Logo
আজঃ Monday ২৭ June ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা নাসিরনগরে মুক্তিযোদ্বাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন পদ্মা সেতু দেখানোর কথা বলে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ জুরাইনে পাশের বাড়ির উপড় ধসে পড়েছে সেই ঝুকিপুর্ন ভবনটি

ডোমার পৌর নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মনছুরুল ইসলাম দানু নির্বাচিত

প্রকাশিত:Tuesday ০২ November 2০২1 | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪১৪জন দেখেছেন
Image


 

মনিরুজ্জামান লেবু , নীলফামারী :

 

 

নীলফামারীর ডোমার পৌরসভায় প্রথমবারের মতো ইভিএম’এ অনুষ্ঠিত নির্বাচনের বেসরকারীভাবে ফলাফল ঘোষনা করা হয়েছে। মেয়র পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী নারিকেল গাছ প্রতীকের মনছুরুল ইসলাম দানু ৪ হাজার ৫৩৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।

 

তিনি টানা ৩য়বারের মতো মেয়র নির্বাচিত হলেন। এর আগে ডোমার ইউনিয়ন পরিষদে টানা ৫বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। 

 

অপর স্বতন্ত্র প্রার্থী মোবাইল ফোন প্রতীকের আফরোজা নাজনীন রুমি ৩ হাজার ৬৭৪ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন। তবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী গনেশ কুমার আগরওয়ালা পেয়েছেন ২ হাজার ৩২৫ ভোট। 

 

মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত শান্তিপূর্নভাবে ৯টি কেন্দ্রের ৫১টি বুথে ভোটাররা আনন্দঘন পরিবেশে তাদের ভোটাধীকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনকালীন সময়ে কোন কেন্দ্রে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং অফিসার মোহাম্ম জাহাঙ্গীর হোসেন।

 

 খবর প্রতিদিন/ সি.বা

 


আরও খবর



মে মাসে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৬৪১

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

মে মাসে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৫২৮টি। এতে নিহত হয়েছেন ৬৪১ জন এবং আহত হয়েছেন ১৩৬৪ জন। নিহতদের মধ্যে নারী ৮৪ জন শিশু ৯৭ জন। এর মাঝে ২৪৭টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ২৭৯ জন যা মোট নিহতের ৪৩.৫২ শতাংশ।

দুর্ঘটনায় ১১৯ জন পথচারী নিহত হয়েছেন, যা মোট নিহতের ১৮.৫৬ শতাংশ। যানবাহনের চালক ও সহকারী নিহত হয়েছেন ৯১ জন, অর্থাৎ ১৪.১৯ শতাংশ।

এ সময়ে ৭টি নৌ দুর্ঘটনায় ৪ জন নিহত হয়েছেন এবং ২ জন নিখোঁজ রয়েছেন। ১৩টি রেল দুর্ঘটনায় ১৭ জন নিহত এবং ৩ জন আহত হয়েছেন।

সোমবার (৬ জুন) রোড সেফটি ফাউন্ডেশন ৯টি জাতীয় দৈনিক, ৭টি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেক্ট্রনিক গণমাধ্যমের তথ্যের ভিত্তিতে তৈরি করা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, মোটরসাইকেলচালক ও আরোহী ২৭৯ জন (৪৩.৫২%), বাসের যাত্রী ৫৭ জন (৮.৮৯%), ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ-ট্রাক্টর-ট্রলি-ক্রেনগাড়ি আরোহী ৩৯ জন (৬.০৮%), মাইক্রোবাস-প্রাইভেটকার-অ্যাম্বুলেন্স-পুলিশ জীপের যাত্রী ২৩ জন (৩.৫৮%), থ্রি-হুইলারের যাত্রী (ইজিবাইক-অটোরিকশা-অটোভ্যান-টেম্পু-লেগুনা) ৯৪ জন (১৪.৬৬%), স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-মাহিন্দ্র-টমটম) ১৩ জন (২.০২%) এবং বাইসাইকেল-প্যাডেল রিকশা-প্যাডেল ভ্যানের ১৭ আরোহী (২.৬৫%) নিহত হয়েছে।

দুর্ঘটনার বিভাগভিত্তিক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ঢাকা বিভাগে দুর্ঘটনা ২৪.০৫%, প্রাণহানি ২৪.৮০%; রাজশাহী বিভাগে দুর্ঘটনা ১৬.০৯%, প্রাণহানি ১৮.০৯%; চট্টগ্রাম বিভাগে দুর্ঘটনা ২১.৭৮%, প্রাণহানি ২০.১২%; খুলনা বিভাগে দুর্ঘটনা ১২.৫%, প্রাণহানি ১১.৭০%; বরিশাল বিভাগে দুর্ঘটনা ৭.৯৫%, প্রাণহানি ৮.৭৩%; সিলেট বিভাগে দুর্ঘটনা ৪.১৬%, প্রাণহানি ৩.৫৮%; রংপুর বিভাগে দুর্ঘটনা ৭.৫৭%, প্রাণহানি ৭.৮০% এবং ময়মনসিংহ বিভাগে দুর্ঘটনা ৫.৮৭% ও প্রাণহানি ৫.১৪% ঘটেছে।

ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ১২৭টি দুর্ঘটনায় ১৫৯ জন নিহত হয়েছে। সিলেট বিভাগে সবচেয়ে কম, ২২টি দুর্ঘটনায় ২৩ জন নিহত হয়েছে।


আরও খবর



বরগুনায় একদিনে চার মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৪ June ২০২২ | ৭৭জন দেখেছেন
Image

বরগুনায় একদিনে ৪টি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে দুজনের বিষপানে মৃত্যু হয় এবং অপর দুজনকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাছান শনিবার (৪ জুন) রাতে বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

বিষপানে নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের আবদুর রহিম হাওলাদারের ছেলে জুনায়েদ হাসান (১৮) ও বেতাগী উপজেলার পৌর শহরের মো. হেমায়েত মিয়ার ছেলে মো. মিরাজ (৩০)।

এছাড়া ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া নিহতেরা হলেন- বেতাগী উপজেলার চান্দখালী এলাকার মিরাজ শিকদারের স্ত্রী সাথী আক্তার লিমা (২৮) ও বরিশালের আগরপুরের মৃত লতিফ শিকদারের ছেলে আইনের শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম (২৫)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে প্রত্যেকেই আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাছান জাগো নিউজকে বলেন, চারটি মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্বজনদের লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



বিএনপি ঠিকমতো বাজেট পড়েওনি: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

বিএনপি বাজেট না পড়েই বিবৃতি দিয়ে দেয় বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, বিএনপি ঠিকমতো বাজেট পড়েওনি। আগের দিনই বাজেট প্রতিক্রিয়ার বিবৃতি লিখে রাখে তারা।

রোববার (১২ জুন) দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে ‘শেখ হাসিনা ও ঘুরে দাঁড়ানোর বাংলাদেশ’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, কিছু চিহ্নিত ব্যক্তিবিশেষ ও সংগঠন প্রশংসা না করলেও বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ ও জাতিসংঘ প্রশংসা করে। আমাদের এই ব্যক্তিবিশেষরা প্রশংসা করতে পারে না। এটা তাদের চিন্তার দৈন্যতা।

প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার টানা ১৪তম বাজেট পেশ করেছে। এর আগে ১৩টি বাজেট পেশ করেছে। যখনই বাজেট পেশ করা হয় তখনই বিএনপি, কিছু চেনা মুখ, কিছু চেনা সংগঠন, অর্থনীতিবিদ বলে যারা নিজেদের পরিচয় দেন, তারা সবসময় বাজেট নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে এই গত সাড়ে ১৩ বছরে বাংলাদেশের বাজেটের আকার ৮ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা যে বাজেট পেয়েছিলাম সেটি ৮০ হাজার কোটি টাকার কম ছিল। বর্তমানে সে বাজেট গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা।

তিনি বলেন, গত সাড়ে ১৩ বছরে মানুষের মাথাপিছু আয় ৬০০ ডলার থেকে ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উন্নীত হয়েছে। মাথাপিছ আয় প্রায় ৫ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। দারিদ্র্যের হার ২০ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। অতিদারিদ্র্যের হার ১০ শতাংশে নেমে এসেছে। এটি হচ্ছে বাস্তবতা। তাদের এই নেতিবাচক কথাবার্তা প্রতিবার বাজেটের পর করে আসছে। একবারও দেখলাম না তারা প্রশংসা করেছে। খুব যৎসামান্য যেটা না করলেই নয় সেটা কেউ কেউ করেছেন। কিন্তু চিহ্নিত কিছু ব্যক্তিবিশেষ, প্রতিষ্ঠান, সংগঠন এবং বিএনপি ও তার মিত্ররা কখনো বাজেটের প্রশংসা করেনি। তাহলে সাড়ে ১৩ বছরে দেশ এগিয়ে গেলো কেমনে?

মূল্যস্ফীতি নিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, করোনা মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর ইউরোপের অনেক দেশে মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আমেরিকাতে মূল্যস্ফীতি হয়েছে, তুরস্কতে ২০ শতাংশের বেশি। এটা জানার জন্য খুব বেশিদূর যেতে হয় না। গুগুলে সার্চ দিলেই সব তথ্য পাওয়া যায়। তাদের এত বড় বড় ডিগ্রিধারী, অর্থনীতিবিদ, বড় বড় নেতা তারা তো গুগুলে গিয়ে সার্চ করলেই পারে কোন দেশের মূল্যস্ফীতি কত। বাংলাদেশের মূল্যস্ফীতি সেসব দেশের তুলনায় কম। সেটা তো সহজেই দেখা যায়। এরপরও মানুষকে বিভ্রান্ত করার জন্য সবসময় তারা বক্তব্য দিয়ে আসছে।

মন্ত্রী বলেন, এই বাজেট হচ্ছে গরিববন্ধব বাজেট। ৯০ হাজার কোটি টাকার কাছাকাছি ভর্তুকি দেওয়া হয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তার জন্য বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে, সেটা কার জন্য? বড় লোকের জন্য না, সেটা গরিবের জন্য। বিদ্যুৎ, গ্যাস ও কৃষিতে ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে গরিব মানুষের জন্য। সেগুলো না বলে গৎবাঁধা কথা, মুখস্ত কথা...।

‘গত ১০ বছরের বাজেট প্রতিক্রিয়ায় সিপিডি একটিবারও বাজেটের প্রশংসা করতে পারেনি। আর বিএনপি তো আগেই বিবৃতি লিখে রাখে কী বলবে। বিশেষ করে তারা আগের দিনই বিবৃতি লিখে রাখে। বাজেট তো তারা ঠিকমতো পড়েওনি। না পড়েই বিবৃতি দিয়ে দেয়। আমাদের সরকার মানুষের জন্য বাজেট করে। সে কারণেই দেশটা এগিয়ে গেছে, দারিদ্র্য কমেছে, বাংলাদেশ এগিয়ে গেছে।’


আরও খবর



অসীম সাহস আর প্রেরণা যোগায় রাবির ‘সাবাস বাংলাদেশ’

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

মুক্তিযুদ্ধে তরুণদের অবদানকে মাথায় রেখে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মূল ফটকের পশ্চিমপাশে এবং শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ সিনেট ভবনের দক্ষিণপাশের মাঠ ঘেঁষে তৈরি করা হয়েছে একটি ভাস্কর্য। তার নাম ‘সাবাস বাংলাদেশ’। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত যে কয়টি ভাস্কর্য এ যাবত স্থাপন হয়েছে তার মধ্যে এটি অন্যতম। ৪০ বর্গফুট জায়গার ভেতরে যুদ্ধের প্রতিচ্ছবি ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এ ভাস্কর্যে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাবি কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের উদ্যোগে ১৯৯০ সালের ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ভাস্কর্যটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক আমানুল্লাহ আহমদ। শিল্পী নিতুন কুন্ডুর শৈল্পিক হাতের ছোঁয়ায় লাল বেলে মাটি দিয়ে ১৯৯১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি এটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ১০ ফেব্রুয়ারি ১৯৯২ সালে এ ভাস্কর্যটি উন্মোচন করেন শহীদ জননী বেগম জাহানারা ইমাম।

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেওয়া দুই তরুণের ছবি দিয়ে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে তাদের অবদানের কথা। একজন পরে আছে প্যান্ট আর অন্যজন লুঙ্গী। যা মুক্তিযুদ্ধে আপামর জনসাধারণের অংশগ্রহণের প্রতীক। একজনের একটি হাতে রাইফেল আর অন্য হাত মাথার ওপরে মুষ্টিবদ্ধ। যা দেশকে স্বাধীন করতে দৃঢ় প্রতিশ্রুতির বহিঃপ্রকাশ। অন্যজনের দুইহাতে আছে রাইফেল। যা দ্বারা জীবনকে বাজি রেখে ক্ষিপ্রতার সঙ্গে রণাঙ্গনে স্বতঃস্ফূর্তভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ার বিশেষ মুহূর্ত ফুটিয়ে তোলা হয়েছে।

ভাস্কর্যটির দুপাশে রয়েছে আয়তাকার দুটি দেওয়াল। একটিতে কয়েকজন বাউল একতারা বাজিয়ে গান করছে। যা বাঙালি জাতির গ্রামীণ সংস্কৃতির পরিচয় বহন করছে। অন্যটিতে মায়ের কোলে শিশু ও দুজন তরুণী, একজনের হাতে রয়েছে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। তার দিকে অবাক তাকিয়ে আছে এক কিশোর। ভাস্কর্যটির নিচে লেখা আছে তরুণ কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য রচিত দুইটি চরণ, ‘সাবাস বাংলাদেশ, এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়, জ্বলে-পুড়ে-মরে ছারখার তবু মাথা নোয়াবার নয়’। ভাস্কর্যটির পাদদেশে আছে একটি মুক্তমঞ্চ। ৪০ বর্গফুট এ ভাস্কর্যের ঠিক পেছনে রয়েছে ৩৬ ফুট উচ্চতার একটি বৃহৎ দেওয়াল। তার মাঝে আছে ৫ ফুট ব্যাসের একটি বৃত্ত। যেটি স্বাধীনতার সূর্যের প্রতীকস্বরূপ।

jagonews24

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে পাক বাহিনীর হাত থেকে রক্ষা পায়নি এ বিদ্যাপীঠের শিক্ষক শিক্ষার্থীরাও। ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানে পাক বাহিনীর হাত থেকে শিক্ষার্থীদের বাঁচাতে নিহত হন অধ্যাপক ড. শামসুজ্জোহা। মুক্তিযুদ্ধে পাক বাহিনীর কবলে পড়ে নিহত হন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হবিবুর রহমান, অধ্যাপক সুখরঞ্জন সমাদ্দার ও অধ্যাপক মীর আব্দুল কাইয়ুমসহ আরও অনেকেই। তাদের স্মৃতি বহন করছে ভাস্কর্যটি।

সমাজকর্ম বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মো. ইসা হক জাগো নিউজকে বলেন, ‘রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বুকে সাবাস বাংলাদেশ নামে যে ভাস্কর্যটি আছে তা আমাদের ও পরবর্তী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানতে মুখ্য ভূমিকা পালন করবে। এ ভাস্কর্য বাঙালীর জাতিসত্তার পরিচয় বহন করে। সাবাস বাংলাদেশের ভাস্কর্য দেখলেই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে আরও জানতে ইচ্ছে করে।’

একুশে পদকপ্রাপ্ত ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মলয় কুমার ভৌমিক জাগো নিউজকে বলেন, ‘বরেন্দ্র অঞ্চলের লালমাটি দ্বারা তৈরি এই ভাস্কর্যটি মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও ঐতিহ্য বহন করে। ভাস্কর্য বা শিল্পের মাধ্যমে একটি শিশু দেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সম্পর্কে যা জানতে পারবে তা ১২০ পৃষ্ঠার বই পড়েও জানা যাবে না। সাবাস বাংলাদেশের ভাস্কর্য শিল্পের এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম যা আমাদের সহস্র বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে নতুন প্রজন্মের সঙ্গে ক্রমাগত যুক্ত করে যাচ্ছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সুলতান-উল-ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘ভাস্কর্যটি আমাদের স্বাধীনতা যুদ্ধের আদর্শ ও চেতনার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও আপামর মানুষকে স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ, বাঙালির ঐতিহ্য মনে করিয়ে দিচ্ছে এ ভাস্কর্য। ভাস্কর্য আমাদের আদর্শের পাশাপাশি ভবিষ্যৎ বাংলাদেশ বিনির্মাণে সাহস যুগিয়ে যাচ্ছে।’


আরও খবর



জ্বালানি খাতে বড় বাজেট চাওয়া হয়েছে

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

এবার জ্বালানি খাতে বড় বাজেট চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, আমাদের বেশ কিছু প্রকল্প হাতে আছে। তাই বড় বাজেট চাওয়া হয়েছে।

গত ৩১ মে (মঙ্গলবার) বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা জানান প্রতিমন্ত্রী।

নসরুল হামিদ বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত নিয়ে আরও বড় কিছু পরিকল্পনা আমাদের আছে। সেই লক্ষ্যে বড় একটি বাজেট চেয়েছি। দেখি কী হয়? বাজেট পেলে আমরা আরও কাজ করতে পারবো।

চলতি ২০২১-২০২২ অর্থবছরে প্রস্তাবিত বাজেটে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিলো ২৭ হাজার ৪৮৪ কোটি টাকা।

এর আগে, ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে সংশোধিত বাজেটে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ২৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা। যার মধ্যে বিদ্যুৎখাতে বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ২১ হাজার ৯৭১ কোটি টাকা এবং জ্বালানি খাতের জন্য বরাদ্দ ছিল ১ হাজার ৮০৬ কোটি টাকা।

করোনার ধাক্কা সামলে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় ফেরার লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট সংসদে উপস্থাপন করা হবে আজ বিকেল ৩টায়। এরই মধ্যে ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার জন্য লাল রঙের ব্রিফকেস হাতে সংসদ ভবনে পৌঁছেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

২০২১-২২ অর্থবছরে বাজেট বরাদ্দ ছিল ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। সেই হিসাবে ২০২২-২৩ নতুন বাজেটের আকার বাড়ছে ৭৪ হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা।


আরও খবর