Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ফারুক চেয়ারম্যানের মামলাতেই আটকে আছে পাওনাদার রোমান চৌধুরীর টাকা

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৮৭জন দেখেছেন

Image

আব্দুল হান্নান:- ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ৭নং ফান্দাউক ইউনিয়নের তৎকালীন সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যান তখনকার সময়ের জেলা পরিষদ সদস্য ফারুকুজ্জামান ফারুখের বিরোদ্ধে আতুকুড়া গ্রামের ব্যবসায়ী রোমান চৌধুরী নামের এক ব্যাক্তির বালু ভরাটের ১৫ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ,জোর পূর্বক বিভিন্ন হিন্দু মুসলমানের বাড়ি ও রাস্তা দখল সহ নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে।জানা গেছে ২০১২ সালে ফান্দাউক গরুর বাজারের মাঠ ভরাট করতে ফারুকুজ্জামান রোমান চৌধুরীর কাছ থেকে প্রায় ১৬ লক্ষ টাকার বালু নিয়ে মাত্র ১ লক্ষ টাকা পরিশোধ করে।বাকী টাকা দেম দিচ্ছি বলে ঘুরাতে থাকে।রােমান চৌধুরী টাকা আদায় করতে ব্যর্থ হয়ে পরবর্তীতে ২০১৯ সালের ১৮ জুলাই  তার পাওনা টাকা উদ্ধারের জন্য নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে এক লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারুকুজ্জামানকে  তিন দফা নোটিশ করলেও তিনি নির্বাহী কর্মকর্তার নোটিশের কোন জবাব দিতে আসেননি। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আজগর আলী টাকা উদ্ধারে ব্যর্থ হয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়ে ২৯ অক্টোবর ২০১৯ তারিখে ৯৪১ নং স্বারকে অভিযোগকারী রোমান চৌধুরীর অভিযোগ সত্য বলে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে  ফারুখের বিরোদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য এক প্রতিবেদ দাখিল করেন।নির্বাহী কর্মকর্তার প্রতিবেদন দাখিলের পর চতুর ফারুকুজ্জামান ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে ফেনীর এ ডি এম,সাবেক নাসিরনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

মোঃ আজগর আলী,রোমান চৌধুরী,জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসকের বিরোদ্ধে ২০২১ সালের ২৮ সেপ্টেম্ভর দেওয়ানী ৪১৯ নং মামলা দায়ের করে পাওনা টাকা আটকে দেয়।তাই মামলার জটলাতেই আটকে আছে রোমান চৌধুরীর পাওনা টাকা। তাছাড়াও ফারুক ও তার লোকজনে মিলে হিন্দু মুসলমান কয়েক জনের বাড়ি,রাস্তা ও জমি দখল করার অভিযোগও রয়েছে।এ বিষয়ে জানতে চেয়ারম্যান ফারুকের ব্যবহৃত মোবাইল নাম্ভারে একাদিক বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মাগুরায় রেল লাইন নির্মান প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহনের ১ কোটি ২৪ লাখ টাকার চেক বিতরণ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরা জেলায় বহুল কাঙ্ক্ষিত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণের চেক বিতরণ শুরু মাগুরাবাসীকে রেলগাড়ীতে চড়ার স্বাদ এনে দিতে সরকার ফরিদপুরের মধুখালী থেকে কামারখালী হয়ে মাগুরা পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের কাজ হাতে নেয়। প্রায় ২৪ কি:মি দীর্ঘ এই রেললাইনের ১৪ কি:মি: অংশ পড়েছে মাগুরায়।

 বহুল কাঙ্ক্ষিত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণের চেক বিতরণ শুরু  হয়েছে বুধবার থেকে।মাগুরা জেলা প্রশাসক ও কালেক্টর,   মোহাম্মদ আবু নাসের বেগ অধিগ্রহণকৃত স্থানে (মাগুরা সদর উপজেলার কছুন্দি ইউনিয়নের বেলনগরে) উপস্থিত হয়ে ১৬ জন ব্যক্তির মাঝে ১৭টি ক্ষতিপূরণের এলএ চেকের মধ্যমে মোট ১,২৪,১৫,৭৬৯.১৩ (এক কোটি চব্বিশ লাখ পনের হাজার সাতশত ঊনসত্তর টাকা তের পয়সা  বিতরণ করেন। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, এসি ল্যান্ড সাদ্দাম হোসেনসহ কর্মকর্তা ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।।

দুইটি প্রকল্পের অধীন এ চেকগুলো বিতরণ করা হয়েছে। প্রকল্পগুলো হলো:- ফরিদপুরের মধুখালী থেকে কামারখালী হয়ে মাগুরা পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণ প্রকল্প ও মাগুরা-শ্রীপুর মহাসড়ক বাঁকসরলীকরণ ও সম্প্রসারণ প্রকল্প।

অধিগ্রহণকৃত স্থানে উপস্থিত হয়ে ক্ষতিপূরণের এলএ চেক বিতরণ করা প্রসঙ্গে জেলা প্রশাসক বলেন যে, চেক বিতরণে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণে এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ক্ষতিপূরণপ্রত্যাশী কেউ যেন কোন ধরনের হয়রানির শিকার না হন সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে। তিনি আরও উল্লেখ করেন যে, গত  ২২ সালের ৮ ডিসেম্বর  জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদানেরর পর  বৃহস্পতিবার  পর্যন্ত ২২৬ জন ব্যক্তির মাঝে ২৩৮টি এলএ চেকের মাধ্যমে সর্বমোট  চৌত্রিশ কোটি আট লাখ একষট্টি হাজার ছয়শত তিন টাকা প্রদান করা হয়েছে এবং সবগুলো এলএ চেকই সরেজমিনে অধিগ্রহণকৃত স্থানে উপস্থিত হয়ে বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া, ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ায় কেউ যেন কোনভাবেই কোন দালাল বা তৃতীয় পক্ষের কাছে না গিয়ে বরং জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভূমি অধিগ্রহণ শাখার কর্মকর্তা বা সরাসরি জেলা প্রশাসকের কাছে আসেন সে জন্য তিনি সবার প্রতি আহবান জানান।

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মেহেরপুরে জমি নিয়ে বিরোধ, আহত- ৭

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭২জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ,মেহেরপুর প্রতিনিধিঃমেহেরপুর সদর উপজেলার কালী গাংনী গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে দু-পক্ষের সংঘর্ষে কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আক্তার, ফুরকান আলী, নাহিদুজ্জামান রাসেল, আবুল কালাম, লিজন, বদরুদ্দীন ও সাবদুল নামের ৭ জন আহত হয়েছে। আহতদের মেহেরপুর-২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ সোমবার সকালের দিকে এর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন বাবুল আক্তার কুতুবপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, আজিজুর রহমানের ছেলে ফুরকান, নাসির উদ্দিনের ছেলে নাহিদুজ্জামান রাসেল, কামরুলের ছেলে আবুল কালাম, আবুল কালাম এর ছেলে লিজন, মৃত রিয়াজউদ্দিনের ছেলে বদর উদ্দিন, এবং তার ভাই সবদুল।

জানা গেছে ঘটনার সময় বদরুদ্দিনের নেতৃত্বে তার লোকজন বিরোধপূর্ণ একটি জমিতে চাষ দিতে যান। এ সময় বাবুল আক্তার বিষয়টি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত চাষ না করার জন্য আহ্বান জানান। এ সময় বাবুল আক্তারের উপরে হামলা করা হলে উভয়ের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়।

এই ঘটনায় উভয়পক্ষের ৭জন আহত হলে তাদের উদ্ধার করে মেহেরপুর-২৫০ বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হয়। 


আরও খবর



আশায় আশায় ৫৩ বছর অতিবাহিত হলেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি এঅঞ্চলে

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

রৌমারী কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:অবৈধ বেগুর দাপটে নষ্ট হচ্ছে ফসলের জমি বেগুর মাটি অবৈধ কাকরায় ভাটায় নিতে খয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ রাস্তা অভিযোগেও কোন কাজ হচ্ছে না দেশের উত্তরাঞ্চলীয় কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের সীমান্তঘেষা অঞ্চলটিতে ৫৩ বছরেও উন্নয়ন হয়নি ফলে বিঘ্নিত হচ্ছে এঅঞ্চলের উন্নয়ন। উন্নয়ন না হওয়ার ফলে অন্ধকারে জীবনযাপন করছেন অবহেলিত অঞ্চলের প্রায় পনেরো হাজার মানুষ। যোগাযোগ বিছিন্নতার কারণে এঅঞ্চলের ছেলে, মেয়েকে বিয়ে সাদি দিতেও বিপাকে পড়তে হয় অভিভাবকদের।কারণ এসব রাস্তায় একবার যাওয়া আশা করলে পায়ের ধুলোবালি মাথায় গিয়ে ভাষা বাদে এমন বিঘ্ন দশায় এসব এলাকায় বিয়ে করে কোন শালায়।

যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় ফসলের ন্যায্য মূল্য থেকেও বঞ্চিত সীমান্ত অঞ্চলের কৃষির উপর নির্ভরশীল কৃষকরা।যোগাযোগ বিছিন্ন এলাকার সরেজমিন ঘুরে এলাকার বৃদ্ধদের বরাত দিয়ে জানা গেছে এক মন ধান হাটবাজারে বিক্রয় করতে কেয়ারিং খরচা হয় একশোত টাকা। আর যদি যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকতো তাহলে কেয়ারিং খরচ হতো  ২০ টাকা। আর সেখানে প্রতি মনে কেয়ারিং খরচ গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ৮০ টাকা।অপরদিকে হাটবাজারে কোন কাজে যেতে হলে  পায়ে  হেটে যেতে হয় প্রায় ৮ কিলোমিটার ধুলোবালি রাস্তার উপর দিয়ে। এমন বিঘ্নদশায় জীবনযাপন করছেন প্রায় পনেরো হাজার মানুষ।

অটো ভ্যানে কোন ফসল হাটবাজারে নিতে হলে ৩-৪ জন মানুষের  ধাক্কাধাক্কি করে  পাকারাস্তায় পৌছাতে হয়।এদিকে হাটবাজারে যেতে হলে মানুষ একটু হলেও স্বাভাবিক পোষাক পড়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সেখানে দেখা গেছে পায়ের ধুলা মাথায় উঠে পরিবেশ কি জিনিস এঅঞ্চলের মানুষ ঠিকমতো রাখতে পারছেনা।

কাচা মাঠির রাস্তার এপাশ ওপাশে  অবৈধ ইটভাটা, এসব ইটভাটায় ফসলি জমির মাটি বেগুতে কেটে কাকরা  যোগে ভাটায় পৌছাতে রাস্তার অবস্থা খানাখন্দে চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে। 
এলাকাবাসীরা সরকারের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন অবৈধ লড়ি কাকরার দাপটে গ্রামীণ অবকাঠামো যোগা খিচুড়িতে পরিনত হয়েছে এগুলো বন্দ করতে হবে। সায়দাবাদ  মহাসড়ক হইতে ভায়া বেকরিবিল হয়ে খেওয়ারচর বাজার পেরিয়ে, সীমান্ত ঘেঁষা আলগারচর ডিঙ্গিয়ে, লাঠিয়াল ডাঙ্গার উপর দিয়ে বালিয়ামারী খেওয়া ঘাট পর্যন্ত প্রায় আট কিলোমিটার কাচা রাস্তায় একটি ইটের খোয়াও পড়েনি। যার ফলে শুস্ক মৌসুমে ধুলাবালিতে অন্ধকার হয়ে থাকে। বৃষ্টি হলে হাটু পর্যন্ত কাদায় পরিনত হয়ে যায়। অপরদিকে বালিয়ামারী পাকারাস্তার মোর হইতে চর লাঠিয়াল ডাঙ্গা হয়ে সায়দাবাদ পর্যন্ত প্রায় ছয় কিলোমিটার কাচা মাটির রাস্তা চলাকালে অনুপযোগী হয়ে মানুষের যাতায়াতে ব্যাপক বিঘ্ন ঘটেছে। এসব এলাকার উন্নয়ন চাইলে টেকসই উন্নয়ন করতে হবে তাহলে যদি এই এলাকার উন্নয়ন হয়। 

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার : শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান-২০২৪ আজ শনিবার সকালে ঢাকার মিরপুর-১৪ তে কলেজ মাঠে সম্পন্ন হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (আইজিপি) ও কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বিপিএম(বার), পিপিএম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পুলিশ নারী কল্যাণ সমিতির (পুনাক) সভানেত্রী ডা. তৈয়বা মুসাররাত জাঁহা চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এন্টি টেররিজম ইউনিটের অ্যাডিশনাল ইন্সপেক্টর জেনারেল এস এম রুহুল আমিন।



অনুষ্ঠানে ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান বিপিএম-বার, পিপিএম-বার ও সহধর্মিণী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জুনিয়র কনসালটেন্ট ও রেসিডেন্সিয়াল সার্জন (সার্জারী) ডাঃ ওয়াজেদ শামসুন্নাহার উপস্থিত ছিলেন।


এছাড়া উপস্থিত ছিলেন মিরপুর জোনের উপ- পুলিশ কমিশনার (ডিসি) জসিম উদ্দিন মোল্লা, এডিসি মিরপুর জোন মাসুক মিয়া পিপিএম,মিরপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কাজী সাব্বির, কাফরুল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ফারুকুল আলম।

ভাষার মাসে ১৯৫২ সালের শহীদদের স্মরণ করে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইজিপি বলেন, ভাষা শহীদদের কারণে আমরা মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার পেয়েছি। স্বাধীনতার চেতনা, শিক্ষা, নৈতিকতা ও দেশপ্রেমের উপপাদ্যকে সামনে রেখে ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর পরিচালনায় শহীদ পুলিশ স্মৃতি স্কুল অ্যান্ড কলেজের যাত্রা শুরু হয়। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আধুনিক এবং সৃজনশীল এবং মানসম্মত শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্থান করে নিয়েছে। যা পুলিশের গর্বের বিষয়। লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায় শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজের গৌরবময় অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে আইজিপি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন।

২০২৩ সালে শীর্ষ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ভালো ফলাফল করায় এবং এ কলেজ থেকে সাতজন শিক্ষার্থী এবার বিভিন্ন সরকারি মেডিকেল কলেজে চান্স পাওয়ায় তিনি শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকদের ধন্যবাদ এবং কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

আইজিপি বলেন, বিজ্ঞানের যুগে আধুনিকতার ছোঁয়ায় জীবন সুন্দর ও সহজ হয়েছে। মোবাইল ফোনের অপব্যবহার ও মাদক জীবনকে তছনছ করে দিতে পারে। বর্তমানে বড় চ্যালেঞ্জ হলো মাদক নিয়ন্ত্রণ। মাদক যুবসমাজকে ধ্বংস করে দিতে পারে। মাদক থেকে বাঁচার একমাত্র উপায় সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে আসা। পারিবারিক, সামাজিক ও নৈতিক মূল্যবোধ এবং অনুশাসনের প্রতি শিক্ষক ও অভিভাবকদের খেয়াল রাখার অনুরোধ করেন তিনি।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে পুলিশ প্রধান বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে দেশ দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি ২০৪১ সালে উন্নত, সমৃদ্ধ দেশের যে স্বপ্ন দেখছেন, সে উন্নত সমৃদ্ধ দেশের নাগরিক হিসেবে তোমরাই নেতৃত্ব দিবে এবং বিশ্বের বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে তোমাদের প্রস্তুত হতে হবে।

আইজিপি শিক্ষার্থীদের বর্ণাঢ্য প্যারেড ও মনোমুগ্ধকর ডিসপ্লে উপভোগ ও অভিবাদন গ্রহণ করেন। পরে বিশেষ অতিথি ও সভাপতি বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

অনুষ্ঠানে ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা, শিক্ষকমন্ডলী, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর

ঢাকায় মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৬

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মোরেলগঞ্জে তিন দিনব্যাপী ক্রীড়া অনুষ্ঠানের উদ্ধোধন

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image

শেফালী আক্তার রাখি মোরেলগঞ্জ (বাগেরহাট) প্রতিনিধি:বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ পৌর শহরে অবস্থিত এস.আই ক্যাডেট একাডেমিতে ১২তম বার্ষিক ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতা ও হিফজ সমাপনকারি ছাত্রদের পাগড়ী প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়েছে।

কাউন্সিলর আজিজুর রহমান মিলন গতকাল শনিবার বেলা ৮টায় তিন দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এস.আই ক্যাডেট একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক অধ্যক্ষ মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম।

উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার মো. বাকি বিল্লাহ, প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা কায়কোবাদ আকুঞ্জি, কাউন্সিলর মো. নান্না শেখ, সদস্য আব্দুল গফফার হাওলাদার, দৈনিক পূর্বাঞ্চল মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি এম.পলাশ শরীফ, দক্ষিণাঞ্চল প্রতিদিন প্রতিনিধি শিব সজল যীশু ঢালী প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন একাডেমির উপাধ্যক্ষ নাইমুল ইসলাম।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪