Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

জলবায়ু সহনশীল অ্যাকুয়াকালচার অ্যান্ড ফিশারিজের প্রচার' শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

শফিক আহমেদঃসোমবার বিকালে সিরডাপ অডিটোরিয়ামে সেন্টার অন ইন্টিগ্রেটেড রুরাল ডেভেলপমেন্ট ফর এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিক  এবং বাংলাদেশ চিংড়ি ও মৎস্য ফাউন্ডেশনের যৌথভাবে আয়োজনে শীর্ষক এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। 

সিরডাপ এর মহাপরিচালক ড. চের্ডসাক ভিৱাপাত এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী, মোঃ তাজুল ইসলাম।

কর্মশালায় বাংলাদেশ ও সিরডাপ সদস্য দেশগুলিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রেক্ষাপটে সৃষ্ট বিষয়গুলো বিষদভাবে আলোচনা করা হয়। এসময় তারা বলেন,বৈশ্বিক উষ্ণায়নের ফলে কৃষি ও মৎস্যখাতে এবং সাথে সাথে পল্লী উন্নয়নের প্রচেষ্টাগুলি গুরুতর সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। ফলে জনগণের জীবন ও জীবনমান ক্ষতিগ্রন্থ হচ্ছে। 

তাই এই বহুবিধ সমস্যাগুলি মোকাবেলা করার জন্য সম্মনিত জাতীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিশদ প্রতিরোধ ও অভিযোজন মূলক উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সৈয়দ মাহমুদুল হক চেয়ারম্যান বাংলাদেশ শ্রিম্প এন্ড ফিশ ফাউন্ডেশন।

পরিশেষে সাম্প্রতিক বছর গুলোতে বৈশ্বিক উষ্ণায়ন ও জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবে বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে পল্লী উন্নয়ন এবং মৎস্য খাতে বিশেষভাবে ব্যহত হচ্ছে বলে এই কর্মশালায় তুলে ধরা হয়।

   -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় কুড়িগ্রামে ১০ হাজার চারা বিতরণ করলো ইউসিবি

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image
নিজস্ব প্রতিবেদক:জলবায়ু পরিবর্তন ও এর প্রভাব মোকাবিলায় কুড়িগ্রামের বেশকিছু প্রত্যন্ত অঞ্চলে ১০ হাজার চারা গাছ বিতরণ করেছে ইউনাইডেট কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি (ইউসিবি)। ইউসিবি’র ‘ভরসার নতুন জানালা’ করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা (সিএসআর) কার্যক্রমের আওতায় বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির অংশ হিসেবে এসব চারা বিতরণ করা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী, করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে ‘ভরসার নতুন জানালা’ শীর্ষক কৃষি সহায়তা উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছে ইউসিবি। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৩ জুলাই কুড়িগ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চল চর বলরামপুর, বেরুবাড়ি ও নাগেশ্বরীতে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি আয়োজন করা হয়। এসমস্ত এলাকায় বসবাসরত পরিবারগুলোর মাঝে আম, লেবু ও সজনের ১টি করে চারা এবং প্রয়োজনীয় জৈবসার বিতরণ করা হয়। এসময় চারাগাছ পরিচর্যায় গৃহিণীদের উৎসাহিত করতে শাড়ি ও সালোয়ার-কামিজ বিতরণ করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি’র অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও কোম্পানি সেক্রেটারি এটিএম তাহমিদুজ্জামান ও বিটিভির কৃষিভিত্তিক অনুষ্ঠান ‘মাটি ও মানুষ’-এর জনপ্রিয় উপস্থাপক ও কৃষি তথ্য-বিশ্লেষক রেজাউল করিম সিদ্দিক। এছাড়া, আয়োজনে আরও উপস্থিত ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ ও চর সাজাই কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি ফউজুল আজিম; ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক ও চর সাজাই কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি অধ্যাপক আব্দুর রাজ্জাক খান; বল্লভের খাস ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান এস এম আব্দুর রাজ্জাক এবং চর সাজাই কল্যাণ ট্রাস্টের নির্বাহী পরিচালক বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, কৃষকদের সুবিধার্থে ‘ভরসার নতুন জানালা’ প্রকল্পের আওতায় ইতোমধ্যে বেশকিছু উদ্যোগ বাস্তবায়ন করেছে ইউসিবি পিএলসি। এসবের মধ্যে রয়েছে তালগাছ রোপণ, কৃষি উদ্যোক্তাদের জন্য প্রশিক্ষণ, এআই-নির্ভর ‘আরো মাছ’ (মোরফিশ) ডিভাইসের মতো কৃষি-সংক্রান্ত স্মার্ট ডিভাইস বিতরণ এবং তামাকের বিকল্প শস্য হিসেবে গম ও ভুট্টা চাষে উৎসাহিত করা প্রভৃতি। এছাড়া, এই বছরের মধ্যে ইউসিবি’র ১ লাখ চারাগাছ রোপণের পরিকল্পনা রয়েছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



নাসিরনগর থেকে চারটি সীসা কার্তুজ উদ্ধার,একজন গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২৩২জন দেখেছেন

Image

আব্দুল হান্নানঃ- ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর থানায় কর্মরত এসআই(নিরস্ত্র)/মোঃ নূরে আলমের নেতৃত্বে এ এস আই (নিরস্ত্র)/মোঃ মোশারফ হোসেন, কং/৭৭৮ রিয়াদ মোল্লা,কং/৬৭৯মোঃ লুৎফর রহমান, কং/৭৮৩মোঃ মাহবুবুর রহমান  ৭ জুলাই ২০২৪  রাত ১.৪০ ঘটিকার সময় নাসরিনগর থানা এলাকায় ওয়ারেন্ট তামিল, মাদক উদ্ধার অভিযান করাকালীন সময়ে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে  ভলাকুট ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের কান্দি গ্রামের মোঃ সাইজ উদ্দিন কবিরের  বসত ঘরে অভিযান পরিচালনা করে  মোঃ সাইজ উদ্দিন কবির (৩৯), পিতা- মৃত এরশাদ উদ্দিন, মাতা- খাদিজা বেগম, স্থায়ী ঠিকানাঃ- গ্রাম- বাহের বালি, ডাকঘর- হুমায়ুনপুর, থানা- বাজিতপুর, জেলা- কিশোরগঞ্জ, বর্তমান ঠিকানাঃ সাং- ভলাকুট কান্দি, ৬নং ওয়ার্ড, ভলাকুট ইউপি, থানা- নাসিরনগর, জেলা- ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হেফাজত থেকে ৪ টি সীসা কার্তুজ(লীডবল) উদ্ধার করা হয়।পরে আসামীর বিরুদ্ধে নাসিরনগর থানার মামলা নং-৯ ৭ জুলাই ২০২৪।ধারা- THE ARMS ACT, 1878 SEC.19(f)   রুজু করা হয়েছে।জানা গেছে আসামীর বিরুদ্ধে হত্যা সহ আরো ৩ টি মামলা চলমান রয়েছে।

     -খবর প্রতিদিন/ সি.ব

আরও খবর



চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৯৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনে তিন দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরেছেন। প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের বহনকারী বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমানটি বুধবার (১০ জুলাই) দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেছে।

সফরসূচি অনুযায়ী, নির্ধারিত চার দিনের সফর শেষে বৃহস্পতিবার দেশের উদ্দেশ্যে রওনা দেওয়ার কথা ছিল তার। কিন্তু মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল অসুস্থ থাকায় রাতেই বেইজিং ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী। এর আগে, বুধবার (১০ জুলাই) বেইজিংয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. হাছান মাহমুদ।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরত যাওয়ার কথা ছিল ১১ জুলাই। সেটি না হয়ে বেইজিংয়ের স্থানীয় সময় বুধবার রাত ১০টায় বাংলাদেশের উদ্দেশ্যে রওনা হবেন। এতে কিন্তু তার আনুষ্ঠানিক যে কর্মসূচি, সেটির বিন্দুমাত্র হেরফের হয়নি।

নির্ধারিত সময়ের আগেই প্রধানমন্ত্রীর বেইজিং সফর সমাপ্ত করার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে তার কন্যা ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) আঞ্চলিক পরিচালক সায়মা ওয়াজেদ পুতুলেরও বেইজিং সফরের কথা ছিল। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তিনি বেইজিং সফর করতে পারেননি। আমরা যেদিন বেইজিংয়ের উদ্দেশ্যে রওনা করি, সেদিন সকালে হঠাৎ করে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। তিনি এখনও অসুস্থ। সফরসূচির অন্তর্ভুক্ত সব আনুষ্ঠানিক কাজ এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়ে যাওয়ায় আর মেয়েকে ছেড়ে দূরে থাকতে চাইছেন না প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের আমন্ত্রণে গত সোমবার বেইজিং সফরে যান।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



ভয়াল বন্যার পুনরাবৃত্তির ভয়, ছাত‌কে মানুষের চোখে ঘুম নেই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৬৩জন দেখেছেন

Image

র‌নি,ছাতক সুনামগঞ্জ প্রতি‌নি‌ধি:সুনামগঞ্জ জেলার দুই উপ‌জেলার ভয়াবহ বন্যা পরিস্থিতির চরম অবনতি হয়েছে।বৃষ্টিপাত ছাড়াই নদ নদী সুরমা,চেলা ব‌টের নদী‌তে  ভোর  থেকে বৃদ্ধি পেতে থাকে পাহাড়ি ঢলের পানি। সুরমা নদীর পানি  ছাতক দোয়ারাবজার ম‌ল্লিকপুর প‌য়েন্ট সুরমা নদীর বন‌্যা পা‌নির স্রো‌তে পাকা সড়ক ভে‌ঙ্গে  বিপদসীমার ৬৮ সেন্টিমিটার বা ২.২৩ ফুট উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। উপ‌জেলার সদ‌রের স‌ঙ্গে সড়ক যোগা‌যোগ বি‌চ্ছিন্ন র‌য়ে‌ছে।অবিরাম বর্ষণ আর পাহাড়ি ঢলে সৃষ্ট বন্যায় এবার বানভাসী‌দের মানুষের ঈদের আনন্দ মাটি হয়েছে। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে গেল বারের মতো ভয়াল বন্যার আশঙ্কা।

গত সোমবার (১৭ জুন) ঈদের দিন ভোরেই সুরমা নদীর পানি উপচে ছাতক শহরে প্রবেশ করে। বৃষ্টি আর জলাবদ্ধতার মধ্যেই মসজিদে ঈদের জামাত আদায় করতে পারলেও অনেকেই যথাসময়ে পশু কোরবানি করতে পারেননি। বৃষ্টি থামার পর দুপুর থেকে পানি কিছুটা কমতে শুরু করে।

মঙ্গলবারও (১৮ জুন) সারাদিন গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি হয়। তবে এতে সাময়িক সময়ের জন্য মানুষের মনে স্বস্তি ফিরলেও তা স্থায়ী হয়নি। আবহাওয়ার পূর্বাভাস তাদের জন্য কোনো সুসংবাদ বয়ে আনতে পারছে না। পূর্বাভাসে বলা আগামী কয়েকদিনের টানা ভারী বৃষ্টিপাতের আশঙ্কার কথা শুনে ২০২২ সালের ভয়াল বন্যার পুনরাবৃত্তির আতঙ্ক নিয়ে নির্ঘুম রাত পার করেছেন ছাতক দোয়ারাবাজা‌রে মানুষ।

আবহাওয়া পূর্বাভাসের বিভিন্ন মডেল বলছে,গত বুধবার (১৯ জুন) ভোরেই আবারও শুরু হচ্ছে ভারী বৃষ্টিপাত। সীমান্তবর্তী পাহাড়ি এলাকায়ও বৃষ্টিপাত হ‌চ্ছে বেশী। এতে ছাতক দোয়ারাবাজার বন্যা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। ২০২২ সালের ১৭ জুন ভয়াবহ বন্যায় তলিয়ে গিয়েছিল ছাতক দোয়ারাবাজার ও সুনামগঞ্জ  বেশিরভাগ এলাকা। গভীর রাতে চোখের পলকেই তলিয়ে যায় পুরো গ্রাম শহর হাট বাজার।

একতলা বাড়ির বাসিন্দারা সাঁতরে বেরিয়ে উঁচু ঘরবাড়িতে আশ্রয় নেন। যারা নিচু ঘরে ছিলেন, তারা বিদ্যুৎহীন অবস্থায় ঘুটঘুটে অন্ধকার রাতে বানের পানি, বিষাক্ত পোকা মাকড় ও সাপের কামড়ের ভয় নিয়ে বিভীষিকাময় সময় পার করেছেন। ভেসে চলে যায় বহু গবাদিপশু। এখনো সেই দুঃস্মৃতি তাড়া করে ছাতক দোয়ারাবাজা‌রে মানুষকে, বৃষ্টি হলেই বড় বন্যার ভয়ে তারা শিউরে ওঠেন।

উপ‌জেলার উত্তর খুরমা ইউপির আলমপুর,দাহার গিলাছড়া মোহনপুর,তেরাপুর মৈশাপুর ত‌কিরাই নোয়াগা্ও গ্রা‌মে প্রতি‌টি ঘরে  ঘ‌রে পা‌নি উঠে‌ছে। এসব গ্রামে হাস মুরুগ বন‌্যার পা‌নি‌তে ভে‌সে গে‌ছে।

এসব গ্রা‌মে খোজ খবর কেউ নি‌চ্ছেন না ব‌লে গ্রামবাসী অ‌ভি‌যোগ ক‌রে‌ছেন। গোবিন্দগঞ্জ সৈ‌দেরগাও ইউপির গো‌বিন্দনগর গ্রা‌মের রজব আলী, আইয়ুব আলী র‌ফিক আলীর বসত তিন‌দিন ধ‌রে  ঘ‌রে পা‌নি উঠে‌ছে। ঘ‌রে শুকা‌নো খাবার নেই। এখ‌নো কোন জনপ্রতি‌নি‌ধি তা‌দের দেখ‌তে আসে‌নি। রা‌তে তা‌দের প‌রিবা‌রের কেউ ঘুমানি ।

ছাতকে পৌর শহরের কাঁচাবাজারে হাঁটুর উপরে পানি। পশ্চিমবাজার, মধ্যবাজারে বন্যার পানি উঠছে। বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে শহরে ঢুকছে পানি। হুট করে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে শহরবাসী। নদীর পাড়ের বাসিন্দারা ঘরে থাকার মতো অবস্থা না থাকায় ঘরবাড়ি চে‌ড়ে আশ্রয় কে‌ন্দ্রে উঠ‌তে শুরু করেছেন।

অনেকে ৬৭‌টি  আশ্রয় কে‌ন্দ্রে হাজার প‌রিবার

উঠেছেন। পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। এতে পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ার আশঙ্কা করছেন স্থানীয়রা। এদিকে অব্যাহত বৃষ্টিপাত ও পাহাড়ি ঢলে জেলার ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপ‌জেলা সকল নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। নিম্বাঞ্চলের মানুষের বসত ঘরে পানি উঠে  গেছে। ছাতকে সুরমা নদী পা‌নি  বিপদসীমার ১৫৫ সে.মি বা ৫.০৯ ফুট উপর দিয়ে সুরমার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।  এতে বন্যার আশংকা করছে প্রশাসনও।

অপরদিকে পাহাড়ি ঢল নেমে আগে থেকেই প্লাবিত ছিল ছাতক,দোয়ারাবাজার  ৪ শতা‌ধিক গ্রাম, ৩ শতা‌ধিক শিক্ষা প্রতিষ্টান,২০‌টি হাটবাজার। প্রায় সব কয়টি উপজেলাতে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হ‌লে ও তবে বেশী এফেক্টেড হয়েছে ছাতক ও দোয়ারাবাজার উপজেলাবাসীরা।

সুনামগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন হাওলাদার জানিয়েছেন, ছাতকে বিপদসীমার ১৫৫ সে.মি বা ৫.০৯ ফুট উপর দিয়ে সুরমার পানি প্রবাহিত হচ্ছে। ছাতক দোয়ারাবাজারে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে, সেজন্য পানি বিপদসীমার উপরে থাকতে পারে। তিনি আরও বলেন, গত ২৪ ঘন্টায় সুনামগঞ্জের ছাতকে ৯৫ মি.মি বৃষ্টিপাত হয়েছে।

ছাতক উপ‌জেলা নিবাহী কমকতা গোলাম মোস্তফা মুন্না যুগান্তরকে জানান, আশ্রয়কেন্দ্র গু‌লো‌তে শুকনো খাবার, ওষুধপত্র বা স্যালাইন পৌঁছানো ব্যবস্থা করা হয়েছে। রান্না করা খাবারও বিতরণ করা হবে। যারা আশ্রয়কেন্দ্রে যেতে পারেননি, তাদের নৌকা বা বিভিন্ন পরিবহন দিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সার্বিক পরিস্থিতি মোকাবিলায় ও ১৩‌টি ইউপি চেয়ারম‌্যান ও পৌর সভার মেয়র স‌ঙ্গে কথা বলেছি। এছাড়াই  বন্যায় যাতে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রীর দাম বাড়ানো না হয়, সেজন্য মহাজন ও ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেছি। তাদের অনুরোধ করে বলেছি, দুঃসময়ে-দুর্যোগে মানবকল্যাণই বড়। তারা যেন নির্ধারিত দামে পণ্য বিক্রি করে।

সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরী জানান, গত কয়েকদিন ধরে সুনামগঞ্জ জেলায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে সুনামগঞ্জের কিছু পয়েন্টে নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেছে। বিশেষ করে ছাতক,দোয়ারাবাজার সুরমা নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলায় আমরা ৫১৬টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত রেখেছি। যাদের প্রয়োজন তারা আশ্রয় কেন্দ্রে যাচ্ছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে আশ্রিতদের সার্বিক সহযোগিতা করা হ‌বে। পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস অনুযায়ী নদীর পানি বৃদ্ধি পেতে পারে সেজন্য সকলকে সতর্ক থাকার অনুরোধ জানানো হয়। তিনি আরও বলেন, ছাতক, দোয়ারাবাজার,সদর বেশী এফেক্টেড।

এছাড়া জেলা প্রশাসক ও ইউএনও স্থানীয়দের উদ্দেশে সরকা‌রি ফেসবুক পোস্টে তারা বলেছেন, সুনামগঞ্জে অতিবৃষ্টি ও উজানের পাহাড়ি ঢলে বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। পানি আরও বাড়তে পারে। আতঙ্কিত হবেন না, সতর্ক হোন। নিরাপদ স্থানে থাকার চেষ্টা করুন। এই দুর্যোগের সময়ে একে অন্যের পাশে দাঁড়ান। সবাই মিলেই এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে হবে।


আরও খবর



বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে। আমার দল ও মতের সঙ্গে মিল না থাকলেও মুক্তিযোদ্ধারা আমার কাছে সব সময় সম্মানিত,বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ফেলোশিপ অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশের ছেলে-মেয়েরা সবচেয়ে বেশি মেধাবী। তাদের সুযোগ তৈরি করে দিতে হবে। সেটাই আমাদের কর্তব্য। সেই সুযোগটি আমরা করে দিতে চাই। সেই কারণে ফেলোশিপটা চালু করেছি।

সরকারপ্রধান বলেন, ২০২১ থেকে ২০৪১ সাল নির্দিষ্ট করেছি। ২০৪১ সালে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ব। আমাদের জনশক্তি স্মার্ট জনশক্তি হবে। আমাদেরকে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধারা নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করে যার যা কিছু ছিল তা নিয়ে ঝাপিয়ে পড়েছিল। তাদের আত্মত্যাগের মধ্য দিয়ে আমাদের বিজয় নিশ্চিত হয়েছে। তাদের সব সময় সর্বোচ্চ সম্মান দিতে হবে। আমি জানি হয়ত অনেকে আমাদের দলের সমর্থনে নাই। অন্য জায়গা চলে গেছে বা অনেকের অনেক কিছু থাকতে পারে। যে যেখানে যাক সেটা আমার বিবেচ্য বিষয় না। আমার বিবেচ্য হলো তারা তাদের সর্বোচ্চ ত্যাগ করে শত্রুকে পরাজিত করে বিজয় এনে দিয়েছেন। সেক্ষেত্রে তাদের সম্মানটা সর্বোচ্চ থাকবে বলে আমি মনে করি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী ও প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর