Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

ফিটনেসবিহীন ওয়েলকাম বাসচাপায় প্রাণ যায় পুলিশ সদস্যের

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৬৯জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর বাংলামোটরে বাসচাপায় এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক ওয়েলকাম পরিবহনের চালক ও মালিককে গ্রেফতারের পর জানা গেলো বাসটি ছিলো ফিটনেসবিহীন। দৈনিক চুক্তিভিত্তিক বাসটি চালিয়ে আসা জাকির হোসেন বেপরোয়া গতিতে বাংলামোটরের দিকে যাওয়ার সময় মোটরসাইকেল আরোহী পুলিশ সদস্যকে চাপা দেন।

শুক্রবার (১০ জুন) রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর এলাকা থেকে ঘাতক ওয়েলকাম পরিবহনের বাসচালক জাকির হোসেন (৪০) ও ঢাকার সাভার এলাকা থেকে বাসটির মালিক মো. আলম ওরফে খোকাকে গ্রেফতার করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব-২)।

র‌্যাব জানায়, দুর্ঘটনার ২০ দিন আগে চুক্তিতে ওয়েলকাম পরিবহনের বাসটি চালানো শুরু করেন জাকির। ঘটনার পর প্রথমে আত্মগোপণে চট্টগ্রাম যান চালক। এরপর ব্রাহ্মণবাড়িয়া যাওয়ার পর তিনি গ্রেফতার হন। সেখান থেকে সীমান্তবর্তী এলাকা হয়ে পাশের দেশে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন তিনি।

ফিটনেসবিহীন ওয়েলকাম বাসচাপায় প্রাণ যায় পুলিশ সদস্যের

শনিবার (১১ জুন) রাজধানীর কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি বলেন, গত ৬ জুন সকালে বাংলামোটর সড়কে মোটরসাইকেলযোগে রাজারবাগ পুলিশ লাইনে যাওয়ার পথে ওয়েলকাম পরিবহনের বাসচাপায় পুলিশ কনস্টেবল কোরবান আলী মারা যান। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় গোয়েন্দা নজরদারির ধারাবাহিকতায় চালক ও বাস মালিককে গ্রেফতার করা হয়। তবে বাসটির হেলপার এখনো পলাতক রয়েছেন।

গ্রেফতারদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের ভিত্তিতে তিনি বলেন, চালক জাকির ২০০৫ সালে ঢাকায় টেম্পুর হেলপার হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পর ২০১০ সালের দিকে তিনি লেগুনা চালাতেন। পরে ২০১৫ সালে বাসের হেলপার হিসেবে ঢাকায় চাকরি নেন। ২০১৮ সাল থেকে লাব্বাইক ও ওয়েলকাম ট্রান্সপোর্টে ড্রাইভার হিসেবে অস্থায়ী ভিত্তিতে বাস চালানো শুরু করেন।

২০১৯ সালে হালকা যানবাহন চালনার লাইসেন্স করে নিয়মিত বাস চালানো শুরু করেন। প্রায় এক মাস আগে বর্তমান গাড়ির মালিক খোকার সঙ্গে জাকিরের পরিচয় হয়। প্রায় ২০ দিন আগে ওয়েলকাম পরিবহনের ও বাসটি দৈনিক ২৫০০ টাকা চুক্তিতে চালানো শুরু করেন জাকির। এর বাইরে গাড়ির লাইন খরচ ১৩০০ টাকা দিতে হতো। এরপর বাকি টাকা জাকির, হেলপার ও কন্ট্রাক্টর ভাগ করে নিতেন।

ফিটনেসবিহীন ওয়েলকাম বাসচাপায় প্রাণ যায় পুলিশ সদস্যের

র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ঘটনার দিন কারওয়ান বাজার সিগনাল থেকে যাত্রী নিয়ে পরবর্তী সিগন্যালে বেপরোয়াভাবে চালিয়ে যাওয়ার সময় মোটরসাইকেল আরোহীকে পুলিশ সদস্যকে চাপা দেন জাকির। বাংলামোটরে গিয়ে বাসটি রেখে পালিয়ে যান।

পরে বাস কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তাকে আত্মগোপণে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। সারাদিন ঢাকার বিভিন্ন এলাকা ঘোরাঘুরি করে রাতে চট্টগ্রামে চলে যান। সেখানে এক আত্মীয়ের বাসায় দুইদিন থাকার পর আরেক জায়গায় চলে যান। সেখান থেকে শুক্রবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আত্মগোপনে যান। যেখান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। জাকিরের পরিকল্পনা ছিল সীমান্ত পেরিয়ে পার্শ্ববর্তী দেশে অবৈধভাবে পালিয়ে যাওয়া।

তিনি বলেন, বাসের মালিক আলম ২০১৭ সালে পরিবহন ব্যবসা শুরু করেন। একটি বাসের লাভ দিয়ে ২০২০ সালে এই বাসটি কিনে রুট পারমিট ছাড়াই সড়কে চালানো শুরু করেন। এখনো গাড়িটির রুট পারমিট না পেলেও ২ বছর ধরে গাড়িটি রাস্তায় চলছিলো। ঘটনার পর তিনিও সাভারে আত্মগোপনে যান।

এক প্রশ্নের জবাবে র‌্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে আমাদের পক্ষ থেকে বিভিন্নসময় বিভিন্ন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে বাস চালক-মালিক থেকে শুরু করে সকল স্টেকহোল্ডারদের গুরুত্বের সঙ্গে কাজ করতে হবে। এটি শুধুমাত্র আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে নেই। সবাই সচেতন না হলে সড়কে রোধ করা কঠিন।


আরও খবর



একাধিক চাকরি দিচ্ছে এনা গ্রুপ

প্রকাশিত:Saturday ২৩ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ০৩ August ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
Image

এনা গ্রুপে ‘অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার/ম্যানেজার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: এনা গ্রুপ
বিভাগের নাম: ভ্যাট

পদের নাম: অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার/ম্যানেজার
পদসংখ্যা: ০৩ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমকম/এমবিএ (অ্যাকাউন্টিং)/ এমবিএ (ফিন্যান্স/সিএসিসি/আইসিএমএ)
অভিজ্ঞতা: ০৫ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: পুরুষ
বয়স: ৩০ বছর
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা [email protected] অথবা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ৩১ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



কক্সবাজার থেকে ইয়াবা এনে ঢাকায় বিক্রি, কারবারি আটক

প্রকাশিত:Saturday ২৩ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ০৩ August ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর হাতিরঝিল এলাকায় ইয়াবা বিক্রির সময় একজনকে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব-৩। গ্রেফতার ইয়াবা   কারবারির নাম মো. আরিফ ওরফে বাবু।

শনিবার (২৩ জুলাই) র‍্যাব-৩ এর স্টাফ অফিসার পুলিশ সুপার বীণা রানী দাস এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, একজন মাদক কারবারি ইয়াবা বিক্রির জন্য হাতিরঝিল থানার মীরবাগ এলাকায় অবস্থান করছে বলে তথ্য পাই আমরা। এমন তথ্যের ভিত্তিতে র‍্যাব-৩ এর একটি আভিযানিক দল ওই স্থানে অভিযান চালিয়ে ৭৬৫ পিস ইয়াবাসহ বাবুকে আটক করে।

এ সময় তার কাছ থেকে ৭৬৫ পিস ইয়াবা, ১০টি মোবাইল ফোন, দুটি সিম কার্ড, একটি চাকু, একটি মাদক সেবনের পাত্র ও নগদ দুই হাজার ১৬০ টাকা জব্দ করা হয়।

গ্রেফতার বাবু সীমান্তবর্তী জেলা কক্সবাজার থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি করতো বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। আটক বাবুর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

আটকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



এনা গ্রুপে ম্যানেজার পদে চাকরির সুযোগ

প্রকাশিত:Monday ১৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ০৩ August ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

এনা গ্রুপে ‘ম্যানেজার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ৩০ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: এনা গ্রুপ
বিভাগের নাম: অডিট অ্যান্ড কস্টিং

পদের নাম: ম্যানেজার
পদসংখ্যা: ০২ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা: এমবিএ/স্নাতকোত্তর/এমবিএস (অ্যাকাউন্টিং/ফিন্যান্স)
অভিজ্ঞতা: ০৩-০৫ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: ৩০-৪০ বছর
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা [email protected] অথবা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ৩০ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



মহেশপুর সীমান্তে দালালসহ আটক ২৯

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশ থেকে ভারতে অনুপ্রবেশের সময় এক দালালসহ ২৯ জনকে আটক করেছে বিজিবি।

বুধবার (২৭ জুলাই) ভোরে সীমান্তের কানাইডাঙ্গা, বটতলা ও জুলুলী এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়। দুপুরে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিজিবি এ তথ্য জানিয়েছে।

jagonews24

আটকদের বাড়ি বরগুনা, সাতক্ষীরা, যশোরসহ বিভিন্ন জেলায়। তাদের মধ্যে ছয় নারী, তিন শিশু ও ২০ পুরুষ রয়েছে।

ঝিনাইদহ বিজিবি-৫৮ ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত পরিচালক তসলিম মো. তারেক বলেন, সীমান্ত এলাকার বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে কিছু মানুষ বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। আটকদের বিরুদ্ধে পাসপোর্ট অধ্যাদেশ আইনে মামলা করে মহেশপুর থানায় পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



‘কষ্টের ইনকাম অবৈধপথে পাঠিয়ে নষ্ট করে দিতে পারি না’

প্রকাশিত:Thursday ০৪ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

উপার্জনের অর্থ বৈধপথে দেশে পাঠাতে প্রবাসীদের অনুরোধ জানিয়েছেন অবসরপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন। এসময় তিনি এক বাংলাদেশি প্রবাসীর কথা স্মৃতিচারণ করেন।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক আইডিতে প্রবাসীদের নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন তিনি। মাহবুব কবীর মিলনের সেই স্ট্যাটাস হুবহু তুলে ধার হলো।

‘কয়েক বছর আগে সফরে মালয়েশিয়া গিয়ে বেড়াতে গেলাম আইল্যান্ড হোপিং-এ। পাহাড়, সমুদ্র এবং লেক পরিবেষ্টিত মনোরম এক পর্যটন স্পট। একটি কম দামের আবাসিক হোটেলে উঠেছি। ফেরার আগের রাতে পাশেই এক খাবার হোটেলে বসলাম। সেখানে পরিচয় হলো আমাদের দেশের এক প্রবাসী ভাইয়ের। তিনি দিনে নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে এবং সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত এই খাবার হোটেলে কাজ করেন।’

‘দেশের মানুষ পেয়ে এত ভালো লাগলো যে, মনে হলো তিনি কতো আপন আমার। আমাকে জিজ্ঞেস করাতে বললাম, এই পাশের হোটেলেই উঠেছি। কুশলাদি বিনিময়ের পর তাকে বললাম, তুমি দেশে টাকা পাঠাও কীভাবে? হুন্ডি নাকি ব্যাংকিং চ্যানেলে? উত্তর দিলো, স্যার ব্যাংকের মাধ্যমে। হুন্ডিতে তো লাভ বেশি। সেখানে নয় কেন? বললো, স্যার হুন্ডিতে দেশের ক্ষতি। আর এত কষ্টের ইনকাম আমার অবৈধপথে পাঠিয়ে তা নষ্ট (হারাম) করে দিতে পারি না। অবাক হয়ে তাকিয়ে রইলাম তার দিকে।’

‘খাবার শেষে বিল নিয়ে আসতে বললাম। উত্তরে বললো, আপনি আপনার রুমে যান, আমি বিল নিয়ে আসছি। তখন বাজে রাত ১০টার মতো। হোটেলে গিয়ে শুয়ে থাকলাম। রাত ১১টা পার হলো, ১১.৩০ এর দিকে আবার সেখানে গিয়ে ম্যানেজারকে আমার বিলের কথা বললে, তিনি জানালেন দীপু আপনার বিল দিয়ে চলে গেছে। হতবাক হয়ে তাকে জিজ্ঞাস করলাম, কখন আসবে সে? আগামী কাল সন্ধ্যা ৬টায়। পরেরদিন আমাদের প্লেন বিকেলে। আর দেখা হবে না দীপুর সঙ্গে। ম্যানেজারকে টাকাটা নিতে বললাম, যেন দীপুকে তা দিয়ে দেয়। তিনি বললেন, টাকা নিতে দীপু নিষেধ করেছে।’

‘হেরে গেলাম দীপুর কাছে। আজও বুকটা খচখচ করে। এ কেমন ছেলে সে!! আমি আজও ভেবে পাই না, সামান্য সময় (খাবারের সময়) কথা বলার মাঝে পরিচয় হওয়া ছেলেটি মালয়েশিয়ায় আমার খাবার বিলটি নিজে দিয়েছিল কেন!!’

‘২০১৩ সালে ওমরাহ করতে গিয়েছি। কাবাঘরের ঠিক সামনের হোটেলের ৩/৪ তলায় মার্কেট ছিল। আছর নামাজ পড়ে মাগরিবের আগে পর্যন্ত সেখানে গল্পগুজব করতাম। একটি আতরের দোকানে ছিলেন সালেহ ভাই (এখন সিলেটে বসবাসরত), তার পাশের দোকানেই বশর ভাই (চট্টগ্রাম বাড়ি)। চা, কফি আর চীজ কেক নিয়ে প্রতিদিন সবাই মিলে ভাগাভাগি করে খেতাম। সাথে ছিল আমার স্ত্রী। সালেহ আর বশর ভাইকেও জিজ্ঞেস করেছিলাম, দেশে টাকা পাঠান কীভাবে? তারা একই উত্তর দিয়েছিলেন। দেশের আর নিজের ক্ষতি করে সামান্য কিছু টাকার জন্য হুন্ডিতে টাকা পাঠাই না। অবৈধ পথ মানে হারাম টাকা।’

‘ফেরার আগের দিন বশর ভাইয়ের দোকানে অনেকগুলো তসবি আর মেয়েদের ব্যবহার্য্য জিনিসপত্র কিনে টাকা দিতে গেলে তিনি বেকে বসলেন। কিছুতেই টাকা নেবেন না। তার এক কথা, আপনি এত বড় পদে চাকরি করে প্রতিদিন আমাদের সাথে বসে গল্পগুজব করেছেন, বসার কিছু দিতে পারিনি, দাঁড়িয়ে স্বামী-স্ত্রী দীর্ঘ সময় ছিলেন। আপনাদের টাকা কিছুতেই নিতে পারবো না। মাল ফেরত দিতে চাইলাম, সেটাও তিনি নেবেন না। এক রকম জোর করে ব্যাগ হাতে দিয়ে সিঁড়ি পর্যন্ত নামিয়ে দিয়ে গেলেন। হতবাক হয়ে দাঁড়িয়ে রইলাম কিছুক্ষণ দুজন।’

‘হেরে গেলাম আমরা দুজন বশর আর সালেহ ভাইয়ের কাছে। সালেহ ভাইও অনেকগুলো আতরের দাম নেয়নি। এই ভালোবাসা তো কোনো মূল্য দিয়ে কেনা যায় না। টয়লেটেও দেশি ভাই পেলে সেখানে দাঁড়িয়ে তাদের ভালো-মন্দ খোঁজ নিতাম। আমরা তো ঋণী এই মানুষগুলোর কাছে। জাতিগতভাবেই ঋণী। মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর এবং সৌদিতে অনেক প্রবাসী ভাইকে বুকে জড়িয়ে ধরেছি। দোহা এয়ারপোর্টেও তাই।’

‘ভাইয়েরা আমার। যত কষ্টই হোক আপনাদের, যত দুঃখই পান না কেন। আমাদের এই বিপদে আপনারা কি এগিয়ে আসবেন না? এই দেশ তো আপনাদের, আমাদের, সবার। ভালমন্দ ছিল, আছে এবং থাকবে। দিন পরিবর্তন হবেই ইনশাআল্লাহ।’

‘আপনাদের কষ্টার্জিত উপার্জন বৈধপথে পাঠান দেশে। আলো আসতে না চাইলে, তাকে তো টেনে আনতেই হবে।’


আরও খবর