Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

ইনফিনিক্স স্মার্টফোন কিনে জিতুন বাইক, ঘুরে আসুন কক্সবাজার

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

প্রযুক্তি ডেস্ক:দরজায় কড়া নাড়ছে ঈদুল আজহা। ঈদের আনন্দ আরও বাড়িয়ে তুলতে বিশেষ ক্যাম্পেইন শুরু করেছে তরুণদের পছন্দের স্মার্টফোন ব্র্যান্ড ইনফিনিক্স। ‘ঈদ বোনানজা’ নামের এই ক্যাম্পেইনে গ্রাহকদের জন্য থাকছে কক্সবাজার ট্যুর, মোটরসাইকেল, নিশ্চিত ক্যাশব্যাকসহ আরও সব আকর্ষণীয় পুরস্কার।

ইনফিনিক্সের নির্দিষ্ট কিছু স্মার্টফোন কিনে বিশেষ মূল্যছাড়সহ এসব পুরস্কার জেতার সুযোগ পাবেন গ্রাহকরা। ক্যাম্পেইনটি চলবে ৫ জুন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত।

ক্যাম্পেইনে ইনফিনিক্সের নোট ৩০ এবং ৪০ সিরিজ, হট ৩০ (৪+১২৮ এবং ৮+১২৮ জিবি সংস্করণ); হট ৪০ সিরিজ এবং স্মার্ট ৮ সিরিজের স্মার্টফোনগুলো কিনলেই কেবল এই পুরস্কার পাওয়া যাবে। ক্যাম্পেইন চলাকালে অফিসিয়াল স্টোর থেকে ইনফিনিক্সের এই মডেলগুলোর যেকোনো একটি কিনলে বিশেষ পুরস্কার হিসেবে কক্সবাজার ভ্রমণ এবং একটি এক্সক্লুসিভ বাইক জেতার সুযোগ পাচ্ছেন ক্রেতারা।

বিশেষ পুরস্কার ছাড়াও ক্যাম্পেইনে অংশ নেওয়া গ্রাহকরা সর্বনিম্ন ১০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৫০০০ টাকা পর্যন্ত ক্যাশব্যাক জিতে নিতে পারবেন। আর স্মার্টফোন কিনলেই থাকছে ১০০ টাকার নিশ্চিত ক্যাশব্যাক। এছাড়া স্টক থাকা সাপেক্ষে নিশ্চিত উপহার হিসেবে গ্রাহকরা পেতে পারেন নেক ব্যান্ড, টি-শার্ট এবং ছাতা।

গ্রাহকদের উচ্চ মানের উদ্ভাবনী স্মার্টফোনের পাশাপাশি মূল্যবান উপহার ও সুন্দর অভিজ্ঞতা দিয়ে পুরস্কৃত করতে এই ক্যাম্পেইনের আয়োজন করেছে ইনফিনিক্স। একইসঙ্গে 'ঈদ বোনানজা' ক্যাম্পেনইটির মূল লক্ষ্য আকর্ষণীয় সব পুরস্কার জেতার মাধ্যমে গ্রাহকদের ঈদ আনন্দ দ্বিগুণ করে তোলা।

ট্রেন্ডি ব্র্যান্ড ইনফিনিক্স উদ্ভাবনী প্রযুক্তি এবং স্টাইলিশ ডিজাইনের জন্য তরুণদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সম্প্রতি তাদের নোট ৪০ সিরিজে প্রথমবারের মতো ওয়্যারলেস ম্যাগচার্জ প্রযুক্তি চালু করেছে এই স্মার্টফোন কোম্পানি।


আরও খবর



হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image
হোমনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি:কুমিল্লার হোমনায় ভূমিসেবা সপ্তাহের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল সোমবার উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে এর উদ্বোধন করা হয়। এ উপলক্ষে কার্যালয় চত্বরে জনসচেতনতামূলক সভা এবং তাৎক্ষণিকভাবে উপস্থিত সেবা গ্ৰহিতাদের নামজারি জমা খারিজের সৃজিত খতিয়ান, দাখিলা ও খতিয়ানের ভুল সংশোধন সেবা দেওয়া হয়। 

এতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) আহাম্মেদ মোফাচ্ছেরের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ক্ষেমালিকা চাকমা। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা স্বপন চন্দ্র বর্মণ, উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের কানুনগো আবদুল করিম ও নাজির মো. গোলাম মোস্তফা, খাদিজা মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আরও খবর



খাগড়াছড়িতে জাল নোট প্রচলন প্রতিরোধে কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৩৪জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:পবিত্র ঈদ-উল-আযহাকে সামনে রেখে খাগড়াছড়িতে জাল নোট প্রচলন প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন)  সকালের দিকে খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের শেখ হাসিনা অডিটোরিয়ামে  বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংক পিএলসি’র উদ্যোগে জাল নোট প্রচলন প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মশালায খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংক চট্টগ্রাম অঞ্চলের নির্বাহী পরিচালক আরিফ হোসেন খান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন সোনালী ব্যাংক খাগড়াছড়ি শাখা’র সহকারি মহা ব্যবস্থাপক সমর কান্তি ত্রিপুরা। 

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক  মো. সহিদুজ্জামান বলেন, কোরবানী ঈদকে সামনে রেখে একটি চক্র জাল টাকার নোটের লেনদেনের চেষ্টা চালায়। কোরবানী ঈদ আসলেই জাল নোট চক্রকারীরা বেপরোয়া হয়ে উঠে। জাল নোট না চেনার কারণে অনেকেই বিপদে পড়ে। পথে বসতে হয়। আমাদেরকে জাল নোট কিভাবে শনাক্ত করতে হবে।  সেটা অবশ্যই জানতে হবে। আমাদেরকে আরও বেশি সচেতন ও সতর্ক থাকতে হবে। জাল টাকা জীবনের জন্য অপ্রয়োজনীয় জটিলতা।

এ সময় খাগড়াছড়ি অতিরিক্তি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো.নজরুল ইসলাম  খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাঈমা ইসলাম,  সোনালী ব্যাংক পিএলসি প্রিন্সিপাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মো. সাইফুর রহমান, খাগড়াছড়ি কৃষি ব্যাংকের ব্যবস্থাপক দেবাশীষ ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি পূবালী ব্যাংক পিএলসি এর সহকারী মহাব্যবস্থাপক অভিজিত ভট্টাচার্য্য সহ  বিভিন্ন ব্যাংকের কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে বসত ঘরে কুপিয়ে দাদী নতিকে হত্যা করেছে দুর্বত্তরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

চৌধুরী ইয়াসিন ইকরাম,  চাঁদপুর থেকে:রাহেলার প্রচন্ড ঝড়বৃষ্টির মধ্যে গভীর রাতে দুর্বত্তরা বসত ঘরে ডুকে  দাদি, নাতি ও নাতিনকে কুপিয়েছে।

পরে লোকজন খবর পেযে ওই ঘরে উপস্থিত হয়ে দাদি হামিদুনেছা  (৭০) মৃত ও নাতি আরাফাত (১২) ও নাতনি  হালিমা (১৫) গুরুতর আহত অবস্থায় দেখতে পায়। তবে ঘটনাস্থলে প্রান হারান দাদী।

এ ঘটনায়  মঙ্গলবার  সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে পিবিআই তদন্ত টিম ঘটনাস্থলে পোঁছেছে। এর পরেই হামিদুনেচার লাশ উদ্ধার করে নিয়ে যাওয়া হবে।

এসময় আহতদের উদ্ধার করে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে নাতি আরাফাত হোসেনকে (১২) মৃত ঘোষণা করেন এবং নাতিন হালিমাকে (১৫) উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে রেপার করেন। হালিমার শারিরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

২৭ মে  দিবাগত রাতে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার বাকিলা ইউনিয়ন পশ্চিম রাধাসার বকাউল বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটে।

হত্যার শিকার হামিদুনেছা ঐ বাড়ির সিরাজ বকাউলের স্ত্রী  নিহত আরাফাত ও আহত হালিমা ওই বাড়ির প্রবাসী ইউসুফের সন্তান। আরাফাত শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী এবং হালিমা একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী এবং নিহত হামিদা বেগম হলেন ইউসুফের মা।

পাশের খাঁন বাড়ির ইউসুফ জানান, রাত সাড়ে ১২টার দিকে নিহত আরাফাতের মা শাহিন আমাকে ফোন করে তাদের বাড়ীতে ডাকাত ডুকছে, অনেককে কুপিয়েছে বলে ফোন করে। পরে স্থানীয় মসজিদের মাইকে বকাউল বাড়ীর ডাকাত ডুকেছে বলে প্রচার করা হয়। পরে আমিসহ কয়েকজন ওই বাড়ীতে যাই।

তিনি  আরো বলেন ওই বাড়িতে গিয়ে দেখি প্রবাসি ইউসুফের মায়ের মৃতদেহ খাটের উপর পড়ে আছে। তার ছেলে আরাফাত ও মেয়ে হালিমা নিচে আহত অবস্থায় নিচে পড়ে আছে।

পরে মসজিদের ইমাম ও অন্যদের সহযোগিতায় আহতদের কাঁধে করে রাস্তায় এনে পাশের বাড়ী থেকে অটো নিয়ে হাসপাতালে আসি।

তিনি জানান, হাসপাতালে আসার পথেই আরাফাত মারা যায়। পরে হাসপাতাল এলে ডাক্তার আরাফাতকে মৃত ঘোষণা করেন এবং হালিমাকে কুমিল্লায় রেফার করা হয়। শুনেছি সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেলে রেফার করা হয়েছে। তার পিঠে ও বুকে কোপ দেয়া হয়েছে।

আহতদের বহনকারী অটো চালক জহির জানান, রাতে প্রচণ্ড বৃষ্টি হচ্ছিল। তখন রাত আনুমানিক সাড়ে ১২টার পরে হবে। আমার বাড়ীতে আহত আরাফাত ও তার বোন হালিমাকে নিয়ে আসে স্থানীয়রা। পরে আমার ব্যাটারী চালিত অটোরিকশায় করে তাদেরকে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসি।

একই বাড়ীর সাহাবুদ্দিন জানান, ডাকাতির ঘটনায় ফোন পেয়ে আমরা ওই বাড়ীতে যাই। আমার বড় ভাইয়ের স্ত্রী ফাতেমা জানান, ঘরের তালা ভেঙ্গে তার ঘরেও ডাকাত দল প্রবেশ করেছে। সে অন্য রুমের দরজা আটকিয়ে বিভিন্ন জনকে ফোন করে বাড়ীতে ডাকাতির খবর জানাচ্ছিল। ডাকাত দল কালো বোরকা পড়া ছিলো।

স্থানীয়রা জানান, বাড়ীতে ডাকাতির ঘটনা ঘটলেও ৩টি বিল্ডিং রেখে কেন ডাকাত দল টিনের ঘরে ডুকলো ? ডাকাত দল ডাকাতির উদ্দেশ্য ওই ঘরে প্রবেশ করলে, ঘর থেকে কোন স্বর্ণালংকার খোয়া যায়নি। এমনকি নিহত বৃদ্ধ মহিলা হামিদা বেগমের গলায়ও স্বর্ণের চেইন ও কানে স্বর্ণের দুল আছে। হামিদুনেছাকে জবাই করা হয়েছে আর আরাফাতকে গলায় কাটা দাগ রযেছে।

খবর পেয়ে হাজীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ আবদুর রশিদসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে প্রচণ্ড ঝড় বৃষ্টিতে ডাকাতির খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়েছি। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে দেখা হচ্ছে। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় রেমাল; মিরসরাইয়ে পানিতে ভেসে গেছে কোটি টাকার মাছ, বিদ্যুতবিচ্ছিন্ন ৯০ হাজার গ্রাহক

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১১৭জন দেখেছেন

Image

মিরসরাই প্রতিনিধি:বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমালের তাণ্ডবে মিরসরাইয়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অতিবৃষ্টিতে ফেনী নদীর জোয়ারের পানি ঢুকে মুহুরী প্রজেক্ট এলাকার ২৬ হেক্টর মৎস্য প্রকল্পের প্রায় কোটি টাকার মাছ পানিতে ভেসে গেছে। দমকা বাতাসে ও জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে ১০ হেক্টর আউশ বীজতলা ও ১৮০ হেক্টর গ্রীষ্মকালীন সবজিক্ষেত নষ্ট হয়েছে।বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছেন প্রায় ৯০ হাজার গ্রাহক ।

জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে উপজেলার ১৬টি ইউনিয়ন ও দুটি পৌরসভায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ো বাতাসে বড় বড় গাছ উপড়ে পড়ে গ্রামীন সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে এবং অসংখ্য বসতঘর ভেঙে গেছে। এছাড়া বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙেছে ৩৭ টি, তার ছিঁড়েছে ৩৪০ টি স্পটে, ক্রস আর্ম ভেঙেছে ৩৬ টি। উপজেলায় প্রায় ৯০ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছেন। অতিবৃষ্টিতে ফেনী নদীর পানি ঢুকে মুহুরী প্রজেক্ট এলাকার ৩২ টি মৎস্য খামারের ২৬ হেক্টর পুকুর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কোটি টাকার কার্পজাতীয় মাছ পানিতে ভেসে গেছে। হাবিলদারবাসা এলাকায় সড়কে বড় গাছ ভেঙে পড়ে প্রায় ২০ ঘণ্টা বন্ধ ছিল ছাগলনাইয়া-করেরহাট সড়কে সবধরনের যান চলাচল। মঙ্গলবার দুপুরে গাছ কেটে সরানোর পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।উপজেলার মধ্যম ওয়াহেদপুর এলাকার কৃষক আব্দুল হান্নান বলেন, ‘এবার আমি প্রায় ৭০ শতক জমিতে বোরো আবাদ করেছি। ঘূর্ণিঝড়ের আগে ৩০ শতক জমির ধান কেটে বাড়িতে নেওয়া হয়েছে। বাকি ৩০ শতক জমির পাকা ধান পানিতে ডুবে রয়েছে। এতে ধান পচে গেলে বড় ক্ষতি হয়ে যাবে।’চট্টগ্রাম পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৩ এর মিরসরাই জোনাল অফিসের এজিএম প্রকৌশলী উদয়ন দাশ গুপ্ত বলেন, এরইমধ্যে ১৮ হাজার গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে এখনো ৫৪ হাজার গ্রাহক বিদ্যুৎহীন রয়েছেন। লাইন চালু করতে মাঠে ১৮ টি টিম কাজ করছে। দু'একদিনের মধ্যে বিদ্যুৎ সংযোগ স্বাভাবিক হয়ে যাবে আশা করি।বারইয়ারহাট জোনাল অফিসের ডিজিএম হেদায়েত উল্ল্যাহ বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে আমাদের ১২ টি খুঁটি ও ৮ টি ক্রস আর্ম ভেঙেছে। তার ছিঁড়েছে ৪০ টি স্পটে। ২৫ হাজার গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎ সংযোগ পাননি। লাইন স্বাভাবিক করতে ৬ টি টিম কাজ করছে।

সীতাকুণ্ড জোনাল অফিসের ডিজিএম পঙ্কজ চৌধুরী জানান, সীতাকুণ্ড জোনাল অফিসের আওতাধীন মিরসরাই উপজেলার ১০ হাজার গ্রাহক এখনো বিদ্যুৎহীন অবস্থায় রয়েছে।উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রতাপ চন্দ্র রায় বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে উপজেলার ১০ হেক্টর আউশ বীজতলা পানিতে ডুবে গেছে ও ১৮০ হেক্টর গ্রীষ্মকালীন সবজি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। দ্রুত পানি না নামলে ক্ষতির পরিমাণ বাড়বে। পরিপূর্ণ ক্ষয়ক্ষতি আগামী দুদু’য়েকদিনের মধ্যে নির্ধারণ করা যাবে।

উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা নাসিম আল মাহমুদ বলেন, মুহুরী প্রজেক্টের পুকুরগুলো পাশাপাশি লাগানো থাকায় পাড় থাকে একদম সরু। ফলে অল্প বৃষ্টিতে পাড় ভেঙে মাছ পাশের পুকুরে ভেসে যায়।


আরও খবর



তদন্ত শেষ হলে সে অনুযায়ী বেনজীরের বিচার হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১১৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:যদি কেউ অন্যায় করে তাহলে তার শাস্তি বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী হবে,সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদের দুর্নীতি নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন। তার বিষয়ে তদন্ত চলছে। তিনি অন্যায় করেছেন না কি নির্দোষ, তিনি কি কর ফাঁকি দিয়েছেন না কি অন্যভাবে অর্থ সম্পদ গড়েছেন, সেটা তদন্ত শেষ হলে সে অনুযায়ী তার বিচার করা হবে।

শনিবার (১ জুন) দুপুর দেড়টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র-শিক্ষক মিলনায়তনে (টিএসসি) এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য জানান।

তদন্ত চলমান অবস্থায় একজন আইজিপি বিদেশ চলে যেতে পারেন কি না জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন, সে এখনো দেশে আছে নাকি বিদেশ চলে গেছে এটা আমি জানি না।

আইজিপির এমন কর্মকাণ্ডে পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে কি না জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, না, এটা ব্যক্তিগত বিষয়। আমাদের পুলিশ বাহিনী অনেক কষ্ট করে। জঙ্গি-সন্ত্রাস দমন, কোভিডসহ যেকোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় তারা জীবন বাজি রেখে কাজ করেছে। কোনো ব্যক্তি অপরাধ করলে তার দায় প্রতিষ্ঠান নেয় না।

এমপি আনার হত্যার মূল মামলা ভারতে হয়েছে এবং মূল তদন্তও ভারতে হবে। তবে তদন্তে বাংলাদেশ সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে বলে জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এসময় মন্ত্রী বলেন, মূল হত্যাকাণ্ড যেহেতু ভারতে হয়েছে সেহেতু মূল মামলাও ভারতে হয়েছে৷ ভারতের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বন্দী বিনিময় চুক্তি আছে। তাই ভারতই এ হত্যাকাণ্ডের মূল তদন্ত করবে। আমাদের দেশে এই হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হলে আমাদের পুলিশ বিষয়টি তদন্ত করতো। তারা যদি আমাদের সম্পৃক্ত করে তাহলে আমরা তাদের সহযোগিতা করবো।

হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত একজন নেপালে পালিয়ে গেছেন এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একজন সংসদ সদস্যকে হত্যা করা হয়েছে আর আমরা বসে থাকবো এমন হতে পারে না। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত এবং সহযোগিতাকারী সবাইকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসা হবে। নেপালে একজন পালিয়ে গেছে। তবে সে কোথায় আছে সেটা সুনির্দিষ্টভাবে বলা যাচ্ছে না। তদন্ত হচ্ছে, তাকে ফিরিয়ে আনতে সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪