Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

ফোর্বস এর প্রচ্ছদে রিয়েলমি’র সিইও স্কাই লি: আবারও জিটি সিরিজ আনার ঘোষণা

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

প্রযুক্তি ডেস্ক:ফোর্বস ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে এবার জায়গা করে নিয়েছেন জনপ্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড রিয়েলমি’র প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও স্কাই লি। দীর্ঘ দুই বছরের বিরতির পর বিশ্ব স্মার্টফোনের বাজারে আবারও জিটি সিরিজ আনার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি।

বাংলাদেশের স্মার্টফোনপ্রেমীদের জন্য এ ঘোষণা একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক। কেননা এবার এআই (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) প্রযুক্তির উদ্ভাবনকে সঙ্গী করে নতুন প্রাণশক্তি নিয়ে তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ স্মার্টফোনের বাজারে হাজির হতে প্রস্তুত রিয়েলমি’র জিটি সিরিজ।

 ফোর্বস এর সঙ্গে একটি সাম্প্রতিক সাক্ষাত্কারে, প্রতিযোগিতামূলক স্মার্টফোনের বাজারে আলোড়ন তোলার ব্যাপারে রিয়েলমি’র সক্ষমতার ওপর আস্থা প্রকাশ করেছেন স্কাই লি। তিনি তরুণ ব্যবহারকারীদের চাহিদা বোঝার এবং আসন্ন জিটি ৬ সিরিজ গ্রাহকদের প্রত্যাশাকেও ছাড়িয়ে যাওয়ার বিষয়ে ব্র্যান্ডের প্রতিশ্রুতির উপর গুরুত্ব দেন। জিটি সিরিজের ফোন আবারও বাজারে আনতে ব্র্যান্ডের ভক্তদের কাছ থেকে তুমুল দাবির বিষয়টি স্বীকার করে স্কাই লি নিশ্চিত করেন যে, রিয়েলমি তার বিশ্বস্ত গ্রাহকদের হতাশ করতে পারে না।

 স্মার্টফোনের তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ বাজারে এমন সময়ে রিয়েলমি’র এ ফোনটি আনার ঘোষণা এলো যখন গ্রাহকরা বিদ্যমান ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনের উদ্ভাবনী বিকল্প খুঁজছেন। জিটি ৬ আনার মাধ্যমে রিয়েলমি’র লক্ষ্য হলো ফ্ল্যাগশিপ স্মার্টফোনের ধারণাকে নতুন করে সংজ্ঞায়িত করা, যা অতুলনীয় পারফরম্যান্স প্রদর্শনের পাশাপাশি স্মার্টফোন ব্যবহারকারীকে এআই এর অভিজ্ঞতাও প্রদান করবে। ফোনটির আগের সিরিজ রিয়েলমি জিটি ৫জি, যা ভারতে “ফ্ল্যাগশিপ কিলার ২০২১” হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছিল, তার সাফল্যের ওপর ভিত্তি করে নতুন জিটি সিরিজটি পারফরম্যান্স ও ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতায় নতুন মানদণ্ড স্থাপন করতে প্রস্তুত।

 মোবাইল ইন্ডাস্ট্রির কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার যুগে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে রিয়েলমি একটি এআই নেতৃত্বাধীন স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হিসেবে যাত্রা করতে প্রস্তুত। স্কাই লি প্রযুক্তির ক্ষেত্র পুনর্নির্মাণে এআই-এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা তুলে ধরেন। ব্র্যান্ডের স্মার্টফোনগুলোতে অত্যাধুনিক এআই প্রযুক্তিসমূহকে একীভূত করার জন্য রিয়েলমি’র প্রতিশ্রুতির ওপর জোর দেন তিনি। ইমেজিং এবং দৈনন্দিন কাজের বিষয়গুলোতে ফোকাস করে, নতুন রিয়েলমি জিটি সিরিজ সহজবোধ্য এআই সল্যুশন দিয়ে তরুণ ভোক্তাদের ক্ষমতায়ন করবে, যা তাদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা ও পছন্দ পূরণে সহায়ক হবে।

 তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ স্মার্টফোনের বাজারে রিয়েলমি’র ফিরে আসা এবং এআই উদ্ভাবনের প্রতি গুরুত্ব দেওয়া ব্র্যান্ডের যুগান্তকারী প্রযুক্তি সরবরাহের প্রতি অটল প্রতিশ্রুতিকে তুলে ধরে, যা বাংলাদেশ এবং এর বাইরের তরুণ ভোক্তাদের আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল থাকছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৪৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় আপাতত বহাল থাকছে সরকারি চাকরির প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে । বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ছয় বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে পাঁচ বছর আগে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরির নিয়োগে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে গত ৫ জুন রায় দেন হাইকোর্ট। এ রায়ের ফলে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা ফিরে আসে।

পরে এ রায় স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। কিন্তু গত ৯ জুন প্রাথমিক শুনানির পর আবেদনটি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে কোটা পদ্ধতি বাতিল করার আগ পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে নিয়োগে ৫৬ শতাংশ পদ বিভিন্ন কোটার জন্য সংরক্ষণ করা হতো। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য ছিল ৩০ শতাংশ, নারী ১০ শতাংশ, জেলা ১০ শতাংশ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ৫ শতাংশ, প্রতিবন্ধী ১ শতাংশ কোটা।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে শিয়ালের কামড়ে আহত-১৫ আতঙ্কিত গ্রামবাসী, শিয়াল পিটিয়ে হত্যা

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে পাশাপাশি পৃথক দুটি গ্রামে দুই দিনে শিয়ালের কামড়ে শিশু-নারীসহ কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। এক শিয়াল পিটিয়ে হত্যা করলেও বাকী শিয়ালের আক্রমণ আতঙ্কে লাঠিসোটা নিয়ে পাহাড়া দিচ্ছেন আতঙ্কিত গ্রামবাসী। এদিকে আহতরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গেলে ভ্যাকসিন না পেয়ে দুর্ভোগে পড়েছেন ভুক্তভোগী পরিবার।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর পৌরসভার টানকালিয়াকৈর এলাকায় বৃহস্পতিবার ভোরে স্থানীয় রতন মিয়া ও তার স্ত্রী হনুফা বেগমকে একটি শিয়াল আক্রমণ করে এবং তাদের কামড়ে দেয়। এসময় স্থানীয় লোকজন ওই শিয়ালকে লাঠিসোটা দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের স্বামী-স্ত্রীকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে ঠিকমতো ভ্যাকসিন না পেয়ে তাদের ঢাকা মহাখালী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এর আগে গত বুধবার বিকেলে ওই এলাকায় শিয়ালের কামড়ে নেওলা হকের ছেলে শামসুল হক(৫০), নজরুল ইসলামের ছেলে উসমান গণি (১০), কবির মিয়ার ছেলে আফনান হোসেন (১০), নুর আলমের স্ত্রী নাসিমা বেগম (৫০), আফসার আলীর ছেলে মেহমিত (৭), জলিল হোসেনের ছেলে শওকত হোসেন (৪০), শামসুল ইসলামের স্ত্রী হামিদা বেগম (৬০), জব্বার মিয়া (৪০) এবং ওইদিন সন্ধ্যায় পাশের জানেরচালা গ্রামের শাজাহান মিয়ার স্ত্রী বৃষ্টি বেগম (৩৫) ও তার নাতিন স্বর্ণা আক্তার (৬)সহ কমপক্ষে ১৫ জনকে আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান তাদের পরিবারের সদস্যরা। ওই হাসপাতালে ভ্যাকসিন না পেয়ে আহতরা পার্শ্ববর্তী টাঙ্গাইলের মির্জাপুর কুমুদিনী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ঢাকা মহাখালীতে যান। দুদিনে শিশু ও নারীসহ ১৫জন শিয়ালের কামড়ে আহত হওয়ার ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন গ্রামবাসী। এছাড়াও আতঙ্কে লাঠি নিয়ে যাতায়াত করছেন শিশুরাও। এদিকে এক শিয়াল পিটিয়ে হত্যা করলেও বাকী শিয়ালের আক্রমণ আতঙ্কে ওই ঘটনার পর স্থানীয় যুবকরা লাঠিসোটা নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত ও পরের দিন বৃহস্পতিবারও পাহাড়া অব্যাহত রেখেছে। তারা ক্ষিপ্ত হয়ে আগুন জ¦ালিয়ে দিয়েছেন কয়েকটি শিয়ালের গর্তেও।

স্থানীয় শাহিনুর ইসলাম বলেন, কয়েকটি শিয়াল পাগলা হয়ে গেছে। তাই সে সবাইকে কামড়ে দিয়েছে। আরো যাতে কামড়ে দিতে না পারে সেজন্য আমরা পাহাড়া দিচ্ছি। মুদি দোকানদার আজিজুল হক বলেন, সবাই এখন পাগলা শিয়ালের আতঙ্কে আছি। এই বুঝি শিয়াল এসে কামড়ে দিলো। হেলাল পারভেজ বলেন, আমার মেয়েও এখন লাঠি নিয়ে চলাচল করে। আর শিয়াল আতঙ্কে আমার মেয়ের মতো অন্যান্য শিশুরাও লাঠি নিয়ে চলে। কিন্তু বেশির ভাগ শিশুরা ভয়ে বাড়ির বাইরে যাচ্ছে না। তবে সংশিষ্টদের প্রতি তাদের দাবী অতিদ্রুত পাগলা শিয়ালগুলোর বন্য আইন অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা লুৎফর রহমান জানান, শিয়ালে কামড়ে দিলে কয়েকজন হাসপাতালে আসে। কিন্তু এর ভ্যাকসিন সদর হাসপাতাল ও মহাখালীতে থাকে। একারণে আহতদের সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এব্যাপারে কালিয়াকৈর রেঞ্জ কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম জানান, আমাদের বনবিভাগের আরো একটি শাখা রয়েছে। তাদের কাজ হচ্ছে বন্যপ্রাণী উদ্ধার করা। তবে ওই শাখায় যোগাযোগ করা হলে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।


আরও খবর



ড. ইউনূসের মামলা দ্রুত নিষ্পত্তির নির্দেশ হাইকোর্টের

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১১০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ড. ইউনূসের ছয় মাসের সাজা ও দণ্ড শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালে স্থগিতের আদেশ বাতিল করে হাইকোর্টের দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ করা হয়েছে।মামলার রায়ে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের করা আপিল দ্রুত নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। প্রকাশিত ৫০ পৃষ্ঠার রায়ে আদালত আরও বলেছেন, সাজা কখনো স্থগিত হয় না।

বুধবার (৩ জুলাই) সকালে রায় প্রকাশের বিষয়টি গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, কলকারখানা প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের আইনজীবী মো.খুরশীদ আলম খান। তবে রায়ের অনুলিপি হাতে পাননি বলে জানিয়েছেন ড. ইউনূসের আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল মামুন।

এর আগে, শ্রম আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলায় ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড পাওয়া গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ও নোবেলজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ চারজনের দণ্ডের রায় ও আদেশ স্থগিত করে দেওয়া শ্রম আপিলের ট্রাইব্যুনালের আদেশ অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। ফলে ড. ইউনূসের ৬ মাসের সাজা চলমান থাকে।

চারজনের দণ্ড স্থগিতের বৈধতা প্রশ্নে কলকারখানা প্রতিষ্ঠান অধিদপ্তরের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে জারি করা রুলের শুনানি নিষ্পত্তি করে গত ১৮ মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রায় দেন।

আদালতে ওইদিন আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। ড. ইউনূসের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল্লাহ আল মামুন। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার তানভীর শিহাব খান।

এর আগে তৃতীয় শ্রম আদালতের ১ জানুয়ারি দেওয়া রায় ও আদেশের কার্যক্রম স্থগিত করে শ্রম আপিল ট্রাইব্যুনালের ২৮ জানুয়ারি দেওয়া আদেশ কেন বাতিল হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। ড. ইউনূসসহ চারজন ও রাষ্ট্রের পক্ষে ঢাকার জেলা প্রশাসকসহ বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

একই সঙ্গে শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলায় সাজার রায় থেকে অব্যাহতি পাওয়া গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে আদালতের অনুমতি নিতে হবে। এ মামলার বাকি তিন আসামিকেও বিদেশযাত্রার ক্ষেত্রে একই আদেশ প্রতিপালন করতে হবে।


আরও খবর



তানোরে শেড ফাউন্ডেশনের পরিচালক রাজু’র বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাত ও প্রতারণার অভিযোগ

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২১জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে শেড ফাউন্ডেশনের পরিচালক রাজু আহম্মেদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ ও প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায়  গত ১৩ জুন বৃহস্পতিবার পিকে এম মোজাহার উল ইসলাম লিটন বাদি হয়ে রাজু আহম্মেদকে বিবাদী করে রাজশাহী বোয়ালিয়া মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ,রাজু আহম্মেদ বিভিন্ন কৌশলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়ে গা-ঢাকা দিয়েছেন।জানা গেছে, তানোর উপজেলার কলমা ইউনিয়নের (ইউপি) অমৃতপুর বকরিডাঙা হঠাৎপাড়া গ্রামের মৃত বজলার রহমানের পুত্র রাজু আহম্মেদ (৪৫)। তিনি শেড ফাউন্ডেশন রাজশাহীর  স্বাস্থ্য সুরক্ষা পরিসেবা প্রকল্প পরিচালক হিসেবে কর্মরত আছেন।

এদিকে রাজু আহম্মেদের বিরুদ্ধে লিটনের করা লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে-আসামী  রাজু আহমেদ (৪৫), মোবাইলঃ ০১৮৪১-৭৫৪৯৬৮, ০১৩০৫১-৩৯৩২৪, পিতাঃ মৃত বজলার রহমান, মাতাঃ লায়নী বেগম, গ্রামঃ অমৃতপুর (বরকিভাঙ্গা হঠাৎপাড়া), ডাকঘর, চন্দনকোঠা, থানা, তানোর, জেলা, রাজশাহী। তিনি স্বাস্থ্য সুরক্ষা পরিসেবা প্রকল্পের পরিচালক হিসেবে কর্মরত আছেন। রাজু আহম্মেদ তাকে ০১/১০/২০২৩ ইং তারিখে প্রশাসনিক কর্মকর্তা হিসেবে মাসিক ৬০,০০০/- (ষাট হাজার) টাকা বেতন ধার্য্য করে নিয়োগ প্রদান করেন। নিয়োগপত্রে বেতন উল্লেখ আছে। নিয়োগ হওয়ার দুই মাস পরে গত ২৮/১১/২০২৩ ইং তারিখে তাকে সহকারী প্রকল্প পরিচালক ও প্রশাসন হিসেবে মাসিক ৮০,০০০/- (আশি হাজার) টাকা বেতন ধার্য্য করে নিয়োগ প্রদান করেন (নতুন নিয়োগপত্রে উল্লেখ আছে)। তার ০৮ (আট) মাসে সর্বমোট বেতন ৬,০০,০০০/- (ছয় লক্ষ) টাকা যাহা আজ পর্যন্ত তাকে দেওয়া হয়নি। বেতন চাইলে রাজু তাল বাহানা করতে থাকে। তার প্রেক্ষিতে গত ০১/০৬/২০২৪ ইং তারিখে ১৮৪ নং স্মারকে রাজু আহম্মেদকে চিঠি দেওয়া হয়েছে (চিঠি সংযুক্ত)। পরিচালক রাজু আহম্মেদ চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক অফিস হইতে ১,২৩,০০০/- (এক লাখ তেইশ হাজার) টাকা নিয়েছেন  যাহা লিখিত আছে। রাজশাহী প্রকল্প অফিস হইতে ৪৮,০০০/- টাকা, উপ-প্রকল্প পরিচালক মামুনুল হাসান চপলের কাছ থেকে ৫০,০০০/- (পঞ্চাশ হাজার) টাকা, রাজশাহী জেলা সমন্বয়কারী ওবাইদুল হকের কাছ থেকে ৪৫,০০০/- টাকা এবং তানোর থানা অফিস হইতে ৩০,০০০/- (ত্রিশ হাজার) টাকা, তানোর অফিস কর্মকর্তা/কর্মচারী ০৩ (তিন) জন ১। মিনা খাতুন- ১,০০,০০০/- (এক লাখ টাকা), ২।  আরিফুল হক- ১,০০,০০০/- (এক লাখ টাকা), ৩। অন্য একজন- ১,০০,০০০/- (এক লাখ টাকা) হাতিয়ে নিয়েছে যাহা ৩০০/- টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে রাজু আহমেদ এর স্বাক্ষর রয়েছে। সর্বমোট প্রকল্পের ৬,৫৯,০০০/- (ছয় লাখ ঊনষাট হাজার) টাকা ব্যক্তিগত ও সাংসারিক কাজে খরচ দেখিয়ে  প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এই মর্মে  রাজুকে গত ৩০/০৫/২০২৪ ইং তারিখে ০৩ (তিন) দিনের সময় দিয়ে ১৮২ নং স্বারকে একটি চিঠি প্রদান করা হয়। যে ০৩ (তিন) দিনের মধ্যে অফিস (প্রশাসন) এ টাকা জমা না দিলে আপনার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হইবে। অথচ  তিনি ০৩ (তিন) মাস যাবৎ অফিসে আসেন নাই। ফোনে যোগাযোগ করা হলে আজ, কাল, পরশু আসব বলে তাল বাহানা করেন। গত ১২/০৬/২০২৪ ইং তারিখে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান যে, অফিসে আসবেন না এবং টাকার কথা বললে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দেন।এদিকে রাজুর প্রতারণায় কষ্টের জমানো টাকা হারিয়ে ভুক্তভোগীরা চরম বিপাকে পড়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। তারা রাজুর দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি করেছেন।এবিষয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানার  এস আই ছয়ফল বলেন, রাজু আহম্মেদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ হয়েছে, অভিযোগের তদন্ত চলমান রয়েছে।

এবিষয়ে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তানোর শেড ফাউন্ডেশন পরিচালক রাজু আহম্মেদের মুঠোফোন (০১৮৪১-৭৫৪৯৬৮)বন্ধ থাকায় তার কোনো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

আরও খবর



কালিয়াকৈরে আবারো সড়ক-ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৯৬জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার কালিয়াকৈর বাজার এলাকায় গড়ে উঠা অবৈধ স্থাপনা শনিবার সকালে আবারো অবৈধ দখলমুক্ত করেছে উপজেলা প্রশাসন। শুধু স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবসসহ বিভিন্ন সময় বার বার ওই বাজার এলাকায় সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও আবার অবৈধ স্থাপনা বসান দখলদাররা। এবার দখলমুক্ত করায় প্রশংসায় ভাসছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তবে আবারো সেখানে অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পথচারীরা।

এলাকাবাসী, পথচারী ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলায় একটি ঐতিহ্যবাহী সুনামধন্য বাজার হচ্ছে কালিয়াকৈর বাজার। কিন্তু এ বাজারের প্রবেশ মুখে সিন্ডিকেট চক্র দীর্ঘদিন ধরে পুরোনো ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ও বাজার সড়ক অবৈধভাবে দখলের মাধ্যমে রমরমা ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছে। অভিযোগ রয়েছে, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসনের অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী, ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতাকর্মীদের ছত্রছায়ায় এসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠে। আর এসব অবৈধ স্থাপনার কারণে এ মহাসড়কের ওই অংশে, বাজার সড়ক, ধামরাই-কালিয়াকৈর-মাওনা সড়কে নিয়মিত যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। শতশত অবৈধ স্থাপনার কারণে এখান দিয়ে চলাচলরত যাত্রী ও পথচারীরা পায়ে হেঁটেও চলাচলেও চরম দুর্ভোগে পড়েন। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েন রোগী ও তার পরিবার, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশাজীবি মানুষ। অথচ স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবসসহ বিভিন্ন সময় বার বার ওই বাজার এলাকায় সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও ২/৩ দিন পরই আবারো অবৈধ স্থাপনা বসান দখলদাররা। এদিকে মানুষের চরম দুর্ভোগ লাঘব করতে মৌখিক ভাবে নির্দেশনা দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাউছার আহম্মেদ।

তাঁর এমন নির্দেশনা অনুযায়ী শনিবার সকালে এসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিয়েছেন দখলদাররা। এর মাধ্যমে দখলমুক্ত হলো বহু কাঙ্খিত পুরানো ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক, ধামরাই-কালিয়াকৈর-মাওনা সড়ক, কালিয়াকৈর বাজার সড়ক ও ফুটপাত।

এবার দখলমুক্ত করায় প্রশংসায় ভাসছেন ওই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। এদিকে প্রশাসনের এমন উদ্যোগে হতাশা প্রকাশ করেছেন দখলদারী ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, আয় রোজগারের পথ বন্ধ হলো এখন আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে কিভাবে চলবো? তবে এখানে সরাসরি অনেক জমি আছে, যদি দোকান ঘরের ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে পরিবার-পরিজন নিয়ে কোনো রকম খেয়ে-পড়ে বাঁচতে পারবেন বলেও ব্যবসায়ীদের দাবী। অপরদিকে এসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিলেও সরানো হয়নি উপজেলা মডেল মসজিদের সামনে অবৈধ সিএনজি ও অটোরিকশা অবৈধ স্টেশন।

ওই অবৈধ স্টেশনও উচ্ছেদের দাবী জানিয়েছেন চলাচলরত পথচারী ও বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীরা। তারা সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত হওয়ায় খুশি। বার বার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও গড়ে উঠে অবৈধ স্থাপনা। তবে আবারো সেখানে আগের মতো অবৈধ স্থাপনা উঠবে নাতো? এমন শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পথচারীরা।

এব্যাপারে কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাউছার আহম্মেদ জানান, মৌখিকভাবে নির্দেশনায় সেখানকার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছেন দখলদাররা। তবে সিএনজি ও অটোরিকশার অবৈধ স্ট্রেশন অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদ করা হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর