Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

হেলেছে দেয়াল, ঝুঁকিতে কল্যাণপুর মডেল বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১২১জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর কল্যাণপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অধিকাংশ সীমানা প্রাচীর ধসে গেলেও গত পাঁচ বছরে তা সংস্কার হয়নি। রাস্তার ওপর প্রবেশ গেটের সঙ্গে অবশিষ্ট দেয়ালও হেলে গেছে। যে কোনো সময় সেটি ধসে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। বছরের পর বছর সংস্কার না হওয়ায় দেয়াল ঘেঁষা রাস্তা দিয়ে ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছেন পথচারীরা। চলছে যানবাহনও।

গতকাল মঙ্গলবার (৭ জুন) মিরপুরের কল্যাণপুর এলাকায় সরেজমিনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে।

দেখা গেছে, রাজধানীর কল্যাণপুর মডেল বিদ্যালয়ের সীমানা দেয়ালের ৮০ শতাংশ ধসে গেছে। ধসে পড়া দেয়ালের ইট স্তুপ করে রাখা হচ্ছে স্কুলের এক কোণে। মূল ফটকে লোহার গেটের দু-পাশের দেয়ালও ২০ শতাংশ হেলে পড়েছে। সামান্য ঝড়-বৃষ্টিতেই সেটি আরও নুয়ে পড়তে পারে। যা এ পথে সকাল-সন্ধ্যা যাতায়াতকারী সাধারণ মানুষের জন্য বড় ঝুঁকি।

বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, সকালে যথারীতি শিক্ষার্থীদের অ্যাসেম্বেলি চলছে। সীমানা প্রাচীর ভেঙে পড়ায় এলাকার কিছু বখাটে দলবেঁধে বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ঢুকে হইহুল্লোড় করছে, ধূমপান করছে। কখনোবা সুযোগ পেয়েই মেয়েদের উত্যক্ত করার চেষ্টা করছে। এলাকার ছেলেপুলে বলে ভয়ে কেউ প্রতিবাদও করছে না। বিদ্যালয়টির প্রায় সাড়ে পাঁচশো শিক্ষার্থী ও ২০ জন শিক্ষক এরকম অস্বস্তিকর পরিস্থিতিতেই শিক্ষা কার্যক্রমে যুক্ত রয়েছেন।

শিক্ষকরা বলছেন, বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর না থাকায় যখন-তখন মাদকাসক্তরা এখানে আড্ডা দিচ্ছে। ক্লাস রুমের ছাদে উঠে তারা মাদক সেবন করছে। কেউ কিছু বলতে পারছে না। মেয়েদের ক্লাস চলাকালে এই বখাটেরা ক্লাসের সামনে দাঁড়িয়ে হট্টগোল করছে। বাইরে যেতে বললেও যাচ্ছে না। বিদ্যালয় প্রাঙ্গণটি যেন তাদের অবাধ বিচরণক্ষেত্র। এতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পাশাপাশি মানসিক বিকাশও বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

হেলেছে দেয়াল, ঝুঁকিতে কল্যাণপুর মডেল বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিদ্যালয়টির সীমানা প্রাচীর ২০১৭ সালে ধসে পড়ে। এরপর বিভিন্ন সময়ে উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরে দেয়াল সংস্কারের আবেদন জানালেও তা আলোর মুখ দেখেনি। উল্টো কখনো কখনো বিষয়টি নিয়ে বেশি আলোচনা না করারও পরোক্ষ নির্দেশ আসে প্রধান শিক্ষক বরাবর। যদিও স্থানীয় এলাকাবাসী নানা সময়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে দেয়াল সংস্কারের দাবি জানিয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উন্মে কুলসুম মঙ্গলবার জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, পথচারীসহ সবাই ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে। বারবার আবেদন করলেও ধসে পড়া দেয়াল সংস্কার হচ্ছে না। এতে বহিরাগত বখাটেদের কারণে বিদ্যালয়ে শিক্ষার পরিবেশ বিনষ্ট হচ্ছে। মেয়ে শিক্ষার্থীরা ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে।

হেলেছে দেয়াল, ঝুঁকিতে কল্যাণপুর মডেল বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

তিনি জানান, ভারি বর্ষণে ২০১৭ সালে বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচীর ধসে যায়। তখন দেয়াল ধসের ঘটনায় তিনটি কুকুর মারা যায়। এতে এলাকাবাসী স্কুলের শিক্ষকদের ওপর ক্ষিপ হন। বর্তমানে চলাচলের রাস্তার ওপরে গেটের অংশের কিছুটা দেয়াল হেলে রয়েছে। যে কোনো সময় সেটিও ধসে পড়তে পারে। বারবার নোটিশ করার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বিষয়টি আমলে নিচ্ছে না।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে ঢাকা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আলেয়া ফেরদৌসী শিখা জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরে রয়েছে। অর্থ অনুমোদন হলে বিদ্যালয়টির সীমানা প্রাচীর সংস্কার করা হবে। অর্থ বরাদ্দের জন্য সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরে চিঠি পাঠিয়ে জানানো হয়েছে। আশা করি, দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



এনসিসি ব্যাংকে ক্রেডিট অফিসার পদে চাকরি

প্রকাশিত:Tuesday ২৬ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

বেসরকারি ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেডে ‘ক্রেডিট অফিসার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: ন্যাশনাল ক্রেডিট অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক লিমিটেড (এনসিসি ব্যাংক)
বিভাগের নাম: সিআরএম অ্যান্ড সিএমএসএমই ব্যাংকিং

পদের নাম: ক্রেডিট অফিসার
পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিএ/এমবিএম/স্নাতকোত্তর
অভিজ্ঞতা: ০৩-০৬ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: ৪০ বছর
কর্মস্থল: যে কোনো স্থান

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ৩১ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



‘বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশপ্রেমের সঙ্গে কাজ করতে হবে’

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন বলেছেন, বৈশ্বিক সংকট কাটিয়ে উঠতে দেশপ্রেমে উজ্জ্বীবিত হয়ে কাজ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক-নির্দেশনা অনুযায়ী কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে।

রোববার (৩১জুলাই) মন্ত্রণালয়ের ২০২১-২২ অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) জুন মাস পর্যন্ত বাস্তবায়ন অগ্রগতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত ভার্চুয়াল সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

পরিবেশমন্ত্রী বলেন, সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচির শতভাগ বাস্তবায়ন করতে বছরের প্রথম থেকেই কাজ শুরু ও পুরো বছরে বাস্তবায়নযোগ্য কর্মপরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। কাজে সফলতার জন্য আন্তরিকতা ও পেশাদারত্বের সঙ্গে কাজ করতে হবে।

তিনি বলেন, সুন্দরবন সংরক্ষণে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করতে হবে। সবক্ষেত্রেই জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাগুলো অর্জনের কথা মাথায় রেখে কাজ করতে হবে। চলমান প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করে দেশের বায়ুদূষণ, শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে।

ভার্চুয়াল এ সভায় অংশ নেন মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার, সচিব ড. ফারহিনা আহমেদ, অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) মো. মিজানুল হক চৌধুরী, অতিরিক্ত সচিব (জলবায়ু পরিবর্তন) মো. মনিরুজ্জামান, অতিরিক্ত সচিব (পরিবেশ) সঞ্জয় কুমার ভৌমিক, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. আবদুল হামিদ, বন অধিদপ্তরের প্রধান বন সংরক্ষক মো. আমির হোসাইন চৌধুরীসহ বিভিন্ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকরা আলোচনায় অংশ নেন।


আরও খবর



প্রতিবেদন জমা দেওয়ার সময় বাড়লো

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

দুর্নীতিবিষয়ক অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার ২০২২ এর প্রতিবেদন জমা দেওয়ার সময় আগামী ১৬ আগস্ট পর্যন্ত বাড়িয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

রোববার (৩১ জুলাই) টিআইবির পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশি মালিকানাধীন এবং বাংলাদেশ থেকে পরিচালিত সংবাদপত্র, অনলাইন পত্রিকা ও টিভি চ্যানেলে কর্মরত সাংবাদিকদের প্রতিবেদন জমা দেওয়ার সময় ১৬ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। মোট চারটি বিভাগে প্রকাশিত ও প্রচারিত সব ধরনের দুর্নীতি বিষয়ক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন থেকে নিরপেক্ষ বিচারকমণ্ডলী নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ প্রতিবেদনের জন্য পুরস্কার দেওয়া হবে। ২০২১ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বরে প্রকাশিত ও প্রচারিত অনুসন্ধানী প্রতিবেদন পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হবে। এছাড়া পুরস্কার সংক্রান্ত অন্যান্য নিয়মাবলী অপরিবর্তিত থাকছে।

বিজ্ঞপ্তি আরও বলা হয়, এ বছরও প্রতিবেদন শুধু ই-মেইল নেওয়া হবে। ই-মেইল পাঠাতে হবে এই ঠিকানায় [email protected]। প্রতিবেদন পাঠানোর ক্ষেত্রে ই-মেইলর বিষয় হিসেবে ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা পুরস্কার ২০২২’ উল্লেখ করতে হবে। সংবাদপত্রের ক্ষেত্রে প্রতিবেদনের মূল বা স্ক্যান কপি পাঠাতে হবে। অনলাইন প্রতিবেদন জমা দেওয়ার ক্ষেত্রে মূল প্রতিবেদনের লিংকসহ প্রিন্ট করে বা ডকুমেন্ট ফাইল আকারে জমা দিতে হবে।

প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য প্রয়োজনীয় নথি, যেমন- প্রতিযোগী যে প্রতিষ্ঠানে থেকে প্রতিবেদন তৈরি করেছেন সেই প্রতিষ্ঠান প্রধানের প্রত্যয়নপত্র বা এর স্ক্যান কপি, প্রতিবেদকের পাসপোর্ট সাইজের ছবি, বাংলা ও ইংরেজিতে নাম, যোগাযোগের ঠিকানা এবং টেলিফোন নম্বর ডকুমেন্ট ফাইল আকারে আবেদনপত্রের সঙ্গে বাধ্যতামূলক থাকতে হবে।

জাতীয় সংবাদপত্র বিভাগ, আঞ্চলিক সংবাদপত্র বিভাগ এবং টেলিভিশন বিভাগে অনুসন্ধানী সংবাদ প্রতিবেদন ও অনুসন্ধানী প্রামাণ্য অনুষ্ঠান (ডকুমেন্টরি) এই চারটি বিভাগে অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের জন্য পুরস্কার দেওয়া হবে।

বিস্তারিত জানতে ভিজিট করুন: www.tibangladesh.org/ija2022


আরও খবর



পেনশনের টাকা ছিনতাই, শোকে বৃদ্ধের মৃত্যু

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে গণেশ বাঁশফোড় (৮০) নামে এক বৃদ্ধের পেনশনের টাকা ছিনতাইয়ের পর তার মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২৫ জুলাই) কুমারখালী সোনালী ব্যাংক লিমিটেড উপজেলা শাখায় এ ঘটনা ঘটে।

ওই ব্যক্তি পৌরসভার শেরকান্দির সুইপারপট্টি এলাকার বাসিন্দা। তিনি একজন অবসরপ্রাপ্ত পরিছন্নতাকর্মী ছিলেন। পরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে সুরতহাল শেষে কোনো অভিযোগ না থাকায় পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে এবং ঘটনাস্থলে থাকা সিসিটিভির ফুটেজে দেখা যায়, সোমবার সকাল ১০টা ১০ মিনিটের দিকে সোনালী ব্যাংকের ওই শাখায় পেনশনের টাকা তুলতে গিয়েছিলেন গণেশ বাঁশফোড়। এসময় একটি চক্র তার পিছু নেয়। এরপর ১০টা ২৬ মিনিটের দিকে ২৫ হাজার টাকা উত্তোলন করে ব্যাংকের গলি দিয়ে বের হচ্ছিলেন তিনি। এসময় চক্রের একজন তার কাছে যান এবং তার জামার পেছনে কিছু একটা লাগিয়ে দেন। এরপর ওই বৃদ্ধ ব্যাংকের প্রধান প্রবেশ পথের সামনে থাকা টিউবওয়েলের কাছে যান। তার পিছে পিছে প্রতারক চক্রের একজন সেখানে যান। প্রায় পাঁচ মিনিট পর গণেশ খালি গায়ে টিউবওয়েলের কাছ থেকে বের হয়ে পুনরায় ব্যাংকের দিকে ফিরে যান। এসময় প্রতারক চক্রের ছয়জনকে দ্রুত চলে যেতে দেখা যায়।

আরও জানা গেছে, সকাল ১০টা ৩৮ মিনিটের দিকে গণেশ ব্যাংকের ব্যবস্থাপকের কাছে যান এবং তার ২৫ হাজার টাকা ছিনতাইয়ের কথা বলতে বলতে অসুস্থ হয়ে ফ্লোরে পড়ে যান। এর পর ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে দ্বিতীয় তলায় পাঠান। দ্বিতীয় তলায় উঠতে গিয়ে সিঁড়িতে তিনি মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েন।

এ বিষয়ে নিহতের বড় ছেলে তুলশী বাঁশফোড় বলেন, বাবা ব্যাংক থেকে পেনশনের টাকা তুলে ফেরার পথে ব্যাংকের নিচে প্রতারক চক্রের কবলে পড়েন। প্রতারক চক্র তার ২৫ হাজার টাকা ছিনতাই করে নিয়ে যায়। টাকার শোকে হয়তো স্ট্রোক করে মারা গেছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী সার্জন ডা. মো. মশিউল আরেফিন বলেন, ব্যাংকে ঘটনাটি ঘটেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে দ্বিতীয় তলায় উঠতে গিয়ে সিঁড়িতে তিনি মারা যান। ময়নাতদন্ত করা হলে প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড উপজেলা শাখার জ্যৈষ্ঠ ব্যবস্থাপক প্রসাদ বিশ্বাস বলেন, টাকা ছিনতাইয়ের পর ওই বৃদ্ধ বিষয়টি আমাকে জানাতে এসেছিলেন। এ কথা বলতে বলতেই তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং কিছু সময় পরে মারা যান।

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, টাকা ছিনতাইয়ের কারণে স্ট্রোক করে ওই বৃদ্ধ মারা যেতে পারেন। তবে কোনো অভিযোগ না থাকায় মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



হঠাৎ মেজাজ খারাপ হলে নিজেকে শান্ত করবেন যেভাবে

প্রকাশিত:Monday ১৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

অতিরিক্ত রাগ, উত্তেজনা কিংবা দুশ্চিন্তা কোনোটিই স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নয়। অতিরিক্ত মানসিক চাপ মাথাব্যথা, হার্টের সমস্যা এমনকি ডায়াবেটিসসহ নানা ধরনের স্বাস্থ্যগত জটিলতার কারণ হতে পারে।

পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন কারণে মানুষের মন-মেজাজ সব সময় এক রকম থাকে না। খারাপ পরিস্থিতিতে অনেকেই উত্তেজিত হয়ে ভুল কাজ করে বসেন। এ কারণে মেজাজ হারাতে বসলে দ্রুত তা নিয়ন্ত্রণের কৌশল জানতে হবে।

কিছু কৌশল ও ব্যায়ামের মাধ্যমে আপনি ইতিবাচক মেজাজ ধরে রাখতে পারবেন সব ধরনের পরিস্থিতিতেই। জেনে নিন উদ্বিগ্ন ও আতঙ্কিত হলে মন শান্ত রাখতে দ্রুত কোন কাজগুলো করবেন-

হঠাৎ মেজাজ খারাপ হলে নিজেকে শান্ত করবেন যেভাবে

>> চাপের সময় স্থির হয়ে বসে গভীর শ্বাস নিলে অনেকটাই স্বস্তি মিলবে। এ সময় শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম করতে পারেন।

>> সামান্য লবণ জিহ্বার উপর রাখুন। এই কৌশল কিছুটা অপ্রচলিত মনে হলেও বিশেষজ্ঞদের মতে এটি উত্তেজনা বা উদ্বিগ্নের সময় মন শান্ত করতে ভালো কাজ করে। জিহ্বার উপর লবণ রাখার পরইিএক গ্লাস পানি পান করলে মুহূর্তেই চাঙ্গা বোধ করবেন।

>> বুকে ঠান্ডা কিছু রাখুন। বরফের প্যাক বা ঠান্ডা কিছু বুকে চেপে ধরুন এ সময়। এটি একটি অ্যান্টি-অ্যাংজাইটি হ্যাক যা খুবই সহজেই করতে পারবেন।

উত্তেজিত হলে ভ্যাগাস নার্ভ সন্তিষ্ক তেকে বুকে চলে আছে, আইসিং পদ্ধতি অনুসরণ করলে স্নায়ুতন্ত্র দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আসে।

হঠাৎ মেজাজ খারাপ হলে নিজেকে শান্ত করবেন যেভাবে

এর পাশাপাশি ঠান্ডা পানিতে গোসল, বরফের জলে মুখ ডুবিয়ে রাখা কিংবা বরফের প্যাক লাগানোর মাধ্যমেও আপনি নিজেকে শান্ত করতে পারবেন।

>> চাইলে একটু ব্যায়ামও করতে পারেন। এক্ষেত্রে একটি চেয়ারে সোজা হয়ে বসে খালি পা মেঝেতে স্পর্শ করুন। এভাবে নিজেকে শান্ত করার চেস্টা করুন।

হঠাৎ মেজাজ খারাপ হলে নিজেকে শান্ত করবেন যেভাবে

>> আপনার তালুতে একটি আইস কিউব রেখে চেপে ধরুন। অত্যধিক ঠান্ডাবোধ করলে আপনার মস্তিষ্ক থেকে সব ধরনের খারাপ চিন্তা ও উদ্বেগ দ্রুত সরে যাবে।

>> চাইলে কয়েক মিনিটের জন্য দড়িলাফও দিতে পারেন। এতেও মেজাজ সহজেই নিয়ন্ত্রিত হবে। এই সামান্য ওয়ার্কআউট উদ্বেগ কমাতে যথেষ্ট কার্যকরী।

>> উদ্বেগজনক পরিস্থিতিতে নিজেকে শান্ত করতে আপনার জিহ্বাকে শিথিল করুন। এজন্য জিহ্বা মুখের ভেতরের তালুতে লাগানোর চেষ্টা করুন। কয়েক সেকেন্ডের জন্য জিহ্বার এই ব্যায়ামটি করলেও আপনি মেজাজ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন।


আরও খবর