Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

চকরিয়ার নদীর দুই পাড়ে কাঁচা বাদামের বাম্পার ফলন

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৩৩জন দেখেছেন

Image

মোঃআমান উল্লাহ, কক্সবাজার : কক্সবাজারের চকরিয়া মাতামুহুরী নদীর বুকে জেগে উঠা একাধিক চরে কাঁচা বাদামের বাম্পার ফলন হয়েছে।নদীর দুইপাড়ে বাদাম পরিচর্যায় কৃষকেরা এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন।ভালো ফলন হওয়ায় বাদাম চাষীদের মুখে এখন হাসি। ফলন ভালো তাই মজুরিও মিলছে ভালো তাই বাদাম চাষে নিয়োজিত নারী শ্রমিকেরাও খুশী ।শীত মৌসুমে চকরিয়া পৌরসভা ৮ নাম্বার ওয়ার্ডের কোয়াজ নগর ও ১ নাম্বার ওয়ার্ডের বিশাল এলাকাজুড়ে বাদামের আবাদ হয়।কৃষকরা জানান,কম খরচে অধিক লাভ হয় বাদাম চাষে।তাই অনেকেই ঝুঁকছেন বাদাম  চাষে।এছাড়াও উপজেলার কাকারা, সুরাজ-মানিকপুরসহ বিভিন্ন এলাকায়ও বাদাম চাষ হচ্ছে।

চকরিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার এস,এম, নাছিম হোসাইন জানান,গত বছরের চেয়ে চকরিয়ায় বাদাম চাষ বেড়েছে।এবছর প্রায় ২’শ হেক্টর জমিতে চীনা জাতের বাদাম চাষ করা হয়েছে।ক’দিন পরেই কৃষকরা এসব চর থেকে বাদাম তুলে রোদে শুকিয়ে ঘরে তুলবেন চাষীরা। আর প্রাপ্তির আলোয় ভরবে তাদের উঠোন এমনই আশাবাদ বাদাম চাষীদের। 


আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নওগাঁয় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে খোলা আকাশের নিচে ১৯ টি পরিবার

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

নওগাঁ প্রতিনিধি:নওগাঁর বদলগাছী ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ১৯টি পরিবারের ঘর সহ যাবতীয় আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়েছে। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১০ থেকে ১২টি পরিবার তবে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনাই।শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারী ) দুপুর ২ টায় উপজেলার আধাইপুর ইউনিয়নের রসূলপুর গ্রামের আদিবাসী পাড়ায় এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। 

বদলগাছী ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন অফিসার মোঃ মহিদুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। তবে আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে বলেন শর্ট সার্কিট থেকে এই  আগুন লাগতে পারে বলে জানান তিনি। আরো বলেন তিনি এটি ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড ছিল এই আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে আড়াই ঘন্টার মতো সময় লেগেছে। 

ক্ষতিগ্রম্ত বিমল চন্দ্র বলেন, আমার বাড়িতে বৈদ্যুতিক তার থেকে আগুনের সূত্রপাত শুরু হয়। এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় আমারসহ আরও ১৯ টি পরিবারের ঘরসহ যাবতীয় আসবাবপত্র পুড়ে ছাই হয়েছে। এই আগুনের শুরু থেকেই আমরা অনেক চেষ্টা করেও আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে পারি নাই। পরে ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রত্যক্ষদর্শী শাহীনুর ইসলাম বলেন, আগুনে যাদের ঘর পুড়েছে তারা সবাই খেটে খাওয়া দিনমজুর। এই আগুন এমন ভাবে শুরু হয়েছে কোনো ঘর থেকেই কিছু উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ঘরে থাকা চাল, ডাল, খাতা কলম, টাকা-পয়সা স্বর্ণলোকার,কাপড়-চোপড় ও শীতের পোশাক  সহ সব পুড়ে ছাই এবং তিনটি গবাদি পশু পুড়ে গিয়েছে  এই পরিবারগুলো সব হারিয়ে একদম নিঃস্ব রাতের খাবার পরনের কাপড় ও ঘুমানোর জায়গাও নেই এখন। 

ফেরদৌস নামে এক ব্যক্তি বলেন, আজকের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এই ব্যক্তিগুলোর বিপুল পরিমাণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কমপক্ষে -৩০-৩৫ লাখ টাকার ক্ষতি  হয়েছে এখন তারা নিঃস্ব।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিয়া খাতুন বলেন, অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি মর্মান্তিক একটি ঘটনা সেখানে ১৯ টি পরিবারের ঘরবাড়ী সব পুড়ে ছাই। প্রত্যেক পরিবার কে নগদ পাঁচ হাজার টাকা দুই প্যাকেট শুকনো খাবার,এবং দুটি করে কম্বল দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি । এছাড়াও আধাইপুর ইউনিয়ন পরিষদ এবং  মুক্তিযোদ্ধাদের সাবেক কমান্ডার জবির উদ্দিন (এফএফ) পক্ষ থেকে প্রত্যেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার কে একটি শাড়ী এবং লুঙ্গি দিওয়া হয়। 

আরও খবর



শিরীন শারমিন চৌধুরী টানা চতুর্থবার স্পিকার হলেন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:শিরীন শারমিন চৌধুরী টানা চতুর্থবার জাতীয় সংসদের স্পিকার নির্বাচিত হয়েছেন। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেল ৩টায় একাদশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার শামসুল হকের সভাপতিত্বে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। বৈঠকের শুরুতে স্পিকার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্পিকার পদে শিরীন শারমিন চৌধুরীর নাম প্রস্তাব করেন। যার প্রতি সমর্থন জানান চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী। পরে আর কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় কণ্ঠভোটে শিরীন শারমিন চৌধুরীকে বিজয়ী ঘোষণা করেন ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক। এরপর সংসদ ভবনে রাষ্ট্রপতির কাছে শপথ নেন শিরীন শারমিন চৌধুরী।

জানা যায়, ২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল তৎকালীন জাতীয় সংসদের স্পিকার মো. আবদুল হামিদ রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেয়ার পর স্পিকারের পদটি শূন্য হয়। এরপর সংরক্ষিত সংসদ সদস্য তৎকালীন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ৩০ এপ্রিল স্পিকার হিসেবে নির্বাচিত হন।

তিনি ২৪ জানুয়ারি ২০১৪ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। এরপর দশম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ আবারো সরকার গঠন করলে শিরীন শারমিনকে দ্বিতীয়বারের মতো স্পিকার নির্বাচিত করা হয়।

২০১৪ সালের ২৯ জানুয়ারি থেকে এখন পর্যন্ত তিনি স্পিকার হিসেবে দায়িত্বরত রয়েছেন। অত্যন্ত মেধাবী ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এসোসিয়েশন-সিপিএর নির্বাচিত প্রথম বাংলাদেশি প্রেসিডেন্ট। সংসদ পরিচালনা ছাড়াও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষেত্রে তার দক্ষতা সর্বমহলে প্রশংসিত হয়েছে।


আরও খবর



প্রতিষ্ঠান গড়া ও গুনগত শিক্ষা বিস্তার:

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৯জন দেখেছেন

Image

স্থানীয় শিক্ষানুরাগী মুরব্বিরা আলোকিত সমাজ গড়া এবং ভবিষ্যত প্রজন্মকে গুনগত শিক্ষার আলোকে বিকশিত করার জন্য নিজের অর্থ ও জমি প্রতিষ্ঠানের নামে লিখে দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে যাচ্ছেন।  এজন্য উক্তরুপ পরিকল্পনা গ্রহণকারী ব্যক্তিবর্গ এক একটি প্রতিষ্ঠান ও অনুসরনীয় ব্যক্তি হিসেবে গন্য হয়ে আসছেন এবং সমাজের নিকট তাহারা প্রশংসিত এবং তাহারা মৃত্যু বরণ করেও ওমর হয়ে আছেন। 

প্রতিষ্ঠান পরিচালনা :  সমাজের সৎ ও উচ্চ শিক্ষিত ব্যক্তিবর্গের উপর প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করার দায়িত্ব অর্পণ করা আবশ্যক।  উচ্চ শিক্ষিত ও সৎ ব্যক্তিবর্গ  গুনগত শিক্ষা বিস্তার ও শিক্ষা বান্ধব পরিবেশ তৈরি করতে সক্ষম এবং তাদের হাতে প্রতিষ্ঠানের তহবিলও নিরাপদ থাকে। তাহারা আইন বহির্ভূত কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতেও অগ্রসর হয়না বরং বিধি অনুসরণ পুর্বক পরিচালনায় সহযোগিতা করেন। 

আমার দীর্ঘদিনের অভিজ্ঞতার আলোকে দৃঢ়ভাবে স্বাক্ষী দিচ্ছি যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় শিক্ষিত লোকজনের বিকল্প নেই। তবে রাজনৈতিক ও বিত্তশালীদের অতিরিক্ত খবরদারির কারণে প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় স্বল্প শিক্ষিত লোকজন এগিয়ে রয়েছে। 

পরিচালনা পরিষদ কে শিক্ষকদের নিয়ে বিভিন্ন সভা করতে হয়। সেক্ষেত্রে পরিষদের ব্যক্তিবর্গকে বিষয় ভিত্তিক বক্তব্য উপস্থাপন করার প্রয়োজন হয়। তাদের যদি বিষয় ভিত্তিক জ্ঞান না থাকে, সেক্ষেত্রে তাদের থেকে জ্ঞানগর্ব বক্তব্য আশা করা যায় না।  যেমনটি তেতুল গাছ থেকে আপেলের আশা করা যায় না। 

আলোকিত সমাজ ও  কর্মক্ষম মানব সম্পদ প্রস্তুত করাই শিক্ষার অন্যতম উদ্দেশ্য। এর জন্য সৎ চরিত্রবান শিক্ষক ও পরিচালনা পরিষদের প্রয়োজন। সৎ চরিত্রবান ব্যক্তিই পারে সৎ চরিত্রবান মানব সম্পদ উপহার দিতে। এজন্য আইনকানুন প্রস্তুত করা ও আন্তরিক ভাবে অনুশীলন করাও প্রয়োজন আছে। 

প্রতিষ্ঠান সব সময় সমাজের সম্পদ এবং উহার একক দাবীদার কেউ নেই। যদি ব্যক্তিগত নামে প্রতিষ্ঠান হোউক না কেন। ব্যক্তির চেয়ে সমাজ ও প্রতিষ্ঠান উর্ধ্বে এবং তুলনার বিষয়ও নহে। হ্যাঁ, প্রতিষ্ঠাতার আন্তরিকতার বিষয়টিকে ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। 

প্রতিষ্ঠানের সকল কিছুই সামাজিক সম্পদ এবং আর্থিক উন্নয়ন ও পরিচালনায় মনোযোগের সাথে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন সমাজের ও প্রতিষ্ঠানের তসরুপ না হয়ে যায়।  এক্ষেত্রে ক্ষমা চাওয়ার ক্ষেত্রটি বড়ই কঠিন এবং সুযোগই নেই। এজন্য আন্তরিক ভাবে সাবধানে পরিচালনা করতে হয়।

এক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সাথে একত্রিত হওয়ার সুযোগ হয়েছে। পরিচালনা পরিষদের দুর্ব্যবহার ও অর্থ তসরুপের ঘৃণ্য ইতিহাস প্রকাশ পেয়েছে। প্রতিষ্ঠান প্রধানদেরকে আন্তরিকতা ব্যতীত বাধ্য হয়ে অপরাধীকে মুক্ত করার বিষয় বিবেচনা করতে হয়। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা হওয়া প্রয়োজন। কিন্তু আইনের আওতায় নেওয়ার  সুযোগ কমই আছে। পরিচালনা পরিষদের একটি অংশ অন্যায় আচরণ ও তসরুপে জড়িয়ে যায়। সেহেতু ক্ষেত্র মতে প্রতিষ্ঠান প্রধান অসহায় হিসেবে গন্য হয়। মাঝে মাঝে বাধ্যতামূলক ভাবে অপসারণ করাও হয়।আর যাহারা সৎ ও চরিত্রবান তাহারা প্রতিদিন প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয় না এবং তাদের পেশায় কর্ম ব্যস্ত থাকেন।আর বেকার ও অসত এবং চরিত্রহীনরা প্রতিষ্ঠানের তহবিল তসরুপ করেই যাচ্ছেন। 

গুনগুন শিক্ষা বিস্তারের জন্য আবশ্যক বিষয় হলো :

গুনগত মানসম্পন্ন শিক্ষার জন্য চাই সুদক্ষ শিক্ষক এবং পরিচালনা পরিষদের নিরাপদ সার্ভিসের ক্ষেত্র নিশ্চয়তা করতে হবে।  অপরিহার্য উপাদান ও পূর্বশর্ত হচ্ছে। ১. মানসম্পন্ন শিক্ষক ২.আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষাক্রম ৩. শিক্ষাদান সামগ্রী ও ভেীত অবকাঠামো ৪.উপযুক্ত মূল্যায়ন পদ্ধতি ৫. সন্ত্রাসমুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ৬. বিষয় ভিত্তিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ৬. সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করা, ৭. শিক্ষক ও কর্মচারীদের আর্থিক স্বচ্ছতা বিধান করা  প্রমুখ। 

গুনগত শিক্ষা অর্জনের প্রতিবন্ধকতা :

১. নৈতিক মূল্যবোধের চরম অবক্ষয় ২. সন্ত্রাস ও অপরাজনীতির ভয়ানক বিস্তার ৩. শিক্ষকদের দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধে কাংখিত পর্যায়ে না থাকা ৪. তুলনামূলক ভাবে শিক্ষকদের আর্থিক সুযোগ সুবিধার অপর্যাপ্ততা ৫. শিক্ষকতা পেশায় কতিপয় আদর্শচ্যুত ব্যক্তির অনুপ্রবেশ ও ৬। পর্যাপ্ত অবকাঠামোর স্বল্পতা ইত্যাদি।


আরও খবর

বিনামূল্যে বই পেল ২৬৬ কলেজ শিক্ষার্থী

শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ঝিনাইদহ-১ আসন:আব্দুল হাইয়ের এমপি পদ স্থগিতের বিরুদ্ধে আবেদন

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঝিনাইদহ-১ আসনে নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাইকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী ঘোষণা করেছিল ইসি। সেই গেজেট স্থগিত করেছিলেন হাইকোর্ট। এবার হাইকোর্টের সেই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আবেদন করা হয়েছে আপিল বিভাগে।

সোমবার (৫ জানুয়ারি) আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় বিজয়ী নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাই এ আবেদন করেন। তার পক্ষের আইনজীবী হলেন অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা।

গত ১ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ-১ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল হাইকে বিজয়ী ঘোষণা করে ইসির গেজেট স্থগিত করেন হাইকোর্ট। দুই মাসের জন্য এই স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১ জানুয়ারি) বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামানের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান।

এর আগে ভোটগ্রহণ ও ভোট গণনায় অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগে ঝিনাইদহ-১ আসনের সংসদ সদস্য পদের গেজেট স্থগিত চেয়ে ইলেকশন পিটিশন দায়ের করেন ওই আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম দুলাল। পরে ইসির ওই নির্বাচনি গেজেট স্থগিত করেন বিচারপতি আসাদুজ্জামানের কোর্ট।


আরও খবর



দূর্গাপুরে শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করলেন এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারা

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৪জন দেখেছেন

Image

মেহেদী হাসান পুঠিয়া, (রাজশাহী):রাজশাহী জেলার দূর্গাপুর উপজেলায় অসহায় মানুষের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করেছেন রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দূর্গাপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জননেতা আব্দুল ওয়াদুদ দারা।

রবিবার (২৮ জানুয়ারি) বিকালে দূর্গাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দূর্গাপুর উপজেলার অসহায়, দু:খী ও সুবিধা বঞ্চিত শীতার্ত মানুষের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করা হয়।

এসময় দূর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান ফিরোজ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম, পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আজাহার আলী, সাধারণ সম্পাদক শরিফুজ্জামান শরীফ, বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ, ৭ টি ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃন্দ সহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর