Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
চির প্রেমের কবি কাজী নজরুল ইসলাম

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্ম বার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:Wednesday ২৫ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৯১জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ 

জতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী আজ। ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ (১৮৯৯ সালের ২৫ মে) অবিভক্ত বাংলার (বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ) বর্ধমান জেলার আসানসোলের জামুরিয়া থানার চুরুলিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। 


তার ডাক নাম ‘দুখু মিয়া’। বাবা কাজী ফকির আহমেদ ও মাতা জাহেদা খাতুন।


প্রেমের, বিরহ-বেদনা ও সাম্যের কবি নজরুল বাংলা সাহিত্য-সংগীত তথা সংস্কৃতির অন্যতম প্রধান পুরুষ। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে তার লেখনী ধূমকেতুর মতো আঘাত হেনে ভারতবাসীকে জাগিয়ে দিয়েছিল। 


তিনি পরিণত হন বিদ্রোহী কবিতে। সাম্রাজ্যবাদ, ফ্যাসিবাদ, নিপীড়ন, অনাচার, বৈষম্য, শোষণ ও পরাধীনতার বিরুদ্ধে অগ্নিকণ্ঠে সোচ্চার হয়ে কবি লিখে গেছেন অসংখ্য কবিতা, গল্প, উপন্যাস, গান।



চির প্রেমের কবি নজরুল। তিনি যৌবনের দূত। তিনি প্রেম নিয়েছিলেন, প্রেম চেয়েছিলেন। মূলত তিনি বিদ্রোহী, কিন্তু তার প্রেমিক রুপটিও প্রবাদপ্রতিম। তাই তিনি অনায়াসে বলে গেছেন, ‘আমার আপনার চেয়ে আপন যে জন খুঁজি তারে আমি আপনায়।’


কাজী নজরুলের আবির্ভাবকালে এ দেশের সমাজমানস একটা সমূহ উত্তরণের জন্য উদগ্রীব হয়েছিল, যা নানাভাবে অসহযোগসহ এ উপমহাদেশে স্বাধিকার অর্জনের নানা আন্দোলন কর্মসূচির রূপ পরিগ্রহ করে। তিনিই প্রথম বাঙালি কবি যিনি পূর্ণাঙ্গভাবে ভারতের স্বাধীনতা চেয়েছিলেন। এ বিষয়ে তার কণ্ঠের দৃঢ়তা ও চেতনায় বলিষ্ঠতা প্রকাশিত হয়েছে সর্বত্র।



বিশের দশকে ২০ বছরের যুবকের মনের ভেতরকার সেই যে বিদ্রোহ, শোষণ, বঞ্চনা, পরাধীনতা, গ্লানি, ক্ষোভ, দ্রোহ তারই বাস্তব প্রতিফলন ঘটেছিল ‘বিদ্রোহী’ কবিতায়, যা তখনকার ক্ষুব্ধ প্রতিটি বাঙালির হৃদয়ে প্রজ্বলিত মশাল হিসেবে দাউ দাউ করে জ্বলে উঠেছিল। পরবর্তীকালে স্বাধিকার আন্দোলনের অন্যতম প্রেরণা হিসেবে দেখা দেয়।


বাংলা একাডেমির সভাপতি ও নজরুল গবেষক অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম লিখেছেন, নজরুল ইতিহাস ও সময় সচেতন মানুষ ছিলেন যার প্রভাব তার লেখায় স্পষ্টভাবে পাওয়া যায়। তুরস্কে কামাল পাশার নেতৃত্বে প্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা, রাশিয়ায় সমাজতান্ত্রিক বিপ্লব আর ভারতবর্ষে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের তরঙ্গকে নজরুল তার সাহিত্যে বিপুলভাবে ধারণ করেছেন।



শত প্রতিকূলতা, শত বিরোধিতা, শত সমালোচনা, নিরুৎসাহ, ভর্ৎসনা, প্রতিবন্ধকতা কোনো কিছুতেই নজরুলের প্রতিভাকে ঠেকিয়ে রাখা যায়নি। বিশেষ করে হিন্দু কুলীন ঘরের কন্যা প্রমীলাকে বিয়ের পর তৎকালীন কবি-সাহিত্যিকরা (সবাই হিন্দু সম্প্রদায়ের) নজরুলকে সমাজচ্যুত করা থেকে শুরু করে তার দারিদ্র্য, তার শিক্ষা, তার পরিবার, তার ভাষাজ্ঞান, তার চর্চা, কাব্যে তার বিষয় নির্বাচনসহ এমন কিছু ছিল না, যার কঠোর ভাষায় নিন্দা করে টেনে ধরে রাখার চেষ্টা করা হয়নি। 


কিন্তু কিছুতেই কিছু হয়নি। এ অবস্থায় নজরুলের বিস্ময়কর প্রতিভার টের পেয়েছিলেন ওই সময় প্রথম বাঙালি নোবেল বিজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। তাই তো আশীর্বাণী দিয়ে কবিকে বলেছিলেন, ‘আয় চলে আয় রে ধূমকেতু... আঁধারে বাঁধ অগ্নিসেতু’।


কবি নজরুল তার ৭৭ বছরের জীবনকালের ৩৪ বছরই ছিলেন নির্বাক (১৯৪২-১৯৭৬)। বেঁচে থাকার জীবন সংগ্রাম, অভাব-অনটন, নানা প্রতিকূলতা, জেলজুলুম ও হুলিয়ার মধ্যেই তার সাহিত্যচর্চার সময় ছিল মাত্র ২৪ বছর (১৯১৯-১৯৪২)।


এ ২৪ বছরে নজরুল সৃষ্টি করে গেছেন ২২টি কাব্যগ্রন্থ, সাড়ে ৩ হাজার, মতান্তরে ৭ হাজার গানসহ ১৪টি সংগীত গ্রন্থ, ৩টি কাব্যানুবাদ ও ৩টি উপন্যাস গ্রন্থ, ৩টি নাটক, ৩টি গল্পগ্রন্থ, ৫টি প্রবন্ধ, ২টি কিশোর নাটিকা, ২টি কিশোর কাব্য, ৭টি চলচ্চিত্র কাহিনীসহ অসংখ্য কালজয়ী রচনা। তাই তো একাধারে তিনি কবি, গল্পকার, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, শিশু সাহিত্যিক, অনুবাদক, প্রাবন্ধিক, সম্পাদক, সাংবাদিক, গীতিকার, সুরকার, স্বরলিপিকার, গীতিনাট্যকার, গীতালেখ্য রচয়িতা, চলচ্চিত্র কাহিনীকার, চলচ্চিত্র পরিচালক, সঙ্গীত পরিচালক, গায়ক, বাদক, সঙ্গীতজ্ঞ ও অভিনেতা।


১৯৪১ সালের শেষের দিকে কবি যখন নন্দিনী চলচ্চিত্রের সংগীত রচনা ও সুরারোপ নিয়ে ব্যস্ত, তখন হঠাৎ তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। লুম্বিনী পার্ক ও রাচি মেন্টাল হাসপাতালে তার চিকিৎসা চলে এক বছরেরও বেশি সময়। ১৯৫৩ সালে কবিকে পাঠানো হয় ইংল্যান্ড ও জার্মানিতে। কিন্তু ততদিনে সবই শেষ। বাকশক্তি একেবারেই হারিয়ে ফেলেন তিনি। সেই ১৯৫৩ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত নির্বাক ও অসুস্থ অবস্থায় কলকাতায় অনেকটা অনাদরে নীরবে-নিভৃতেই কাটে কবি নজরুলের জীবন।


স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ২৪ মে কবির জন্মদিনে তাকে ঢাকায় নিয়ে এসে জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করেন। তার কবিতা ‘চল্ চল্ চল্- ঊর্ধ্ব গগনে বাজে মাদল’কে তিনি সামরিক সংগীত হিসেবে নির্বাচিত করে কবিকে সম্মানিত করেন। 


১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট তৎকালীন পিজি (বর্তমানে বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন কাজী নজরুল ইসলাম। তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন তিনি।



আরও খবর



শাবিপ্রবির নতুন পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক কামরুজ্জামান

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স (এফইএস) বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুুরী।

সোমবার (২৭ জুন) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন সই করা এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়।

অফিস আদেশে বলা হয়, শাবিপ্রবির পরিবহন প্রশাসক পদে অধ্যাপক ড. মো. জহির বিন আলম নিযুক্তির মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে ফরেস্ট্রি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. কামরুজ্জামান চৌধুুরীকে পরিবহন প্রশাসক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এ আদেশ আগামী ১ জুলাই থেকে কার্যকর হবে এবং পুনরাদেশ না দেওয়া পর্যন্ত বহাল থাকবে।

নতুন প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ায় অনুভূতি প্রকাশ করে অধ্যাপক কামরুজ্জামান বলেন, দায়িত্বটা সুন্দরভাবে পালন করতে পারাটাই আমার চাওয়া। এজন্য সবার আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি।


আরও খবর



একাত্তর-পঁচাত্তরের ঘাতকরা ফের আস্ফালন করছে: দীপু মনি

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

শিক্ষামন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘একাত্তর, পঁচাত্তর এবং ২০০১-২০০৬ সালে যারা হত্যাকাণ্ড চালিয়েছিল, তারাই আবার আস্ফালন শুরু করেছে। এদের মূলোৎপাটনে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

রোববার (১২ জুন) ‘শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

যুবলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে দীপু মনি বলেন, ‘এ বাংলাদেশ বহু শহীদের রক্তে রঞ্জিত বাংলাদেশ। তাদের রক্তে এ মাটি পবিত্র হয়েছে। পবিত্র এ মাটিতে ঘাতক ও ষড়যন্ত্রকারীর কোনো স্থান হতে পারে না। সব ষড়যন্ত্রকারী ঘাতককে এ পবিত্র মাটি থেকে সমূলে উৎখাত করার জন্য আওয়ামী যুবলীগসহ স্বাধীনতার পক্ষের সব মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘শেখ হাসিনা যখন বিদেশে ছিলেন, তখনও সংগ্রাম করেছেন। সেই কৈশোর থেকেই নানা আন্দোলন-সংগ্রামে সম্পৃক্ত ছিলেন তিনি। ১৯৮১ সালে দেশে ফেরার পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। গণতন্ত্রকে নিষ্কণ্টক করতে বঙ্গবন্ধুকন্যা এখনো সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন।’

যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন। এতে সঞ্চালনা করেন দলের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হাসান খান নিখিল।


আরও খবর



রংপুরের বিখ্যাত চিকলি বিল ভ্রমণে যা যা দেখবেন

প্রকাশিত:Friday ১৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

রংপুরের বিখ্যাত চিকলি বিলের সৌন্দর্য সবাইকেই মুগ্ধ করে। এককালে স্থানটি ব্যবহৃত হতো সি প্লেনের ল্যান্ডিং স্টেশন হিসেবে। শীত আসলেই নানা অতিথি পাখির কলকাকলিতে মুখরিত হয়ে উঠতো এই বিল।

রংপুরের হনুমানতলা এলাকার শত বছরের প্রাচীন এই চিকলি বিলের পাশেই গড়ে উঠেছে দর্শণীয় চিকলি ওয়াটার ও গার্ডেন পার্ক। বেসরকারি উদ্যোগে গড়ে ওঠা এই পার্ক এরই মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে দেশবাসীর কাছে।

jagonews24

বিল পাড়ে মনোরম পরিবেশে দু’দণ্ড বসার ব্যবস্থা আছে। আরও আছে চিত্তবিনোদনের জন্য স্থাপিত মিনি রেলগাড়ি ও বিভিন্ন রাইড।

বর্তমানে চিকলির বিল দু’ভাগে বিভক্ত। বিলের দক্ষিণে গড়ে উঠেছে ওয়াটার পার্ক। সেখানে প্রবেশ মূল্য ২০ টাকা। সেখানে আরও আছে বিভিন্ন ওয়াটার রাইড। আর বিলের উত্তর পাশ যার নাম চিকলি ওয়াটার গার্ডেন। যার প্রবেশ মূল্য ৩০ টাকা।

jagonews24

বেসরকারি উদ্যোগে গড়ে ওঠা চিকলি বিনোদন পার্কের পাশেই আছে রিসোর্ট। আছে আলাদা আলাদা ৫টি সিটিং এরিয়ার রেস্টুরেন্ট। আছে জেট স্কি’সহ নানা ওয়াটার রাইড, আর্টিফিশিয়াল ওয়াটার ফলস, টয় ট্রেন ও বিশালাকার চরকি সব আরও নানা রাইড।

সেখানকার বিশালকার চরকিতে চড়লে রংপুর শহরের বার্ডস আই ভিউ পাবেন। পড়ন্ত এক বিকেল কাটানোর জন্য অসাধারণ এক স্থান এই চিকলির বিল।

jagonews24

চিকলি ওয়াটার পার্ক এর মূল আকর্ষণ হলো কৃত্রিম ঝরনা। দিনের চেয়ে রাতে এই ঝরনা দেখতে বেশি ভালো লাগে। নানা রঙের আলোর ঝলকানিতে চোখ ভরে যাবে।

পার্কের ভেতরে বেশ কয়েকটি ক্যানেল আছে। সেখানকার স্বচ্ছ খেলা করছে রঙিন মাছ। চাইলে স্পিড বোটেও গা ভাসাতে পারবেন এই পার্কে। দর্শনার্থীদের বসে আড্ডা দেওয়ার জন্য বিভিন্ন জায়গায় চেয়ার বা বেঞ্চের ব্যবস্থা রাখা আছে।

jagonews24

কীভাবে যাবেন চিকিলি বিল?

দেশের যে কোনো প্রান্ত থেরেক রংপুর এসে সহজেই যেতে পারবেন চিকলির বিলে। রংপুর শহরের এক প্রকার কেন্দ্রেই যার অবস্থান।

চিকলির বিল আসার পথ মূলত দুটি- একটি সাগরপাড়ার দিয়ে আরেকটি শহরের পুলিশ লাইনের সামন দিয়ে হনুমানতলা বাজার পার হয়ে একটু সামনেই হাতের বামেই বিলে প্রবেশের পথ।

jagonews24

চিকলির বিল যাওয়ার কথা বললে সহজেই রিকশা কিংবা অটো পেয়ে যাবেন। সেখানে পর্যাপ্ত পার্কিংয়ের জায়গা থাকায় প্রাইভেট গাড়ি নিয়েও সহজেই ঘুরে আসতে পারেন বিখ্যাত চিকলির বিল থেকে।


আরও খবর



৬০ বছর পর হাঙ্গেরির কাছে হারলো ইংল্যান্ড

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

বুদাপেস্টের পুসকাস এরেনায় এমন এক রেকর্ড নিয়ে ইংল্যান্ড মাঠে নেমেছিল, যাতে তাদের গর্ব আর অহঙ্কারই মিশেছিল। কিন্তু স্বাগতিকরা পুসকাস এরেনায় হ্যারি কেনদের সেই গর্ব আর অহঙ্কার ভেঙেচুরে খান খান করে দিয়েছে।

৬০ বছর ইংলিশদের হারাতে পারেনি হাঙ্গেরিয়ানরা। অবশেষে ৬০ বছরের সেই আক্ষেপ ঘুচলো তাদের। উয়েফা নেশন্স লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই ১-০ গোলে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ইতিহাস তৈরি করলো হাঙ্গেরিয়ানরা। হাঙ্গেরির হয়ে পেনাল্টি থেকে একমাত্র গোলটি করেন ডমিনিক সোবোসলাই।

আগেরদিন অঘটনের শিকার হয়েছিল ফ্রান্স, ক্রোয়েশিয়া। ডেনমার্কের কাছে হেরেছিল বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। গত বিশ্বকাপের ফাইনালিস্ট ক্রোয়েশিয়া হেরেছিল অস্ট্রিয়ার কাছে। আবার বেলজিয়াম ৪ গোল হজম করেছিল নেদারল্যান্ডসের কাছে। অঘটনের সেই ধারা অব্যাহত রেখে হারলো ইংল্যান্ডও।

সর্বশেষ চিলিতে হওয়া ১৯৬২ বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্বে দুই দলের প্রথম ম্যাচে হাঙ্গেরি জিতেছিল ২-১ গোলে। এরপর গত ৬০ বছরে ১৫বার মুখোমুখি হয়েছিল দু’দল। কিন্তু হাঙ্গেরি একবারও জিততে পারেনি।

Hungery

ইউরো ২০২০ চলাকালীন হাঙ্গেরির সমর্থকদের বর্ণবাদী ও সমকামীদের বিরুদ্ধে আচরণের জন্য শাস্তি হিসেবে দেশটিকে এই ম্যাচ খেলতে হয় ‘দর্শকশূন্য’ স্টেডিয়ামে। তবু মাঠে ছিল অনেক দর্শক। উয়েফার নিয়মে স্কুল অথবা ফুটবল একাডেমি থেকে ১৪ বা এর কম বয়সী শিশুদের বিনামূল্যে ম্যাচের জন্য আমন্ত্রণ জানানো যেতে পারে, যদি তাদের সঙ্গে একজন প্রাপ্তবয়স্ক থাকেন।

সে কারণেই দর্শক উপস্থিতি ছিল অনেক। তাদের সামনেই দারুণ জমে উঠেছিল ম্যাচটি। ইংলিশদের বিপক্ষে আরও বেশি ব্যবধানে জিততে পারতো স্বাগতিককরা। যদি শেষ মুহূর্তে আন্দ্রেস স্ক্যাফার একটি দারুণ সুযোগ মিস করে ফেলেন।

পরিবর্তিত হিসেবে মাঠে নামার ২ মিনিট পরই হাঙ্গেরিকে পেনাল্টি উপহার দেন রিস জেমস। ৬৬ মিনিটে বক্সের মধ্যে সল্ট নেগিকে বাজেভাবে ফাউল করে ফেলে দেন। রেফারি সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজালে স্পট কিক নিতে আসেন সোবোসলাই। তার শটটি জড়িয়ে যায় ইংল্যান্ডের জালে।


আরও খবর



২২ দিনে সৌদি গেলেন ৪০ হাজার ২০০ বাংলাদেশি হজযাত্রী

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

হজ ফ্লাইট শুরু হওয়ার পর রোববার (২৬ জুন) পর্যন্ত গত ২২ দিনে সৌদি আরবে গেলেন ৪০ হাজার ২০০ জন হজযাত্রী। এর মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় গেছেন তিন হাজার ৩৮৫ জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনা ৩৬ হাজার ৮১৫ জন।

ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইটি হেল্পডেস্কের হজের প্রতিদিনের বুলেটিনে এই তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

এ পর্যন্ত ১১২টি ফ্লাইটের মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স পরিচালিত ৬৪টি, সৌদিয়া এয়ারলাইন্স পরিচালিত ৪৩টি এবং ফ্লাইনাস এয়ারলাইন্স পরিচালিত ৫টি ফ্লাইট রয়েছে।

সৌদি আরবে এখন পর্যন্ত ৬ জন হজযাত্রী মারা গেছেন। এর মধ্যে ৪ জন পুরুষ ও ২ জন নারী।

সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীর কোটা ৪ হাজার ১১৫ জন। অন্যদিকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় কোটা ৫৫ হাজার ৮৮৫ জন।

সৌদি আরবে যাত্রার শেষ ফ্লাইট ৩ জুলাই। হজ শেষে ফিরতি ফ্লাইট শুরু আগামী ১৪ জুলাই, শেষ হবে ৪ আগস্ট।


আরও খবর