Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

ফল এক রোগ তিন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৪৭৫জন দেখেছেন

Image

লাইফস্টাইল ডেস্ক : বাড়ির আশপাশে, ঝোপে-জঙ্গলে, অযত্নে বেড়ে ওঠা মিষ্টি একটি ফল ডুমুর। আগেকার দিনে পেটের সমস্যা হলেও নানি-দাদিরা ডুমুরের ঝোল, বা শুকনো ডুমুর ভেজানো পানি খেতে বলতেন। বিভিন্ন জরুরি খনিজে ভরপুর এই ফলটিতে রয়েছে জিঙ্ক, ম্যাঙ্গানিজ, ম্যাগনেশিয়াম, আয়রনের মতো যৌগ। শিশুদের তো বটেই, বয়স্ক এবং অন্তঃসত্ত্বা নারীদের রক্তে আয়রনের অভাব পূরণের জন্য ডুমুর খেতে বলা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পুষ্টিবিদরা অনেক সময়েই সকালে খালি পেটে ডুমুর ভেজানো পানি খাওয়ার পরামর্শ দেন।

রক্তে শর্করার ভারসাম্য নিয়ন্ত্রণ করে

বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে ডুমুর রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম। এ ছাড়াও এই ফলে রয়েছে উচ্চ মাত্রায় ফাইবার যা অন্ত্রের স্বাস্থ্য রক্ষার জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু পুষ্টিবিদদের মতে, শুকনো ডুমুরের মিষ্টত্ব অনেক বেশি, তাই রক্তে শর্করা থাকলে তা বুঝে খাওয়া উচিত।

হার্টের স্বাস্থ্য ভাল রাখে

অ্যান্টি অক্সিড্যান্টে ভরপুর ডুমুর কিন্তু হার্টের স্বাস্থ্যও ভাল রাখে। ডুমুরের মধ্যে থাকা না কি ‘পেকটিন’ রক্তে খারাপ কোলেস্টেরল এবং ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমিয়ে আনতে সক্ষম। অন্তত গবেষণায় তেমনটাই বলছে। এ ছাড়াও ডুমুরে রয়েছে যথেষ্ট পরিমাণ পটাশিয়াম, যা রক্তে সোডিয়ামের ভারসাম্য বজায় রাখে। ফলে উচ্চ রক্তচাপও নিয়ন্ত্রণে থাকে।

হজমশক্তি উন্নত করে

ডুমুরে রয়েছে উচ্চ মাত্রায় ফাইবার, যা পেটের যাবতীয় সমস্যা দূর করে হজমশক্তি উন্নত করে তোলে। ‘প্রিবায়োটিক’ গোত্রের এই ফলটি অন্ত্রের ভাল ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা বৃদ্ধি করে।


আরও খবর

"নোবেলের ম্যাজিক শুধু প্রতারণা"

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24

ভালোবাসার দিন আজ

বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ফুলবাড়ীতে আওয়ামীলীগের শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশ মিছিল

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৯জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:-দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে উপজেলা আওয়ামীলীগের শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশ, জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা মিছিল অনুষ্টিত হয়। গত মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৬টায় ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয় থেকে শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশ মিছিলটি বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়। শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশ মিছিলে নেতৃত্ব দেন ফুলবাড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ এনামুল

হক। এ সময় শান্তি ও গণতন্ত্র সমাবেশ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান বাবুল, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিল্টন, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শাহ মোঃ আব্দুল কুদ্দস, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও প্যানেল মেয়র মামুনুর রশিদ চৌধুরী এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিরু সামসুন্নাহার সহ প্রায় ৫শতাধিক অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



জিআই পণ্য নিয়ে সবাইকে তৎপর হওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) পণ্য নিয়ে সবাইকে তৎপর হতে নির্দেশ দিয়েছেন।

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ নির্দেশনা দেন তিনি। বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। সভা শেষে সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মো. মাহবুব হোসেন এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, টাঙ্গাইল শাড়িকে জিআই পণ্য হিসেবে বাংলাদেশ যে জার্নাল প্রকাশ করেছে সেটি প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করা হয়েছে। পরে তিনি জিআই পণ্যের স্বীকৃতি নিতে সবাইকে তৎপর হতে বলেন।

এছাড়াও দেশে জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেতে পারে, সম্ভাব্য এমন সব পণ্য নিয়ে গুরুত্বের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে কাজ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন বলেও জানান মাহবুব হোসেন।

এর আগে, রোববার সকালে টাঙ্গাইল শাড়ি, নরসিংদীর অমৃত সাগর কলা ও গোপালগঞ্জের রসগোল্লার ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতির সনদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে হস্তান্তর করেন শিল্প মন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন।

সম্প্রতি শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্কস অধিদপ্তর (ডিপিডিটি) পণ্য তিনটির জিআই স্বীকৃতির গেজেট প্রকাশ করে।


আরও খবর



বেনাপোলে শিশু ধর্ষন চেষ্টাকারী আটক

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:বেনাপোলে প্রথম শ্রেনীতে পড়ুয়া এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষনের অভিযোগে ইকবাল হোসেন নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারী) সকালে বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে। ধর্ষক ইকবাল বেনাপোল পৌরসভার কাগজপুকুর গ্রামে মুজিবর রহমানের ছেলে। ঐ ছাত্রীকে উদ্ধার করে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য যশোর সদর হাসপাতালে  পাঠিয়েছে পুলিশ।

জানা যায়,  শনিবার বিকালে বেনাপোল  সীমান্তবর্তী একটি গ্রামে প্রথম শ্রেনীতে পড়ুয়া এক শিশু তার পাশের বাড়িতে অনান্য শিশুর সাথে খেলছিল। এসময় ঐ বাড়িতে থাকা বকাটে যুবক ইকবাল হোসেন তাকে মুখ চেপে ধরে তার রুমে নিয়ে ধর্ষণ করে। এসময় শিশুটির চিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে ধর্ষককে আটকে শিশুটিকে উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় শিশুটির অভিভবাক এদিন রাতে ধর্ষকের বিরুদ্ধে  বিচার চেয়ে মামলা দায়ের করলে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। পরে আলামত সংগ্রহ করতে শিশুটিকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য শিশুটিকে রোববার সকালে যশোর সদর হাসপাতালে পাঠায়।

শিশুর বাবা জানান, তার কন্যার সাথে অমানবিক শারিরীক নির্যাতন করেছে ধর্ষক ইকবাল হোসেন। তার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চায়।

প্রতিবেশি রহমত জানান, সামাজিক অবক্ষয়ের কারনে দিন দিন শিশু নির্যাতন ও ধর্ষনের ঘটনা সমাজে বেড়ে চলেছে। ধর্ষকের এমন শাস্তি হওয়া দরকার যাতে আর কেউ এমন ঘটনা র ঘটাতে  সাহস না পায়।

এদিকে এনিয়ে গত এক বছরে যশোরের শার্শা-বেনাপোল সীমান্তে ৩ টি ধর্ষন ও দুটি শিশু ধর্ষন চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে।

বেনাপোল পোর্টথানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি)  সুমন ভক্ত জানান, শিশুর বাবা ধর্ষন মামলা করলে পুলিশ ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে। শিশুকে উদ্ধার করে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য যশোর সদর হাসপাতালে পাঠিয়েছে পুলিশ।


আরও খবর



গোদাগাড়ীতে মসজিদের ইমামকে বহিস্কারকে কেন্দ্র করে মুসল্লীদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৫জন দেখেছেন

Image

গোদাগাড়ী(রাজশাহী) প্রতিনিধিঃরাজশাহীর গোদাগাড়ীতে মসজিদের ইমামকে বহিস্কারকে কেন্দ্র করে মুসল্লীদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে।পৌর এলাকার কেল্লারারুইপাড়া জামে মসজিদের ইমাম জসিমউদ্দীন বিন সমিরের বিরুদ্ধে জ্বিনের কবিরাজী করার ও মুসল্লিদের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করায় তাকে কমিটি ইমাম পদ থেকে বহিস্কার করে।কিন্তু ইমাম জসিমউদ্দীন বিন সমির গুটি কয়েক জনের প্ররোচনায় জোর করে মসজিদে নামাজ পড়াতে যায়। এরপর কমিটির সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ইমাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করে।থানায় বসে ইমাম ও কমিটির মধ্যে সমঝোতা হলে দুই মাসের বেতন দিলে ইমাম সেচ্ছায় চাকরি ছেড়ে দেন।তবে কমিটির সাবেক সম্পাদক ও এক সদস্য ইমামকে চাকরিতে বহাল রাখার আশ্বাস দিয়ে ইউএনও কাছে পাঠায়। কমিটি ও ইমাম পুনরায় ্ধসঢ়;ইউএনওর কাছে বসে আগের সিদ্ধান্তের একমত হয়ে কমিটির সিদ্ধান্তকে মেনে নেন ইমাম।মসজিদ কমিটির সাধারন সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বলেন,ইমাম জসিমউদ্দীন বিন সমির উর্দ্দা দিয়ে পান খাওয়া ও মিথ্যা কথা বলা,খুৎবা দিতে গিয়ে হাদিস কোরআনের মূল আলোচনা বাদ স্থানীয় রাজনীতি ও রাস্ট্র বিরোধী কথা বার্তা বলার অভিযোগ উঠায় কমিটির সকল সদস্য একমত হয়ে ইমামকে বাদ দেয়া হয়েছে। অস্থায়ীভাবে একজন ইমাম রেখে নামাজ পড়ানো হচ্ছে। শ্রীঘ্রই একজন ইমাম নিয়োগ নিয়োগ দেয়া হবে। ইমাম জসিমউদ্দীন বিন সমির তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ অস্কীকার করে বলেন,কমিটি আমাকে অন্যায় ভাবে বাদ দিচ্ছে।এদিকে মসজিদের ইমামকে কেন্দ্র মুসল্লীদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি প্রসঙ্গে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) আব্দুল মতিন বলেন,শুক্রবার(২৩ ফেব্রয়ারী) মসজিদে কোন ধরনের অরাজকতা করলে তার রিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


আরও খবর



আমতলীর আলোচিত মাদ্রাসা ছাত্রী তানজিলা হত্যার মুল রহস্য উদঘাটন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি:আমতলীতে আলোচিত তানজিলা হত্যা রহস্য পুলিশ উদঘাটন করেছে। অপহরণকারী হৃদয় খাঁনের মুক্তিপণ দাবী করা মোবাইলের সুত্র ধরেই এ রহস্য উদঘাটন করা হয়। অপহরণকারী হৃদয় খাঁন ও জাহিদুল খাঁন মাদ্রাসা ছাত্রী তানজিলাকে অপহরণ শেষে ধর্ষণ করে। পরে তানজিলার বাবার কাছে ১৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করে। ওই দাবীকৃত টাকা না পেয়েই অপহরণকারীরা তাকে হত্যা করেছে। আসামী হৃদয় খাঁন ও জাহিদুল খাঁন পুলিশের কাছে এ হত্যা রহস্য স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে আমতলী থানায় হৃদয় খাঁন, জাহিদুল খাঁনসহ আরো অজ্ঞাত ৩ জনের নামে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত ঘাতকদের কঠোর শাস্তি দাবীতে বৃহস্পতিবার সকালে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে।

জানাগেছে, উপজেলার পুঁজাখোলা গ্রামের তোফাজ্জেল খাঁনে মাদ্রাসায় ষষ্ঠ শ্রেনীতে পড়–য়া কন্যা তানজিলাকে সোমবার সকালে বাড়ীর সামনে থেকে চাচাতো ভাই হৃদয় খাঁন ও জাহিদুল খাঁন অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে একটি বাড়ীতে রেখে তারা অপরূতাকে ধর্ষণ করে।

ওইদিন রাতেই অপহৃতার বাবা তোফাজ্জেল খাঁনের কাছে হৃদয় খাঁন তার মোবাইল থেকে ১৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করেন। বাবা তোফাজ্জেল খাঁন মুক্তিপণ দিতে বিলম্ব করে। পরে তারা তানজিলাকে হাত-পা বেঁধে গলায় স্কার্ফ পেচিয়ে হত্যা করে। ঘাতকরা হত্যা করেই খ্যান্ত হয়নি তানজিলার মরদেহ পুজাখোলা খালের চরে হোগলপাতার খেতে কাঁদা মাটির মধ্যে লুকিয়ে রাখে। আমতলী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এ ঘটনায় মঙ্গলবার তানজিলার বাবা তোফাজ্জেল খাঁন আমতলী থানায় সাধারণ ডায়েরী করেন।

মোবাইল ফোনের সুত্র ধরে পুলিশ হৃদয় খাঁনকে আটক করে। পরে তার দেয়া তথ্যমতে অপহরণের দুইদিন পরে তানজিলার বাড়ীর সামনে খালের চরে হোগলপাতার খেতের মধ্য থেকে বুধবার দুপুরে তার হাত-পা বাঁধা গলায় স্কাফ পেচানো মরদেহ পুলিশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে তানজিলার বাবা তোফাজ্জেল খান বাদী হয়ে ঘাতক হৃদয় খাঁন এবং জাহিদুল খাঁনসহ আরো অজ্ঞাত ৩ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে পুলিশ গ্রেপ্তারকৃত দুই আসামীকে আমতলী সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে

সোপর্দ করেছে। আদালতে বিচারক মোঃ আরিফুর রহমানের কাছে আসামীরা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্ধি দেন। পরে ওইদিন বিকেলে তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। এদিকে আসামী হৃদয় খাঁন ও জাহিদুলের কঠোর শাস্তির দাবীতে বৃহস্পতিবার সকালে আমতলী সদর ইউনিয়ন পরিষদ প্রাঙ্গণে এলাকাবাসী মানববন্ধন করেছে।

তানজিলার বাবা তোফাজ্জেল খাঁন কান্না জনিত কন্ঠে বলেন, অপহরণকারী হৃদয় ও জাহিদুলের পায়ে পরে আমার মেয়ের জীবন ভিক্ষা চেয়েছি। কিন্তু ওরা আমার মেয়েকে বাঁচতে দিল না। আমার মেয়েকে নির্মম নির্যাতন শেষে হত্যা করেছে। আমি এ ঘটনায় ওদের কঠোর বিচার দাবী করছি।

আমতলী থানার ওসি কাজী সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামী হৃদয় ও জাহিদুল ঘটনার বর্ননা দিয়েছে। তাদেরকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর