Logo
আজঃ শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

ব্যাংকিং সেবা খাতে রূপান্তর ঘটাচ্ছে হুয়াওয়ে’র স্মার্ট ও ইন্টেলিজেন্ট সল্যুশন্স: সেমিনারে বক্তারা

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ২৬১জন দেখেছেন

Image

স্মার্ট ও ইন্টেলিজেন্ট সল্যুশন্সের মাধ্যমে বৈশ্বিকভাবে হুয়াওয়ে ব্যাংকিং সেবা খাতে রূপান্তর ঘটাচ্ছে বলে জানিয়েছেন খাতসংশ্লিষ্টরা। “ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন ইন ব্যাংকিং সেক্টর” শীর্ষক এক সেমিনার থেকে এমন বক্তব্য উঠে এসেছে। হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়া আয়োজিত এ সেমিনারে বাংলাদেশের ২৫টিরও বেশি ব্যাংকের ঊর্ধ্বতন ও মধ্যম সারির কর্মকর্তারা অংশ নেন। হুয়াওয়ে এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের (ইবিজি) প্রোডাক্ট পোর্টফোলিও এবং যেসব কেইস ও সাকসেস স্টোরি ব্যাংকিং খাতে ডিজিটাল ও ইন্টেলিজেন্ট সল্যুশন্সের ক্ষেত্রে অবদান রাখছে, তা তুলে ধরাই ছিল এ সেমিনারের উদ্দেশ্য।

থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম্‌স প্রাইভেট লিমিটেডের সাথে সহযোগিতার মাধ্যমে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ একাডেমিতে সম্প্রতি এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এলেন লিউ; হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়া এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের ফিন্যান্স সেক্টরের কান্ট্রি হেড সাঈদ শামীম নূর; হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের ডেপুটি সিইও ঝাং চেং (জাস্টিন); থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম্‌স প্রাইভেট লিমিটেডের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং হেড রিয়াজুল ইসলাম এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. হারুন উর রাশেদ খান।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এলেন লিউ এবং থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম্‌স প্রাইভেট লিমিটেডের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং হেড রিয়াজুল ইসলাম। এছাড়া এশিয়া প্যাসিফিক এন্টারপ্রাইজ ফিন্যান্স অ্যাকাউন্ট বিভাগের সল্যুশন ডিরেক্টর সিজে চেং, এপিএসির ডেটা সেন্টার সল্যুশন্সের টেকনিক্যাল ডিরেক্টর লিন গুয়ানরুই এবং হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়া নেটওয়ার্ক সল্যুশন্সের ইবিজির এন্টারপ্রাইজ এসআর অ্যান্ড হেড মির্জা মো. আনজামুল বাশেদ বিভিন্ন বিষয়ে বিভিন্ন তথ্য তুলে ধরেন। এসব বিষয়ের মধ্যে রয়েছে- ব্যাংকিং শিল্পে ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন, ডেটা স্টোরেজ ও ব্যাকআপ, অ্যান্টি-র‌্যানসামওয়্যার সল্যুশন্স ও হুয়াওয়ে আইপি সল্যুশন্স।

হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়ার এন্টারপ্রাইজ বিজনেস গ্রুপের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এলেন লিউ বলেন, “হুয়াওয়ে স্মার্ট ও ইন্টেলিজেন্ট সল্যুশন্সের মাধ্যমে বৈশ্বিকভাবে ব্যাংকিং সেবাকে রূপান্তরিত করছে। আমাদের ব্যাংকিং গ্রাহকদের জন্যে আমরা এমন একটি পরিবেশ তৈরি করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ যাতে তারা ব্যবসায়িক কার্যক্রম ও ব্যয় ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে পারে। ব্যাংকিং ইকোসিস্টেমে পরিবর্তন আনলে সেবার উদ্ভাবন ও সিস্টেম উন্নয়নের ওপর আরও গুরুত্ব দেয়ার সুযোগ তৈরি হবে। আমি আশা করছি যে স্মার্ট বাংলাদেশের রূপকল্প অর্জনে আমাদের যে সমন্বিত লক্ষ্য রয়েছে, তা অর্জনে হুয়াওয়ে ও বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো একসঙ্গে কাজ করবে।’’

থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম্‌স প্রাইভেট লিমিটেডের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং হেড রিয়াজুল ইসলাম বলেন, “ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশনের প্রভাব অনেক বেশি এবং আমাদের দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই এর ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। এটি আমাদের জন্য সীমাহীন সুযোগের দরজা খুলে দেয়। হুয়াওয়ে’র মতো ভবিষ্যৎ-বান্ধব সহযোগী প্রতিষ্ঠানকে সঙ্গে নিয়ে থাকরাল ইনফরমেশন সিস্টেম্‌স বাংলাদেশে একটি ডিজিটাল ব্যাংকিং ইকোসিস্টেমের জন্য পরিবর্তন আনার লক্ষ্যে কাজ করছে।”

একটি স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে হুয়াওয়ে ব্যাংকিং গ্রাহকদের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে বদ্ধপরিকর। দেশকে স্মার্ট বাংলাদেশের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে নিতে ধারাবাহিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে হুয়াওয়ে। এই রূপান্তরকে ত্বরান্বিত করতে হুয়াওয়ে সাউথ এশিয়া বিভিন্ন উদ্যোগের পাশাপাশি ইন্ডাস্ট্রির স্টেকহোল্ডারদের নিয়ে একসঙ্গে কাজ করছে।


আরও খবর



কামরাঙ্গীরচরে তিতাস গ্যাসের বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযান

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ২২২জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করণের জন্য কামরাঙ্গীর চর এলাকার ৫৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেনসহ তিতাস গ্যাসের বিচ্ছিন্ন টিম নিয়ে এক অভিযান কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। বুধবার ৩ জুন  এই অভিযান চালিয়েছে তিতাস গ্যাস মেট্রো ঢাকা রাজস্ব বিভাগ,জোন৫-ধানমন্ডি অফিস কর্তৃপক্ষ।এ সময় তিতাস গ্যাসের জোন ৫-ধানমন্ডি অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক এমদাদুল হক সহ কর্মকর্তা- কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


 উল্লেখ্য যে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হারুনুর রশীদ মোল্লাহ কোম্পানীকে লোকসানের হাত থেকে রক্ষা করতে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন,বকেয়া আদায় এবং রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।এ কারনে  মাঠ পর্যায়ে তিতাস গ্যাসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের নানা দিক নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। সেই দিকনির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে নিয়মিত এই ধরনের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

তিতাস গ্যাসের মেঢারাবি জোন ৫-ধানমন্ডি অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক মোঃ এমদাদুল হক জানান, আজকে আমরা বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করণের জন্য কামরাঙ্গীর চর এলাকার ৫৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন কে সাথে নিয়ে অভিযানে নেমেছি, এই ধরনের অভিযান নিয়মিত অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



মেডিকেলের শিক্ষার্থীরা এবার রাজপথে

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ৫৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এবার কোটা সংস্কারপন্থী শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা জানিয়ে রাজপথে নেমেছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজের (ঢামেক) শিক্ষার্থীরা।

সোমবার (১৫ জুলাই) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজের একাডেমিক ভবনের সামনে থেকে বিক্ষোভ নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যান শিক্ষার্থীরা।

এ সময় শিক্ষার্থীদের হাতে ‘নারী যেখানে অনন্যা, কোটা সেখানে অবমাননা’ ‘কোটা দিয়ে কামলা নয়, মেধা দিয়ে আমলা চাই’ ‘দফা এক দাবি এক, কোটা নট কামব্যাক’ ‘একাত্তরের সন্তানেরা গর্জে ওঠো আরেকবার’ লেখা সংবলিত প্ল্যাকার্ড দেখা গেছে।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে শিক্ষার্থীরা বলেন, কোটা একটি অভিশাপ। স্বাধীনতার ৫৩ বছর পরও ৫৬ শতাংশ কোটা একটি অনায্য ব্যবস্থাপনার ফল। আমরা চাই সরকার কোটা সংস্কার করে একটি যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে আসুক।

সারাদেশে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় নিন্দা জানান তারা। দেশের আপামর ছাত্রজনতাকে উত্তেজিত করে তার পরিণতি কখনোই ভালো হয়নি বলেও হুঁশিয়ারি দেন তারা।

এরপর শিক্ষার্থীরা মিছিল নিয়ে পুনরায় ঢাকা মেডিকেল কলেজের ক্যাম্পাসে ফিরে যান।


আরও খবর



মারা গেছেন ‘জল্লাদ’ শাহজাহান

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ১১৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা মামলার মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৬ আসামিসহ প্রায় ২৬ জনের ফাঁসির দড়ি টানা আলোচিত ‘জল্লাদ’ শাহজাহান ভূঁইয়া মারা গেছেন।

আজ সোমবার (২৪ জুন) রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

কারা সূত্রে জানা যায়, জল্লাদ শাহজাহান ২০০১ সাল থেকে এ পর্যন্ত ২৬ জনের ফাঁসি দিয়েছেন। এর মধ্যে ছয়জন বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি, চারজন যুদ্ধাপরাধী, জঙ্গি নেতা বাংলাভাইসহ দুজন জেএমবি সদস্য এবং আরও ১৪ জন অন্যান্য আলোচিত মামলার আসামির ফাঁসি কার্যকর করেছেন তিনি।

জল্লাদ শাহজাহানের বোন ফিরোজা বেগমর জানান, ভাই বেশ কিছুদিন ধরে ঢাকার অদূরে হেমায়েতপুরে থাকতেন। রোববার রাতে তার বুকে ব্যথা শুরু হলে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানেই তিনি মারা যান।

জানা যায়, ১৯৯১ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার পর ৩৬টি মামলায় শাহজাহানের ১৪৩ বছরের সাজা হয়। পরে ৮৭ বছরের সাজা মাফ করে তাকে ৫৬ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। ফাঁসি কার্যকর ও সশ্রম কারাদণ্ডের সুবিধার কারণে সেই সাজা ৪৩ বছরে এসে নামে। দুটি মামলায়পাঁচ হাজার টাকা করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাস করে অতিরিক্ত এক বছর জেল খেটে ৩২ বছর পর ১৮ জুন মুক্ত আকাশে শ্বাস ফেলার সুযোগ পাবেন জল্লাদ শাহজাহান।

সহযোগী জল্লাদ হিসেবে গফরগাঁওয়ের নূরুল ইসলামকে ফাঁসি দিয়ে শাহজাহান তার জল্লাদ জীবনের সূচনা করেন। এরপর কারাগারে কারও মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের সময় আসলেই ডাক পড়তো তার। টানা আট বছর এই কাজ করার পর কারা কর্তৃপক্ষ তাকে প্রধান জল্লাদের স্বীকৃতি দেন।


আরও খবর



সৈয়দপুরে মেরামতে আসা ট্রেন লাইনচ্যূত : চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১১১জন দেখেছেন

Image

খোকন সৈয়দপুর( নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় মেরামতে আসা ট্রেন লা্ইনচ্যূত হয়েছে। শনিবার (১৩ জুলাই) বেলা  আনুমানিক আড়াইটায় সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার ২০০ গজ দূরে ওই ট্রেনটির লাইনচ্যূতের ঘটনা ঘটে। ফলে চিলাহাটি থেকে সৈয়দপুর হয়ে চলাচলকারী খুলনা, রাজশাহীগামীসহ অন্যান্য ট্রেনের চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। 

সূত্র জানায়, এসব প্রিয়ডিক্যাল ওভার হোলি বা রুটিন মেরামতের জন্য রেলওয়ে কারখানায় আনা হচ্ছিলো ওইসব কোচ। ট্রেনটি ঈদের বিশেষ ট্রেন হিসাবে জয়দেবপুর-পার্বতীপুর রুটে চলাচল করেছে। ট্রেনটির বহরে ১৩ কোচ রয়েছে। এরমধ্যে কয়েকটি কোচ লাইন চ্যূত হয়ে পড়ে। ফলে সৈয়দপুর -পার্বতীপুর রুটে সকল ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায় বলে জানান স্টেশন মাস্টার ওবাইদুল ইসলাম রতন। এছাড়া রেলঘুন্টিতে ট্রেন বহরটি আটকে থাকায় শহরে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়ে যায়। 

সৈয়দপুর রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন উপসহকারী প্রকৌশলী (পথ) মো. সুলতান মৃধা বলেন, রেলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা কাজ করছেন। তবে সন্ধ্যার আগে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হওয়ার সম্ভাবণা কম বলে জানান তিনি। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



চারাগাঁও সীমান্তে রাতে কয়লা,দিনে বালি পাচাঁর: দেখার কেউ নাই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

মোজাম্মেল আলম ভূঁইয়া-সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:সুনামগঞ্জের চারাগাঁও সীমান্তে সোর্স পরিচয়ধারী একাধিক মামলার আসামীরা সরকারের লাখলাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে রাতে কয়লা এবং দিনের আলোতে প্রকাশে বালি-পাথর পাচাঁর করছে। শুধু তাই নয়, সোর্সরা পাচাঁরকৃত অবৈধ মালামাল থেকে বিজিবি, পুলিশ ও সাংবাদিকদের নাম ভাংগিয়ে করছে চাঁদাবাজি। তারা দীর্ঘদিন চোরাচালান ও চাঁদাবাজি করে হয়েগেছে কোটিপতি। তারপরও সোর্সদের বিরুদ্ধে নেয়া হয়না আইনগত কোন পদক্ষেপ। উদ্ধার করা হয়না তাদের অর্জিত অবৈধ অর্থ-সম্পদ। তাই এব্যাপারে প্রশাসনের উপরস্থ কর্মকর্তাদের সহযোগীতা জরুরী প্রয়োজন।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে- প্রতিদিনে মতো আজ বুধবার (৩রা জুলাই) সকাল ৬টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত জেলার তাহিরপুর উপজেলার চারাগাঁও সীমান্তের কলাগাঁও নদী থেকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধ ভাবে অর্ধশতাধিক স্টিলবডি ইঞ্জিনের নৌকা দিয়ে বালি বোঝাই করে কিশোরগঞ্জ জেলা ভৈরব ও নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা নিয়ে যায় থানার সোর্স পরিচয়ধারী রফ মিয়া ও বিজিবির সোর্স পরিচয়ধারী আইনাল মিয়া, সাইফুল মিয়া, রিপন মিয়া ও লেংড়া জামাল। শুধু তাই নয়- সীমান্ত চোরাকারবারীদের গডফাদার তোতলা আজাদের নেতৃত্বে ওই সোর্সরা ভোর ৫টায় বীরেন্দ্রনগর সীমান্তের সুন্দরবন, লামাকাটা ও চারাগাঁও সীমান্তে জঙ্গলবাড়ি, মাইজহাটি এলাকা দিয়ে ৭টি স্টিলবডি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ২৭০ মেঃটন কয়লা, পেয়াজ ও চিনিসহ মাদকদ্রব্য পাচাঁর করে ওই দুই স্থানে নিয়ে যায় সোর্সরা। এরআগে গতকাল মঙ্গলবার (২রা জুলাই) রাত ১টায় গডফাদার তোতলা আজাদের নেতৃত্বে ওই সীমান্তের বাঁশতলা ও লালঘাট এলাকা দিয়ে ৬টি স্টিলবডি ইঞ্জিনের নৌকা বোঝাই করে প্রায় ২শ মেঃটন কয়লা ও বিপুল পরিমান মদ,গাঁজা ও ইয়াবা পাচাঁর করে নিয়ে যায় সোর্স পরিচয়ধারী চোরাকারবারী রুবেল মিয়া, আমির আলী, হারুন মিয়া, বাবুল মিয়া, সোহেল মিয়া, আনোয়ার হোসেন বাবলু ও রফ মিয়া। কিন্তু অবৈধ মালামালসহ সোর্সদের গ্রেফতারের জন্য বিজিবি ও পুলিশের পক্ষ থেকে কোন পদক্ষেপ নেওয়া খবর পাওয়া যায়নি।  

চারাগাঁও শুল্কস্টেশনের বৈধ ব্যবসায়ী সূত্রে জানা গেছে- বিজিবি ক্যাম্পের সামনে ও আশেপাশে অবস্থিত একাধিক ডিপুসহ সীমান্তের প্রতিটি বসতবাড়ির ভিতরের হাজার হাজার মেঃটন অবৈধ কয়লা ও মাদকদ্রব্য মজুত করে রাখা হয়। রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে পাচাঁরকৃত অবৈধ কয়লা কম দামে প্রকাশে বিক্রি হওয়ার কারণে শুল্কস্টেশনের কয়েক হাজার ব্যবসায়ী সরকারকে লাখলাখ টাকা রাজস্ব দিয়ে ভারত থেকে এলসির মাধ্যমে আমদানী করা বৈধ কয়লা ও চুনাপাথর বিক্রি করতে গিয়ে বিরাট সমস্যায় পড়তে হয়। সোর্সরা প্রতিটন চোরাই কয়লা থেকে বিজিবির নামে ৮শত টাকা, থানার নামে ১হাজার টাকাসহ মোট ২৩শ টাকা চাঁদা নেয়। এছাড়া বালির নৌকা থেকে ৭শ টাকা, ১ বস্তা পেয়াজ থেকে ২শ টাকা, ১বস্তা চিনি থেকে ৩শ টাকা করে চাঁদা উত্তোলন করে। কিন্তু চোরাচালান ও চাঁদাবাজি বন্ধের জন্য আজ পর্যন্ত নেওয়া হয়নি কার্যকর কোন আইনগত পদক্ষেপ। যার ফলে গডফাদার তোতলা আজাদ ও সোর্সরা এখন কোটিপতি।

এব্যাপারে চারাগাঁও বিজিবি ক্যাম্পের ভিআইপির দায়িত্বে থাকা সৈনিক শামীম বলেন- আমার উপরস্থ কর্মকর্তাদের নির্দেশ মতো আমি দায়িত্ব পালন করছি। তারা যে ভাবে নির্দেশ দেয় আমি সেই ভাবে কাজ করি। আপনি ক্যাম্প কমান্ডারের সাথে যোগাযোগ করুন। ক্যাম্প কমান্ডার নায়েক সুবেদার শফিকুল বলেন- আমার জানা মতে সীমান্ত এলাকা দিয়ে চোরাচালান হয়না। আপনি তথ্য দিয়েন আমি ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করব। তাহিরপুর থানার ওসি কাজী নাজিম উদ্দিন বলেন- থানা পুলিশের কোন সোর্স নাই। সীমান্ত চোরাচালান বন্ধের দায়িত্ব বিজিবির আমাদের না। এব্যাপারে বিজিবির সাথে কথা বলুন।


আরও খবর