Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম
কক্সবাজারে পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু বন্ধ শিল্প প্রতিষ্ঠান চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে: শিল্পমন্ত্রী বাংলাদেশের হার দিয়ে সুপার এইট শুরু গোদাগাড়ীতে রাসেল ভাইপারের চিকিৎসার দাবিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কাছে চিঠি দিয়েছে নাগরিক স্বার্থ-সংরক্ষণ কমিটি রূপগঞ্জে জমে উঠেছে কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচন যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ কর্মকর্তার বাবা মাকে কুপিয়ে হত্যা যানজট নিরসনে সংসদ সদস্যগণের সাথে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সমন্বয়সভা ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক বাজেট পাস হয়নি,অনেক কিছু পুনর্বিবেচনা করা সম্ভব: অর্থমন্ত্রী দেশের সব মহৎ অর্জন আ. লীগের মাধ্যমেই হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

ছাত‌কে কি‌শোরী ধর্ষনের মামলার আসামী জেল হাজ‌তে

প্রকাশিত:বুধবার ১০ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ২০৮জন দেখেছেন

Image

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিসুনামগঞ্জের ছাতকে সন্তানের জনক কর্তৃক এক কিশোরীর ধর্ষনের মামলার আসামী ফয়জুল ককে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো য়েছে। বুধবার সকালে সুনামগঞ্জের ছাতক   ‌সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ হোলাল উদ্দিনের আদালতে উপস্থিত য়ে জামিনের আবেদন করলে আদালত শুনানী শেষে তার জামিন না মঞ্জুর রে তাকে জেল হাজতে পাঠানো নিদেশ দেন। গত মে দুপুরে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার জাউয়া বাজার ইউপির মুলতানপুর গ্রামের দিনমজুর বোরহান উদ্দিনের বসত রে টুকে কিশোরী মুখ হাত পা বেধে ধর্ষনের
ঘটনা টে ঘটনাটি ধামা চাপা দিতে গ্রাম্য মাতব্বররা ্যাপক চেষ্ঠা রে

জানা যায়,কিশোরী মা নানার বাড়িতে বাবা ধান কাটতে হাওরের ছিল সুযোগে গত মে দিন দুপুরে ১৪ বছরের এক কিশোরীর ঘরে ঢুকে  তাকে হাত-পা, মুখ বেঁধে জোরপুবক ধর্ষণ করেন সন্তানের জনক ফয়জুল হক 

ঘটনায় ধামাচাঁপা দেয়ার চেষ্টা করেছে গ্রামের মাতব্বররা গত মে, সকালে গ্রামের ফুল মিয়ার বাড়িতে এক শালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় ধর্ষকের চাচাতো ভাই, শান্তিগঞ্জ উপজেলার একটি মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা ওয়ারিছ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত হয়। অনুষ্টিত শালিস বৈঠকে ধর্ষক ফয়জুল হক (৪০) কে শাস্তি হিসেবে তার মাথার চুল কর্তন জুতার মালা ড়িয়ে শাস্তি দেয়অভিযুক্ত সন্তানের জনক ফয়জুল হক উপজেলার জাউয়াবাজার ইউপির মুলতানপুর গ্রামের লিল লেখক আব্দুস সালামের ভাই
মৃত সুলেমান আলীর পুত্র

ঘটনায় গত মে সকালে ভুক্তভোগী কিশোরীর মা সুলতানা বেগম বাদী য়ে সন্তানের জনক ধর্ষক ফয়জুল হককে আসামী রে থানায় একটি ধর্ষণের মামলা দায়ের রেন মামলা নং ছাতক থানায় নারী শিশু নিযাতন দমন আইনের ২০০০ সংশোধনী এর এক ধারায় মামলা রেকর্ড় করেছে পুলিশ

ভুক্তভোগী কিশোরীর বাবা বোবহান উদ্দিন বলেন,আমি দরিদ্র মানুষ দিনমজুরে কাজ রি ঘটনার সময় আমি হাওরের ধান কাটা ছিলাম এদিকে তার মা- বাড়িতে ছিলনা কিন্তু মেয়েটি ঘরে একা থাকায় সন্তানের জনক ফয়জুল হক তাকে সর্বনাশ করেছে। এব্যাপারে ছাতক থানার ওসি খান মোহাম্মদ মাঈনুল জাকির  ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে লেন,অভিযুক্ত কিশোরী ধর্ষন মামলার  আসামী‌ ফয়জুল হককে আদালতে মাধ্যমে
জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে


আরও খবর



চারঘাট সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন ৫০ লক্ষাধিক টাকার ফেনসিডিল ও ইয়াবা পাচার হয়

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১২২জন দেখেছেন

Image
সাজেদুর রহমান পুঠিয়া (রাজশাহী) প্রতিনিধি:রাজশাহীর চারঘাট সীমান্ত দিয়ে প্রতিদিন ৫০ লক্ষাধিক টাকার ফেনসিডিল ও ইয়াবা পাচার হয়ে আসছে। চারঘাটের নন্দনগাছি হয়ে পুঠিয়ায় শাহবাজপুর, কান্দ্রা, দুদুরমোড় কলনী(গুচ্ছ গ্রাম) এখন ফেনসিডিল পাচারেরর নিরাপদ রুট। ভারতীয় মাদক দ্রব্য ফেনসিডিল, ইয়াবায় ছেড়েগেছে সমগ্র রাজশাহীর শহর- বন্দর,এমন কোন গ্রাম নেই যে  এই সর্বনাশি নেশা নেই। যুব ও তরুন সমাজই নয় মধ্যবয়সী ছেলে ও মেয়েরাও প্রতি নিয়ত ঝুকে পড়েছে এই নেশায়। সকল বাধা নিষেধ অপেক্ষা করে চারঘাটের সীমা›ত ঘাটগুলো দিয়ে ছুটে আসছে এদেশের আনাচে কানাচে। সীমাšত দিয়ে রাতা রাতি ছুটে আসছে পুঠিয়া থানার জামিরিয়া,শিবপুর, মাহেন্দ্রা,বেলপুকুর, ঝলমলিয়া, পুঠিয়া বাজার, বিড়ালদহ,বানেশ^ও এলাকায়। এসব গ্রাম গুলিতে রয়েছে শতশত মহাজন। এসব মহাজনরা এখান থেকে ঢাকাসহ এদেশের বিভিন্ন্ স্থানে পাচার করে থাকে । সীমাšত দিয়ে অভিনব সব উপায় অবলম্বন করে গড়ে তুলছে ফেনসিডিলের পাহাড় এবং এখান থেকে সমগ্র রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় পাচার করছে। পদ্মা নদীর চর দিয়ে আশা প্রতিদিন হাজার-হাজার বোতল ফেনসিডিল ও ইয়াবা রাজশাহীতে আসছে। এসব ফেনসিডিল কখনো নৌকায় আবার কখনো বিশেষ প্রক্রিয়ায় বালিশ বানিয়ে ভেসে ভেসে ওপাশ থেকে এ পাশে আসছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ফেন্সিডিল ব্যবসাীয় জানান, ভারত থেকে ফেন্সিডিল আনতে খরচ হয় প্রতি বোতল ফেনসিডিল ৬৫-৭০ টাকা। পদ্মার পাড় ঘেষে যাদের বাড়ি, তারা ঘাটের লেবার থেকে এখন হয়েছে বড় বড় মহাজন। এরা কুড়ে ঘর থেকে তৈরী করছে ইট, পাথরের বাড়ি। রাজশাহীসহ এদেশের বিভিন্ন স্থানে শাহর, বন্দর,গ্রামে ফেনসিডিল বিক্রি করে প্রতি পিস ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায়। এসব মহাজনরা সবাই বর্তমান সরকার দলকে সমর্থন করেন কিন্তু এরা কেউ নেতা নন।পুলিশ প্রশাসন প্রতি মাসেই মোটা অংকের মাসোহারা নিয়ে কিছু কিছু ফেনসিডিল আটক করে থানায় নিয়ে আসে কিন্তু কোন ফেনসিডিল পাচার কারীদের আটক করেন না। এরা এখান থেকে ঢাকা যোগাযোগ করে সুযোগ মতো ঢাকায় প্রেরন করেন এবং তাদের সঙ্গে চুক্তি করেন।  প্রথমত তাদের নিরাপদ রুট গুলি বেছেনেন। তারপর বাস, মাইক্রো বাস, ট্রাক, পিকআপ ভ্যানে যাত্রী বেশে রাত দিন ফেনসিডিল ও ইয়াবা পাচার করে থাকেন। তবে রাতের বেলাই মাদক বেশি পাচার হয়ে থাকে বলে জানান। এখন ফেনসিডিল পাচার হচেছ এক অভিনব কায়দায় পাষ্টিক জারের তলা কেটে ৩০০-৪৩০ বোতল দিয়ে চিটাগুড় দিয়ে ভরে তারপর তলা লাগিয়ে তলা লাগিয়ে মুুখ দিয়ে আবার চিটাগুড় ঢেলে ট্রাক ও পিকআপ ভ্যানে নিজেস্ব ড্রাইভার দিয়ে চালান হয় সে সব গাড়ি। যদি পথে পুলিশ  আটকায় তখন টোকেন ও নাম্বার দিয়ে কিছু সেলামি দিলেই ঢাকায় পৌছে যায়। এক্ষেত্রে কোন মহাজন চালানের সাথে থাকে না।  এরা সবায় অšতরালে থেকেই সব কিছু নিয়ন্ত্রন করেন। এভাবেই দিনের পর দিন চলছে এদের রমরমা মাদক ব্যবসা।

আরও খবর



কোরবানির পশু কাটার জন্য সৈয়দপুরের কসাই ঢাকা যাওয়ার প্রস্তুতি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৯৩জন দেখেছেন

Image

জহুরুল ইসলাম খোকন সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:ঈদ উল আজহায় কোরবানির পশু কাটার জন্য সৈয়দপুর থেকে শতাধিক কসাই ঢাকা যাওয়ার প্রস্তুতি নিয়েছেন।ট্রেন ও বাসে করে এযাবৎ অর্ধশতাধিক কসাই ঢাকা পৌঁছেছেন। কোরবানির তিন দিনে অন্তত ২০ লাখ টাকাও বেশি আয় করবেন বলে জানিয়েছেন তারা।

কসাইরা জানান, কুরবানী ঈদ এর মাস খানিক আগেই ঢাকার অনেকেই সৈয়দপুরের কসাই বুকিং দিয়ে রেখেছেন। একারনে ঈদের ২/৩ দিন আগেই ঢাকায় সব কসাইকে পৌঁছাতে হবে।কন্ট্রাক হয়েছে হাজারে ৩০০ টাকা দিতে হবে কসাইদের। সে হিসেবে এক লাখ টাকার একটি গরুতে কসাইকে দিতে হবে ৩০ হাজার টাকা।

কাল্লু নামের এক কসাই জানান, এবারে শতাধিক কসাই ঈদে ঢাকায় গিয়ে কোরবানির পশুর মাংস কাটার কাজ করবেন। চারজন  করে একটি গ্রুপে পশু কাটার  কাজটি করবেন তারা। তিনদিনে একেকটি গ্রুপ কমপক্ষে ১৬টি গরু কাটতে পারবেন। এতে করে একেকটি গ্রুপ ৪ লাখ টাকা আয় করতে পারবেন।

মজ্নু নামের অপর এক কসাই জানান,১৫ জুন রাতে বাসে করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা দিবেন। অনেকে  আবার ১৬ জুন সকালে যাবেন ঢাকায়। কেউ কেউ ঈদের আগের দিন রাতে বিমানে ঢাকায় পৌঁছাবেন।

নাদের এন্টারপ্রাইজ এর সুপারভাইজার আলমগীর বলেন, আমার কাছে ১৫-২০ জন কসাই ঢাকা যাওয়ার জন্য টিকেট চেয়েছেন। এদের মধ্যে কেউ কেউ টিকেট নিয়ে গেছেন। সৈয়দপুর থেকে অনেক কসাই ঈদের আগের দিন বিমানযোগে ঢাকায় যাবেন বলে জানান বিমানের টিকেট বিক্রেতারা ।

রাজধানীর উত্তরায় থাকেন তারেক নামের এক অবসর প্রাপ্ত বিমান কর্মকর্তা। চাকরির সুবাদে তিনি সৈয়দপুরে ছিলেন দীর্ঘদিন। একারনে এশহরের অনেকেই তাঁর পরিচিত। ঈদে কুরবানির মাংস কাটতে মোবাইলে সৈয়দপুরের একজন কসাইয়ের সঙ্গে চুক্তি হয়েছে তার। ঈদের দিন সকালে উত্তরার বাসায় গিয়ে কোরবানির গরুর মাংস কাটতে হবে। বিনিময়ে ২০ হাজার টাকা নিবেন কসাইকে।

সৈয়দপুর কসাই সমিতির সভাপতি মোঃ নাদিম ওরফে ছোটুয়া বলেন, ঢাকার মানুষরা তাদের কুরবানির পশু কাটাতে হাজারে ৩০০ টাকা দেয়ার কারনে ঈদের আগে কসাই শুন্য হয়ে যাবে সৈয়দপুর। এশহরের মানুষ তাদের পশু কার দ্বারা কাটবেন বুঝতে পারছি না। সৈয়দপুরের মানুষ যদি হাজারে ১৫০ টাকা মাংস কাটা বাবদ দিতেন তাহলে অর্ধেক কসাই ঢাকায় যেতো না। তিনি আরো বলেন, কসাইদের ও উচিত ঈদের শুধু নিজের স্বার্থ না দেখে সৈয়দপুর বাসীর পাশে থাকা। নিজের স্বার্থ হাসিল করতে সৈয়দপুর বাসীকে বিপদে ফেলে ঢাকায় যাওয়া ঠিক হচ্ছে না বলে জানান তিনি। 


আরও খবর



তানোরে পৃথক পৃথক ঘটনায় তিনজনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে সংরক্ষিত মহিলা সদস্যের স্বামী পরিত্যক্ত মাটির  ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।  নিহতের নাম মুনসুর রহমান(৬৫)। সে খাপাড়া গ্রামের মৃত খোকনের পুত্র। একই দিন সকালের দিকে তানোর পৌর সদর একে সরকার সরকারি কলেজের দক্ষিণে প্রফেসর পাড়ায় পাকা দেয়ালে ইট গাঁথুনির সময় পড়ে গিয়ে শমসের নামের এক রাজমিস্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে,এছাড়া  গুবিরপাড়া গ্রামের বিধবা রজি বেগম (৪০) নামের এক দুই সন্তানের জননী   পানিতে ডুবে মর্মান্তিক মৃত্যু বরন করেছেন। বৃহস্পতিবার সকালের দিকে ঘটে ঘটনাগুলো। এসব ঘটনায় পরিবারসহ এলাকায়  শোকের ছায়া নেমে এসেছে।   

জানা গেছে, সকালের দিকে উপজেলার সরনজাই ইউনিয়ন ইউপির মহিলা সদস্য দোলনচাঁপার স্বামী মুনসুর রহমান নিজ বাড়ির পরিত্যক্ত মাটির ঘরের তীরের সাথে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। একই দিন সকালের দিকে পৌর সদর প্রফেসর পাড়ায় প্রভাষক আশরাফুলের বাড়ির পাকা দেয়ালে ইট গাঁথুনির সময় পড়ে যান শ্রমিক রাজমিস্ত্রী শমসের আলী। সাথে সাথে অজ্ঞান অবস্থায় স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার বাড়ি উপজেলার পাঁচন্দর ইউনিয়ন ইউপির বনকেশর গ্রামে। সে সানাউল্লাহর পুত্র। তার মৃত্যুর খবর পেয়ে স্বজনরা হাসপাতালে আহাজারি শুরু করেন। স্বজনদের  কান্নায় হাসপাতাল ভারি হয়ে উঠে।এদিকে একই দিন গুবিরপাড়া গ্রামের মৃত মাসুদের স্ত্রী রজি বেগম (৪০) বাড়ির সামনে পুকুরের পানিতে ডুবে যায়। পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার এমন মৃত্যুতে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মাকে হারিয়ে  নির্বাক হয়ে পড়েছেন সন্তানেরা।   

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, প্রতিটি ঘটনায় থানায় অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আরও খবর



ইসরায়েলি হামলায় গাজায় নিহত ১৮ ফিলিস্তিনি

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১৪৯জন দেখেছেন

Image
আন্তর্জাতিক ডেস্ক:ইসরায়েলি হামলায় ফিলিস্তিনের গাজায় গর্ভবতী নারী-শিশুসহ ১৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। এরমধ্যে নুসেইরাত শরণার্থী শিবিরে ইসরাইলের হামলায় নিহত হয়েছেন কমপক্ষে ১০ ফিলিস্তিনি।

মঙ্গলবারের হামলায় নিহতদের মধ্যে এক গর্ভবতী নারী ও তার অনাগত শিশুও রয়েছে। এছাড়া গাজা সিটিতে পৃথক হামলায় নারী ও শিশুসহ আরও ৮ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন। খবর আলজাজিরার।


প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মধ্য গাজায় নুসেইরাত শরণার্থী শিবিরে ইসরায়েলি বোমা হামলায় এক গর্ভবতী নারী এবং তার অনাগত সন্তানসহ ১০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন বলে ওয়াফা নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, নুসেইরাত শরণার্থী শিবিরের আল-জাওয়াইদা এলাকায় বাস্তুচ্যুত লোকদের ভিড়ে বোমা হামলা করা হলে প্রাণহানির এই ঘটনা ঘটে।

শেষ বক্তব্যে ফিলিস্তিনিদের নিয়ে যে বার্তা দিয়ে গেছেন রাইসি

ফিলিস্তিনি রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ওয়াফা আরও জানিয়েছে, গাজা শহরে ইসরায়েলের চলমান হামলায় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অন্তত আরও আটজন ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

একজন চিকিৎসকের উদ্ধৃতি দিয়ে সংস্থাটি বলেছে, শহরের দারাজ এলাকায় ইসরায়েল ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় চার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন, যার মধ্যে একটি শিশুও রয়েছে যার বয়স এখনো এক বছর পূর্ণ হয়নি।

অন্যদিকে শহরের তুফাহ পাড়ায় আরেকটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় দুই নারী ও এক নাবালক শিশুসহ আরও চারজন নিহত হয়েছেন।

গত ৭ অক্টোবর থেকে গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি হামলায় নিহত ফিলিস্তিনিদের সংখ্যা বেড়ে অন্তত ৩৫ হাজার ৬৪৭ জনে পৌঁছেছে বলে মঙ্গলবার গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে।

ইসরাইলি হামলায় ৭৯ হাজার ৮৫২ জন আহত হয়েছেন বলেও মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে।


আরও খবর



মাগুরার শ্রীপুরে তিন ইউপি সদস্যকে মারপিটের বিচার দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ৭৮জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মশিয়ার রহমান ও তার লোকজন কর্তৃক ৩ জন নির্বাচিত ইউপি সদস্যকে মারধরের প্রতিবাদ ও বিচারের দাবিতে বৃহস্পতিবার দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী। 

বিক্ষোভ মিছিলটি শ্রীপুর সরকারি কলেজ মোড় থেকে শুরু হয়ে উপজেলা পরিষদ চত্বরে গিয়ে মানববন্ধন করে। পরে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী আহত ৩ ইউপি সদস্যের পক্ষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ মমতাজ মহলের নিকট স্মারক লিপি প্রদান করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিক্ষুদ্ধ ইউপি সদস্য ও এলাকাবাসীর বক্তব্য শোনেন এবং অচিরেই এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের আশ্বাস দেন। শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ তাসমীম আলম এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

ভূক্তভোগী তিন ইউপি সদস্য পৃথক পৃথক স্মারকলিপিতে উল্লেখ্য করেন, নির্বাচিত হওয়ার আড়াই বছর পার হলেও তাদেরকে ইউনিয়ন পরিষদে ঢুকতে দেওয়া হয় না। এর আগে সাবেক এমপি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিলেও তার কোনো ফল পাননি। গত বুধবার দুপুরে ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে বরাদ্দকৃত ভিজিএফের চাউল তাদের মাধ্যমে জনগণকে দেওয়ার কথা বলতে মদনপুর ওয়ার্ডের আব্দুল আলিম, খড়িবাড়িয়া ওয়ার্ডের আব্দুল মজিদ এবং তখলপুর ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য মকবুল হোসেন পরিষদে যান। তারা সরকারের বিভিন্ন ধরনের উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে তাদের বরাদ্দ তাদের দিয়ে বন্টনের প্রস্তাব দেন। এতোদিন এই তিন নির্বাচিত প্রতিনিধিকে বাদ দিয়ে চেয়ারম্যানের পছন্দের লোক দিয়ে মদনপুর ওয়ার্ডে উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি বাবলু মিয়া, খড়িবাড়িয়া ওয়ার্ডের পরাজিত প্রার্থী আব্দুল মতিন ও তখলপুর ওয়ার্ডের পরাজিত প্রার্থী কাজী আব্দুর রউফকে দিয়ে করিয়ে আসছেন। এতে চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে প্রথমে আব্দুল আলীমকে কিল ঘুষি মারতে শুরু করেন। এ সময় চেয়ারম্যানের কক্ষে থাকা তার অনুসারী বুলেট, চৌকিদার আকিদুলসহ ১৫-২০ জন হকস্টিক, লোহার রড় দিয়ে তাদের তিনজনকে মারধর করে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদেরকে উদ্ধার করে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স  ভর্তি করেন। বর্তমানে আবদুল আলীম ও আবদুল মজিদ সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।  

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাঃ মমতাজ মহল বলেন, তিনজন ইউপি সদস্যের পৃথক তিনটি আবেদন পেয়েছেন। শ্রীপুর সদর ইউনিয়নে এমন একটি ঘটনা ঘটছে তা তার জানা ছিলো না। উভয় পক্ষকে নিয়ে বসে আলোচনার মাধ্যমে অচিরেই এ সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করছি।

আরও খবর