Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

খাগড়াছড়িতে চাঞ্চল্যকর শিশুধর্ষণ মামলার মূল আসামী গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে চাঞ্চল্যকর শিশুধর্ষণ মামলার মূল আসামী মো. রইস মিয়া (৫৩) কে খাগড়াছড়ি পৌরসভার  শালবন রসুলপুরস্থ  ভাড়া বাসা থেকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।

সোমবার (২৭ নভেম্বর)খাগড়াছড়ি জেলার অপরাধ দমন, আসামি গ্রেফতার ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি রক্ষণাবেক্ষণে মান্যবর পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) মহোদয়ের সুদক্ষ দিক নির্দেশনায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ। এরই ধারাবাহিকতায় খাগড়াছড়ি জেলার সদর থানার পুলিশের চৌকস  অফিসার ও সঙ্গীয় ফোর্সের সহায়তায় মূল আসামী মো. রইস মিয়া (৫৩)কে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত আসামী হলেন-মো. রইস মিয়া (৫৩)  মৃত শাহেদ আলী ছেলে। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে চাঞ্চল্যকর ৩ বছর বয়সী শিশু ধর্ষন মামলাটি  ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন সংশোধনী ২০০৩ এর ধারা এ ৯(১) একটি মামলা রুজু হয়।পরে খাগড়াছড়ি সদর থানার পুলিশের চৌকস  অফিসার ও সঙ্গীয় ফোর্সের সহায়তায় মূল আসামী মো. রইস মিয়া (৫৩)কে খাগড়াছড়ি পৌরসভার  শালবন রসুলপুরস্থ  ভাড়া বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 

গ্রেপ্তারকৃত আসামীকে ঘটনার বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদে সে উক্ত ঘটনার সাথে জড়িত থাকার বিষয়টি প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেন এবং আসামি বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিবে বলে স্বীকার করেন। ঘটনার দিন গত ২৭/১১/২০২৩ইং তারিখ সকাল অনুমান ১০.৩০ ঘটিকা হইতে ১১.০০ ঘটিকার সময়ের মধ্যে ভিকটিম শিশু (০৩) কে শালবন রসুলপুরস্থ জনৈক মোঃ সুজন মিয়ার মালিকানাধীন টিনের ঘরের ভিতর আসামীর ভাড়া বাসার শয়ন কক্ষে ভিকটিমের সাথে আসামী উক্ত শিশু ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটায় মর্মে প্রতীয়মান হয়।

খাগড়াছড়ি সদর থানায়  আসামীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়। ভিকটিমের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন করে, সু—চিকিৎসার জন্য বর্তমানে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সরকার ৩ কার্গো এলএনজি কিনছে সিঙ্গাপুর থেকে

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৯৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দেশে গ্যাসের চাহিদা মেটাতে সিঙ্গাপুরের দুটি প্রতিষ্ঠান থেকে তিন কার্গো লিকুইডিফাইড ন্যাচারাল গ্যাস (এলএনজি) আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এতে ব্যয় হবে ১ হাজার ২৭৪ কোটি ১১ লাখ ৭৬ হাজার ৫২০ টাকা।

বুধবার (০৭ ফেব্রুয়ারি) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এলএনজি আমদানির এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

পরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহমুদ খান সাংবাদিকদের বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) আইন ২০১০ (সংশোধনী ২০২১) এর আওতায় মাস্টার সেল অ্যান্ড পার্সেস এগ্রিমেন্টে (এমএসপিএ) সই করা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে কোটেশন সংগ্রহ করে কার্গো এলএনজি আমদানি করা হবে।

তিনি জানান, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সিঙ্গাপুরের প্রতিষ্ঠান ‘এমএস গুলবার সিঙ্গাপুর প্রাইভেট লিমিটেড’ থেকে এক কার্গো এলএনজি আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৪২৫ কোটি ৮১ লাখ ৫৭ হাজার ৯৪০ টাকা। প্রতি এমএমবিটিইউ এর মূল্য পড়বে ৯ দশমিক ৮৪৭০ মার্কিন ডলার।

পাশাপাশি জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সিঙ্গাপুরের প্রতিষ্ঠান ‘এমএস ভিটল এশিয়া প্রাইভেট লিমিটেড’ থেকে এক কার্গো এলএনজি আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে ব্যয় হবে ৪২২ কোটি ৪৮ লাখ ৬০ হাজার ৬৪০ টাকা। প্রতি এমএমবিটিইউ এর মূল্য পড়বে ৯ দশমিক ৭৭০ মার্কিন ডলার।

এর আগে, গত ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে সিঙ্গাপুরের প্রতিষ্ঠান ‘মেসার্স ভিটল এশিয়া পিটিই লিমিটেড’ থেকে এক কার্গো এলএনজি ৪২৯ কোটি ৪০ লাখ ৫০ হাজার টাকায় আমদানির অনুমোদন দেওয়া হয়।


আরও খবর



সরকারি টাকা আত্মসাৎ করেছেন দলনেত্রী, ৪৬ নারী সদস্যের বিরুদ্ধে নোটিশ

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৫জন দেখেছেন

Image
জহুরুল ইসলাম খোকন সৈয়দপুর (নীলফামারী)প্রতিনিধি:সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রুপ ঋণ নিয়ে সব টাকা আত্মসাৎ করেছেন দলনেত্রী। অথচ সেই ঋণ পরিশোধের তাগিদে নোটিশ দেয়া হয়েছে ৪৬ জন নারী সদস্যদের । সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজশে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

অভিযোগ রয়েছে,দরিদ্র অসহায় নারীদের জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা আত্মসাত করতেই এই অভিনব কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। কর্মকর্তা ও দলনেত্রী পরস্পরকে দোষারোপ করে দায়ী করলেও মূলত: হয়রানির শিকার হয়েছেন ওই নারীরা। আইনী ঘোরপ্যাঁচ না বুঝে পরিবার সহ জেল জরিমানার আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন তারা।

জানা যায়, নীলফামারীর সৈয়দপুরে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয় থেকে ২০২১ সালে উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের সাতপাই কাগজীপাড়ার নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির সদস্যদের নামে ৫ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এই ঋণের টাকা ৪৬ জন দরিদ্র নারীর নামে পৃথক পৃথক ভাবে চেক প্রদানের মাধ্যমে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে বলা হলেও চেকগুলো সব দলনেত্রী তথা ওই নীলপল্লীর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক (মালিক) উপজেলার বিশিষ্ট নারী নেত্রী হিসেবে পরিচিত কামরুন্নাহার ইরাকেই এককভাবে দিয়েছেন মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা। 

সেই টাকা উত্তোলন করে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম চালাচ্ছেন ইরা। কিন্তু যাদের নামে ঋণ নেয়া হয়েছে সেই নারীরা কেউই জানেন না যে তাদের নামে ১৫ হাজার করে টাকা ঋণ নেয়া হয়েছে। দীর্ঘ দুই বছর পর মহিলা বিষয়ক অফিস থেকে ঋণ পরিশোধ না হওয়ায় আইনী পদক্ষেপ নেয়ার নোটিশ দেয়া হলে তারা জানতে পারেন বিষয়টি। 

এলাকার মিজানুর রহমানের স্ত্রী মুক্তা বানু বলেন, আমরা অনেক নারী কাজ শিখে নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির অধীনে কারচুপি, নকশিকাঁথা, পাটের তৈরী বিভিন্ন শৌখিন পন্য, পোশাকে হাতের সেলাই কাজ করে উপার্জন করছি। পাশাপাশি হাঁস মুরগীও ছাগল পালন করি। কিন্তু কোন দিনও সরকারি সংস্থা বা এনজিও থেকে বড় অংকের কোন টাকা নেইনি বা পায়নি। 

প্রায় দুই বছর আগে নারী নেত্রী ইরা আমাদের অনেককে ডেকে সরকারি অফিস থেকে উন্নত সেলাই প্রশিক্ষণ ও  সেলাই মেশিন দেয়ার কথা বলে কিছু সাদা কাগজে স্বাক্ষর এবং ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ছবি নেন তিনি । কোন চেকে কখনই স্বাক্ষর বা টিপ সহি দেইনি।  নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির কর্মকর্তা সালাম ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের সুপারভাইজার হামিদুর রহমান একাজে ইরাকে সহযোগীতা করেন। 

কিন্তু আজ পর্যন্ত প্রশিক্ষণ বা সেলাই মেশিন দেয়া হয় নি। অথচ বলা হচ্ছে আমাদের ৪৬ নারীর প্রতি জনকে ১৫ হাজার টাকা করে ঋণ দিয়েছে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা। যা দুই বছর মেয়াদ শেষেও পরিশোধ না হওয়ায় রিন খেলাপি  হিসেবে আইন আদালত করা হবে বলে নোটিশ দেয়া হয়েছে। পর পর দুই বার নোটিশ পেয়ে আমরা হতবাক।

একই এলাকার হাছেনুরের স্ত্রী বৃষ্টি বলেন, প্রথমবার নোটিশ পেয়ে আমরা ইরা কে ধরলে তিনি বলেন, তোমাদের কিছুই হবেনা। আমি দেখতেছি। কিন্তু দ্বিতীয় বার নোটিশ এলে তিনি বলেন, তোমাদের নামে আমি টাকা তুলে দৈনিক ভিত্তিক ঋণ কার্যক্রম চালাচ্ছি। যা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সবই জানেন।

নুর আলমের স্ত্রী রুনা লায়লা বলেন, আমিসহ ৫ জন মহিলা সদস্যকে দিয়ে সব চেকে সাইন নিয়ে সেই চেক সবগুলো ইরা নিয়েছেন। অফিসের লোকজনের সহায়তায় সেই টাকা তুলে আমাদের কয়েকজনকে কিছু কিছু করে ঋণ দিয়েছেন। যা অনেক আগেই আমরা সুদ সহ পরিশোধ করেছি। কিন্তু তারপরও কেন সবার নামে ঋণ খেলাপীর নোটিশ এসেছে বুঝতে পারছিনা। 

মিন্টুর স্ত্রী মিনা বলেন, আমি সমিতির সদস্য নই। কখনো কোথাও স্বাক্ষরও দেইনি। শুধু ঈদ উপলক্ষে কামরুননাহার ইরা আমাকে  সেমাই চিনি দেয়ার কথা বলে ভোটার আইডি কার্ড এর ফটোকপি নিয়েছেন। সেই আইডি দিয়েও তিনি মহিলা বিষয়ক অফিস থেকে ঋণ তুলেছেন। আর এখন নোটিশ এসেছে আমার নামে। এটা কিভাবে সম্ভব? ওই অফিসের লোকজন ও ইরা যোগসাজশ করেই এমন কান্ড ঘটিয়েছেন বলে জানান তিনি । এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। 

এব্যাপারে গতকাল নারী নেত্রী কামরুন্নাহার ইরার বাড়িতে গেলে নোটিশ প্রাপ্ত নারীরাও উপস্থিত হন সেখানে । তাদের সামনেই তিনি সদস্যদের নামের সব টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই টাকাতো অনুদান হিসেবে নিয়েছি। তাই পরিশোধ করিনি। সদস্যদের না জানিয়ে চেকে জাল স্বাক্ষর দিয়ে একাই সব টাকা তুললেন কেন এবং কেনই বা তাদের দিলেন না জানতে চাইলে তিনি কোন কথাই বলবেন না জানান।

তিনি বলেন, এর আগেও তো ঋণ নিয়ে পরিশোধ করেছি। কিন্তু করোনাকালে সমস্যা হওয়ায় অনুদান চেয়ে আবেদন করেছিলাম। ভেবেছিলাম তাই দেয়া হয়েছে। টাকার জন্য সদস্যদের অহেতুক যেন হয়রানি করা না হয়,সেজন্য ইতোমধ্যে ৪৫ হাজার টাকা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে দিয়েছি। বিষয়টি জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অবগত আছেন বলে জানান তিনি। 

স্হানীয়রা বলছেন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সহ ওই অফিসের কর্মচারী হামিদুলের যোগসাজশে ৪৫ নারীর স্বাক্ষর জাল করে একাই মোটা অংকের টাকা আত্মসাত করেছে নারী নেত্রী কামরুন্নাহার ইরা। আর টাকা পরিশোধের নোটিশ দেয়া হচ্ছে অসহায় নারীদের। বিষয় টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্হা নেয়ার জোর দাবী সকলের।

তবে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুনন্নাহার শাহাজাদী বলেন, আমরা নীতিমালা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছি। গ্রুপ লোন নেয়ার ক্ষেত্রে সদস্যদের নামে চেক ইস্যু করে তা দলনেত্রীকে এককভাবে দেয়ার নিয়ম আছে। টাকা নিয়েছেন ইরা অথচ নোটিশ দিয়েছেন ৪৬ নারীকে কেন? প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, তাদের নামে আবেদন, রেজিষ্টার ও চেক ইস্যুর ডকুমেন্টস আছে। তাই তাদের টাকা পরিশোধের নোটিশ দেয়া হয় ।

বিষয় টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসমাইল বলেন, অসহায় মানুষের স্বাক্ষর জাল করে সরকারি টাকা আত্মসাত কারি যেই হোক না কেন ছাড় দেয়া হবে না। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজের বার্ষিক ক্রীড়ার পুরস্কার বিতরণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:মঙ্গলবার বিকেলে যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজে ৩৫তম আন্তঃহাউজ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রতিযোগিতার বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন প্রধান অতিথি সেনাবাহিনীর যশোর অঞ্চলের এরিয়া কমান্ডার ও ৫৫ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল মোহাম্মদ মাহবুবুর রশীদ। এ সময় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে সহশিক্ষা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে খেলাধুলার ওপর গুরুত্বারোপ করে তিনি বক্তব্য রাখেন। তিনি তার বক্তব্যে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষার্থীদের একাডেমিক ফলাফল ও শৃঙ্খলার মানের ভূয়সী প্রশংসা করেন। সভাপতিত্ব করেন কলেজের অধ্যক্ষ লে. কর্ণেল নুসরাত নুর আল চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিসহ আমন্ত্রিত অতিথিরা শিক্ষার্থীদের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন। প্রতিযোগিতা শেষে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বাংলাদেশের ৮টি বিভাগের ইতিহাস ঐতিহ্য নিয়ে ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত হয়। ডিসপ্লের মাধ্যমে নিজ নিজ বিভাগের ইতিহাস ঐতিহ্য খাবার, স্থাপনার প্রতিচ্ছবি ফুঁটিয়ে তোলা হয়। অনুষ্ঠানে যশোর এরিয়ার উর্দ্ধতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, কলেজের শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, একাডেমিক কার্যক্রমের পাশাপাশি খেলাধূলার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের নৈতিক মনোবল দৃঢ় ও প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব তৈরি করার উদ্দেশে প্রতি বছর আন্তঃহাউজ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।সুস্থ্য দেহে সুন্দর মন, এই স্লোগানে ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় এ বছর প্রায় ৪৩টি ইভেন্টে দেড় হাজার শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সিরাজগঞ্জে বাবা-মা ও মেয়েকে গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৯জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ থেকে:সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলা সদরের বারোয়ারি বটতলা মহল্লার নিজ বাড়িতে একই পরিবারের তিনজন কে কুপিয়ে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে ।

নিহতরা হলেন তাড়াশ পৌর এলাকার কালিচরণ সরকারের ছোট ছেলে বিকাশ সরকার (৪৫), তাঁর স্ত্রী স্বর্ণা রানী সরকার(৪০) ও মেয়ে তাড়াশ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী পারমিতা সরকার তুষি (১৫)।

নিহতের বড়ভাই প্রকাশ সরকার তাড়াশ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ।পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, হত্যাকারীরা পরিকল্পিত ভাবে গোপনে তাদের কে হত্যা করে ফ্লাটে তালা লাগিয়ে দিয়ে যায়। স্বজনরা দুদিন যাবত তাদের  খোঁজ না পেয়ে  পুলিশ কে খবর দিলে পুলিশ সোমবার দিবাগত রাত তিন টার দিকে তালা ভেঙ্গে মেঝেতে ও বিছানায় তাদের লাশ দেখতে পায়। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত পুলিশ বাড়িটি ঘিরে রেখেছে।

তা[ড়াশ থানার ওসি ( তদন্ত) মো: নূরে আলম বলেন, নিহতের স্বজনরা জানায়, তাদেরকে গত দুইদিন ধরে  না পেয়ে স্বজনরা মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়। পরে বাসায় গিয়ে বাইরে থেকে তালা ঝোলানো দেখতে পেয়ে পুলিশ কে খবর দিলে, পুলিশ তালা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে দেখতে পায় তাদের কে কুপিয়ে ও জবাই হত্যা করা হয়েছে।

স্বজনদের ধারনা রোববারের রাত থেকে সোমবার দিনের কোন এক সময়ে এ হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়েছে। এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়ের করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।

আরও খবর



মানুষের কল্যানে, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু কন্যা নিরলস ভাবে কাজ করছেন-হুইপ ইকবালুর রহিম

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯১জন দেখেছেন

Image

দিনাজপুর প্রতিনিধি:আপনারা (জনগন) নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আমাকে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত করায় দিনাজপুরবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম বলেন, মানুষের কল্যানে, অর্থনৈতিক উন্নয়নে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, আমি যেন মানুষের কল্যানে, মঙ্গলে, অর্থনৈতিক উন্নয়নে, সামাজিক উন্নয়নে ও সামাজিক ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে পারি সেই জন্য সকলের কাছে দোয়া প্রার্থনা করি।

শুক্রবার বিকালে দিনাজপুর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও রামকৃষ্ণ মিশনের আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হুইপ ইকবালুর রহিম এসব কথা বলেন।

রামকৃষ্ণ আশ্রম ও রামকৃষ্ণ মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী বিভাত্মানন্দ মহারাজ, দিনাজপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ ইমদাদ সরকার, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফয়সাল রায়হান, দিনাজপুর হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারন সম্পাদক রতন সিং, দিনাজপুর রামকৃষ্ণ আশ্রম ও মিশনের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি অজয় কুমার চ্যাটার্জী, পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি এ্যাড. শামীম আলম সরকার বাবু, সাধারন সম্পাদক এনাম উল্ল্যাহ জ্যামী, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মোঃ মমিনুল ইসলাম প্রমুখ।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪