Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

চার সন্তানের মাকে নিয়ে সাবেক মেম্বার উৎসব উধাও

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩০জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর প্রতিনিধি:পরকীয়া প্রেমে চার সন্তানের মাকে নিয়ে অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছেন সাবেক মেম্বার উৎসব বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। চলতি মাসের শুরুর দিকে ঘটে ঘটনাটি। উৎসব রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির)  সাবেক মেম্বার। সে দেওপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির)  চেয়ারম্যান বেলাল উদ্দিন সোহেলের আপন চাচাতো ভাই। উৎসব তার চাচাতো ভায় জনির স্ত্রী কে নিয়ে লাপাত্তা হয়েছেন। গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরে তাদের কোন হুদিস মেলেনি। শুধু তাই না সাবেক মেম্বার উৎসব দেওপাড়া ইউপির একপ্রকার অঘোষিত ক্ষমতাধর এবং তার দাপটে অতিষ্ঠ বর্তমান মেম্বারেরা বলেও প্রচার রয়েছে। উৎসবের এমন কর্মকান্ডের খবর ছড়িয়ে পড়লে ইউপি জুড়েই উঠেছে সমালোচনা, সেই সাথে বিরাজ করছে তীব্র ক্ষোভ।

জানা গেছে, গোদাগাড়ী উপজেলার দেওপাড়া ইউপির বিয়ানবোনা গ্রামের জনির স্ত্রীর সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন সাবেক মেম্বার উৎসব। জনির চার সন্তান রয়েছে। বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে উৎসব স্ত্রী সন্তান রেখে জনির চার সন্তানের বউকে নিয়ে লাপাত্তা হন। তবে এসব নিয়ে এলাকায় তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতে পারছেন না। কারন সাবেক মেম্বার উৎসব বর্তমান চেয়ারম্যানের যাবতীয় সবকিছু দেখভাল করে থাকেন। মুলত একারনেই সবার মুখ বন্ধ। 

স্থানীয়রা জানান, উৎসব পরিষদের কেউ না হলেও সর্বময় ক্ষমতার মালিক। ক্ষমতার দাপটে পরকীয়া প্রেমে ফেলে জনির সুন্দর সংসার ভেঙে ফেলেছে। তারা পরস্পর চাচা তো ভাই। উৎসবের সংসারে রয়েছে এক সন্তান। শুধু তার জন্য অকালে দুটি সংসার নষ্ট ও কয়েকজনের জীবন অন্ধকারে নিমজ্জিত হয়ে গেল। আর এসব লম্পটরা চেয়ারম্যানের ক্ষমতা কিভাবে ব্যবহার করে থাকেন এমন নানা প্রশ্ন এলাকাজুড়ে। তবে স্থানীয় সচেতন মহলের দাবি এধরণের চরিত্র হীনরা যেন চেয়ারম্যানের আশ্রয় প্রশ্রয় না পায়। কারন এদের জন্য অনেকের সুনাম নষ্ট হয়। যেহেতু তারা পরকীয়া প্রেমে অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়েছে, তারা যেন অজানায় থেকে যায় এমনটাই দাবি ইউপি বাসীর। তবে এঘটনায় কোন পক্ষই থানায় অভিযোগ করেন নি।

আরও খবর



পররাষ্ট্রমন্ত্রী তিন দিনের সফরে দিল্লি গিয়েছেন

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:তিন দিনের সফরে দিল্লি গিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্করের আমন্ত্রণে সেখানে গেলেন তিনি।মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে দিল্লিতে পৌঁছেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

আজ সন্ধ্যায় এস জয়শঙ্করের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করবেন হাছান মাহমুদ। সেখানে দ্বিপাক্ষিক ব্যবসা বাণিজ্য, তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানিবণ্টন ছাড়াও মিয়ানমারের চলমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করবেন তারা। অভিন্ন স্বার্থসংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক এবং বহুপাক্ষিক বিষয়েও মতবিনিময় করা হবে।

সফরকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের কথা নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রীর। এছাড়া, দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল ছাড়াও বিজেপি নেতাকর্মীদের সঙ্গে সাক্ষাত করবেন।

শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) কলকাতা হয়ে ঢাকা ফিরবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।


আরও খবর



ডেমরায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃডেমরা নলছাটা এলাকার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ফাতেমা রশিদ আইডিয়াল স্কুল -এ যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২৪ পালন করা হয়েছে।আজ বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকালে বাংলা ভাষার জন্য অকাতরে প্রাণ বিলিয়ে দেওয়া ভাষা-শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শোক র‌্যালি ও সকল ভাষা শহিদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন জানাতে ফাতেমা রশিদ আইডিয়াল স্কুল এর শহিদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হয়।শোক র‌্যালি শেষে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান করা হয়। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরস্কার প্রদান করেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা হাজী মোঃ মনিরুজ্জামান।।এসময় উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি’সহ স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কমকর্তা,  কমচারী প্রমুখ।ফাতেমা রশিদ আইডিয়াল স্কুলের প্রধান শিক্ষক এর সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাজী মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, “ফেব্রুয়ারি মাস আমাদের জাতিসত্তার বিকাশে এক অনবদ্য সংযোজন। অসাধারণ আত্মত্যাগের এক বিশাল অর্জন। পৃথিবীর ইতিহাসে বাঙালি এক অনন্য জাতি। পৃথিবীতে খুব কম জাতি আছে যারা ভাষা, সংস্কৃতি রক্ত দিয়ে রক্ষা করেছে। 

“রক্ত দিয়ে বাঙালি নিজের রাষ্ট্র তৈরি করেছে, তার নিজস্ব সংস্কৃতিকে বিকশিত করছে, অসম্প্রদায়িক চেতনা তুলে ধরছে। একুশের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। একুশের চেতনা হারিয়ে ফেলা যাবে না। বিশেষ করে তরুণ সমাজকে একুশের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে কাজ করতে হবে।”

এছাড়াও ডেমরা এলাকার নবমল্লিকা একাডেমী, এবং ডেমরা আইডিয়াল কলেজে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের কর্মসূচি পালিত হয়।

প্রসঙ্গত, রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে ১৯৫২ সালে ভাষা শহীদদের আত্মত্যাগের দিনটি বাংলাদেশের ইতিহাসে মহান শহীদ দিবস হিসেবে পালন হয়ে আসছে। তবে দেশের গণ্ডি ছাড়িয়ে অমর একুশে এখন পালিত হচ্ছে সারা বিশ্বে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে। ১৯৯৯ সালে ইউনেসকো একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সাংবাদিকতায় বিশেষ ভূমিকা রাখায় সাংবাদিক মোল্লা মোঃ রানাকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image
এমরান আলী রানা সিংড়া (নাটোর) প্রতিনিধি:সাংবাদিকতায় বিশেষ ভূমিকা রাখায়   সিংড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি ও চয়েন বার্তার সম্পাদক সমাজ কর্মী  মোল্লা মো. এমরান আলী রানাকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়েছে।

নাটোরের সিংড়ায় অমর একুশে ফেব্রুয়ারী ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে দুই দিন ব্যাপী বই মেলা ও গুণীজন সম্মাননা অনুষ্ঠানে এ ক্রেস্ট প্রদান করেন হাতিয়ান্দহ ইউনিয়ন গণগ্রন্থাগার।

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) সন্ধায় হাতিয়ান্দহ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠ চত্বরে দুই দিন ব্যাপী অনুষ্ঠিত বই মেলার সমাপনী দিনে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। এর আগে গত শুক্রবার (১৬ ফেব্রুয়ারী) সকালে দুই দিন ব্যাপী এ বই মেলার শুভ উদ্বোধন করেন অত্র এলাকার কৃতিসন্তান বাংলাদেশ পুলিশের ডিআইজি (স্পেশাল ব্রাঞ্চ) প্রকৌশলী এ জেড এম নাফিউল ইসলাম।

মেলায় ১০ থেকে ১২ টি বইয়ের স্টল অংশগ্রহন করেন। সমাপনী দিনে সাংবাদিকতায় বিশেষ ভূমিকা রাখায় সিংড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি মোল্লা মোঃ এমরান আলী রানা ও নাটোর জেলা সমকাল প্রতিনিধি বীর মুক্তিযোদ্ধা নবীউর রহমান পিপলুকে সম্মাননা প্রদানসহ সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে গুণীজন ব্যক্তিদের সম্মাননা পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসময় কবিতা আবৃত্তি, চিত্রাংকন, নৃত্য ও বিতর্ক প্রতিযোগিতাসহ বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে অংশ গ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন অতিথিরা। হাতিয়ান্দহ ইউনিয়ন গণগ্রন্থাগারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোঃ আব্দুল মতিনের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন হাতিয়ান্দহ ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাকুর রহমান চঞ্চল, লালোর ইউপি চেয়ারম্যান একরামুল হক শুভ, দিঘাপতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান কাজী শরিফুল ইসলাম বিদ্যুৎ, নাটোর ভিক্টোরিয়া পাবলিক লাইব্রেরির সাধারণ সম্পাদক মোঃ আলতাফ হোসেন, হাতিয়ান্দহ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ প্রবীর সাহা, সিংড়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ সোহরাব, কবি মাহবুব মান্নান, আবুল হোসেন, কবি জয়নাল আবেদিনসহ গণমাধ্যম কর্মী ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

অনুষ্ঠানে লালোর উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনায় বাবা হারানো প্রাপ্তি চাকীর হাতে আবু রুশত ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে একটি সেলাই মেশিন তুলে দেন অতিথিরা।

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




অন্ধ আকরামুলের প্রতিবন্ধকতা জয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮৩জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃ০৬-০২-২৪ ইং।এমন অনেকেই আছেন, যারা জীবনটাকে এগিয়ে নিচ্ছেন প্রতিকূলতাকে অগ্রাহ্য করে। তারা প্রতিকূলতা বা প্রতিবন্ধকতা জয় করে পৌঁছে গেছেন সাফল্যের চূড়ায়। এমনই একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী আকরামুল ইসলাম। তিনি প্রচ- ইচ্ছাশক্তিকে কাজে লাগিয়েছেন। দু’টি চোখ না থাকলেও তার কোন অভিযোগ নেই। নিজের পাশাপাশি গোটা পরিবারের দু’মুঠো খাবারের ব্যবস্থাও করেছেন তিনি। তবে এখনও কোন বিত্তবান এগিয়ে আসেনি তাকে সহায়তা করতে। আর সমাজ সেবা দপ্তর বলছে, তাকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে।

আকরামুল হোসেন। বাড়ি মেহেরপুরের গাংনীর বাওট গ্রামে। পাঁচ ভায়ের মধ্যে আকরামুল তৃত্বীয়। তার বয়স যখন তিন, তখন নানা রোগে ্ধসঢ়;আক্রান্ত হয়ে দৃষ্টিশক্তি হারিয়ে ফেলেন। শিশুকালে দু চোখের আলো নিভে গেলেও হার মানে নি আকরামুল। দিব্যি সংসারের যাবতীয় কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। অদম্য ইচ্ছা শক্তির কাছে অন্ধত্ব বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি। সেই ছোট্টকালে বাবার হাতের কাজ উপলব্ধি করতে পেরে সে বিদ্যা কাজে লাগিয়ে চারজনের সংসারের ব্যায়ভার বহন করছেন তিনি। আকরামুল ইসলাম জানান, সংসারের অন্যান্য কাজ সাধারণ সুস্থ সবল মানুষের মতোই নিজ হাতে করেন তিনি। নিজেই দোকান থেকে জিনিষপত্র কেনাকাটা করে থাকেন।

ছোট কালে বাবার কাছ থেকে সব কাজের হাতেখড়ি তার। প্রথমে তার বাবাই কিভাবে বাঁশ কঞ্চি কেটে কাজ করতে হয় সেটা রপ্ত করিয়েছেন। এখন কারো সাহায্য ছাড়াই কাজ করেন তিনি। বাঁশ ও কঞ্চি কেটে ঝুড়ি তৈরী নয়, গাছে উঠে নারকেল পেড়ে আনা, পুকুরে নেমে মাছ ধরাসহ যাবতীয় কাজ এখন তার করায়ত্বে।

আকরামুলের মা ছানোয়ারা খাতুন জানান, খুব ছোট বেলা আকরামুলের হাম জ¦র ও পেটে ব্যাথা হওয়ার পর চোখ মেলতে পারতোনা সে। পরে আর চোখে দেখতে পারে না। সে তার বাবার কাছ থেকে কাজ শিখেছে। সংসারে চার জন লোক। হাতের কাজ করে এদের দুমুঠো আহারের ব্যবস্থা করে আকরামুল। সরকারের সহযোগিতা কামনা করেছেন তিনি।

বড়ভাই আনারুল ইসলাম জানান,বাল্য বয়স থেকে আকরামুল মেধাবি। অনুখে তার দুচোখ অন্ধ হলেও সাভাবিক কাজকর্ম করতে পারে সে। কোন কাজ একটু হাতে ধরিয়ে দিলেই অনায়াসে করতে পারে। তবে তার সংসারের ব্যায়ভার বহন করা বেশ কষ্টকর হয়ে দাড়িয়েছে।

প্রতিবন্ধী ভাতা ছাড়া তার কপালে জোটেনি কোন সরকারী সহযোগিতা।

আকরামুলের স্ত্রী শাহারবানু জানান, অন্ধ মানুষকে বিয়ে করলেও এখন সেই মানুষটিকে নিয়ে গর্ব হয়। সংসারের খরচ যোগাড় করতে গিয়ে হিমশিম খেতে হয় তার। একটি ঝুপড়ি ঘরে তাদের বসবাস। সরকার যদি একটা ঘরের ব্যবস্থা করতো তাহলে পরিবারটি একটি আশ্রয় পেতো বলে জানান তিনি।

গাংনী উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আরশাদ আলী জানান, আকরামুলের ঘটনাটি শুনেছেন। তার জন্য প্রতিবন্ধী ভাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভিক্ষা বা কোন খারাপ কাজ না করে আকরামুলের মতো স্মার্ট হওয়ার আহবান জানান তিনি।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




তিতাসের এমডি হারুনুর রশিদ মোল্লাহ বিস্ময়কর প্রতিভার অধিকারী একজন কর্মবীর

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

যে বিস্ময়কর প্রতিভার যাদুস্পর্শে বাংলাদেশের জ্বালানি সেক্টরে বিশেষ করে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড লুটপাটের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে তিনি হলেন প্রতিষ্ঠানটির বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. হারুনুর রশীদ মোল্লাহ। তার কঠোর মনোভাব এবং অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করায় ঘুষ বাণিজ্য ও লুটপাট কমে এসেছে বহুগুণ।দেশের গ্যাস বিতরণের ছয় কোম্পানির মধ্যে শীর্ষে উঠে আসে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড।মো. হারুনুর রশীদ মোল্লাহ তিতাসের এমডি পদে দায়িত্ব নেয়ার ২ বছরের মধ্যে ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৪৮৬টি গ্যাসের চুলার সংযোগ, ৫১৫টি শিল্প, ৫২৯টি বাণিজ্য, ১৭৯টি ক্যাপটিভ ও ৫৪টি সিএনজি গ্রাহকের অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এছাড়া ৭৪৪ দশমিক ৪১ কিলোমিটার অবৈধ গ্যাসের পাইপলাইন অপসারণ করা হয়েছে। প্রিপেইড মিটার স্থাপনে আর্থিক লেনদেন না করতে সর্বসাধারণের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিতাসের পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন। বিভিন্ন অনিয়ম ও অবৈধ কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দুই মেয়াদে তিনি ৫ জনকে বরখাস্ত, ১৪ জনকে সাময়িক বরখাস্তসহ মোট ১৮৯ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধরনের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিয়েছেন। তিতাসের কার্যক্রম গতিশীল করতে ১ হাজার ৫০ জনকে বিভিন্ন স্থানে বদলি করেছেন।যে ধারা এখনো অব্যাহত রয়েছে। ২০২১ সালের অক্টোবর থেকে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে মোট ৪০৪ দশমিক ০৬ কোটি বকেয়া টাকা আদায় করেছেন।দীর্ঘদিন কোম্পানিটির বিরুদ্ধে অবৈধ গ্যাস সংযোগ দেওয়া, প্রশাসনিক বিশৃঙ্খলা, নিম্নমানের গ্রাহকসেবার অভিযোগ থাকলেও বর্তমানে এসব অভিযোগ কমে এসেছে। বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে সব ধরনের অনিয়ম কমে এসেছে। অবৈধ গ্যাস সংযোগ প্রায় বন্ধ হয়েছে। প্রশাসনে ফিরেছে শৃঙ্খলা। গ্রাহকসেবার মানও বেড়েছে আগের যে কোনো সময়ের তুলনায়। কর্মদক্ষতা ও অভিজ্ঞতা বিবেচনায় মো. হারুনুর রশীদ মোল্লাহ দেশের গ্যাস বিতরণের ছয় কোম্পানির মধ্যে সকলের চেয়ে এগিয়ে আছেন।তার ব্যাবস্থাপনায় গ্রাহকের দাড়প্রান্তে সেবা পৌছে দিতে তিতাস গ্যাসের বেশ কয়েকটি জোনাল অফিস নিজস্ব ভবনে স্থানান্তরিত হয়েছে।

তিতাস গ্যাসের এতসব সংস্কার হওয়ার কারণে অবৈধ গ্যাস সংযোগ থেকে মাসোয়ারা আদায়কারী ও ঘুষের সাথে জড়িত ঘাপটি মেরে থাকা কিছু ষড়যন্ত্রকারীরা এই মানুষটিকে নিয়ে বিভিন্ন ভাবে তার ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার চেষ্টা করে যাচ্ছে। হারুনুর রশিদ মোল্লাহ তিতাস গ্যাস কোম্পানিকে একটি শক্ত ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। একারণে দিন রাত তার অবিরাম চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তিনি শুধু তিতাস গ্যাসের এমডি নন, তিনি একজন কর্মবীর ব্যাক্তিও বটে।


আরও খবর