Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

দুই জঙ্গিকে ধরিয়ে দিলে ২০ লাখ টাকা পুরস্কার

প্রকাশিত:রবিবার ২০ নভেম্বর ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৪৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক; আদালত থেকে পালিয়ে যাওয়া দুই জঙ্গি সদস্যকে ধরিয়ে দিলে প্রত্যেকের জন্য ১০ লাখ টাকা করে ২০ লাখ টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুলিশের জনসংযোগ কর্মকর্তা কামরুল আহছান।

আজ দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটের দিকে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের প্রধান ফটকের সামনে থেকে মোটরসাইকেলে করে এসে দুই আসামিকে ছিনিয়ে নেয় জঙ্গিরা। সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালে হাজির করে হাজতখানায় নেওয়ার সময় চার আসামির মধ্যে দুইজনকে ছিনিয়ে নেওয়া হয়।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের প্রধান ও অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেন, ‘আমরা শুনেছি আদালতের গেটে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যদের চোখে স্প্রে করে দুই জঙ্গিকে ছিনিয়ে নিয়েছে অপর জঙ্গিরা। চারজন জঙ্গি মোটরসাইকেল করে আদালতে এসে দুই জনকে ছিনিয়ে নেয়। কিন্তু চোখে স্প্রে করার কারণে দায়িত্বরতরা কিছু দেখতে পারেনি। ঘটনার পরপর আমরা ঢাকা শহরের বিভিন্ন জায়গায় চেকপোস্ট বসিয়েছি। আমাদের ডিবির সব টিম কাজ করছে। আশা করছি, দ্রুত তাদের পুনরায় গ্রেপ্তার করতে পারব।

আসামিরা হলেন- সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার মাধবপুরের মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত সামির ও লালমনিরহাটের আদিতমারি উপজেলার ভেটেশ্বর গ্রামের আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব। তারা জঙ্গি সংগঠন আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য। তারা দুজনই জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সাল আরেফিন দীপন ও ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি।


আরও খবর



বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আম বয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু হয়েছে গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগতীরে। আজ শুক্রবার বাদ ফজর মাওলানা ইলিয়াস বিন সাদ আম বয়ান করেন। তাৎক্ষণিকভাবে তা বাংলা তরজমা করে মাওলানা মনির বিন ইউসুফ।

সকাল ১০টায় ভারতের মাওলানা ইলিয়াস তালিমের মৌজু, জুমার আগে জুমার ফাজায়েলের ওপর ১০ মিনিট বয়ান করবেন মাওলানা মনির বিন ইউসুফ। জুমার পরে বয়ান করবেন শেখ মোফলে (আরবি), তাৎক্ষণিকভাবে তা বাংলায় তরজমা করবেন মাওলানা শেখ আব্দুল্লাহ্ মনসুর, আসরের পর বয়ান করবেন মাওলানা মোশাররফ, মাগরিবের পর বয়ান করবেন ভারতের মাওলানা ইউসুফ বিন সাদ, তাৎক্ষণিকভাবে তা বাংলায় তরজমা করবেন মাওলানা জিয়া বিন কাশেম।

বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বের মিডিয়া সমন্বয়ক মোহাম্মদ সায়েম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এবারের ইজতেমায় ভারতের দিল্লি মারকাজের মাওলানা সা’দ কান্ধলভী না এলেও এসেছেন তার তিন ছেলে। গত বুধবার মাওলানা সা’দ কান্ধলভীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ, মেজো ছেলে মাওলানা সাঈদ ও ছোট ছেলে মাওলানা ইলিয়াসসহ ভারতের নিজামউদ্দিন মারকাজের ১৪জনের একটি দল গত বুধবার সন্ধ্যায় টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে পৌঁছান।

এদিকে টঙ্গীর তুরাগ তীরের ময়দানে অবস্থান নেওয়া মুসল্লিদের উদ্দেশে গতকাল বৃহস্পতিবার বাদ ফজর থেকে বয়ান শুরু করেন মুরুব্বিরা।

বিশ্ব ইজতেমার মিডিয়া সমন্বয়ক মোহাম্মদ সায়েম জানান, টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমার এবারের দ্বিতীয় পর্বে ১২ থেকে ১৪ হাজার বিদেশি মেহমান যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। এরই মধ্যে প্রায় তিন হাজারের বেশি বিদেশি মেহমান এবং দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখো মানুষ টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে এসে পৌঁছেছেন।

আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে প্রথম পর্ব শেষ হয় গত ৪ ফেব্রুয়ারি ।


আরও খবর



পত্নীতলায় প্রিজাইডিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬২জন দেখেছেন

Image

পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:পত্নীতলায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদের ৪৭, নওগাঁ-২ আসনে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার এর আয়োজনে উপজেলার সকল প্রিজাইডিং অফিসার ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারদের রিফ্রেসার্স প্রশিক্ষণ কোর্স শুক্রবার বিকেলে নজিপুর জেলা পরিষদ অডিটেরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার টুকটুক তালুকদার এর সঞ্চালনায় এবং নওগাঁ জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং অফিসার গোলাম মওলা এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশন সচিবালয় সচিব জাহাংগীর আলম। বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন আঞ্চলকি নির্বাচন কর্মকর্তা, রাজশাহীর দেলোয়ার হোসেন, নওগাঁ পুলিশ সুপার মুহাম্মদ রাশিদুল হক। 

এসময় উপস্থিত ছিলেন নওগাঁ জেলা নির্বাচন অফিসার তারিফুজ্জামান, পত্নীতলা সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল মমীন, পত্নীতলা নির্বাচন অফিসার জাহিদুর রহমান সহ অন্যান্য কর্মকর্তা ও সকল প্রিজাইডিং অফিসার ও সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার, সুধীজন প্রমুখ।

উল্লেখ্য গত ৭ই জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও ৪৭, নওগাঁ-২ (পত্নীতলা-ধামইরহাট) আসনের একজন প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল হক মারা গেলে এই আসনের নির্বাচন স্থগিত হয় এবং পুনঃ তফসিল ঘোষণার পর আগামী ১২ই ফেব্রুয়ারি ২০২৪ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আরও খবর



আত্রাইয়ে অধিক পরিমাণ জমিতে ভুট্টা চাষ: বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৮জন দেখেছেন

Image

নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি: আবহাওয়া অনুক’লে থাকায় দেশের উত্তর জনপদের ধানের রাজ্য হিসেবে খ্যাত নওগাঁর আত্রাইয়ে এবার চলতি মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক পরিমাণ জমিতে ভুট্টা চাষ করা হয়েছে। ভুট্টার বাম্পার ফলনের আশাবাদী কৃষকরা। অনুকুল আবহাওয়া ও আধুনিক কৃষি প্রযুক্তিতে কৃষকদের আগ্রহ সৃষ্টি হওয়ায় স্বল্প খরচে যথাসময়ে কৃষকরা এবার ভুট্টার বাম্পার ফলন পাবে বলে অভিজ্ঞ মহল ধারণা করছেন।

উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবারে উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৪ হাজার ৬শত ৪০ হেক্টর জমিতে ভুট্টার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। গত বছরের তুলনায় এবার ভুট্টা চাষে উপজেলার কৃষকরা বেশি ঝুঁকে পড়ছে। ভুট্টা চাষে খরচ কম অথচ ফলন ও দাম বেশি পাওয়ায় কৃষকদের মধ্যে ভুট্টা চাষের আগ্রহ বেশি পরিলক্ষিত হচ্ছে। ভালো ফলনের আশায় উপজেলার কৃষকেরা রাতদিন পরিশ্রম করে যাচ্ছে। কৃষকের পাশাপাশি বসে নেই কৃষি কর্মকর্তারাও। উপজেলার শাহাগোলা, ভোঁপাড়া, কালিকাপুর, মনিয়ারী ও আহসানগঞ্জ ইউনিয়নে সবচেয়ে বেশি ভুট্টা চাষ হয়েছে বলে কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে।

উপজেলার রসুলপুর গ্রামের কৃষক আবুল কালাম আজাদ বলেন, এলাকার যেসব জমিতে পূর্বে বোরোচাষ করা হত সেসব জমির অনেক গুলোতেই আমারা এবার ভুট্টা চাষ করছি। বোরোচাষে উৎপাদন খরচ অনেক বেশি অথচ যখন ধান কাটা মাড়াই শুরু হয় তখন ধানের বাজারে ধস নামে। ফলে অনেক ক্ষেত্রে উৎপাদন খরচই উঠেনা। কিšুÍ ভুট্টার উৎপাদন খরচ যেমন কম দামও তেমন বেশি থাকে। এ জন্য আমরা ভুট্টা চাষে এবার ঝুঁকে পড়েছি।

উপজেলার চৌবাড়ি গ্রামের কৃষক রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের এলাকা আলু চাষের জন্য দীর্ঘদিন থেকে বিখ্যাত। উপজেলার সিংহভাগ আলু আমাদের এলাকায় উৎপন্ন হয়ে থাকে। মৌসুমের শেষদিকে আলুর দাম বাড়লেও এর মুনাফা কৃষকরা পায়নি। মুনাফা পেয়েছে মজুদদাররা। তাই এবার ভুট্টা চাষ করছি। আশা করি ফলনও বাম্পার হবে।তবে ন্যায্য দাম পেলে কষ্ট সার্থক হবে।

উপজেলার শাহাগোলা ইউনিয়নের তারাটিয়া ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহিদ হাসান জনান, এবার গত বছরের তুলনায় আমাদের এলাকায় ভুট্টার আবাদ অনেক বেশি হয়েছে। আশা করছি ভুট্টার বাম্পার ফলন হবে। কৃষি অফিসের পক্ষ থেকে আমরা নিয়োমিত কৃষকদের পর্যবেক্ষণ ও পরামর্শ দিয়ে আসছি।

উপজেলার ভবানীপুর ব্লকের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মার্জিয়া পারভিন বলেন, এলাকার কৃষকরা যাতে ভুট্টা যথাযথভাবে উৎপাদন করতে পারে এবং স্বল্প খরচে উচ্চ ফলনশীল ভুট্টা উৎপাদন করতে পারে এ জন্য আমরা প্রতিনিয়ত কৃষকদের নিকট গিয়ে পরামর্শ প্রদান করছি। বিভিন্ন রোগবালাই থেকে ভুট্টাকে মুক্ত রাখতেও পরিমিত পরিমান ঔষধ প্রয়োগের পরামর্শ দিয়ে থাকি।

এবিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তাপশ কুমার রায় জানান, সকল প্রকার ফসল উৎপাদনে আমরা কৃষকদের আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করছি। যাতে করে কৃষকরা সহজভাবে কৃষি উপকরণ পায়। বিশেষকরে বীজ, সার ও তেল এর জন্য সার্বক্ষণিক মনিটরিং করছি। এবার ভুট্টার ফলন ভালো হয়েছে এবং বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।


আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণে সাংবাদিকদের দাবির সাথে সরকার একমত: তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ  রিপোর্টার : সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণে সাংবাদিকদের দাবির সাথে সরকার একমত বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।
 
বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর শাহবাগে বিসিএস প্রশাসন একাডেমি মিলনায়তনে 'স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে গণমাধ্যমের ভূমিকা' শীর্ষক কর্মশালার প্যানেল আলোচনা পর্বে অংশ নিয়ে প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

বিসিএস প্রশাসন একাডেমির সহযোগিতায় জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এ কর্মশালা আয়োজন করে। বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরামের সদস্যগণ কর্মশালায় অংশগ্রহণ করেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী এবং তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার প্যানেল আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন। প্যানেল আলোচনা পর্বে মডারেটর ছিলেন বিসিএস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর (সচিব) ড. মো. ওমর ফারুক।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, সাংবাদিকদের দাবি অনুযায়ী সাংবাদিকতার যোগ্যতা নির্ধারণের কিছু একটা থাকা দরকার।  সরকার যখনই এটা বলবে তখনই বলা হবে সরকার নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে। এজন্য এ বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদেরই আওয়াজ তুলতে হবে। দেশে ও বিদেশের সব জায়গায় এ বিষয়ে লিখতে হবে। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে আপনাদের এ বক্তব্য তুলে ধরতে হবে যে এটা আপনারাই চান। সরকার সাংবাদিকদের দাবির সাথে একমত। সরকারের এ বিষয়ে কোনো অসুবিধা নেই। সরকার বিষয়টির সমাধান করবে।

তিনি এ সময় আরও জানান, সকল পেশাদার সাংবাদিকদের দাবি, সাংবাদিকদের একটা সংজ্ঞা নির্ধারণ করা হোক, একটা পরীক্ষার ব্যবস্থা থাকুক, একটা সংজ্ঞায়ন থাকুক কে সাংবাদিক, কে সাংবাদিক না। সাংবাদিকরাই বলছেন সাংবাদিকদের তালিকা থাকা উচিত। কেন বলছেন, কারণ অনেক অপেশাদার ঢুকে পড়েছে এ কমিউনিটিতে। যার দ্বারা সাংবাদিকরাই সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। কিন্তু যখনই সরকার বলবে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে, তখন আবার আরেক গোষ্ঠী বলে তালিকা কেন তৈরি হবে সাংবাদিকদের। 

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, অপতথ্যের বিপক্ষে তথ্যের লড়াইটা খুব জরুরি। তথ্য এবং অপতথ্যের লড়াই এখনও চলছে। প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অপতথ্য রোধে সাংবাদিকদের ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে।

তিনি যোগ করেন, মুক্তিযুদ্ধের শক্তি বিভিন্ন সময়ে আক্রান্ত হয়েছে অপপ্রচার ও মিথ্যাচার দ্বারা। যেখানে সত্য থেমে যায়, সেখানে অসত্য ও মিথ্যাচার জায়গা করে নেয়। 

সাইবার নিরাপত্তা আইন প্রসঙ্গে এ সময় প্রতিমন্ত্রী বলেন, শুধু সাইবার নিরাপত্তা আইনই নয়, যে কোন আইনের অপব্যবহারের বিপক্ষে সবাই মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের দাঁড়াতে হবে। সরকার মোটেও চায় না কোন আইনের অপব্যবহারের মাধ্যমে নির্দোষ ব্যক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হোক।

আরও খবর



আশায় আশায় ৫৩ বছর অতিবাহিত হলেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি এঅঞ্চলে

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬১জন দেখেছেন

Image

রৌমারী কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:অবৈধ বেগুর দাপটে নষ্ট হচ্ছে ফসলের জমি বেগুর মাটি অবৈধ কাকরায় ভাটায় নিতে খয়ে যাচ্ছে গ্রামীণ রাস্তা অভিযোগেও কোন কাজ হচ্ছে না দেশের উত্তরাঞ্চলীয় কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার যাদুরচর ইউনিয়নের সীমান্তঘেষা অঞ্চলটিতে ৫৩ বছরেও উন্নয়ন হয়নি ফলে বিঘ্নিত হচ্ছে এঅঞ্চলের উন্নয়ন। উন্নয়ন না হওয়ার ফলে অন্ধকারে জীবনযাপন করছেন অবহেলিত অঞ্চলের প্রায় পনেরো হাজার মানুষ। যোগাযোগ বিছিন্নতার কারণে এঅঞ্চলের ছেলে, মেয়েকে বিয়ে সাদি দিতেও বিপাকে পড়তে হয় অভিভাবকদের।কারণ এসব রাস্তায় একবার যাওয়া আশা করলে পায়ের ধুলোবালি মাথায় গিয়ে ভাষা বাদে এমন বিঘ্ন দশায় এসব এলাকায় বিয়ে করে কোন শালায়।

যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় ফসলের ন্যায্য মূল্য থেকেও বঞ্চিত সীমান্ত অঞ্চলের কৃষির উপর নির্ভরশীল কৃষকরা।যোগাযোগ বিছিন্ন এলাকার সরেজমিন ঘুরে এলাকার বৃদ্ধদের বরাত দিয়ে জানা গেছে এক মন ধান হাটবাজারে বিক্রয় করতে কেয়ারিং খরচা হয় একশোত টাকা। আর যদি যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকতো তাহলে কেয়ারিং খরচ হতো  ২০ টাকা। আর সেখানে প্রতি মনে কেয়ারিং খরচ গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত ৮০ টাকা।অপরদিকে হাটবাজারে কোন কাজে যেতে হলে  পায়ে  হেটে যেতে হয় প্রায় ৮ কিলোমিটার ধুলোবালি রাস্তার উপর দিয়ে। এমন বিঘ্নদশায় জীবনযাপন করছেন প্রায় পনেরো হাজার মানুষ।

অটো ভ্যানে কোন ফসল হাটবাজারে নিতে হলে ৩-৪ জন মানুষের  ধাক্কাধাক্কি করে  পাকারাস্তায় পৌছাতে হয়।এদিকে হাটবাজারে যেতে হলে মানুষ একটু হলেও স্বাভাবিক পোষাক পড়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সেখানে দেখা গেছে পায়ের ধুলা মাথায় উঠে পরিবেশ কি জিনিস এঅঞ্চলের মানুষ ঠিকমতো রাখতে পারছেনা।

কাচা মাঠির রাস্তার এপাশ ওপাশে  অবৈধ ইটভাটা, এসব ইটভাটায় ফসলি জমির মাটি বেগুতে কেটে কাকরা  যোগে ভাটায় পৌছাতে রাস্তার অবস্থা খানাখন্দে চলাচলে অযোগ্য হয়ে পড়েছে। 
এলাকাবাসীরা সরকারের কাছে জোর দাবী জানিয়েছেন অবৈধ লড়ি কাকরার দাপটে গ্রামীণ অবকাঠামো যোগা খিচুড়িতে পরিনত হয়েছে এগুলো বন্দ করতে হবে। সায়দাবাদ  মহাসড়ক হইতে ভায়া বেকরিবিল হয়ে খেওয়ারচর বাজার পেরিয়ে, সীমান্ত ঘেঁষা আলগারচর ডিঙ্গিয়ে, লাঠিয়াল ডাঙ্গার উপর দিয়ে বালিয়ামারী খেওয়া ঘাট পর্যন্ত প্রায় আট কিলোমিটার কাচা রাস্তায় একটি ইটের খোয়াও পড়েনি। যার ফলে শুস্ক মৌসুমে ধুলাবালিতে অন্ধকার হয়ে থাকে। বৃষ্টি হলে হাটু পর্যন্ত কাদায় পরিনত হয়ে যায়। অপরদিকে বালিয়ামারী পাকারাস্তার মোর হইতে চর লাঠিয়াল ডাঙ্গা হয়ে সায়দাবাদ পর্যন্ত প্রায় ছয় কিলোমিটার কাচা মাটির রাস্তা চলাকালে অনুপযোগী হয়ে মানুষের যাতায়াতে ব্যাপক বিঘ্ন ঘটেছে। এসব এলাকার উন্নয়ন চাইলে টেকসই উন্নয়ন করতে হবে তাহলে যদি এই এলাকার উন্নয়ন হয়। 

আরও খবর