Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

খাগড়াছড়িতে আশ্রয়ন প্রকল্পের অসহায় মানুষে মাঝে পুলিশ সুপার মুক্তা ধর এর ঈদ উপহার বিতরণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:পবিত্র ঈদ-উল আযহা  উপলক্ষে খাগড়াছড়িতে আশ্রয়ন প্রকল্পের দু:স্থ ও অসহায় মানুষদের মাঝে পুলিশ সুপারের ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ।

রবিবার  ( ৯ জুন )  বিকালে খাগড়াছড়ির শালবাগান আশ্রয়ন প্রকল্পের দু:স্থ ও অসহায় মানুষদের মাঝে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নিতে  ঈদ উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছেন খাগড়াছড়ি  পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) বলেন, “ঈদ মানেই খুশি, ঈদ মানেই আনন্দ। আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহা  মুসলমানদের জীবনে এক স্বর্গীয় শান্তি ও আনন্দের বার্তা নিয়ে আসে। সমাজে একটি অংশ রয়েছে যাদের কাছে ঈদ-আনন্দ মানেই হলো বেঁচে থাকার লড়াই। দু’বেলা খাওয়ার সংগ্রাম। আজো রয়েছে দুঃখী মানুষের ভীড়। আমরা কি পারিনা- তাদের দুঃখ লাঘবের চেষ্টা করতে। তাদের মুখে একটু হাসি ফোঁটাতে। নতুন পোশাক বা ঈদের অন্য আনন্দগুলো তাদের সাথে ভাগাভাগি করতে। সমাজের বিত্তবানদের প্রতি অনুরোধ, আপনারাও অসহায় ও দু:স্থ মানুষের পাশে দাঁড়ান। বিলাসী ঈদ উদ্যাপনের পরিবর্তে দুঃস্থ  মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সম্মিলিতভাবে আনন্দের ঈদ উদ্যাপন করি৷

আশ্রয়ন প্রকল্পের এক বাসিন্দা আব্দুল হান্নান বলেন যে, আমি খেটে খাওয়া মানুষ। বয়সের ভারে এখন শরীরে শক্তি পাইনা যার জন্য কাজও করতে পারিনা। এই বছর ঈদ উপলক্ষে কিছু কিনতে পারি নাই। পুলিশ সুপার স্যার আমাদের জন্য ঈদ উপহার নিয়ে এসেছেন। এর চেয়ে আনন্দের আমাদের জন্য আর কি হতে পারে। আমরা সবাই স্যারের জন্য দোয়া করি আর যেন ভবিষ্যতে আমাদের মত অসহায় ও দু:স্থ মানুষদের পাশে এভাবেই মানবিকতার হাত বাড়িয়ে দিতে পারে। 

এসময় উপহার পেয়ে অসহায় ও দুঃস্থ  মানুষজন কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন যে, পুলিশ সুপার মহোদয়ের থেকে উপহার পেয়ে ঈদের আনন্দ আরও বেড়ে গেলো। আগে কোনো স্যার এভাবে আমাদের কথা ভাবেনি। স্যার সবসময়ই আমাদের খুজ খবর রাখেন। আজ আবার ঈদ উপহার দিয়েছেন। সত্যিই আমরা অনেক আনন্দিত।আল্লাহ পুলিশ সুপার মহোদয়ের মঙ্গল করুক। 

উল্লেখ্য যে এর আগেও খাগড়াছড়ি জেলার সুযোগ্য পুলিশ সুপার মহোদয় দু:স্থ নারী,এতিম শিশু,অসহায় মানুষ,তৃতীয় লিঙ্গের সুবিধাবঞ্চিত মানুষজনদের পাশে বিভিন্ন সময় উপহার সামগ্রী বিতরণ করে মানবিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

এ সময় খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



ভিকারুননিসার ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল, অনিয়ম তদন্তের নির্দেশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৮০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রথম শ্রেণিতে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তিতে দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করে দিয়েছেন আদালত। যেখানে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের একজন প্রতিনিধি ও বুয়েটের একজন আইটি বিশেষজ্ঞকে রাখতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ মে) বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক-আল-জলিলের বেঞ্চ এ আদেশ দেন। এ রায়ের ফলে ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিলই থাকছে। পাশাপাশি প্রথম শ্রেণিতে অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আদালত বলেছেন, ভিকারুননিসায় ১৬৯ শিশুর ভর্তি নিয়ে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে এক্ষেত্রে অভিভাবকরাও দায় এড়াতে পারেন না।

আদালতে রিট আবেদনকারীদের পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান খান, ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন, আইনজীবী শামীম সরদার। ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোহাম্মদ রাফিউল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কাজী মাঈনুল হাসান।

এর আগে, গত ১৯ মে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রথম শ্রেণির ১৬৯ ছাত্রীর ভর্তি কেন বাতিল হবে না, এই মর্মে জারি করা রুলের শুনানি শেষ হয়। শুনানি শেষে রায়ের জন্য আজকের দিন ধার্য করা ছিল।

তারও আগে, গত ২০ মার্চ এ ১৬৯ ছাত্রীর ভর্তি কেন বাতিল হবে না, এই মর্মে জারি করা রুল ২ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ আদেশ দেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে ১৬৯ ছাত্রীর ভর্তি ওপর স্থিতাবস্থা জারি করেন আদালত।

ভিকারুননিসায় ভর্তি নিয়ে বয়সের নিয়ম না মানার অভিযোগ এনে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তিচ্ছু দুই শিক্ষার্থীর মা গত ১৪ জানুয়ারি রিট করেন। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২৩ জানুয়ারি হাইকোর্ট রুলসহ আদেশ দেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২৮ ফেব্রুয়ারি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) একটি স্মারক হাইকোর্টে উপস্থাপন করে।

মাউশির ওই আদেশ মতে, ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ ২০২৪ শিক্ষাবর্ষে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির ক্ষেত্রে বয়সের ঊর্ধ্বসীমা অনুসরণ করেনি। ১ জানুয়ারি ২০১৭ সালের আগে জন্মগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের ভর্তি করার প্রক্রিয়া ছিল বিধিবহির্ভূত।

এসব ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২০১৫ সালে জন্মগ্রহণকারী ১০ জন ও ২০১৬ সালে জন্মগ্রহণকারী শিক্ষার্থী সংখ্যা ১৫৯ জন। এসব শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিল করে শিগগিরই মাউশিকে অবহিত করার অনুরোধ করা হলো।

এরপর স্কুল কর্তৃপক্ষ ১৬৯ জনের ভর্তি বাতিল করে। ১৬৯ শিক্ষার্থীর ভর্তি বাতিলের পর এখন অপেক্ষমাণ তালিকা থেকে এক সপ্তাহের মধ্যে শূন্য আসনে ভর্তি নিতে গত ৬ মার্চ নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ওই আদেশের বিরুদ্ধে ভর্তি বাতিল হওয়া শিক্ষার্থীর অভিভাবক আপিল বিভাগে আবেদন করেন।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




সব কোচিং সেন্টার দেড় মাস বন্ধ থাকবে

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৭৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দেশের সব কোচিং সেন্টার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে ২৯ জুন থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বুধবার (৫ জুন) সচিবালয়ে এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক সভা শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এইচএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁস কিংবা পরীক্ষার্থীদের নিকট উত্তর সরবরাহে জড়িত হলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেবে প্রশাসন। এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও জেলা প্রশাসন সতর্ক রয়েছে।

মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে প্রশ্ন ফাঁস সংক্রান্ত গুজব এবং এ কাজে তৎপর চক্রগুলোর বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে। ২০২৪ সালের উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা আগামী ৩০ জুন শুরু হবে। লিখিত পরীক্ষা শেষ হবে ১১ আগস্ট।

ব্যবহারিক পরীক্ষা ১২ আগস্ট থেকে ২১ আগস্টের মধ্যে শেষ করতে হবে বলেও জানান তিনি

উল্লেখ্য, ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ড, মাদরাসা শিক্ষা আর কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১৪ লাখ ৫১ হাজার। কেন্দ্রের সংখ্যা ২ হাজার ৭২৫টি। এছাড়া দেশে বাইরে ৮টি পরীক্ষা কেন্দ্র রয়েছে।


আরও খবর



খাগড়াছড়ি তিন উপজেলার নির্বাচনি শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে প্রচারণা

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১১৪জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল, পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ  নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে খাগড়াছড়ি জেলার তিন  উপজেলা খাগড়াছড়ি সদর, দীঘিনালা,পানছড়ি নির্বাচনি শেষ মূহুর্তে প্রচারণায় সরগরম হয়ে উঠেছে প্রতিটি  জনপদ । তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৯ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১১ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভোটারদের মন জয় করতে প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। 

তবে পানছড়িতে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নেই। আঞ্চলিক সংগঠনের দুই প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। বিএনপির ভোট বর্জন ও আওয়ামী লীগেরও প্রার্থী না থাকায় ভোট নিয়ে তেমন আগ্রহ নেই ভোটারদের মাঝে।

বিএনপির ভোট বর্জনের মুখে প্রচণ্ড তাপদাহ, ঝড়-বৃষ্টি উপেক্ষা করে দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিতব্য খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদে প্রার্থীদের প্রচারণা চলছে। 

আগামী ২১ মে অনুষ্ঠিতব্য খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় ভোট কেন্দ্র ৪১টি। মোট ভোটার ৯২ হাজার ৮৬৪ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৭ হাজার ৮৯৫ ও নারী ভোটার ৪৪ হাজার ৯৬৯ জন।

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম (আনারস), সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. আকতার হোসেন (মোটরসাইকেল), গোলাবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জ্ঞান রঞ্জন ত্রিপুরা (কৈ মাছ) জাতীয় পার্টির নজরুল ইসলাম (লাঙ্গল), বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুশীল জীবন ত্রিপুরা (টেলিফোন) ও ভারত প্রত্যাগত নেতা সন্তোষিত চাকমা (দোয়াত কলম) প্রতীকে প্রতিদ্বন্দিতা করছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মো. আসাদ উল্লাহ (বই), ক্যাউচিং মারমা (তালা), মো. আবু হানিফ (টিয়াপাখি), মো. এরশাদ হোসেন (চশমা) ও শাহাবুদ্দিন সরকার পেয়েছেন (টিউবওয়েল) প্রতীক।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কল্যাণী ত্রিপুরা (কলস), নিউসা মগ (প্রজাপতি) ও নিপু ত্রিপুরা (ফুটবল) নিয়ে নির্বাচন করছেন।

দিদারুল আলম ৩২ বছরের রাজনীতি ক্যারিয়ারে দুই মেয়াদে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন।দীর্ঘদিন ধরে তিনি মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করেছেন।মানুষের উন্নয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের ছোঁয়া পৌঁছে দিতে তিনি কাজ করছেন। খাগড়াছড়ি সদর  উপজেলাকে স্মাট উপজেলা করার লক্ষ্যে এবছর নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন  তিনি আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।  প্রতীক পাওয়ার পর থেকেই তিনি খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে গণসংযোগে ব্যস্থ সময় পার করছেন। নির্বাচনের বিষয়ে তিনি জানান, নির্বাচন শতভাগ সুষ্ঠু হলে তিনি জয় লাভ করবেন।নির্বাচিত হলে উপজেলা পরিষদকে সেবা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হবে জানান।

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদ এর বর্তমান ভাইস-চেয়ারম্যান আকতার হোসেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে উপজেলা নির্বাচনে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে  উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। প্রতীক পাওয়ার পর থেকেই তিনি  খাগড়াছড়ি সদর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দিন-রাত প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।তিনি দীর্ঘ ৫বছর উপজেলা পরিষদের ভাইস- চেয়ারম্যান থাকা কালীন সময়ে উপজেলার  প্রতিটি ইউনিয়নে সরকারের উন্নয়ন জনগনের দৌড়গোড়ায় পৌঁছে দিয়েছি।  আমি দীর্ঘদিন মানুষের উন্নয়নে কাজ করেছি।নির্বাচনে জনগন যদি আমাকে নির্বাচিত করে আমি উপজেলার অসমাপ্ত কাজ গুলো সমাপ্ত করবো। পাশাপাশি নতুন প্রকল্পকের মাধ্যমে উপজেলা পরিষদকে আধুনিক স্মাট উপজেলা পরিষদ হিসেবে গড়ে তুলবো।

গোলাবাড়ী ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা জ্ঞান রঞ্জন ত্রিপুরা (কৈ মাছ) প্রচার চালাচ্ছেন প্রত্যন্ত পাহাড়ি এলাকায়। তিনি বিগত ইউপি চেয়ারম্যান থাকাকালীন বাস্তবায়িত উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন।আমাকে নির্বাচিত করে আমি উপজেলার অসমাপ্ত কাজ গুলো সমাপ্ত করবো।

দীঘিনালা উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে দুই জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। দীঘিনালা উপজেলার ভোট কেন্দ্র ৩৬টি। মোট ভোটার ৯০ হাজার ১৯৪। পুরুষ ভোটার ৪৬ হাজার ৮১ জন ও নারী ভোটার ৪৪ হাজার ১১২ জন। দুর্গম নাড়াইছড়িতে ভোটার সরঞ্জাম যাবে হেলিকাপ্টারে।

দীঘিনালায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মো. কাশেম (আনারস) ও ইউপিডিএফ প্রসীত সমর্থিত প্রার্থী ধর্ম জ্যোতি চাকমা (মোটরসাইকেল)। দুই প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় সরগরম দীঘিনালার প্রত্যন্ত জনপদ। উভয় প্রার্থীই জয়ে আশাবাদী। ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরাও বসে নেই।

দীঘিনালায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোস্তফা কামাল মিন্টু (টিউবওয়েল), সোলাইমান (টিয়াপাখি ) ও সুসময় চাকমা (চশমা)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সীমা দেওয়ান (কলসী) ও বিলকিছ বেগম পেয়েছেন (প্রজাপতি) প্রতীক।

পানছড়ি উপজেলা পরিষদে আওয়ামী লীগের কোন নেতাকর্মী চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়নি। সেখানে দুই আঞ্চলিক দল ইউপিডিএফ প্রসীত ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান দুইজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পানছড়ি উপজেলার ২৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ১১টিতে শূন্য ভোট ও অপর কেন্দ্রে মাত্র একটি ভোট পড়ে। পানছড়িতে মোট ভোটার ৫৬ হাজার ৫ ভোট। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ২৮ হাজার ২৪ ভোট ও নারী ভোটার ২৭ হাজার ৯৮০ ভোট।

পানছড়িতে চেয়ারম্যান পদে ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক সমর্থিত প্রার্থী মিটন চাকমা (আনারস) ও বর্তমান উপজেলা পরিষদের ইউপিডিএফ প্রসীত সমর্থিত চন্দ দেব চাকমা (কাপ-পিরিচ) নিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপ সমর্থিত প্রার্থী পানছড়ির প্রত্যন্ত এলাকায় প্রচার-প্রচারণা চালালেও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিকের প্রচারণা বাজার কেন্দ্রিক। প্রতিদ্বন্দ্বী দুই আঞ্চলিক দলের প্রার্থীর কারণে এ উপজেলার সাধারণ ভোটাররা নির্বাচনের দিন সংঘাতে আশঙ্কায় আতঙ্কিত। দুই আঞ্চলিক দলের প্রার্থী নিজেদের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী হলেও বিএনপির বর্জন ও আওয়ামী লীগেরও প্রার্থী না থাকায় ভোট নিয়ে আগ্রহ নেই ভোটারদের মাঝে।

মিটন চাকমা তিনি নির্বাচিত হলে সহাবস্থান ও উন্নয়ন নিশ্চিত করবেন। অপরদিকে চন্দ্র দেব চাকমা বলেন, অবাধ,সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হলে তিনিই নির্বাচিত হবে।

পানছড়িতে ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে লোকমান হোসেন (বৈদ্যুতিক বাল্ব), জয়নাথ দেব (তালা), সৈকত চাকমা (টিউবওয়েল) ও কিরণ ত্রিপুরা পেয়েছেন (চশমা)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনিতা ত্রিপুরা ফুটবল) ও সুজাতা চাকমা (কলস) প্রতীক নিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাচ্ছেন।

রির্টানিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জোনায়েদ কবীর সোহাগ বলেন, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। এ ব্যাপারে সকল প্রার্থীর সার্বিক সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

আরও খবর



রাণীশংকৈলে সেই স্বর্ণের মাটির স্তুপ পরিক্ষা ও স্ক্যান করার নির্দেশে দুই সদস্যের কমিটি গঠন

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image
মাহাবুব আলম, রাণীশংকৈল(ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধি:ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার বাচোর ইউনিয়নের কাতিহার রাজোর এলাকার আরবিবি ইট ভাটার স্তুপ করা মাটি পরীক্ষা,অনুসন্ধান ও স্ক্যান করার নির্দেশসহ দুই সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। গত ২ জুন বাংলাদেশ ভুতাত্বিক জরিপ অধিদপ্তর পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন শাখা ঢাকার ভুতত্ব পরিচালক কামাল হোসেন স্বাক্ষরিত এক পত্রে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে। 

স্বর্ণ পাওয়ার বিষয়টি গুরত্বসহকারে নিয়ে বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আইনজীবি মেহেদী হাসান বাংলাদেশ ভুতাত্বিক জরিপ অধিদপ্তরে আরবিবি ইটভাটার মাটির পূর্বের স্থানসহ বর্তমান স্থান পরীক্ষা,অনুসন্ধান ও মাটি স্ক্যানের আবেদন করে। সেই পেক্ষিতে এ অফিস আদেশ দেয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। চিঠিতে উল্লেখ্য করা হয়েছে, সহকারী পরিচালক ভুতত্ব আনোয়ার সাদাৎ মুহাম্মদ সায়েম ও মোহাম্মদ আল রাজীকে আগামী ৩জুন থেকে ৫জুন অথবা প্রকৃত যাত্রার তারিখ হতে তিনদিনের মধ্যে প্রকৃত ঘটনার তথ্যসহ প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। 

এর আগে আজকের পত্রিকাসহ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় ইটভাটায় স্বর্ণের খোজে কোদাল নিয়ে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে হাজারো মানুষ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এর পরে দিনে রাতে ইটভাটার মাটির স্তুপে অতিরিক্ত মানুষের সমাগম হওয়ায়। আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশঙ্কায় গত ২৫ মে ইটভাটায় ১৪৪ ধারা জারী করে রাণীশংকৈল উপজেলা প্রশাসন। এরপর থেকে সেখানে পুলিশি পাহারায় চৌকি বসানো হয়। এতে সাধারণ মানুষ ইটভাটায় ভিড়তে পারে না। বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি মেহেদী হাসান বলেন, যেহেতু ওই ইটভাটার মাটি ঐতিহাসিক এলাকা থেকে কাটা হয়েছে। এবং মানুষের মুখে মুখে স্বর্ণ পাওয়ার বিষয়টি চাউর হয়েছে। তাই রাষ্ট্রীয় ভাবে এটি পরীক্ষা নিরীক্ষা করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যদি কোন ধরনের স্বর্ণ পাওয়া যায়। তাহলে সেটি রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা হবে।

রাণীশংকৈল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) রকিবুল হাসান বলেন, বাংলাদেশ ভুতাত্বিক জরিপ অধিদফতর এর নির্দেশে মাটির পরীক্ষা করা হবে বলে জানতে পেরেছি। তারা আসলে উপজেলা প্রশাসন থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




পত্নীতলায় দুর্নীতিবিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৫৫জন দেখেছেন

Image

পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:"দেশপ্রেমের শপথ নিন, দুর্নীতিকে বিদায় দিন" এই শ্লোগানকে সামনে রেখে নওগাঁর পত্নীতলায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে গণসচেতনতা সৃষ্টি ও সততা চর্চায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) নওগাঁ সমন্বিত জেলা কার্যালয় ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি পত্নীতলার আয়োজনে মঙ্গলবার পত্নীতলা উপজেলা অডিটেরিয়াম হল রুমে উপজেলার দশটি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এই বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন।

পত্নীতলা উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব সামসুর রহমান চৌধুরী বুলবুল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ পপি খাতুন। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন দুর্নীতি দমন কমিশন নওগাঁর সহকারী পরিচালক তানভীর আহমেদ, উপ-সহকারী পরিচালক আলী হায়দার, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এ.টি.এম জিল্লুর রহমান ।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিচারক মন্ডলীর সদস্য জাতীয় মহিলা সংস্থা পত্নীতলার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমিনুল হক, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জয়নাল আবেদিন, সহ-সভাপতি স্বদেশ কুমার মন্ডল, তসলিম উদ্দিন মিয়া, বাবু অজিত কুমার রায়, রঞ্জু রানী মন্ডল সহ অন্যান্য সুধীজন প্রমূখ।

পরে দুর্নীতি বিরোধী বিতর্ক প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণকারী বিজয়ী চাম্পিয়ন গ্রুপ গাহন উচ্চ বিদ্যালয়, রানার্স আপ গ্রুপ নজিপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও শ্রেষ্ঠ বক্তা গাহন উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কবিতার হাতে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

এসময় বক্তাগণ বলেন, দেশকে দুর্নীতিমুক্ত করতে দেশপ্রেমী নাগরিক গড়ে তুলতে হবে। গণসচেতনতা সৃষ্টি ও সততা চর্চায় শিক্ষার্থীদের উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে উপজেলা পর্যায়ে এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। আমরা আশা করি এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা সততা চর্চায় উদ্বুদ্ধ হবে। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের নীতি-নৈতিকতা বিষয়ে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। বই পড়ায় আরো মনোযোগী হতে হবে।


আরও খবর