Logo
আজঃ Wednesday ২৫ May ২০২২
শিরোনাম
বাকেরগঞ্জে শাশুড়িকে খুন

বরিশালের বাকেরগঞ্জে সন্তানের দুধ কিনতে টাকা না দেওয়ায় শাশুড়িকে খুন

প্রকাশিত:Friday ১৩ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ২১৫জন দেখেছেন
Image

বরিশাল প্রতিনিধিঃ


সন্তানের দুধ কেনার জন্য গচ্ছিত দুই হাজার টাকা রাখা ছিল আলমারিতে। চাবি না দেওয়ায় পুত্রবধূ শাশুড়ির সঙ্গে বাগবিতণ্ডা ও ধস্তাধস্তির শুরু করেন। এ সময় শাশুড়ি নাজনীন বেগম পুত্রবধূকে হত্যার জন্য ছুরি বের করেন। পরে পুত্রবধূ সুমাইয়া আক্তার লাবণ্য ছুরি কেড়ে নিয়ে শাশুড়িকে উপর্যুপরি কুপিয়ে ফেলে রেখে যান।


বৃহস্পতিবার (১২ মে) বরিশালের বাকেরগঞ্জ আমলি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে এসব কথা বলেন অভিযুক্ত পুত্রবধূ সুমাইয়া আক্তার লাবণ্য।


বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাকেরগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সত্যরঞ্জন খাসকেল। তিনি জানান, অভিযুক্তর দুগ্ধপোষ্য ছয় মাস বয়সী এক ছেলে রয়েছে। আদালতের নির্দেশে তাকেও মায়ের সঙ্গে থাকার অনুমতি দিয়েছে।


হত্যাকাণ্ডটি পরিকল্পিতভাবে করেছেন বলে ধারণা করে পরিদর্শক বলেন, এ ঘটনার সঙ্গে প্রাথমিকভাবে আর কারও সম্পৃক্ততা না পাওয়া গেলেও স্বামীর অব্যাহত অবহেলা ও শাশুড়ির অত্যাচারে এমন ঘটনা ঘটেছে বলেও দাবি করেছেন লাবণ্য।


 অভিযানিক দল যখন লাবণ্যকে গ্রেফতারে যায়, তখন তিনি জায়নামাজে বসা ছিলেন। তিনি প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার কথা স্বীকার করেন। আদালতেও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন।


আদালতের বরাত দিয়ে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, নিহত শাশুড়ি নাজনীন বেগমের স্বামী হানিফ হাওলাদার গত বছরের শেষ দিকে মারা যান। তার আগে থেকেই লাবণ্যর বাবা খলিল হাওলাদারের সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্ক ছিল তার শাশুড়ির। 



আবার লাবণ্যর স্বামী উজ্জল হাওলাদার ঢাকায় একটি চশমার দোকানে কারিগর হিসেবে কাজ করেন। তিনিও সেখানে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। দুটি বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝামেলা শুরু হয়। গত ঈদুল ফিতরের ছুটিতে উজ্জল বাড়িতে আসেন। তখন এসব বিষয় নিয়ে কথা উঠলে ৮ মে লাবণ্যকে বাড়ি থেকে বের করে দেন স্বামী ও শাশুড়ি। ১০ মে আবার ঢাকায় চলে যান উজ্জল।


এরপর প্রতিদিন উজ্জলকে ফোন করতেন লাবণ্য। শাশুড়ির কাছেও জানাতেন তার ছয় মাস বয়সী সন্তান মুজাহিদুল ইসলামের দুধ কেনার টাকা নেই। কিন্তু স্বামী ও শাশুড়ি এতে কোনো গুরুত্ব দেননি।



 বুধবার (১১ মে) সন্ধ্যায় শাশুড়ির কাছে আসেন লাবণ্য। আলমারির চাবি চান। শাশুড়িকে জানান, আলমারিতে দুই হাজার টাকা আছে তা নিয়ে ছেলের জন্য দুধ কিনবেন। কিন্তু শাশুড়ি চাবি দিতে রাজি হননি। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হলে শাশুড়ি পুত্রবধূকে হত্যার জন্য ছুরি নেন। সেই ছুরি কেড়ে নিয়ে শাশুড়িকে উপর্যুপরি কুপিয়ে চলে যান লাবণ্য।


শাশুড়ির গলায় দুটি ও বুকে তিনটি ছুরির কোপ ছিল। ছুরির আঘাতে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মৃত্যু হয় বলে মনে করেন এই পুলিশ পরিদর্শক।


তবে তদন্ত-সংশ্লিষ্ট এক পুলিশ কর্মকর্তা জানান, পুরো ঘটনা অনুসন্ধানে মনে হয়েছে হত্যাকাণ্ডটি পরিকল্পিত। কারণ, অভিযুক্ত নারী যখন শাশুড়ির কাছে আসেন, তখন তার সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে আসেননি। এমনকি সঙ্গে মোবাইলও আনেননি। সঙ্গে ছুরি নিয়ে এসেছিলেন। বোরকা পরে এসে শাশুড়িকে কুপিয়ে বাসায় গিয়ে সন্তানকে দুধ খাইয়ে জায়নামাজ বিছিয়ে নামাজ পড়তে বসেন। লাবণ্য ভারতীয় সিরিয়াল সিআইডি দেখে হত্যার পরিকল্পনা করেন এবং সে অনুসারে হত্যাকাণ্ড ঘটান।


প্রসঙ্গত, বুধবার (১১ মে) রাত সাড়ে ৯টার দিকে বাকেরগঞ্জ উপজেলার রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের কাঁঠালিয়া গ্রামে রক্তাক্ত নারীর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে উজ্জল বাদী হয়ে তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন|


আরও খবর



একটি শোক সংবাদ

একটি শোক সংবাদ

প্রকাশিত:Thursday ১৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ৯৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী গোকর্ণ ইউনিয়নের ব্রাহ্মণশাসন গ্রামের কৃতি  সন্তান,বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের সিনিয়র  আইনজীবী এডভোকেট মোঃ মাহফুজ মিয়া আজ ১৯ মে ২০২২ রোজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০ঘটিকার সময় রাজধানী ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেন।

ইন্নালিল্লাহে,,,রাজিউন)।


তিনি ছিলেন বৃহত্তর কুমিল্লা আইনজিবী সমিতির সিনিয়র সভাপতি ও  ঢাকাস্থ নাসিরনগর উপজেলা সমিতির আজীবন সদস্য। ব্যাক্তি জীবনে তিনি খুবই সজ্জন,সদালাপি,আমোদপ্রিয় মানুষ ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি দুই পুত্র, স্ত্রীআত্মীয় স্বজন বন্ধু বান্ধ সহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।


তার বড় ছেলে চাকুরীজীবি,ছোট ছেলে ব্যারিষ্টার আর স্ত্রী অবসর প্রাপ্ত স্কুল শিক্ষিকা।তার মৃত্যুতে গভীর শোক ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম( বি,এম,এস,এফ) নাসিরনগর উপজেলা শাখার সভাপতি দৈনিক দেশ রূপান্তর ও এশিয়ান টেলিভিশনের নাসিরনগর উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ আব্দুল হান্নান


আরও খবর



ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের তদন্ত কমিটির উপস্থিতিতে যাত্রাবাড়ীর বর্ণমালা স্কুলে অভিভাবকদের মিছিলে হামলা : আহত ২

প্রকাশিত:Thursday ১৯ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ১৬৪জন দেখেছেন
Image


নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীর বর্ণমালা আদর্শ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে জালিয়াতির মাধ্যমে গঠিত পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।  বৃহস্পতিবার  বেলা ১১টার দিকে তদন্তকারী  কর্মকর্তারা স্কুল পরিদর্শনে এলে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা কমিটির সভাপতি আব্দুস সালাম বাবুর অপসারণের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করে।


এ সময় সালাম বাবুর লোকজন মিছিলকারীদের উপর হামলা চালালে মাহফুজ নানে একজনসহ দুজন গুরুতর আহত হয়। এ ছাড়া তদন্ত কর্মকর্তাদের সামনেই সভাপতির লোকজন তার বিরুদ্ধে সাক্ষ্যদানকারীদের সাথে বিবাদে লিপ্ত হয়। পরিস্থিতি অস্বাভাবিক পর্যায়ে গেলে যাত্রাবাড়ী থানা পুলিশ এসে তা নিয়ন্ত্রণ করে।


এদিকে, বর্নমালা স্কুলের অধ্যক্ষ ও সভাপতির দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ তদন্ত কমিটি গঠন করে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, ঢাকা। বোর্ডের চেয়ারম্যানের আদেশক্রমে কলেজ পরিদর্শক প্রফেসর আবু তালেব মো. মোয়াজ্জেম হোসেন স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে (স্মারক নং ৬১৮/ক/স্বী:/৯৫/(অংশ-১)৩৩৪) এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এর আগে স্কুলটির অধ্যক্ষ ও পরিচালনা কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতি, অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ করেন সহকারি সিনিয়র শিক্ষক ফরিদা ইয়াসমিন।


অভিযোগে জানা যায়, বর্ণমালা স্কুলে অবৈধভাবে পরিচালনা কমিটি গঠন, ঘুষের বিনিময়ে শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি, জামায়াত সমর্থিত শিক্ষকদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে পদায়ন, কোচিং বাণিজ্য, উন্নয়নের নামে লাখ লাখ টাকা লোপাট, ভূয়া ভাউচারে লাখ লাখ টাকা লোপাট, পরীক্ষা ও কোচিং বাণিজ্যসহ অধ্যক্ষ ও সভাপতির স্বেচ্ছাচারিতায় সাধারণ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা অতিষ্ঠ। বিদ্যালয়ের ফান্ডের কোটি কোটি লোপট করে ইতোমধ্যে অধ্যক্ষসহ তার অনুসারীরা কোটি কোটি টাকা সম্পদের মালিক এবং সভাপতি শত কোটি টাকার মালিক হয়েছেন।


এসব বিষয়ে প্রতিবাদ করতে গেলেই শিক্ষকদের উপর নানাভাবে নির্যাতন চালানো হয়। কয়েকজন অভিভাবক বলেন, এক যুগেরও বেশি সময় ধরে একজন ব্যক্তিই সভাপতির দায়িত্ব পাওয়ায় দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতা মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। শিক্ষকরা নির্যাতিত হচ্ছে। অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। আমরা নির্বাচিত প্রতিনিধি চাই।


আরও খবর



ঢাকা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জাহানারা বেগম ওমরাহ পালনের উদ্দেশ্যে মক্কা নগরীতে অবস্থান করছেন

ঢাকা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জাহানারা বেগম ওমরাহ পালনে পবিত্র মক্কা নগরীতে অবস্থান করছেন

প্রকাশিত:Sunday ১৫ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ১১৪জন দেখেছেন
Image

সোহরাওয়ার্দীঃ

ঢাকা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক জাহানারা বেগম ওমরাহ পালনের উদ্দেশ্যে গত ১৩ মে সৌদি আরবের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করেন।


শুক্রবার ১৩ মে রাতে কাতার এয়ারলাইন্সের বিমানে তিনি সৌদি আরবের জেদ্দা বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান।


এ সময় তার সফর সঙ্গী হিসেবে জাহানারা বেগমের মা আনোয়ারা বেগম এবং মামী জোহরা খাতুন সঙ্গে ছিলেন।


আজ তারা সকলে সাফা মারওয়া সাতবার প্রদক্ষিন শেষে ওমরা হজের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করেছেন।

বর্তমানে তারা সকলে মক্কার একটি তিন তারকা হোটেলে অবস্থান করছেন।


২০ মে সকালে তারা মদিনা শরীফের উদ্দেশ্যে মক্কা নগরী ত্যাগ করবেন।


যথারীতি ওমরা হজের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হলে ২৮ মে বিকেলের ফ্লাইটে তারা ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দিবেন।


জাহানারা বেগম জানান এ সময় তিনি দেশবাসী সহ কেরানীগঞ্জের সকল  আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর জন্য বিশেষভাবে দোয়া করবেন।


আরও খবর



নাসিরনগরে নদীর পাড়ে ধানতোলা নিয়ে দু দল গ্রাম বাসীর মাঝে সংর্ঘষ

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ April ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ১৪৮জন দেখেছেন
Image


মোঃ আব্দুল হান্নান, নাসিরনগর, (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)

২৬ এপ্রিল ২০২২ রোজ মঙ্গলবার বেলা অনুমান আড়াই ঘটিকার সময় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার বুড়িশ্বর ইউনিয়নের আশুরাইল ও শ্রীঘর দুই গ্রামের লোকের মাঝে নদীর পাড়ে ধানতোলাকে কেন্দ্র করে সংর্ঘষের ঘটনা ঘটে। প্রায় আধা ঘন্টা ব্যপী সংর্ঘষ চলাকালে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। সংঘর্ষে উভয় গ্রামের প্রায় ২০ জন আহত হওয়া খবর পাওয়া গেছে।


আহতদের মাঝে মিজান মিয়া (৩০), আরজান মিয়া (২০), দিপু মিয়া (২০), দানা মিয়া (২৮), আরমান (২২), মহসিন (১৯) শফিকুল (১৮), সাইফুল ইসলাম (২৪), তারা মিয়া (৪০), মাহমুদুল হাসান (২৬), আব্দুল করিম (৪৫), মহসিন (১৫), জুনাইদ (১১) কে নাসিরনগর হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে দেখা গেছে। এর মাঝে একজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদস হাসপাতালে প্রেরণ ও অন্যান্যরা বিভিন্ন জায়গায় প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার খবর পাওয়া গেছে।


জানাগেছে লঙ্গন নদীর তীরে ধানতোলাকে কেন্দ্র করে শ্রীঘর গ্রামের তাজুল ইসলামের ছেলে জুনাইদ (৩৪) ও আশুরাইল গ্রামের ইউনুছ আলীর ছেলে জালাল মিয়ার মাঝে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় সংঘর্ষ চলাকালীন সময়ে শ্রীঘর গ্রামের মৃত সানু মিয়ার ছেলে নায়েব উল্লাহ (৪৫) ঘটনাস্থলেই মারাযায়। তবে নিহতের শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। শুধু ডান পায়ের আটুর নীচে পুরাতন সামান্য একটি আঘাত রয়েছে বলে জানাগেছে। নিহত নায়েব উল্লাহকে নাসিরনগর সদস হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মোঃ আশিক মর্তুজা সীমান্ত বলেন প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে নায়েব উল্লাহ হার্টএটাকে মারা যেতে পারে তবে প্রয়োজনীয় পরিক্ষা নিরীক্ষা ছাড়া এখনো সঠিক ভাবে নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না বলে জানান এ কর্মকর্তা।


নাসিরনগর সরাইল আশুগঞ্জে দায়ীত্বরত (সার্কেল) সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ আনিছুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। পরিস্থিতি অনেকটা তমথমে ভাব বিরাজ করছে বলে স্থানীয় সূত্র জানাগেছে। নাসিরনগর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ হাবিবুল্লাহ সরকার জানান পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। 



আরও খবর



সরকার প্রকৃত দানশীলও ধনাট্য ব্যাক্তিদের কাছ থেকে জায়গা নেয়ার সিদ্বান্ত গ্রহন করেছে

নাসিরনগরে জায়গা দানকারীদের নামে কমিউনিটি ক্লিনিক হচ্ছে

প্রকাশিত:Monday ২৩ May ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ২৫ May ২০২২ | ৯৬জন দেখেছেন
Image

মোঃ আব্দুল হান্নানঃ-

সরকার স্বাস্থ্যসেবার মান সাধারণ মানুষের দুরগোড়ায় পৌছে দিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়নের যে সমস্ত ইউনিয়নে কমিউনিটি ক্লিনিক সংকট রয়েছে সে সমস্ত ইউনিয়নে পুনরায় কমিউনিটি ক্লিনিক চালুর সিদ্বান্ত নিয়েছে সরকার।


উপজেলার ১৩ টি ইউনিয়নে ৩৯ টি ক্লিনিক থাকার কথা থাকলেও ২২ টি ক্লিনিক চলমান রয়েছে।বাকী আরো নতুন ১৭ টি কমিউনিটি ক্লিনিক চালুর সিদ্বান্ত নিয়েছে সরকার।সেই হিসেবে কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মানে সরকার এবার নতুন পদ্বতি অবলম্বন করতে চলেছে।


সরকার প্রকৃত দানশীলও ধনাট্য ব্যাক্তিদের কাছ থেকে জায়গা নেয়ার সিদ্বান্ত গ্রহন করেছে।রাস্তার পাশে ও সহজে  যানবাহন  যাতায়াতের সুবিধা রয়েছে এমন জায়গা থেকে যদি কোন দয়ালু,ধনাট্য ও দানশীল ব্যাক্তি কমিউনিটি ক্লিনিকের জন্য মাত্র( ৮) আট  শতাংশ জায়গা দান করেন তাহলে ওই দানশীল ব্যাক্তির নামে কমিউনিটি ক্লিনিকটির নামকরন করা হবে এবং যাহা সারা জীবণ তার নামেই চলবে বলে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় সুত্রে জানানো হয়েছে।


নাসিরনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার অফিস সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে।আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ অভিজিৎ রায়ের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বিশেষ ভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে।


আরও খবর