানীয়রা দাঁড়িয়ে থেকে দর্শকের মতো নির্যাতন দেখেন। দুই কিশোরকে বাঁচাতে এগিয়ে আসেনি কেউ। তবে কয়েকজন ব্যক্তি মারধর না করার অনুরোধ করলেও গ্রাম্য মোড়লরা ছিল বে-পরোয়া।

নির্যাতনের শিকার সুমন জানায়, তারা বাবা-ছেলে অটোভ্যান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে। সকালে দুই বন্ধু অটোভ্যান নিয়ে নন্দীগ্রাম শহরের দিকে যাচ্ছিলো। নামুইট মোড়ে ভ্যান থামানোর সঙ্গে সঙ্গে পেছন থেকে চোর চোর করে চিৎকার করে নামুইট গ্রামের মাতব্বর নজরুল। কয়েকজন মোড়ল ও স্থানীয় লোকজন এসে যাচাই না করেই দুই কিশোরকে মারতে মারতে রাস্তার পাশে নিয়ে যায়। কিছু বুঝে ওঠার আগেই চোর আখ্যা দিয়ে একঘন্টা অমানবিক নির্যাতন করা হয়। প্রমাণ ছাড়া মারধরের বিষয়ে উপস্থিত কয়েকজন প্রশ্ন তোলায় দুই কিশোরকে মসজিদের ভেতর নিয়ে যায়। সেখানে প্রায় আধাঘন্টা নির্যাতনের পর দুই কিশোরকে নামুইট তিনমাথা মোড়ে এনে কড়ইগাছে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে।

গ্রাম্য মাতব্বররা দাবি করেন, ফজর নামাজ শেষে মসজিদ থেকে মুসল্লিরা চলে যাওয়ার পর দুই কিশোর দানবাক্স থেকে টাকা চুরি করে। তাদেরকে আটক করে শাসন করে ছেড়ে দেওয়া হয়।

নন্দীগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আজমগীর হোসাইন বলেন, চুরির অপবাদে গাছে বেঁধে হেনস্থা ও নির্যাতনের ঘটনায় জড়িতদের ছাড় দেওয়া হবে না। ভিডিওসহ তথ্য পেয়েই অভিযানে নেমেছে পুলিশ। এঘটনায় ৮ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

আরও খবর



মাদক কারবারে সাবেক এমপি বদির ২ ভাইয়ের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে সিআইডি

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ৩০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) থেকে জানানো হয়েছে,মাদক ব্যবসার সঙ্গে টেকনাফের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির দুই ভাই আমিনুর রহমান ও আব্দুর শুক্কুরের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর মালিবাগের সিআইডির মিডিয়া সেন্টারে এ সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

‘সিআইডির জালে মাদকের গডফাদাররা: বিপুল পরিমাণ স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি ক্রোক’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান সিআইডি প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আলী মিয়া।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে সিআইডি ৩৫টি মামলা তদন্ত করে মাদক মামলার মূল হোতা তথা গডফাদারদের মাদক ব্যবসা থেকে অবৈধভাবে অর্জিত অর্থ (ব্যাংক অ্যাকাউন্টে রাখা), ক্রয়কৃত জমি, বাড়ি ও ফ্ল্যাটসহ বিভিন্ন স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির সন্ধান পায়। এসব মামলায় অবৈধভাবে অর্জিত অর্থের পরিমাণ প্রায় ১৭৮.৪৪ কোটি টাকা। সিআইডি ইতোমধ্যে উল্লিখিত মামলাসমূহের মধ্যে ৩টি মামলায় গডফাদারদের ৯.১৪ একর জমি ও ২টি বাড়ি যার মূল্য ৮.১১ কোটি টাকা ক্রোক এবং মাদক সংক্রান্ত মানিলন্ডারিং বিভিন্ন মামলায় ব্যাংকে রাখা ১ কোটি ১ লাখ ২৩ হাজার ৪২৫ টাকা ফ্রিজ করেছে। আরও ৩৫ দশমিক ১৭৩ একর জমি, ১২টি বাড়ি ও ১টি গাড়ি যার মূল্য ৩৬ দশমিক ৮২ কোটি টাকা ক্রোকের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

সিআইডি প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মোহাম্মদ আলী মিয়া আরও বলেন, মাদকের গডফাদার হিসেবে কক্সবাজারের সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদির নাম বার বার উঠে এসেছে। ৩৫ মামলার তদন্ত করতে গিয়ে সিআইডি বদি বা তার ভাইয়ের মাদক ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। মাদক মামলার মানিলন্ডারিং সংক্রান্ত বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে টেকনাফের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির দুই ভাই আমিনুর রহমান ও আব্দুর শুক্কুরের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়। বদির বিরুদ্ধেও যদি আমরা সাক্ষ্য-প্রমাণ পাই তাহলে ছাড় দেওয়া হবে না। যার বিরুদ্ধেই তথ্য-প্রমাণ পাব ধরা হবে, ছাড় দেওয়া হবে না।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কক্সবাজারে পর্যায়ক্রমে মাদকের সব গডফাদারদের আইনের আওতায় আনা হবে। মাদক ব্যবসায় যারা অবৈধভাবে সম্পদ ও অর্থ বিত্তের মালিক হয়েছেন তাদের অবৈধ সম্পদ আইনি প্রক্রিয়ায় সরকারি কোষাগারে চলে যাবে। দেশ প্রেমিক নাগরিকদের প্রতি মাদক গড ফাদারদের তথ্য সিআইডিকে প্রদান করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে স্বল্পমূল্যে দুগ্ধজাত পণ্য ও মাংস বিক্রির শুভ উদ্বোধন

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

রাকিবুল ইসলাম রাকিব,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি;সিরাজগঞ্জে পবিত্র মাহে রমজান মাস উপলক্ষে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে স্বল্প মূল্যে দুধ, ডিম, মাংস, মাঠা ও ঘোল ভ্রাম্যমান বিক্রয় স্টল  শুভ উদ্বোধন  করলেন ডা.মো. ওমর ফারুক, 

সোমবার (২৫ মার্চ) সকালে সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসন ও জেলা প্রাণিসম্পদের উদ্যোগে বাজার স্টেশন চত্বরে বিক্রয় স্টল উদ্বোধন ও পরিদর্শন করেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা.মো. ওমর ফারুক ।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. ওমর ফারুক  তিনি বলেন, দেশের মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণে মাছ-মাংস-ডিম-দুধের বিকল্প নেই। প্রাণিসম্পদ প্রাণী রক্ষায় এবং আমিষের চাহিদা পূরণ করতে আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে। আমিষের চাহিদা মিটাতে প্রাণিসম্পদের এই প্রদর্শণী খামারী সৃষ্টির লক্ষ্যে যথেষ্ট অবদান রাখবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সিরাজগঞ্জ  পৌরসভার-১ প্যানেল মেয়র- রিয়াদ রহমান,  জেলা প্রানিসম্পদ বিভাগের  ভেটেনারি অফিসার-ডা. মো. শাহাবুদ্দিন, জেলা ট্রেনিং অফিসার-ডা.মো. হাবিবুর রহমান, প্রিন্সিপাল সাইন্টিফিক অফিসার- ডা.রৌশনি আক্তার, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা-ডা. মো. আলমগীর হোসেন, এল ডি ডি পি প্রকল্পের প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা– ডা.সাইফুল ইসলাম, এল ডি ডি পি প্রকল্পের জেলা মনিটরিং কর্মকর্তা মো. রাজু আহমেদ, চর অঞ্চল প্রকল্পের প্রাণিসম্পদ সম্প্রসারণ কর্মকর্তা  ডা. মো. সোহেল, উপ-সহকারী প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা/ভিএফএ গণ ও প্রজেক্ট ম্যানেজার, এনডিপি- মো. মাসুদ  মন্ডল। 

উল্লেখ্য, এই বিক্রয় কার্যক্রম ঈদের আগের দিন পর্যন্ত চলমান থাকবে। দুধ প্রতি লিটার -৭০ টাকা, ঘোল ৮০ টাকা, মাঠা -১০০ টাকা, ডিম- ৯ টাকা (প্রতি পিস ),গরুর মাংস -৬৫০ টাকা ও খাসির মাংস- ৯৫০ টাকা কেজি।


আরও খবর



নিটারে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ১৫৯জন দেখেছেন

Image

মিঠুন দাস মিঠু, ক্যাম্পাস প্রতিনিধি, নিটার:সাভারের জাতীয় বস্ত্র প্রকৌশল ও গবেষণা ইনস্টিটিউট-নিটার এ ২৫শে মার্চ, ২০২৪ খ্রিষ্টাব্দ রোজ সোমবার দুপুর ২ ঘটিকায় নিটারের কনফারেন্স রুমে ৫৪ তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

আয়োজিত এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক ড. মোহাম্মদ জুনাইবুর রশীদ। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ডিপার্টমেন্ট অফ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এর অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ইঞ্জিনিয়ার নুরুন্নবী, ডিপার্টমেন্ট অফ ইন্ডাস্ট্রিয়াল প্রোডাকশন এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এর অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর মোহাম্মদ ফাতেহ আলী খান পান্নী, ডিপার্টমেন্ট অফ কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং এর অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ইন্দ্রজিৎ কুমার পাল, ডিপার্টমেন্ট অফ টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ারিং এর লেকচারার তানজিনা রিফাত টুম্পা সহ বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টের সম্মানিত বিভাগীয় প্রধান, অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ও লেকচারার গন। নিটারের বিভিন্ন ব্যাচের শতাধিক শিক্ষার্থী ও নিটারের কর্মচারীদের উপস্থিতিতে  নিটার কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম সাহেবের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে আলোচনা সভাটির সূচনা হয়।

প্রতিষ্ঠানটির ডিপার্টমেন্ট অফ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার ডিপার্টমেন্টের লেকচারার তানজিনা রিফাত টুম্পার সঞ্চালনায় আলোচনা সভার সূচনালগ্নে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম বিবিসি ওয়ার্ল্ড এর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করে দেখানো হয় যেখানে কিনা মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ২৫শে মার্চে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্মমতার নির্মম ইতিহাস ও গনহত্যা পরবর্তী ঢাকার থমথমে চিত্র ফুটে উঠে। পরবর্তীতে ২৫শে মার্চের ভয়াল কালরাত্রিতে পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর নির্মমতার শিকার তৎকালীন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রভোস্ট শহীদ জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা এর উপর চালানো পৈশাচিক নির্যাতনের ঘটনা নিয়ে নির্মিত একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করে দেখানো হয়।

আলোচকদের মধ্যে অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর জনাব ইঞ্জিনিয়ার নুরুন্নবী বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে একাওরের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে শহীদ হওয়া সকলের আত্নার মাগফিরাত কামনা করে বক্তব্য শুরু করেন, বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন থেকে একাওরের ১৬ই ডিসেম্বর বিজয় অর্জন করার আগ পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে সংগঠিত বিভিন্ন আন্দোলন-সংগ্রামের ইতিহাস তুলে ধরেন।  ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষনের তাৎপর্য তুলে ধরার পাশাপাশি ২৫শে মার্চের ভয়াল কালরাত্রির কথা স্মৃতিচারণ করেন। অতঃপর অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর জনাব মোহাম্মদ ফাতেহ আলী খান পান্নি ওনার বক্তব্যে বিভিন্ন জাতীয় দিবসগুলো শুধু উদযাপনের মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সেগুলোকে নিজেদের মধ্যে লালন করে বাস্তব জীবনে প্রতিফলন ঘটানোর গুরুত্বের কথা তুলে ধরেন।

প্রধান অতিথি প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক জনাব ড. মোহাম্মদ জুনাইবুর রশীদ উপস্থিত  সকলকে সালাম ও মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের শুভেচ্ছা জানিয়ে তার বক্তব্য শুরু করেন, বক্তব্যে তুলে ধরেন মোট জনসংখ্যার মধ্যে  পূর্ব পাকিস্তানের জনসংখ্যা বেশি থাকা সত্বেও পশ্চিম পাকিস্তানের জন্য অধিকাংশ বাজেট বরাদ্দ দিয়ে বৈষম্য সৃষ্টির কথা, সেনাবাহিনীর উচ্চপদগুলোতে নিয়োগে বৈষম্য,  ১৯৭০ সালের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয় লাভ করা সত্বেও ক্ষমতা হস্তান্তর না করা, ১৯৭১ সালের ২রা মার্চ কলা ভবনে পতাকা উওোলন ও ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষনের তাৎপর্য তুলে ধরেন। প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধের সূচনা লগ্ন থেকে বিজয় অর্জন করা পর্যন্ত বাঙালির আত্নত্যাগের সকল ঘটনাবলী ধাপে ধাপে তুলে ধরেন উপস্থিত শ্রোতাদের নিকট।

সর্বশেষে, অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর জনাব ইন্দ্রজিৎ কুমার পাল তার সমাপনী বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু কর্ণারে এশিয়াটিক সোসাইটি থেকে প্রকাশিত মুক্তিযুদ্ধ কোষ (১০ খন্ড) বইটি রাখার জন্য অনুরোধ জানান। এভাবেই, স্বাধীন সর্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আত্নত্যাগকারী সকল বীর শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনার মধ্য দিয়ে আলোচনা সভাটির সমাপ্তি হয়।


আরও খবর