Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

এশিয়ান গেমসের টিকিট নিয়ে দেশে ফিরেছে হকি দল

প্রকাশিত:Friday ০৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৫২জন দেখেছেন
Image

এক সঙ্গে দুটি মিশন নিয়ে ঢাকা ছেড়েছিল জাতীয় হকি দল। এক. ব্যাংককে এশিয়ান গেমস বাছাই এবং দুই. ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় এশিয়া কাপ। এই দুই মিশন শেষ করে বৃহস্পতিবার রাতে দেশে ফিরেছেন জিমি-আশরাফুলরা।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে হকি দলকে অভ্যার্থনা জানিয়েছেন বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইউসুফ।

ব্যাংককে বাংলাদেশ সেমিফাইনালে উঠেই এশিয়ান গেমসের টিকিট নিশ্চিত করেছিল। পরে ফাইনালে উঠে বাংলাদেশ বাজেভাবে হেরে যায় ওমানের কাছে। সেখান থেকে সরাসরি ইন্দোনেশিয়ার জাকার্তায় গিয়ে এশিয়া কাপে অংশ নেয় লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের প্রথম লক্ষ্য ছিল গতবারের ষষ্ঠ স্থান নিশ্চিত করা এবং পঞ্চম স্থানের জন্য লড়াই করা। বাংলাদেশ গ্রুপ ম্যাচে ওমানকে হারানোয় এবং স্থানী নির্ধারণী ম্যাচে ইন্দোনেশিয়াকে হারানোয় টিকে থাকে আগের অবস্থানে। তবে পঞ্চম স্থান নির্ধারণী ম্যাচে প্রতিপক্ষ পাকিস্তান পড়ায় বড় হারে ষষ্ঠ স্থান নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়।

এই টুর্নামেন্টে খেলার পর বাংলাদেশের র‍্যাংকিং ২৭ হয়েছে। আন্তর্জাতিক হকি ফেডারেশন ঘোষিত এই র‍্যাংকিংয়ে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো ওমানকে টপকে ২৭ হয়েছে। হকিতে এটি একটি ভালো অর্জন।

এশিয়ান গেমস বাছাইয়ে লক্ষ্যপূরণ, এশিয়া কাপে অবস্থান ধরে রাখা এবং র‍্যাংকিংয়ে উন্নতি মিলিয়ে এই সফরটা ব্যতিক্রম হয়ে থাকলো বাংলাদেশ হকির জন্য।


আরও খবর



ঘুম ভাঙতেই বুকে ব্যথা কীসের লক্ষণ?

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

সকালে ঘুম থেকে উঠে অনেকেই হয়তো বুকে ব্যথা অনুভব করে। তবে বিষয়টি অনেকেই অবহেলা করেন। কারণ পরবর্তী সময়ে হয়তো ব্যথা কমেও যায়। তবে দীর্ঘদিন একই সমস্যায় ভুগলে তা উপেক্ষা করবেন না। কারণ বিভিন্ন কারণে বুকে ব্যথা করতে পারে। তবে বুকে ব্যথা নিয়ে ঘুম ভাঙা কীসের লক্ষণ?

বিশেষজ্ঞদের মতে, বুকে ব্যথা নিয়ে জেগে ওঠা মানসিক চাপ বা বদহজমের কারণে হতে পারে। আবার হার্ট অ্যাটাক বা পালমোনারি এমবোলিজমের মতো গুরুতর সমস্যার কারণেও ব্যথা হতে পারে।

এ কারণে বুকে ব্যথা সবসময় গুরুত্ব সহকারে নেওয়া উচিত। যদি ব্যথা কয়েক মিনিটেরও বেশি সময় ধরে থাকে, তাহলে সর্বোত্তম পদক্ষেপ নিতে হবে। জেনে নিন বুকে ব্যথার সম্ভাব্য যত কারণ-

বুকে ব্যথার হার্ট সম্পর্কিত কারণ

>> যখন আপনার হার্টের পেশিতে অক্সিজেন সরবরাহকারী একটি ধমনী অবরুদ্ধ হয়, তখন আপনার হার্ট অ্যাটাক হয়। এই ব্লক প্রায়ই রক্ত জমাট বাঁধার কারণে হয়।

>> এনজাইনার কারণেও বুকে ব্যথা হয়। যা হৃৎপিণ্ডে রক্তপ্রবাহ কমে যাওয়ার কারণে হয়। এটি প্রায়শই হৃদয়ে রক্ত বহনকারী ধমনীতে প্লাক তৈরির কারণে ঘটে।

>> পেরিকার্ডাইটিস। আপনার হৃদপিণ্ডের চারপাশে থাকা থলিতে প্রদাহকে পেরিকার্ডাইটিস বলা হয়। এটি সাধারণত ব্যথা সৃষ্টি করে, যা শ্বাস নেওয়া বা শুয়ে থাকার সময় বেড়ে যায়।

>> মায়োকার্ডাইটিস। যদি আপনার হৃদপিণ্ডের পেশি (মায়োকার্ডিয়াম) স্ফীত হয়, তবে এটি দ্রুত বা অস্বাভাবিক হৃদযন্ত্রের ছন্দ সৃষ্টি করতে পারে যাকে অ্যারিথমিয়াস বলা হয়।

>> অর্টিক ডিসেকশন বা ফেটে যাওয়া। এই জীবন-হুমকির অবস্থা তখনই ঘটে, যখন মহাধমনীর ভেতরের স্তরগুলো হৃৎপিণ্ডের প্রধান ধমনী থেকে আলাদা হয়ে যায়।

বুকে ব্যথার হজম সংক্রান্ত কারণ

>> অ্যাসিড রিফ্লাক্স বা গ্যাস্ট্রোইসোফেজিয়াল রিফ্লাক্স ডিজিজ (জিইআরডি) বুকে ব্যথার আরও এক উপসর্গ। পেটের অ্যাসিড গলাকে সংযোগকারী টিউবের মধ্যে ফিরে যাওয়ার কারণে অম্বল হয়। ফলে বুক জ্বালাপোড়া ও ব্যথা হয়।

>> ডিসফ্যাগিয়া সাধারণত গলার উপরের অংশে বা খাদ্যনালির আরও নীচে থাকে। যা খাবার গিলতে কষ্টকর করে তোলে। এই সমস্যার কারণেও বুকে ব্যথা হতে পারে।

>> প্যানক্রিয়াটাইটিসের কারণেও বুকে ব্যথা হতে পারে। পেটের পেছনে অবস্থিত একটি বৃহৎ গ্রন্থি এটি। যখন এই গ্রন্থি ফুলে ওঠে তখন উপরের পেটে ব্যথা হতে পারে যা বুকেও ছড়িয়ে পড়ে।

>> পিত্তথলির পাথর বা যে কোনো প্রদাহের কারণেও বুকে ব্যথা হতে পারে।

বুকে ব্যথার শ্বাস-প্রশ্বাস সংক্রান্ত কারণ

>> পালমোনারি এমবোলিজম। যখন ফুসফুসের একটি ধমনীতে রক্ত জমাট বাঁধে ও ফুসফুসের টিস্যুতে রক্ত প্রবাহে বাধা দেয়, তখন একে পালমোনারি এমবোলিজম বলা হয়। এটি সাধারণত বুকে টানটান ভাব ও ব্যথা সৃষ্টি করে। যা হার্ট অ্যাটাকের মতো অনুভূত হয়।

>> ফুসফুসের চারপাশে থাকা ঝিল্লি ও বুকের গহ্বরের ভিতরের প্রাচীর ফুলে ওঠে তখন বুকে ব্যথার সৃষ্টি হতে পারে। কাশি বা শ্বাস নেওয়ার সময় এমন ব্যথা বেড়ে যায়।

>> পালমোনারি হাইপারটেনশনের কারণেও বুকে ব্যথা হতে পারে। এক্ষেত্রে হার্টবিট বেড়ে যায় ও বুকে একটি আঁটসাঁট অনুভূতির সৃষ্টি হতে পারে।

>> ফুসফুসের ক্যানসারের কারণে ফুসফুসে অস্বাভাবিক কোষ বেড়ে যায়। যা ফুসফুসের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়। ফুসফুসের ক্যানসার সাধারণত বুকে ব্যথার সৃষ্টি করে, যা গভীর শ্বাস বা কাশির সঙ্গে বেড়ে যায়।

বুকে ব্যথার অন্যান্য কারণ

কস্টোকন্ড্রাইটিস। যখন পাঁজরের খাঁচার তরুণাস্থি ফুলে ওঠে তখন একে কস্টোকন্ড্রাইটিস বলে। এই অবস্থার কারণে হার্ট অ্যাটাকের মতো ব্যথা হতে পারে বুকে।

>> প্যানিক অ্যাটাকের সম্মুখীন হন অনেকেই। তখন বুকে ব্যথার সঙ্গে হৃৎস্পন্দন বেড়ে যাওয়া, দ্রুত শ্বাস-প্রশ্বাস ও প্রচুর ঘাম হয়। প্যানিক অ্যাটাকের মধ্যে প্রায়ই মাথা ঘোরা, বমি বমি ভাব ও তীব্র ভয়ের অনুভূতি অন্তর্ভুক্ত থাকে।

>> বুকে আঘাত লাগার কারণেও ব্যথা হতে পারে। এক্ষেত্রেও আপনি ঘুম থেকে ওঠার সময় বুকে ব্যথা অনুভূত হতে পারে।

>> পারিবারিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত এক গবেষণাপত্রে গবেষকরা উল্লেখ করেছেন, অনেক সময়ে স্ট্রেস হরমোনের ক্ষরণ বাড়ে সকালের দিকে। এ কারণে মাঝে মধ্যে ব্যথা হতে পারে বুকে।

তবে স্ট্রেস হরমোনের অতিরিক্ত ক্ষরণ নানাভাবে শরীরের ক্ষতি করতে পারে। তাই বুকে ব্যথাকে কখনো অগ্রাহ্য করবেন না। এতে ঘটতে পারে নানা বিপদ।

সূত্র: হেলথলাইন


আরও খবর



বিকাশের ‘এএমএল-সিএফটি সপ্তাহ’ উদযাপন

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) আয়োজিত ‘বাংলাদেশে মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন প্রতিরোধে বিএফআইইউ এর ২০ বছর’ উপলক্ষে, এমএফএস খাতে মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে এবং গ্রাহকের আর্থিক নিরাপত্তা ও সচেতনতা আরো বৃদ্ধি করতে ‘এএমএল-সিএফটি সপ্তাহ’ উদযাপন করছে বিকাশ।

গতকাল (বুধবার) বিকাশের প্রধান কার্যালয়ে সপ্তাহব্যাপী এই উদযাপনের উদ্বোধন করেন বিকাশের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার কামাল কাদীর। এসময় চিফ এক্সটারনাল অ্যান্ড কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স অফিসার ও চিফ এন্টি মানি লন্ডারিং কমপ্লায়েন্স অফিসার মেজর জেনারেল শেখ মো. মনিরুল ইসলাম (অবঃ) সহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিএফআইইউ-এর নীতিমালা ও নির্দেশনাগুলো যথাযথভাবে পালন করে এএমএল-সিএফটি কমপ্লায়েন্স নিশ্চিত করে বিকাশ। ‘এএমএল-সিএফটি সপ্তাহ’ উদযাপনের আওতায় বিকাশ এই ৭ দিনে ওয়ার্কশপ, সেন্ট্রাল কমপ্লায়েন্স কমিটির মিটিং, গ্রাহক সেবা কেন্দ্রসহ এজেন্ট-ডিস্ট্রিবিউটর-মার্চেন্ট পয়েন্টে প্রচারণা ও সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

যাত্রা শুরুর সময় থেকেই বিকাশ বাংলাদেশ ব্যাংক ও সরকার প্রদত্ত সকল নীতিমালা মেনে চলে এবং কর্পোরেট সুশাসন প্রতিষ্ঠায় প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়ে থাকে। পাশাপাশি, মানি লন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ে বিএফআইইউ এর সকল নির্দেশনা যথাযথভাবে অনুসরণ করছে প্রতিষ্ঠানটি।

কোটি গ্রাহকের অর্থের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রতিটি কাস্টমার অ্যাকাউন্ট যথাযথভাবে ভেরিফাই করা হয়। এছাড়া বছরব্যাপী গ্রাহক, ডিস্ট্রিবিউশন চ্যানেল পার্টনার ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জন্য ওয়ার্কশপ ও বিভিন্ন মাধ্যমে সচেতনতামূলক প্রচারণাসহ বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে থাকে বিকাশ। শুধু তাই নয়, প্রতারণামূলক কর্মকাণ্ড ঠেকাতে এবং জরুরি সেবা নিশ্চিত করতে একটি বিভাগ ২৪ ঘণ্টাই নিয়োজিত থাকে।

কমপ্লায়েন্স নিশ্চিতকরণে বিকাশের উদ্যোগসমূহ:

কাস্টমার-ডিউ-ডিলিজেন্স (সিডিডি):

সিডিডি এর মাধ্যমে বিকাশ নিশ্চিত করে, যে ব্যক্তির জাতীয় পরিচয়পত্র তিনিই অ্যাকাউন্ট খুলছেন এবং যে তথ্য দিচ্ছেন তা নির্ভুল ও সম্পূর্ণ। বিএফআইইউ সার্কুলার ২৫ এ নির্দেশিত প্রতিটি পদক্ষেপ অনসরণ করে গ্রাহকের ই-কেওয়াইসি সম্পন্নের মাধ্যমে একাউন্ট খোলা হয়।

একটি ব্যক্তির একটি ব্যক্তিক এমএফএস অ্যাকাউন্ট:

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী, একজন ব্যক্তির কোনো এমএফএস প্রতিষ্ঠানের সাথে কেবলমাত্র একটি ব্যক্তিক অ্যাকাউন্টই চালু থাকতে পারে। এই নির্দেশনা মেনে একজন গ্রাহকের যেন একটি ব্যক্তিক বিকাশ অ্যাকাউন্ট থাকে, তা নিশ্চিত করা হয়।

স্ক্রিনিং:

মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসে অর্থায়নের ঝুঁকি মোকাবেলায় কেবল সঠিক ও সম্পূর্ণ গ্রাহক তথ্য সংগ্রহ করাই নয়, নতুন অ্যাকাউন্ট খোলার সময় জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের তালিকাভুক্ত কিংবা অন্যান্য দেশি-বিদেশি স্যাংশন তালিকায় (সন্ত্রাসীদের তালিকা) থাকা কেউ যেন অ্যাকাউন্ট খুলতে না পারে, তা নিশ্চিত করতে নিয়মিত স্ক্রিনিং প্রক্রিয়া চালু রাখে বিকাশ।

চ্যানেল পার্টনারদের মাঠ পর্যায়ের প্রতিপালন নিরীক্ষণ:

যেকোনো ধরনের সন্দেহজনক লেনদেনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গভীরভাবে লেনদেন পর্যবেক্ষণ করা হয়। প্রযুক্তির মাধ্যমে পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ে চ্যানেল পার্টনারদের কর্মকান্ড সরাসরি খেয়াল রাখার জন্য বিকাশ চালু করেছে ‘এএমএল ৩৬০’ সল্যুশন।


আরও খবর



স্বাস্থ্যে বরাদ্দ বাড়া-কমায় কিছুই যায়-আসে না: ডা. বেনজির

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

দেশের স্বাস্থ্যখাতে বাজেট বাড়ানো বা কমানোয় কিছুই যায়-আসে না বলে মন্তব্য করেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক ডা. বেনজির আহমেদ।

তিনি বলেছেন, বাজেট একটি ফিগার (সংখ্যা) মাত্র। আমরা চাইলে প্রয়োজনে এর বেশি ব্যবহারও করতে পারি। চাইলে কম ব্যবহারও করা যায়। বাজেট কম হলেও সঠিকভাবে এবং দক্ষতার সঙ্গে এটির ব্যবহার করতে পারলে তা অনেক গুরুত্ববহ হবে।

সোমবার (১৩ জুন) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগ আয়োজিত স্বাস্থ্য বাজেট ২০২২-২৩ এর বরাদ্দ এবং ব্যবহার শীর্ষক এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

jagonews24

গত বৃহস্পতিবার (৯ জুন) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার যে বাজেট জাতীয় সংসদে পেশ করেছেন, সেখানে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৩৬ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা। এ হিসাবে এ খাত প্রস্তাবিত মোট বাজেটের ৫ দশমিক ৪ শতাংশ বরাদ্দ পেয়েছে, বিদায়ী (২০২১-২২) অর্থবছরের বাজেটেও এ হার একই ছিল।

ডা. বেনজির আহমেদ বলেন, স্বাস্থ্যখাতে বাজেট বাড়ানোর যথেষ্ট সুযোগ আছে। তবে আমাদের পরিচালকদের অনেকেই এর জন্য তৈরি না। অনেকে বাজেট কী দেবে, কোথায় কত খরচ করবে সে সম্পর্কে ভালো জানেনই না। তাহলে তাদের মাধ্যমে বাজেট চাওয়া সম্ভবও হয় না।

তিনি বলেন, উপজেলাগুলোতে আমরা চিকিৎসক দিই, কিন্তু এতে ফল আসে না। দেখা যায়, আমরা ছয়জন চিকিৎসক দিলাম কিন্তু বসার জায়গা আছে তিনজনের। এক্ষেত্রে চিকিৎসকরা স্পৃহা থাকলেও সুযোগ-সুবিধার অভাবে কাজ থেকে বিরত থাকেন। চিকিৎসকদের সঠিকভাবে ব্যবহারের জন্য পর্যাপ্ত সুযোগ দিয়ে প্রয়োজনে বাড়ি বাড়া, মোটরসাইকেল দিয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিলে তাদের মাধ্যমে ভালো সেবা পাওয়া যাবে।

২০২১-২২ অর্থবছরে সংশোধিত মূল বাজেটের আকার ছিল ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। সেখানে স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ দেওয়া হয় ৩২ হাজার ২৭৪ কোটি টাকা। সে হিসাবে নতুন অর্থবছরে টাকার অংকে এ খাতে বরাদ্দ বেড়েছে ৪ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা, যা আগের অর্থবছরের চেয়ে ১৪ দশমিক ২১ শতাংশ বেশি।

jagonews24

ডা. বেনজির বলেন, স্বাস্থ্যখাতে বিনিয়োগ হচ্ছে সবচেয়ে ভালো বিনিয়োগ। যেখানে ১ টাকা বিনিয়োগ করলে ১৮ টাকা লাভ হয়। কিন্তু শুধু বাজেট বাড়ালে তো হবে না। এ খাতে বাজেট বাড়াতে হলে প্রস্তুতিও বাড়াতে হবে। সামনে পঞ্চবার্ষিক বাজেট। এখন রাত-দিন এ বাজেট নিয়ে কাজ করা উচিৎ। স্বাস্থ্য বাজেটের শিক্ষক এবং সংশ্লিষ্টদের নিয়ে গবেষণা করে একটা বাজেট দিলে তা আগামী ১০ বছরের মধ্যে বড় সুফল দেবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান ড. রাশেদ আল মাহমুদ তিতুমীর বলেন, আমার এমন একজন চিকিৎসক দরকার, যিনি আমার ইতিহাস রাখবেন। তিনি আমাকে বলবেন আমাকে কোথায় যেতে হবে। আমাদের স্বাস্থ্যসেবায় এত বড় বড় কিছু চাওয়ার নেই। তবে সাধারণ মানুষের চিকিৎসাসেবাটা ভালোভাবে পাওয়া দরকার।

স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ড. শারমীন মোবিন ভুঁইয়া বলেন, বাজেটে আমাদের যেটুকু বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে তা আমরা যথাযথভাবে ব্যবহার করতে পারছি কি না, এটাই বড় প্রশ্ন। এমনিতেও আমরা সীমিত সম্পদের দেশ। স্বাস্থ্যখাতে এতো ব্যয় করেও মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে পারছি না আমরা।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ আবদুল হামিদ, অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. রুমানা হক এবং ওই বিভাগের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

স্বাস্থ্যখাত যেন আরও শক্তিশালী হয়, বাজেটে সে বিষয়ের প্রতিফলন হয়েছে জানিয়ে গত ১০ জুন এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, স্বাস্থ্যে ব্যাপক জোর দেওয়া হয়েছে। তাতে আমরা ‘খুবই খুশি’। তবে সন্তুষ্টির তো শেষ নাই, এটা একটা চলমান প্রক্রিয়া।


আরও খবর



পটুয়াখালীতে ভোটকেন্দ্রে তিনজনকে জরিমানা

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২২ June 20২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

পটুয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে এ পর্যন্ত তিনজনকে অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে। বুধবার (১৫ জুন) সকালে কলাপাড়া উপজেলার লতাচাপলি ইউনিয়নে দুজন এবং সদর উপজেলার কালিকাপুরে একজনকে জরিমানা করা হয়।

জেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্র জানায়, কলাপাড়া উপজেলার লতাচাপলি ইউনিয়নের খাজুরা আশ্রয়ন ভোটকেন্দ্রে অনধিকার প্রবেশের দায়ে দুই বহিরাগতকে ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

অপরদিকে পটুয়াখালী সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের ডিবুয়াপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রে মোটরসাইকেল নিয়ে প্রবেশের দায়ে রাফসান (২২) নামের এক যুবককে এক হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

তবে সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এই নির্বাচনে কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। সকাল থেকে বিভিন্ন ভোটকেন্দ্র পরিদর্শন করেন বরিশাল রেঞ্জের ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামাল হোসেন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ্ সহ নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।


আরও খবর



পিএইচডি ডিগ্রি পেলেন ডা. মামুন আল মাহতাব

প্রকাশিত:Friday ০৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল) সম্প্রতি মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি অব মালায়া থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন। হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের নতুন ওষুধ ন্যাসভ্যাক ও হেপাটাইটিস বি ভাইরাসজনিত লিভার রোগ বিষয়ে মৌলিক গবেষণার জন্য তাকে পিএইচডি ডিগ্রি দেওয়া হয়। অধ্যাপক স্বপ্নীল হেপাটাইটিস বি ভাইরাসের থেরাপিউটিক ভ্যাকসিন ন্যাসভ্যাকের ফেইজ ১, ২ ও ৩ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রধান গবেষক হিসাবে কাজ করেছেন।

তার গবেষণালব্ধ ফলাফলের ভিত্তিতে ওষুধটি এরই মধ্যে কিউবাসহ একাধিক দেশে রেজিস্ট্রেশন পেয়েছে এবং বাংলাদেশেও ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর ওষুধটির রেসিপি অনুমোদন করেছে। অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশে উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট বঙ্গভ্যাক্সের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালেরও প্রধান গবেষক।

উল্লেখ্য অধ্যাপক স্বপ্নীল ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে ১৯৯৫ সালে এম.বি.বি.এস, ১৯৯৮ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্যাস্ট্রো এন্টারোলজিতে এম.এস.সি. এবং ২০০৬ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে হেপাটোলজিতে এম.ডি. ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ইন্ডিয়ান কলেজ অব ফিজিসিয়ানস, রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অব আয়ারল্যান্ড ও রয়েল কলেজ অব ফিজিশিয়ানস অব লন্ডনের ফেলো।

অধ্যাপক স্বপ্নীল বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারভেনশনাল হেপাটোলজি ডিভিশনের প্রধান হিসাবে কর্মরত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের হেপাটোলজি বিভাগের সদ্য-সাবেক চেয়ারম্যান। পাশাপাশি তিনি জাপানের এহিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি ও মেটাবোলজি বিভাগের ভিজিটিং অধ্যাপক এবং ভারতের অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অব মেডিকেল সাইন্সেস, ঋষিকেশের গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি বিভাগের বোর্ড অব স্টাডিজের সদস্য।

তিনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় অঞ্চলের ভাইরাল হেপাটাইটিস, এইচআইভি-এইডস, এসটিআই সংক্রান্ত স্ট্র্যাটেজিক এন্ড টেকনিক্যাল অ্যাডভাইজারি গ্রুপেরও অন্যতম সদস্য। বিভিন্ন দেশি-বিদেশি জার্নালে অধ্যাপক স্বপ্নীলের ৩০০টির বেশি গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। তিনি লিভার বিষয়ক ৫টি টেক্সট বই সম্পাদনা করেছেন যার প্রতিটি বিভিন্ন খ্যাতনামা আন্তর্জাতিক মেডিকেল প্রকাশনা সংস্থা প্রকাশ করেছে।

এগুলো হচ্ছে ‘লিভার: এ কমপ্লিট বুক অব হেপাটো-প্যানক্রিয়াটো-বিলিয়ারী ডিজিজেজ: প্রকাশক: এলসেভিয়ের, প্রকাশকাল: ২০০৯), ‘কম্প্রিহেনসিভ টেক্সট বুক অব হেপাটাইটিস বি’, ‘টেক্সট বুক অব হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি’ ও ‘হেপাটোগ্যাস্ট্রোএন্টারোলজি প্রেসক্রাইবার’ (প্রকাশক: জেপি ব্রাদার্স, প্রকাশকাল যথাক্রমে: ২০১০, ২০১৫ ও ২০১৬) এবং ‘ফ্যাটি লিভার ডিজিজ’ (প্রকাশক: ম্যাকমিলান পাবলিশার্স, প্রকাশকাল: ২০১২)।

অধ্যাপক স্বপ্নীল ২০১৩ সালে আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্যা স্টাডি অব দ্যা লিভারের ‘প্রেসিডেন্সিয়াল ডিস্টিংশন’ অর্জন করেন আর ২০১৪ সালে ইউরোএশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন থেকে ‘অর্ডার অব মেরিট’-এ ভুষিত হন। ভারতের কলিঙ্গ গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল ফাউন্ডেশন তাকে ২০১৫ সালে সম্মানসূচক ‘ব্লুমবার্গ ওরেশন’ দেয়।

২০১৭ সালের ‘হুজ হু’-তে তার জীবনী অন্তর্ভুক্ত হয়েছে। তিনি ২০১৮-তে মার্কুইস হুজ হু কর্তৃক ‘এলবার্ট নেলসন মার্কুইস লাইফ টাইম এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ এ ভূষিত হন। অধ্যাপক স্বপ্নীলের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ অর্জন দুটি হচ্ছে কিউবান একাডেমি অব সাইন্সেস কর্তৃক ন্যাসভ্যাক উদ্ভাবনের জন্য ২০১৯-সালে যৌথভাবে ‘প্রিমিও ন্যাশনাল’ পদক এবং বাংলাদেশ একাডেমি অব সাইন্সেস কর্তৃক ‘বাস গোল্ড মেডেল অ্যাওয়ার্ড ২০২১’ লাভ।

কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিকে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় অধ্যাপক স্বপ্নীল ওয়ালটন গ্রুপ থেকে ‘হেলথকেয়ার হিরোজ অ্যাওয়ার্ড ২০২০’, বাংলাদেশ-আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স থেকে ‘গ্লোবাল বিজনেস সিএসআর অ্যাওয়ার্ড ২০২১’, ওয়ার্ল্ড অরগানাইজেশন অব ফ্যামিলি ফিজিশিয়ানস থেকে ‘গ্লোবাল হেলথকেয়ার লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড ২০২১’, রোটারি ইন্টারন্যাশনাল থেকে ‘কোভিড-১৯ হিরো’ এবং নারীকণ্ঠ ফাউন্ডেশন থেকে ‘কোভিড হিরো’ অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হন।

বাংলাদেশের লিভার বিশেষজ্ঞদের জাতীয় সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব লিভার ডিজিজেজ বাংলাদেশের তিনি পরপর সাতবার নির্বাচিত জেনারেল সেক্রেটারি, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হেপাটোলজি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং ফোরাম ফর দ্য স্টাডি অব দ্য লিভারের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

পাশাপাশি তিনি ইউরো এশিয়ান গ্যাস্ট্রোএন্টারোলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট, সাউথ এশিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব দ্য লিভারের সাধারণ সম্পাদক, এশিয়ান প্যাসিফিক অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য স্টাডি অব দ্যা লিভারের কার্যকরী সদস্য এবং ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল অ্যাসোসিয়েশন ফর স্টাডি অব দ্যা লিভারের ইন্টারন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর।

অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশ স্টেম সেল অ্যান্ড রিজেনারেটিভ মেডিসিন সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। তিনি ইন্টার-একাডেমি পার্টনারশিপের রিজেনারেটিভ মেডিসিন সংক্রান্ত ওয়ার্কিং পার্টির সারা বিশ্ব থেকে নির্বাচিত ১২ জন সদস্যের অন্যতম।

অধ্যাপক স্বপ্নীল বাংলাদেশে লিভার ক্যান্সার চিকিৎসায় সর্বাধুনিক পদ্ধতি ট্রান্স-আর্টারিয়াল কেমো-অ্যাম্বোলাইজেশন (টেইস)-এর পুরোধা।

পাশাপাশি তিনি লিভার ফেইলিওরে অটোলোগাস হেমোপয়েটিক স্টেমসেল ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন, প্লাজমা এক্সচেঞ্জ ও লিভার ডায়ালাইসিসেরও পথিকৃত অধ্যাপক স্বপ্নীল ১৯৭০ সালে সিলেট শহরের কালিঘাটে একটি সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা মরহুম ইঞ্জিনিয়ার মাহতাব উদ্দিন আহমেদ সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী ছিলেন।


আরও খবর