Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলেক কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

ফরিদপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের ছেলেক ঘরে ঢুকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা

প্রকাশিত:Wednesday ১৮ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৫০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলার ঢেউখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মিজান বয়াতির বাড়িতে ঢুকে ১০ বছরের ছেলে রাফসানকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ হামলায় তার স্ত্রী দিলজান বেগম ওরফে রত্না গুরুতর আহত হয়েছেন। তার অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানা গেছে।


বুধবার (১৮ মে) বিকেলে ইউপি চেয়ারম্যানের উপজেলা সদরের বাসায় এ ঘটনা ঘটে।



অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ভাঙ্গা সার্কেল) ফাহিমা কাদের চৌধুরী বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।


ঢেউখালী ইউনিয়ন পরিষদের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. শহীদ সরদার বলেন, চেয়ারম্যানের গ্রামের বাড়ি চর ডুবাল গ্রামে। তিনি পরিবার নিয়ে সদরপুর উপজেলা সদরের বাসায় থাকেন। যতটুকু জেনেছি পূর্বশত্রুতার জেরে ঢেউখালী গ্রামের মো. ছানু মোল্লার ছেলে এরশাদ মোল্লা (৩৫) এ ঘটনা ঘটিয়েছে। ঘটনার পর ক্ষোভে উত্তেজিত জনতা ছানু মোল্লার বাড়িতে আগুন দেয়। ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।



আরও খবর



সুষ্ঠু নির্বাচনে নিরপেক্ষ সরকার অপরিহার্য: রিজভী

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

শেখ হাসিনা সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নির্বাচন অসম্ভব। অতীতে সেটা একাধিকবার প্রমাণিত হয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য প্রয়োজন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার। দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এটা অপরিহার্য, এর কোনো বিকল্প নেই। কারণ, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন মানে বাঘের সামনে ছাগলকে ছেড়ে দেওয়া— এমনটাই বলেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার (৬ জুন) দুপুরে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি ভবনের স্বাধীনতা হলে ‘ভয়েস ফর ডেমোক্রেসি অ্যান্ড ভোটার রাইটসের উদ্যোগে ‘নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের অপরিহার্যতা এবং নির্বাচন পরবর্তী জাতীয় সরকারের প্রয়োজনীয়তা’ শীর্ষক আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন রিজভী।

ভয়েস ফর ডেমোক্রেসি অ্যান্ড ভোটার রাইটসের সভাপতি হুমায়ুন কবির বেপারীর সভাপতিত্বে এবং মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক সদস্য ইসমাইল হোসেন সিরাজীর সঞ্চালনায় আলোচনাসভায় বক্তব্য দেন-বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা কামরুজ্জামান রতন, কাদের গনি চৌধুরী, আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, কাজী রফিক, তাঁতীদলের কাজী মনিরুজ্জামান মনির, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শাহ আলম, জাসাসের ডা. আরিফুর রহমান মোল্লা, কৃষকদলের জাহাঙ্গীর আলম, স্বেচ্ছাসেবক দলের আরিফুর রহমান তুষারসহ অনেকে।

রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার চিরদিনের জন্য রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় থাকতে চায়। কিন্তু তারা জানে, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে সেটা সম্ভব হবে না। তাই সংবিধান থেকে নির্বাচনকালীন নির্দলীয়-নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা মুছে দিয়েছে। অথচ নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে তারা ১৭৩ দিন হরতাল করেছে, জ্বালাও-পোড়াও করেছে, অবরোধ করেছে।

বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ বলেন, দেশে আজ গণতন্ত্র নেই, বাক-স্বাধীনতা নেই, মানুষের ন্যূনতম অধিকার নেই। জোর করে সব অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়েছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় বিএনপি আন্দোলন করছে। কিন্তু এটা শুধু বিএনপির একার দায়িত্ব নয়। দেশ ও জাতির স্বার্থে বিএনপির চলমান এ আন্দোলনকে সফল করা সবার নৈতিক দায়িত্ব।


আরও খবর



অধিবেশন উপলক্ষে সংসদ এলাকায় মিছিল-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

জাতীয় সংসদের ১৮তম অধিবেশন (বাজেট অধিবেশন) শুরু হচ্ছে ৫ জুন। এই অধিবেশনে সংশ্লিষ্টদের নির্বিঘ্নে চলাচলে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) বিকেলে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম সই করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এই নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়।

এতে বলা হয়, শনিবার (৪ জুন) রাত ১২টা থেকে সংসদ ভবন এলাকায় সব ধরনের অস্ত্র, বিস্ফোরক, অন্যান্য ক্ষতিকারক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন এবং যে কোনো প্রকার সভা-সমাবেশ, মিছিল, শোভাযাত্রা, বিক্ষোভ প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

যেসব এলাকায় নিষেধাজ্ঞা থাকবে

ময়মনসিংহ রোডের মহাখালী ক্রসিং থেকে পুরাতন বিমানবন্দর হয়ে বাংলামোটর ক্রসিং পর্যন্ত, বাংলামোটর লিংক রোডের পশ্চিম প্রান্ত থেকে হোটেল সোনারগাঁও রোডের সার্ক ফোয়ারা পর্যন্ত, পান্থপথের পূর্ব প্রান্ত থেকে গ্রিন রোডের সংযোগস্থল হয়ে ফার্মগেট পর্যন্ত, মিরপুর রোডের শ্যামলী মোড় থেকে ধানমন্ডি-১৬ (পুরাতন-২৭) নম্বর সড়কের সংযোগস্থল, রোকেয়া সরণীর সংযোগস্থল থেকে পুরাতন নবম ডিভিশন (উড়োজাহাজ) ক্রসিং হয়ে বিজয় সরণির পর্যটন ক্রসিং, ইন্দিরা রোডের পূর্ব প্রান্ত থেকে মানিক মিয়া এভিনিউয়ের পশ্চিম প্রান্ত, জাতীয় সংসদ ভবনের সংরক্ষিত এলাকা এবং এ সীমানার মধ্যে অবস্থিত সব রাস্তা ও গলিপথ।

অধিবেশন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবত থাকবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

আসন্ন অধিবেশনে ২০২২-২৩ অর্থ বছরের বাজেট পেশ ও পাস করা হবে। ফলে দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে এ অধিবেশন।


আরও খবর



মহাখালীতে মজুতবিরোধী অভিযানে চাল ব্যবসায়ীকে জরিমানা

প্রকাশিত:Saturday ০৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর মহাখালী কাঁচাবাজারে অভিযান চালিয়ে চাল ব্যবসায়ীকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ফুড লাইসেন্স না থাকায় ফিরোজ ট্রেডার্সের মালিককে এ জরিমানা করা হয়।

শনিবার (৪ জুন) বেলা ১১টার দিকে খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ শামসুজ্জামানের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন রিফাত নূর মৌসুমি।

ফিরোজ ট্রেডার্সের মালিক ফিরোজ বলেন, অনেকেরই ফুড লাইসেন্সের কাগজ নেই। তবে আমার দোকানে ওনারা প্রথম এসেছেন। তাই আমাকে জরিমানা করা হয়েছে। বাকিদের তিনদিনের মধ্যে লাইসেন্স নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে এবং সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ শামসুজ্জামান বলেন, খাদ্যশস্য মজুতবিরোধী ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকবে। মজুতের বিষয়টি দেখার পাশাপাশি ব্যাবসায়ীদের বিভিন্ন লাইসেন্সের বিষয়গুলোও তদারকি করছি।

এসময় সেলিম রাইচ ভাণ্ডারের মালিক মো. সেলিম জাগো নিউজকে বলেন, মিলাররা চাল বেশি দামে বিক্রি করছে। এজন্য ক্রেতারা ক্ষোভ জানাচ্ছেন। তবে আমরা খুচরা বিক্রেতারা কেজিতে দুই-তিন টাকা লাভ করে থাকি। অভিযান অব্যাহত থাকায় চালের দাম বাড়েনি। এমন অভিযান অব্যাহত থাকলে দাম আর বাড়বে না। বরং কিছুটা কমতে পারে।


আরও খবর



বিএফইউজে সভাপতির ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

প্রকাশিত:Tuesday ০৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সভাপতি ওমর ফারুকের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। মঙ্গলবার (৭ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাব চত্বরে এ বিক্ষোভ করেন সাংবাদিকরা।

এসময় ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সভাপতি সোহেল হায়দার চৌধুরী বলেন, ১৯৪৭ সালে এ সংগঠন প্রতিষ্ঠা হওয়ার পর আমরা অনেক নেতা দেখেছি। বঙ্গবন্ধুও নেতা ছিলেন। তারা কিন্তু এ সাহসিকতা দেখাতে পারেননি। সেই বঙ্গবন্ধুকে যারা ছোট করে কথা বলেন, তাদের আমরা এখানে (প্রেস ক্লাব) সভা করতে দেবো কি দেবো না তা নিয়ে ভাবার সময় এসেছে। একটি রাজনৈতিক দল প্রেস ক্লাবে সভা-সমাবেশ করবে তার কিছু নিয়ম-কানুন আছে। কতজন লোক সেখানে উপস্থিত থাকবে, কারা বক্তব্য দেবেন, কারা অতিথি থাকবেন সেটি পরিষ্কার করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, আপনারা জানেন সারাদেশে সাংবাদিকদের অন্যতম সংগঠন বিএফইউজে। আজকে যখন সে সংগঠনের সভাপতির ওপর হামলা হয়, সেটি বাংলাদেশের সাংবাদিকদের ওপরই হামলা বলে মনে করি। আমরা জাতীয় প্রেস ক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটিকে জানাতে চাই, এ হামলার সঙ্গে যারা জড়িত তাদের চিহ্নিত করা দরকার এবং এই সংগঠনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

ডিইউজে সভাপতি বলেন, আজকে জাতীয় প্রেস ক্লাবে কিছু অসাংবাদিক চাঁদাবাজির সঙ্গে জড়িত। আমি আমার সংগঠনের সদস্যদের নির্দেশ দিচ্ছি এমন কাউকে পেলে তাদের বের করে দেবেন। অন্যথায় পুলিশে সোপর্দ করবেন।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা কেউ মোবাইলে সাংবাদিকতা করবেন না। মোবাইল দিয়ে সাংবাদিকতা হয় না। আপনাদের মিডিয়া মালিকেরা বেতন দেবেন এবং সাংবাদিকতার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি দেবেন।

বিক্ষোভে আরও উপস্থিত ছিলেন- সাংবাদিক নেতা মনজুরুল আহসান বুলবুল, বিএফইউজের সভাপতি ওমর ফারুক, ডিইউজের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, জাতীয় প্রেস ক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শাহেদ চৌধুরী এবং ডিইউজে ও বিএফইউজেসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠনের নেতারা।


আরও খবর



প্রয়োজনে আইন সংস্কারের প্রস্তাব করতে পারে ইসি: টিআইবি

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দায়িত্ব সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করা। এ জন্য প্রয়োজনে সরকারের কাছে আইন সংস্কারের প্রস্তাব করতে পারে ইসি। কারণ কোনো আইন পাথরে খোদাই করে লেখা নয়।

সোমবার (১৩ জুন) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

তিনি বলেন, নাগরিক সমাজের সঙ্গে কমিশনের যে বৈঠক হয়েছিলো তার ফলোআপ হিসেবে ইসির সঙ্গে বৈঠক করেছি। আমরা চাই, আপনারা চান, দেশবাসী চায়, আসন্ন নির্বাচন যেন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হয়। এসব বিষয়ে আমরা কতগুলো প্রস্তাব করেছি।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক আরও বলেন, নির্বাচনকালীন সরকার, তার চরিত্র কী রকম হবে, গঠন কেমন হবে, এই ধরনের বিষয় নিয়ে আমরা কোনো সুনির্দিষ্ট কথা নির্বাচন কমিশনকে দেইনি। বিষয়টি দেশবাসীরই একটা প্রত্যাশা, উদ্বেগের জায়গা। কাজেই সেই দৃষ্টিভঙ্গি থেকে নির্বাচন কমিশন যেভাবে মনে করে, তাদের চিন্তাভাবনা প্রসূত পরামর্শ সরকারকে বা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে দিতে পারে। প্রয়োজনে আইনি সংস্কারের জন্য প্রস্তাব করতে পারে।

কোনো আইন পাথরে খোদাই করে লেখা নয় উল্লেখ করে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সংবিধান পাথরে খোদাই করে লেখা নয়। সংবিধান এবং আইন এখন পর্যন্ত যে অবস্থায় দাঁড়িয়ে, সেটা কিন্তু পরিবর্তনের মাধ্যমেই হয়েছে। কাজেই এই বাস্তবতাটাকে মেনে যদি কমিশন মনে করে, সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের স্বার্থে কোনো কোনো ক্ষেত্রে আইনি সংস্কারের প্রয়োজন রয়েছে, তাহলে তারা সেই প্রস্তাব করতে পারে। কর্তৃপক্ষ বিবেচনা করবে কি না সেটা পরের বিষয়।

তিনি আরও বলেন, আমরা প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও নির্বাচন কমিশনারদের কাছে প্রস্তাব করেছি, এখন যে নিয়ম আছে সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা ক্ষমতায় থেকে নির্বাচন করতে পারেন। এই বিষয়টি তারা বিবেচনা করে দেখতে পারেন। কারণ এখানে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নষ্ট হয় বলেই অনেকের ধারণা এবং সেটাই বাস্তবসম্মত।

নির্বাচনের সময় তথ্য প্রবাহে প্রতিবন্ধকতা যেন সৃষ্টি না হয় তার দাবিও জানান টিআইবির নির্বাহী পরিচালক। তিনি বলেন, নির্বাচন পর্যবেক্ষকদের অবাধে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ ও গণমাধ্যমকে তথ্য সংগ্রহ এবং প্রকাশের সুযোগ দিতে হবে। নির্বাচনের সময়ে ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণ করার চর্চাটা এর আগে হয়েছিল সেটি থেকে যেন বিরত থাকা হয়, কেন্দ্রভিত্তিক যে তথ্য তা যেন অনতিবিলম্বে ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়, এগুলো আমরা প্রস্তাব করেছি।

ইভিএমের বিষয়েও আলোচনা হয়েছে উল্লেখ করে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, আমরা মনে করি, এই ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের সম্পৃক্ত করে পরামর্শ নেওয়া এবং নিশ্চিত করা যাতে কারিগরি কোনো ফল্ট না থাকে ইভিএমে।


আরও খবর