Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

‘ঘরে পোয়াতি বউ, ওর জায়গায় আমারে নিলা না কেন’

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৫৩জন দেখেছেন
Image

‘ওরে আল্লাহ রে...আমি কি করবো। তুমি আমার কী পরীক্ষা করতিছাও। তুমি আমার সন্তানরে ফিরায়ে দাও। সে খুব আদরের। আমি কারে নিয়ে বাঁচবো। ওর ঘরে যে পোয়াতি বউ রয়েছে। প্রথম বাপ হবে আমার ইব্রাহিম। সন্তানের মুখ দেখতে পেল না আল্লাহ রে...। আমি কি করবো। ওর জায়গায় তুমি আমারে নিতে পারলে না কেন!’

এভাবেই বিলাপ করতে করতে বারবার মূর্ছা যাচ্ছেন চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে নিহত ইব্রাহীম হোসেনের মা দুলাপি বেগম। ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিলেন বাবা অবসরপ্রাপ্ত মাদরাসা শিক্ষক আবুল কাশেম।

ইব্রাহীমের বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার জহুরপুর ইউনিয়নের নরসিংহপুর গ্রামে। সোমবার ভোরে তার মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্সটি গ্রামে পৌঁছালে কান্নার রোল ওঠে।

ভোরের নীরবতা ভেঙে স্বজনদের আহাজারি ছড়িয়ে পড়ে বাড়ি থেকে পাড়ায়, পাড়া থেকে গ্রামে। বিদায়বেলায় ছুঁয়ে দেখতে পারেননি স্বজনরা। কেন না সুঠামদেহী ইব্রাহিমের মরদেহ দগ্ধ। তাই দাফনের আগ পর্যন্ত ফ্রিজিং গাড়িতেই রাখা হয় মরদেহটি। গাড়ির সাদা গ্লাসের ওপরে হাত বুলিয়েই শেষবিদায় জানানো হয় তাকে।

সকাল ১০টায় ধর্মীয় আনুষ্ঠানিকতা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়। জানাজায় আশপাশের গ্রামের সাধারণ মানুষের পাশাপাশি প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

আগুনে পুড়ে মারা যাওয়া ইব্রাহীমের মৃত্যুর খবরে গত দুই দিন ধরে প্রতিবেশী ও আশেপাশের কয়েক গ্রামের লোকজন তাদের বাড়িতে ভিড় করেন। জীবনসঙ্গীকে হারিয়ে স্ত্রী মুন্নি খাতুন যেন বাকরুদ্ধ হয়ে গেছেন। ভাই-বোনসহ অন্য স্বজনদের ক্ষণে ক্ষণে গগণবিদারী আহাজারিতে চারপাশ ভারি হয়ে উঠেছে। বাড়ির ভেতরের বারান্দায় প্রতিবেশী নারীরা নিহত ইব্রাহীমের নয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী মুন্নী খাতুনকে সান্ত্বনা দিচ্ছেন।

death1

মুন্নী খাতুন বলেন, ‘আমার এ জীবন রেখে কী লাভ। আমার পাখি চলে গেছে। ও আল্লাহ আমারেও নিয়ে যাও। আমার পাখিরে রেখে কীভাবে বাঁচবো। আমাদের সন্তানরে নিয়ে ওর কত স্বপ্ন ছিল। এখন কি হবে?’

পাশেই বসা মুন্নীর বড়বোন রেহেনা খাতুন বলেন, ‘মুন্নী নয় মাসের অন্তঃসত্ত্বা। ২৮ জুলাই সন্তান ভূমিষ্ঠের সম্ভাব্য দিন। শনিবার রাত ৯টায় মুন্নীসহ তার মায়ের সঙ্গে শেষ কথা হয় ইব্রাহিমের। কোরবানির ঈদে বাড়ি এসে সন্তানের মুখ দেখতে চেয়েছিল। একই সঙ্গে সন্তান ও মুন্নীরে চট্টগ্রামে নিয়ে যেতে চেয়েছিল। ছেলে হলে মাদরাসায় পড়াতে চেয়েছিল, হাফেজ বানাতে চেয়েছিল। আমার বোন-জামাইয়ের সেই আশা আর পূরণ হলো না।’

ইব্রাহিমের খালাতো ভাই নাজমুল হোসেন বলেন, শনিবার (৪ জুন) রাত ৯টা থেকে সাড়ে ৯টার মধ্যে ইব্রাহিম আগুনে দগ্ধ হয়। তার আগে সে বাড়িতে মা, বাবা ও স্ত্রীসহ অন্য স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে। বিস্ফোরণে তার মাথার পেছনে ও পেটে আঘাত ও আগুন লাগে। মুখ, টি-শার্ট ও মোবাইল ফোন দেখে তাকে শনাক্ত করি। উদ্ধারের সময় তার ফোনটি সচল ছিল।’

আরেক খালাতো ভাই শিমুল হোসেন বলেন, ‘শনিবার রাতে অনেকের মতো ইব্রাহিমও অগ্নিকাণ্ডের ভিডিও ফেসবুকে লাইভ করছিল। কিছু সময় পর হঠাৎ ডিপোর কনটেইনারগুলোতে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এরপর ঘটনাস্থলে গিয়ে খোঁজাখুঁজি করে তাকে পাওয়া যায়নি। পরদিন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে মরদেহ পাওয়া যায়। দেড় বছর আগে নিজ গ্রামেই বিয়ে করে সে। তার এমন মৃত্যুতে তার অনাগত এই সন্তানের কী হবে সেটাই ভাবছি আমরা। আল্লাহ যেন আর কারও এমন মৃত্যু না দেয়।’


আরও খবর



ভারত থেকে আনা গম তৃতীয় পক্ষের কাছে বিক্রি করা যাবে না

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশে গম রপ্তানিতে ভারত রাজি হয়েছে জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, বাংলাদেশের যদি কেউ ব্যক্তিগতভাবে গম আনতে চান তারা পারবেন। তবে, তারা সেটা তৃতীয় পক্ষের কাছে বিক্রি করতে পারবেন না।

বুধবার (১৫ জুন) রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত প্রয়াত সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের স্মরণ সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন এই স্মরণ সভার আয়োজন করে।

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্ক বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দুই দেশ পাশাপাশি হলে (তাদের মধ্যে) সমস্যা থাকে এবং সমাধানও থাকে। সেক্ষেত্রে কেনো ধরনের অস্থিতিশীল অবস্থা বা উত্তেজনা যেন না হয়, তার জন্য যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া হয়।

আগামী ১৯ জুন নয়াদিল্লিতে জেসিসি বৈঠকে যোগ দিতে ১৮ জুন রাতে ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর। সপ্তম জেসিসি বৈঠকে ঢাকার পক্ষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও নয়াদিল্লির পক্ষে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর নেতৃত্ব দেবেন। এতে দু’দেশের সামগ্রিক বিষয়ে আলোচনা হবে।

আসন্ন ভারত সফর প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অগামী ১৯ জুন বাংলাদেশ ও ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া বৈঠকে জ্বালানি নিরাপত্তার পাশাপাশি আরও কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। সেখানে নতুন ইস্যু হচ্ছে জ্বালানি নিরাপত্তা। এটি কীভাবে নিশ্চিত করা যায় তা নিয়ে কথা হবে।

বৈঠকে অনেক অমীমাংসিত বিষয় নিয়েও আলাপ হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের অনেকগুলো নদী সম্পর্কে আলাপ আছে। ফেনী নদী আছে, কুশিয়ারা আছে। পাটের ওপর অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক ও সীমান্ত ইস্যু আছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, যৌথ নদী কমিশনের বৈঠকের বিষয়ে গত মাসে আসামে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমি বলেছিলাম। কিন্তু সেটা হয়নি। এর জন্য তারা রেডি না। জেসিসি বৈঠকের আগে জেআরসির বৈঠক না হলেও পানি বণ্টন ইস্যুতে আলোচনা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন বিষয়ে আবদুল মোমেন বলেন, মিয়ানমারকে ৮ লাখ ৩০ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা যাচাই-বাছাইয়ের জন্য দেওয়া হয়েছে। তারা শুধুমাত্র ৫৮ হাজার রোহিঙ্গাকে যাচাই করেছে। আমরা প্রথম একটি গ্রুপ পাঠাতে চাই। কিন্তু দিন-তারিখ ঠিক হয়নি।


আরও খবর



সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বিপ্লব সূচিত হয়েছে: সমাজকল্যাণমন্ত্রী

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৪জন দেখেছেন
Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বিপ্লব সূচিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সমাজকল্যাণমন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয় ও আওতাধীন দপ্তর/সংস্থার মধ্যে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি সই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান খসরু।

সমাজকল্যাণমন্ত্রী বলেন, আমরা কোভিড অতিমারি চলাকালীন সব ভাতাভোগীর ডাটাবেজ তৈরি করে জিটুপি পদ্ধতিতে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ভাতা প্রদান নিশ্চিত করেছি। বর্তমানে এক কোটিরও অধিক ভাতাভোগী এ পদ্ধতিতে ভাতা পাচ্ছেন।

মন্ত্রী বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তি বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আন্তরিকভাবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশনাদানকালে বলেন, সামাজিক নিরাপত্তা খাতে বাস্তবায়িত কর্মসূচির উপকারভোগীরা যাতে নির্বিঘ্নে সেবা পান সেদিকে মনোযোগী হতে হবে। এ খাতের অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে হবে।

সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ মন্ত্রণালয়ের কাজ অসহায় ও পশ্চাৎপদ জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়ন। এ বিষয় মাথায় রেখে কাজ করতে হবে।


আরও খবর



কারামুক্তির দিনে নেতাদের শুভেচ্ছায় সিক্ত প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে দলের নেতারা তার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

শনিবার (১১ জুন) দুপুর পৌনে ১২টায় গণভবনে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা ফুল দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান।

গণভবনে দলের নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। শুভেচ্ছা বক্তব্যে শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবসকে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস বলে আখ্যা দেন তিনি।

এ সময় ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ গণতন্ত্রের বিজয় দিবস। এ দিন আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনার মুক্তির মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রের বিজয় নিশ্চিত করেছে। শেখ হাসিনার হাত ধরেই বাঙালি ভোটের অধিকার ফিরে পেয়েছে, ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত হয়েছে।

বিএনপিকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, তোমার মিথ্যাচার করো, আমরা কাজ করে জবাব দেই।

আওয়ামী লীগ নেতাদের শুভেচ্ছার জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগকে সব সময় উজানে নাও ঠেলে চলতে হয়েছে। যতবার গ্রেফতার হয়েছি, ততবারই নেতাকর্মীদের উদ্দেশে চিঠি দিয়েছি, দেশবাসীকে চিঠি দিয়েছি। চিঠির মাধ্যেমে তাদের নিদের্শনা দিয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, দেশে ফেরার পর ১৯৮৩ সালে গ্রেফতার করা হয়। ডিজিএফআইয়ের অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর নানা সময়ই গ্রেফতার হতে হয়েছে। তবে কারও কাছে কোনো দিন মাথা নত করিনি, জীবন ভিক্ষা চাই নি। আমি পরিবার ও বাবার কাছ থেকে এটা শিখছি যে, কারো কাছে বা কোনো অন্যায়ের কাছে মাথা নত করবো না।

এ দিন গণভবনে প্রথমে আওয়ামী লীগ নেতারা, পরে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, ঢাকা দক্ষিণ সিটির মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস ও উত্তরের মেয়র আতিকুল ইসলাম, মহিলা আওয়ামী লীগ, কৃষক লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ (স্বাচিপ), তাঁতী লীগ, যুব মহিলা লীগ, শ্রমিক লীগ, মহিলা শ্রমিক লীগ, আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ এবং গণভবন ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (পিএমও) কর্মকর্তারা শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানান।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় গ্রেফতার হয়ে দীর্ঘ ১১ মাস কারাভোগের পর ২০০৮ সালের ১১ জুন সংসদ ভবন চত্বরে স্থাপিত বিশেষ কারাগার থেকে মুক্তি পান আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


আরও খবর



ওড়িষ্যায় সব মন্ত্রীর পদত্যাগ

প্রকাশিত:Saturday ০৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৮৮জন দেখেছেন
Image

মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের নির্দেশ মেনে পদত্যাগ করলেন ভারতের ওড়িষ্যা রাজ্যের মন্ত্রিসভার সব সদস্য। তবে রোববার (৫ জুন) দুপুর ১২টায় রাজ্যের নতুন মন্ত্রিসভা শপথ নেবে। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

ক্ষমতাসীস দল বিজেডি জানিয়েছে, মন্ত্রিসভা ও সংগঠনের চিত্র পাল্টানোর উদ্দেশ্যেই তার এই পদক্ষেপ। মন্ত্রীদের প্রত্যেককেই শনিবার (৪ জুন) সকালে পদত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়।

এদিকে মন্ত্রীদের পাশাপাশি রাজ্য বিধানসভার স্পিকার সূর্যনারায়ণ পাত্রও ইস্তফা দিয়েছেন বলে খবর প্রকাশিত হয়েছে। যদিও সরকারিভাবে এখনও এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয়নি।

২০১৯ সালের বিধানসভা ভোটে জিতে টানা পঞ্চমবার রাজ্যেটির মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেন নবীন। মন্ত্রিসভায় এ বার নবীন বেশ কয়েকজন নতুন প্রজন্মের নেতাকে আনতে চান বলে জানা গেছে।


আরও খবর



শেয়ারবাজারে কালো টাকা চায় সিএসই

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

চলতি অর্থবছরের (২০২১-২২) মতো আগামী অর্থবছরেও (২০২২-২৩) কালো টাকা বা অপ্রদর্শিত অর্থ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ (সিএসই)। এতে শেয়ারবাজারে তারল্যসহও সরকারের রাজস্ব বাড়বে বলে দাবি প্রতিষ্ঠানটির।

প্রস্তাবিত বাজেট পরবর্তী এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শনিবার (১১ জুন) সিএসই’র পক্ষ থেকে এ দাবি জানান প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান আসিফ ইব্রাহিম।

সিএসইর চেয়ারম্যান বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যক্তিশ্রেণির করদাতাদের জন্য ১০ শতাংশ কর পরিশোধ করে পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুবিধা রহিত করা হয়েছে। এই সুবিধা আগামী বছর পর্যন্ত বহাল রাখার জন্য আমরা বিশেষভাবে অনুরোধ করছি। এতে বাজার যেমন শক্তিশালী হবে, তেমনি সরকারের রাজস্ব আয় বাড়বে, পাশাপাশি অর্থ পাচারও কমবে বলে আমরা আশা করছি।

কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়াকে বিভিন্ন পক্ষ থেকে অনৈতিক বলা হচ্ছে। তাহলে আপনারা কেন শেয়ারবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়ার দাবি জানাচ্ছেন সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে আফিস ইব্রাহিম বলেন, নৈতিকভাবে আমরা কালো টাকা সাদা করার সুযোগকে সমর্থন করি না। আমরাও মনে করি এতে সৎ করদাতারা নিরুৎসাহিত হবেন। তবে বর্তমান অর্থনৈতিক প্রেক্ষিত্রে আমরা শেয়ারবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। এতে সরকারের রাজস্ব বাড়বে এবং শেয়ারবাজারে তারল্য বাড়বে। পাশাপাাশি অর্থ পাচার কমবে।

তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির মধ্যকার কর হারের ব্যবধান ১০ শতাংশ করার দাবি জানান সিএসইর চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, পুঁজিবাজারের উন্নয়ন ও বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে পরিশোধিত মূলধনের ১০ শতাংশের অধিক শেয়ারের ক্ষেত্রে, প্রাথমিক গণপ্রস্তাবে (আইপিও) আগত তালিকাভুক্ত কোম্পানির জন্য করহার ২২ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

তবে ১০ শতাংশ বা তার কম শেয়ার আইপিওর মাধ্যমে হস্তান্তরকারী লিস্টেড কোম্পানির কর হার না কমিয়ে পূর্বের হার অর্থাৎ ২২ দশমিক ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। অন্যদিকে অতালিকাভুক্ত কোম্পানির করহার ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৭ দশমিক ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। বিভিন্ন পর্যায়ের কর হার হ্রাসের এই ঘোষণাকে আমরা সাধুবাদ জানাই।

‘তবে পুঁজিবাজারে ভালো কোম্পানির তালিকাভুক্তিকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে তালিকাভুক্ত ও অতালিকাভুক্ত কোম্পানির কর হারের ব্যবধান ৭ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা যেতে পারে’ বলেন ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রি’র সাবেক সভাপতি আসিফ ইব্রাহিম।

তিনি বলেন, বর্তমানে তালিকাভুক্ত ও তালিকাবহির্ভূত কোম্পানির মধ্যে কর হারের ব্যবধান খুবই কম। তাই ভালো কোম্পানি এই বাজারে আসতে আগ্রহী হয় না। কারণ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলে নানা ধরনের কমপ্লাইয়ান্স পরিপালন করতে হয়। এতে কোম্পানিগুলোকে বাড়তি অর্থ ব্যয় করতে হয়। ফলে কর হার রেয়াতের প্রকৃত কোনো সুবিধা ভোগ করা যায় না।

তিনি আরও বলেন, অতালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর করহার কমিয়ে তালিকা বহির্ভূত কোম্পানিগুলোর সঙ্গে কর হারের ব্যবধান বাড়ানো হলে কর সুবিধা রেয়াতের জন্য ভালো কোম্পানিগুলো পুঁজিবাজারে আসতে আগ্রহী হবে। এতে একদিকে পুঁজিবাজার সমৃদ্ধ হবে, অন্যদিকে লেনদেন বাড়লে তা থেকে বাড়তি কর আদায় হবে। তাছাড়া পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হলে কোম্পানিগুলোর স্বচ্ছতা ও জাবাদিহিতা বাড়ে। নানা সংস্থার তদারকিতে থাকতে হয় বিধায় কর ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ কমে আসে। তাতে সরকারের কর সংগ্রহ নিশ্চিত হয়।

সিএসই’র জন্য বর্তমানে ৩০ শতাংশ করপোরেট কর হার ধার্য রয়েছে। এটাকে ২০২৫ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত শূন্য হার নির্ধারণ করার দাবি জানিয়েছে সিএসই। এ দাবির পক্ষে যুক্তি হিসেবে সিএসইর চেয়ারম্যান বলেন, কৌশলী বিনিয়োগকারী আকর্ষণ করাসহ স্টক এক্সচেঞ্জের কারিগরি এবং অবকাঠামোগত উন্নয়নে মূলধন পুনঃবিনিয়োগের প্রয়োজন হয়। বিনিয়োগকারীদের জ্ঞান ও দক্ষতা ও দীর্ঘমেয়াদে একটি স্থিতিশীল পুঁজিবাজার গঠনের লক্ষ্যে সিএসই’র আর্থিক সক্ষমতা প্রয়োজন হলেও বর্তমানে এক্সচেঞ্জগুলোর আয় উল্লেখযোগ্য ভাবে হ্রাস পেয়েছে।

‘তাছাড়া চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ বাংলাদেশে প্রথম কমোডিটি এক্সচেঞ্জ গঠনের লক্ষ্যে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। এটি গঠন ও বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অবকাঠামোগত উন্নয়ন, কারিগরি সহায়তা, আইন-কানুন প্রণয়ন, প্রশিক্ষন ও গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হবে’ যোগ করেন আসিফ ইব্রাহিম।

সিএসইর চেয়ারম্যান বলেন, উন্নত বিশ্বের কাতারে পৌঁছানোর লক্ষ্যে, বেসরকারি বিনিয়োগ ও জিডিপি অনুপাতের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের প্রয়াসে নতুন অর্থবছরের (২০২২-২৩) বাজেটে করপোরেট কর হার কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বাংলাদেশে বর্তমানে বেসরকারি বিনিয়োগ ও জিডিপি অনুপাত ২৩ শতাংশ। উন্নত বিশ্বের কাতারে পৌঁছানোর লক্ষ্যে সরকার এ অনুপাত বৃদ্ধির জন্য কার্যক্রম গ্রহণ করছে, যা খুবই ইতিবাচক উদ্যোগ বলে আমরা মনে করছি।

আরও যেসব দাবি জানিয়েছে সিএসই-

>> স্টক এক্সচেঞ্জের সদস্যদের লেনদেনের ওপর বিদ্যমান উৎস কর ০.০১৫ শতাংশ নামিয়ে আনা।

>> রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন লাভজনক কোম্পানিগুলোর শেয়ার অব লোড করে পুঁজিবাজারে অন্তর্ভুক্ত করা। এজন্য বিশেষ কর ছাড় থাকতে পারে।

>> তালিকাভুক্ত এসএমই কোম্পানির কর হার প্রথম তিন বছর শূন্য শতাংশ ও পরবর্তীতে ১৫ শতাংশ নির্ধারণ করা।

>> তালিকাভুক্ত কোম্পানির লভ্যাংশ বাবদ আয় থেকে কেটে রাখা করকে চূড়ান্ত কর হিসেবে বিবেচনা করা।

>> তালিকাভুক্ত কোম্পানি থেকে পাওয়া করমুক্ত নগদ লভ্যাংশ ৫০ হাজার টাকা থেকে বাড়িয়ে ১ লাখ টাকা নির্ধারণ করা।

>> মিউচুয়াল ফান্ড বা ইউনিট ফান্ড থেকে পাওয়া সম্পূর্ণ নগদ লভ্যাংশ আয়কর মুক্ত রাখা। বর্তমানে মিউচুয়াল ফান্ড বা ইউনিট ফান্ড থেকে পাওয়া ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নগদ লভ্যাংশ আয়কর মুক্ত।


আরও খবর