Logo
আজঃ Wednesday ২৫ May ২০২২
শিরোনাম

কামারগাঁ ইউপিতে ভিজিডির চাল বিতরণ করলেন চেয়ারম্যান ফরহাদ

প্রকাশিত:Thursday ৩০ December ২০২১ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ২৭৬জন দেখেছেন
Image

আব্দুস সবুর তানোর : রাজশাহীর তানোর উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়নে হত দরিদ্রের মাঝে ভিজিডির চাল বিতরণ করেছেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলে রাব্বি ফরহাদ। এ-উপলক্ষে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে এক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফজলে রাব্বি ফরহাদ। এসময় তিনি উপকার ভোগীদের বলেন আপনারা নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে আমাকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করেছেন।কারন বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে  নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে বিজয়ী করেছেন। আমাকে যে আশা নিয়ে আপনারা ভোট দিয়েছেন আমি যেন সেই আশা পূরণ করতে পারি।এজন্য আপনারা আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন।অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক তোফাজ্জুল হক খান, ইউপি আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সুফি কামাল মিন্টু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জাকির হোসেন জুয়েল, ইউপি সদস্য আলাউদ্দিন, তোফায়েল, লুৎফর রহমান, ইউপি সচিব আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ। এসময় ইউপির সংরক্ষিত সদস্য সাধারণ সদস্য ছাড়াও উপকার ভোগীরা উপস্থিত ছিলেন। 




আরও খবর



আমিরাতের আল আইন প্রবাসীদের সাথে মান্যবর রাষ্ট্রদূতের ইফতার মাহফিল

প্রকাশিত:Sunday ০১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ১৪৫জন দেখেছেন
Image

মোঃ শাজাহান খান,(আরব আমিরাত)

বাংলাদেশ দূতাবাস আবুধাবি  কর্তৃক  শুক্রবার মাহে পবিত্র রমজান উপলক্ষে    প্রবাসী বাংলাদেশীদের সম্মানে গ্রীন সিটি আল আইনে ৫ নম্বর সানাইয়া   আল আইন বঙ্গবন্ধু পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা আলহাজ্ব মোহাম্মদ শফিক সাহেবর বিল্ডিং এ  ইফতার ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। 


উক্ত  অনুষ্ঠানের  সভাপতিত্ব করেন উক্ত অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক বঙ্গবন্ধু পরিষদ আল আইন কেন্দ্রীয় কমিটির    সভাপতি  মোহাম্মদ আলতাফ হোসেনের। পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও মোনাজাত করেন আল আইন বঙ্গবন্ধু পরিষদের যুগ্ম  সম্পাদক জনাব ফজলুল করিম মাসুদ হাজারী। ইফতার উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব আল আইন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আইয়ুবের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত ইফতার ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আবুধাবির বাংলাদেশ দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মোহাম্মদ আবু  জাফর সাহেব।

 

বিশেষ অতিথি উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতের মান্যবর রাষ্ট্রদূত জনাব মোহাম্মদ সালেহ আল কাসেমী,লেবার কাউন্সিলর আব্দুল আলীম মিয়া , লুৎফুন নাহার নাজিম (সচিব) মাজহারুল ইসলাম (তৃতীয় সচিব), বঙ্গবন্ধু পরিষদ আল আইন কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা  মোহাম্মদ শেখ ফরিদ আহমেদ সি,আই,পি।

 উত্তম কুমার হাওলাদার  সহ-সভাপতি জনাব জহিরুল ইসলাম,মোহাম্মদ রফিক 

, মোহাম্মদ আব্দুল কাদের সিদ্দিকী, মোহাম্মদ মনির হক টুটুল, 


হাফেজ শফিকুল আলম মানিক,মোহাম্মদ করিম,

আল আইন আওয়ামীলীগ এর সম্মানিত সভাপতি জনাব কাসাউদ্দিন,বি,সি,সি,আল আইনের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার এ আর  মাকসুদ, ডাক্তার খান সি আই পি,  মোহাম্মদ ইউনুছ মিয়া সিআইপি, মোহাম্মদ আবু মনছুর,মোহাম্মদ সোলেয়মান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম, মোহাম্মদ শেখ আহম্মদ,আলহাজ্ব মোহাম্মদ ইউসুফ,মোহাম্মদ মোরশেদ মোহাম্মদ ফরিদ তালুকদার, 

এতে সার্বিক তথ্যাবধানে  মোহাম্মদ ইয়াকুব,সেকান্দর সান,মোহাম্মদ ফজলুল করিম মাসুদ হাজারী, মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেন, আবুল খায়ের মিলন,

মোহাম্মদ হারুনুর রশিদ টিপু, 

মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন। 

মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম নয়ন।, মোহাম্মদ সাহাজান,মোহাম্মদ হারুন,

মোহাম্মদ ইসলাম,মোহাম্মদ আলম, মোহাম্মদ আকবর,মোহাম্মদ নিজাম, 

মোহাম্মদ জুয়েল, মোহাম্মদ আব্দুল মান্নান, মোহাম্মদ মহিউদ্দন 

মোহাম্মদ আলমগীর, মোহাম্মদ সেলিম, মোহাম্মদ মুসা, মোহাম্মদ ইব্রাহিম,  মোহাম্মদ ফরিদ ও মোহাম্মদ জাহেদ সহ অনেকে।



আরও খবর



ডেমরায় দশ লক্ষ টাকা চাঁদার দাবীতে ব্যাবসায়ীকে গুম করার হুমকি

প্রকাশিত:Sunday ০১ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ৩৪৭জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রাজধানীর ডেমরা থানা পুর্ব হাজী নগর এলাকার ব্যাবসায়ী নুর আলমের কাছ থেকে সাড়ে চার লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করে দশ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবী সহ ভুক্তভোগীকে মেরে গুম করার হুমকির অভিযোগ পাওয়া গেছে।এ ঘটনায় ব্যাবসায়ী নুরআলম-৪২ বাদী হয়ে বিঞ্জ সিএমএম আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন।মামলাটি তদন্তের জন্য বিঞ্জ সিএমএম আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ফারাহ দিবা ছন্দা পিবিআই কে নির্দেশ প্রদান করেছেন।আদালতে দায়েরকৃত সিআর মামলা নং-১০২/২০২২(ডেমরা আমলী)।


মামলার আসামীরা হলেন,১।ফরিদ দেওয়ান-৪২ পিতাঃকাশেম মাষ্টার সাং- বকুল তলা সারুলিয়া ডেমরা ঢাকা,২।মোঃ জামাল-৪০ পিতাঃ আঃ খালেক মিয়া সাং-পুঙ্খু মিয়া মসজিদের সামনে সারুলিয়া ডেমরা ঢাকা ।


বাদীর আদালতে দাখিল করা পিটিশনের বর্ননা মতে জানাগেছে,মামলার ১ এবং ২ নং আসামীরা নুর আলমের ব্যাবসা প্রতিষ্টান এম আর রহমান ট্রেডার্স এ কর্মচারী ছিলেন।বিভিন্ন সময়ে বাদী তাদেরকে দিয়ে ব্যাবসা প্রতিষ্টানের লেনদেনের টাকা লোকজনের নিকট পাঠাত।তারা যোগসাযোশ করে ব্যাবসা প্রতিষ্টানের সাত লক্ষ টাকা সুচতুর ভাবে আত্মসাৎ করেন।ব্যাবসায়ী নুর আলম আসামীদের কাছে সাড়েচার লক্ষ টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে তারা কোন সদুত্তর দিতে পারেনি।উল্টো বাদীকে হুমকি ধামকি ভয়ভীতি প্রদর্শন করে এবং ব্যাবসা প্রতিষ্টান থেকে বিতাড়িত করতে সন্ত্রাসী দ্বারা হুমকি প্রদান করে।


আসামীরা বাদীকে সুকৌশলে অন্য জায়গায় নিয়ে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে নেশা জাতীয় দ্রব্য দ্রব্য খাইয়ে আপত্তিকর ছবিতুলে তার মান সম্মান নষ্ট করতে আত্মীয় স্বজনের কাছে সেই ছবি পাঠান।


আসামীরা নুর আলমের ব্যাবসা প্রতিষ্টান এম আর রহমান ট্রেডার্সে এসে গত ২৪ মার্চ ২০২২ তারিখে তার নিকট দশ লক্ষ টাকা চাঁদাদাবী করে।তাদের দাবীকৃত চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাকে কিল ঘুষি,চর-থাপ্পর মারেনএবং জোড় করে ব্যাবসা প্রতিষ্টানের মেমো বই ভাউচার ছিনিয়ে নিয়ে যান।ঐদিন বিকেলে পুনরায় আসামীরা ব্যাবসা প্রতিষ্টানে এসে নুরআলম কে না পেয়ে তার বাসায় গিয়ে স্ত্রী ওপরিবারের অন্য সদস্যদের গালিগালাজ করেন।তারা  তার স্ত্রীকে বলেন দশ লক্ষ টাকা না দিলে তারা নুরআলমকে জীবনে মেরে ফেলে গুম করবেন।



স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে,এলাকার অনেক লোক বিষয়টি দেখেছেন সন্ত্রাসী চাঁদাবাজদের ভয়ে তারা মুখ খুলতে চায় না।বিষয়টি নিয়ে ব্যাবসায়ী নুরআলম ডেমরা থানায় মামলা করতে গেলে আসামীদের দ্বারা প্রভাবিত হয়ে পুলিশ তার মামলা নেয়নি।বাদী নিরুপায় হয়ে আদালতে আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন।



    


আরও খবর



আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী আর নেই

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী আর নেই

প্রকাশিত:Thursday ১৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বিশিষ্ট সাংবাদিক ও কলামিস্ট আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরী আর নেই (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বৃহস্পতিবার (১৯ মে) স্থানীয় সময় আনুমানিক সকাল ৭টায় যুক্তরাজ্যের লন্ডনে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।


গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ।


আবদুল গাফফার চৌধুরী স্বাধীনতা যুদ্ধে মুজিবনগর সরকারের মাধ্যমে নিবন্ধিত স্বাধীন বাংলার প্রথম পত্রিকা ‘সাপ্তাহিক জয় বাংলা’র প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী সম্পাদক ছিলেন। তিনি ভাষা আন্দোলনের স্মরণীয় গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি’র রচয়িতা।


আবদুল গাফ্‌ফার চৌধুরীর জন্ম ১৯৩৪ সালের ১২ ডিসেম্বর বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার উলানিয়া গ্রামে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি যুক্তরাজ্যের লন্ডনের মিডলসেক্সে এজোয়ার এলাবার মেথুইন রোডের ৫৬ নম্বর বাড়িতে বসবাস করতেন।


ছাত্রজীবনে লেখালেখিতে হাতেখড়ি হয়েছিল তার। ১৯৪৯ সালে মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন সম্পাদিত মাসিক সওগাত পত্রিকায় তার গল্প প্রকাশিত হয়। ১৯৫২ সালে সাময়িকপত্রে প্রকাশিত হয় প্রথম উপন্যাস ‘চন্দ্রদ্বীপের উপাখ্যান’।


আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর সাংবাদিকতায় হাতেখড়িও ছাত্রজীবনে। ঢাকা কলেজের ছাত্র থাকাকালে যোগ দেন দৈনিক ইনসাফ পত্রিকায়। ১৯৫১ সালে যোগ দেন খায়রুল কবীর সম্পাদিত দৈনিক সংবাদের বার্তা বিভাগে। ১৯৫৬ সালে যোগ দেন তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া সম্পাদিত দৈনিক ইত্তেফাকে।



১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী কলমযোদ্ধার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। জয় বাংলা পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। মুক্তিযোদ্ধাদের ক্যাম্পে মডারেটরের ভূমিকাও পালন করেন। স্বাধীনতার পর ঢাকা থেকে প্রকাশিত দৈনিক জনপদের প্রধান সম্পাদক ছিলেন আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী।


তিনি ১৯৭৪ সালের অক্টোবর মাসে লন্ডনে পাড়ি জমান। ১৯৭৬ সালে আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী সেখানে ‘বাংলার ডাক’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকায় সম্পাদক হিসেবে কাজ করেন। ‘সাপ্তাহিক জাগরণ’ পত্রিকায়ও কিছুদিন কাজ করেন। পরে তিনি ‘নতুন দিন’ ও ‘পূর্বদেশ’ পত্রিকা বের করেন। প্রবাসে থাকলেও গাফ্ফার চৌধুরী আমৃত্যু বাংলাদেশের প্রধান প্রধান সংবাদ মাধ্যমে নিয়মিত লিখে গেছেন। এছাড়া ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন নানা সভা-সেমিনারে।


গাফ্ফার চৌধুরী ইউনেস্কো পুরস্কার, বাংলা একাডেমি পদক, একুশে পদক, শেরেবাংলা পদক, বঙ্গবন্ধু পদকসহ অসংখ্য পদক ও সম্মাননা পেয়েছেন।


আরও খবর



বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমেছে

প্রকাশিত:Saturday ১৪ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ৮১জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে বড় পতন হয়েছে। এ সময়ে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম প্রায় চার শতাংশ কমেছে। ফলে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৭০ ডলারেরও বেশি কমে বর্তমানে ১৮৫০ ডলারের নিচে নেমে এসেছে। সেই সঙ্গে কমেছে রুপা ও প্লাটিনামের দাম।


বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম কমায় এরই মধ্যে দেশের বাজারেও এর দাম কমানো হয়েছে। বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি (বাজুস) গত ১১ মে (বুধবার) থেকে দেশের বাজারে স্বর্ণের নতুন দাম নির্ধারণ করেছে।



নতুন দাম অনুযায়ী, সবচেয়ে ভালো মান বা ২২ ক্যারেট প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৭৬ হাজার ৫১৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা কমিয়ে ৭৩ হাজার ১৭ টাকা করা হয়েছে। ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা কমিয়ে ৬২ হাজার ৬৩৬ টাকা করা হয়েছে। আর সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৮৭৬ টাকা কমিয়ে করা হয়েছে ৫২ হাজার ১৯৬ টাকা।



বাজুস দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানোর ঘোষণা দেওয়ার সময় বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ছিল ১ হাজার ৮৬০ ডলারের ওপরে। এরপর বিশ্ববাজারে লেনদেন হওয়া প্রতি কার্যদিবসেই স্বর্ণের দাম কমেছে। এতে গত চার সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দাম সর্বনিম্ন পর্যায়ে চলে এসেছে।


গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৩ দশমিক ৮১ শতাংশ বা ৭১ দশমিক ৭৪ ডলার কমেছে। এর মধ্যে সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসেই কমেছে ১০ দশমিক ৪৪ ডলার বা দশমিক ৫৭ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৮১১ ডলার। আর মাসের ব্যবধানে স্বর্ণের দাম কমেছে ৮ দশমিক ২২ শতাংশ।




স্বর্ণের পাশাপাশি গত এক সপ্তাহে বিশ্ববাজারে রূপা ও প্লাটিনামের দামেও বড় পতন হয়েছে। এ সময়ে ৫ দশমিক ৫৯ শতাংশ কমে প্রতি আউন্স রূপার দাম দাঁড়িয়েছে ২১ দশমিক শূন্য ৯ ডলারে। মাসের ব্যবধানে এই ধাতুটির দাম কমেছে ১৭ দশমিক ৭০ শতাংশ।


আরেক দামি ধাতু প্লাটিনামের দাম গত সপ্তাহজুড়ে কমেছে ২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। এতে প্রতি আউন্স প্লাটিনামের দাম দাঁড়িয়েছে ৯৩৮ দশমিক ৫০ ডলারে। মাসের ব্যবধানে দামি এই ধাতুটির দাম কমেছে ৫ দশমিক ২১ শতাংশ।


এদিকে, রাশিয়া ইউক্রেনে আগ্রাসন শুরু করার পর থেকেই বিশ্ববাজারে স্বর্ণের দামে ব্যাপক অস্থিরতা দেখা গেছে। হুট করে স্বর্ণের দামে বড় উত্থান, এরপর আবার বড় দরপতনের ঘটনা ঘটছে গত তিন মাস ধরেই।


গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু করে রাশিয়া। হামলা শুরুর পর প্রথম সপ্তাহেই বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ৪ দশমিক ৩৭ শতাংশ বা ৮২ দশমিক ৪৮ ডলার বেড়ে যায়। এতে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৯৭০ দশমিক শূন্য ৭ ডলারে উঠে যায়।


এরই প্রেক্ষিতে গত ৩ মার্চ বাংলাদেশে স্বর্ণের দাম বাড়ানো হয়। সে সময় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৩ হাজার ২৬৫ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৭৮ হাজার ২৬৫ হাজার টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৩ হাজার ৯১ টাকা বাড়িয়ে ৭৪ হাজার ৭৬৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ২ হাজার ৩৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ১৫২ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ২ হাজার ২১৬ টাকা বাড়িয়ে ৫৩ হাজার ৪২১ টাকা করা হয়।


দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম বাড়ানোর পর এক সপ্তাহের মধ্যে বিশ্ববাজারে প্রতি আউন্স স্বর্ণের দাম বেড়ে দুই হাজার ডলার ছাড়িয়ে যায়। ফলে ৯ মার্চ দেশের বাজারে আবারও বাড়ানো হয় স্বর্ণের দাম। এ দফায় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫০ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৭৯ হাজার ৩১৫ টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা বাড়িয়ে ৭৫ হাজার ৬৯৯ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৮১৬ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ৯৬৮ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৬৪২ টাকা বাড়িয়ে করা হয় ৫৪ হাজার ৬২ টাকা।


অবশ্য এরপর বিশ্ববাজারে টানা দরপতনের মধ্যে পড়ে স্বর্ণ। ফলে ১৬ মার্চ ও ২২ মার্চ দুই দফায় দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানো হয়। এর মধ্যে ২২ মার্চ ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৫০ টাকা কমিয়ে করা হয় ৭৭ হাজার ৯৯ টাকা।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ৫০ টাকা কমিয়ে ৭৩ হাজার ৬০০ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৩৩ টাকা কমিয়ে ৬৩ হাজার ১০২ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৪৫৮ টাকা কমিয়ে ৫২ হাজার ৬০৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়।


এরপর রোজা শুরু হলে দেশের বাজারে ঈদকেন্দ্রিক স্বর্ণালঙ্কারের বিক্রি কিছুটা বেড়ে যায়। যার প্রভাব পড়ে দামেও। বিশ্ববাজারে খুব একটা দাম না বাড়লেও ১২ এপ্রিল ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৭৫০ টাকা বাড়িয়ে ৭৮ হাজার ৮৪৯ টাকা নির্ধারণ করে বাজুস।


এছাড়া ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ৭৪৯ টাকা বাড়িয়ে ৭৫ হাজার ৩৪৯ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ৪৫৮ টাকা বাড়িয়ে ৬৪ হাজার ৫৬০ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ২২৪ টাকা বাড়িয়ে ৫৩ হাজার ৮২৯ টাকা নির্ধারণ করা হয়।


তবে বিশ্ববাজারে দাম কমার প্রবণতা দেখা দিলে ২৬ এপ্রিল আবারও দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমানো হয়। সে সময় ২২ ক্যারেটের প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ১ হাজার ১৬৭ টাকা, ২১ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ১ হাজার ১৬৬ টাকা, ১৮ ক্যারেটের প্রতি ভরি সোনার দাম ৯৯১ টাকা এবং সনাতন পদ্ধতির প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম ৭৫৮ টাকা কমানো হয়। আর ঈদের পর এক সপ্তাহ না যেতেই ১১ মে আরেক দফা স্বর্ণের দাম কমানো হয়।



আরও খবর



হেলমেটধারীদের গ্রেফতারে অভিযান চালাচ্ছে ডিবি

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ April ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ১৬০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

নিউমার্কেটের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে ঢাকা কলেজ শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষকালে হেলমেট পরে সংঘর্ষে লিপ্ত হওয়া সবাই সন্ত্রাসী। তাদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। এসব হেলমেটধারী সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একাধিক টিম অভিযান চালাচ্ছে।


বুধবার (২৭ এপ্রিল) দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা (দক্ষিণ) পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মাহবুব আলম।


সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নিউমার্কেটের সংঘর্ষের ঘটনায় দুজন তরুণ নিহত হয়। এ ঘটনায় পৃথখ দুটি মামলা গোয়েন্দা পুলিশের তদন্তাধীন। একটি নাহিদ হত্যায় এবং অপর মামলাটি হয়েছে মোরসালিন হত্যার ঘটনায়।


গোয়েন্দা পুলিশের এ কর্মকর্তা আরও জানান, নাহিদ হত্যাকাণ্ডের যে ফুটেজ রয়েছে সেই ফুটেজের চুলচেরা বিশ্লেষণ করে জড়িতদের চিহ্নিত করা হচ্ছে। চিহ্নিতকরণের কাজটি অনেক দূর এগিয়েছে।


তিনি বলেন, ঢাকা কলেজের হোস্টেল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় অনেকেই বাড়ি চলে গেছে অথবা আত্মগোপনে আছে। তবে ডিবির একাধিক টিম তাদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে। শিগগির এ বিষয়ে ভালো ফল জানানো হবে।



ডেলিভারিম্যান নাহিদের নিহতের ঘটনায় বাবা মো. নাদিম হোসেন বাদী হয়ে নিউমার্কেট থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মুরসালিনের ভাই বাদী হয়ে আরো একটি হত্যা মামলা করেছেন।


এদিকে এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করে। একটি মামলা বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে এবং অন্যটি পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে। দুই মামলাতে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী-কর্মচারী ও ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীসহ মোট ১২০০ জনকে আসামি করা হয়।


আরও খবর