Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

বন্ধুদের সঙ্গে পদ্মায় গোসলে নেমে এসএসসি পরীক্ষার্থীর মৃত্যু

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৬১জন দেখেছেন
Image

পাবনার ঈশ্বরদীতে বন্ধুদের সঙ্গে নদীতে গোসলে নেমে রাহুল হাসান সাব্বির নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থী মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার পাকশী ইউনিয়নের রূপপুর নলগাড়ি গ্রামে পদ্মার শাখা নদী থেকে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা তার মরদেহ উদ্ধার করে।

সাব্বির উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নের বড়ইচারা গ্রামের সাগর হোসেন স্বপনের ছেলে ও নতুন রূপপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

প্রত্যক্ষদর্শী পিয়াস জানান, দুপুর দেড়টার দিকে চার বন্ধু সাব্বির, শিমুল, শিহাব ও সাদ পদ্মার শাখা নদীতে গোসলে নামে। সাঁতার না জানায় সাব্বির পানিতে ডুবে যাচ্ছিল। এ সময় তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে শিমুল ও সাদও পানিতে ডুবে যায়। স্থানীয়রা শিমুল ও সাদকে উদ্ধার করতে পারলেও সাব্বির নিখোঁজ হন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা প্রায় দুই ঘণ্টা নদীতে অভিযান চালিয়ে বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে সাব্বিরকে উদ্ধারের ঈশ্বরদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

সলিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বাবলু মালিথা জাগো নিউজকে বলেন, সাব্বির রূপপুর জিগাতলায় তার নানা নাবু মেম্বারের বাড়িতে থেকে রূপপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশুনা করতো। সে এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

রূপপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আতিকুল ইসলাম আতিক জাগো নিউজকে বলেন, ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা সাব্বিরের মরদেহ উদ্ধার করেছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে তার মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


আরও খবর



সবচেয়ে কম মানুষের বসবাস বান্দরবানে

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

দেশের মোট জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন। এর মধ্যে জেলাভিত্তিক গণনায় সবচেয়ে কম মানুষ বসবাস করেন বান্দরবানে। এ জেলায় বসবাস করেন ৪ লাখ ৮১ হাজার ১০৯ মানুষ। এর মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ৪৬ হাজার ৫৯০ জন, নারী ২ লাখ ৩৪ হাজার ৩৫ জন। তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠী ১৭ জন।

বুধবার (২৭ জুলাই) নগরীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের আওতায় বিবিএস-এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত প্রথম ‘ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২’ এর প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এ তথ্য তুলে ধরা হয়।

বিবিএসের প্রতিবেদন অনুসারে, বাংলাদেশের জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন। এর মধ্যে পুরুষের সংখ্যা আট কোটি ১৭ লাখ ১২ হাজার ৮২৪ জন, নারীর সংখ্যা আট কোটি ৩৩ লাখ ৪৭ হাজার ২০৬ জন এবং তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠী ১২ হাজার ৬২৯ জন।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন। প্রাথমিক প্রতিবেদন বিষয়ক উপস্থাপনা করেন প্রকল্প পরিচালক মো. দিলদার হোসেন।


আরও খবর



মাঙ্কিপক্স: ক্যালিফোর্নিয়ায় জরুরি অবস্থা জারি

প্রকাশিত:Tuesday ০২ August 2০২2 | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

মাঙ্কিপক্সের প্রাদুর্ভাবের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রচেষ্টাকে গতিশীল করতেই ওই অঙ্গরাজ্যের মেয়র সেখানে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। গত তিন দিনের ব্যবধানে এ নিয়ে দেশটির দুই অঙ্গরাজ্যে জরুরি অবস্থা জারি করা হলো। এপির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে মাঙ্কিপক্স সংক্রমণ ব্যাপক হারে ছড়িয়ে পড়ায় জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করে দেশটির নিউইয়র্ক সিটি। শহরটিকে মাঙ্কিপক্স প্রাদুর্ভাবের ‘এপিসেন্টার’ বা ‘উপকেন্দ্র’ বলে উল্লেখ করেছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

সর্বোচ্চ স্বাস্থ্য সতর্কতা জারির ফলে নগর কর্মকর্তারা স্থানীয় স্বাস্থ্য কোডের অধীনে জরুরি আদেশ জারি করতে এবং বিস্তারের গতি কমাতে প্রয়োজনীয় যেকোনো ব্যবস্থা নেওয়ার অনুমতি পাবেন। নিউইয়র্ক সিটিতে প্রায় দেড় লাখ মানুষ মাঙ্কিপক্স সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

এদিকে ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউজম বলেছেন, সরকারি ভাবে যে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে তা গতিশীল করতে, আরও বেশি ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করা এবং লোকজন যেন সহজেই চিকিত্সা ও ভ্যাকসিন পেতে পারেন সেই প্রচেষ্টার অংশ হিসেবেই জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ভ্যাকসিন আরও সহজলভ্য করতে, সচেতনা বাড়াতে এবং ঝুঁকি কমিয়ে আনতে আমরা ফেডারেল সরকারের সঙ্গে কাজ করে যাব। ক্যালিফোর্নিয়ায় এখন পর্যন্ত মাঙ্কিপক্সের প্রায় ৮শ কেস শনাক্ত হয়েছে বলে রাজ্যের গণস্বাস্থ্য কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এটি এক বিশেষ ধরনের বসন্ত। জলবসন্ত বা গুটিবসন্তের প্রতিকার থাকলেও এই ভাইরাস এতই বিরল যে, এখনো পর্যন্ত এর নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসাপদ্ধতি জানা নেই চিকিৎসকদের। মূলত পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার কিছু দেশে এই ভাইরাসের খোঁজ মেলে। তবে নাম ‘মাঙ্কিপক্স’ হলেও একাধিক বন্যপ্রাণির মাধ্যমে ছড়াতে পারে এই ভাইরাস। এই ভাইরাস সবচেয়ে বেশি ছড়ায় ইঁদুরের মাধ্যমে।

মাঙ্কিপক্সের উপসর্গ

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাঙ্কিপক্সে আক্রান্তদের শরীরে প্রাথমিক উপসর্গের মধ্যে আছে- জ্বর, মাথা যন্ত্রণা, পিঠ ও গায়ে ব্যথার মতো লক্ষণ। এর থেকে হতে পারে কাঁপুনি ও ক্লান্তি।

এর পাশাপাশি দেহের বিভিন্ন লসিকা গ্রন্থি ফুলে ওঠে। সঙ্গে ছোট ছোট ক্ষতচিহ্ন দেখা দিতে থাকে মুখে। ধীরে ধীরে পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে ক্ষত। বিশেষজ্ঞদের দাবি, আক্রান্ত ব্যক্তির আশেপাশে থাকা ব্যক্তির মধ্যে সহজেই ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ভাইরাস।

শ্বাসনালি, ক্ষতস্থান, নাক, মুখ কিংবা চোখের মাধ্যমে এই ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে সুস্থ ব্যক্তির দেহে। এমনকি আক্রান্তের ব্যবহার করা পোশাক থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ।


আরও খবর



জাতীয় মৎস্য পদক পেলেন ২১ জন

প্রকাশিত:Sunday ২৪ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ০৩ August ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

মৎস্য সপ্তাহ-২০২২ উপলক্ষে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে জাতীয় মৎস্য পদক পেয়েছেন ২১ জন। তাদের মধ্যে স্বর্ণ পদক পেয়েছেন আটজন, রৌপ্যপদক আটজন ও ব্রোঞ্জপদক পেয়েছেন পাঁচজন।

রোববার (২৪ জুলাই) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় মৎস সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ পদক দেওয়া হয়। গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি মৎস্য সপ্তাহের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্বর্ণপদকপ্রাপ্তরা হলেন- ময়মনসিংহের ব্রক্ষপুত্র ফিশ সিড কমপ্লেক্সের এ কে এম নূরুল হক। দিনাজপুরের তাজ এগ্রো ফার্মের আবু সালেহ মো. তারেক, গোপালগঞ্জের সাভানা ফার্মের ফারহীন রিশতা বিনতে বেনজীর, কুয়াকাটার কলাপাড়া এলাকার পি এল হ্যাচারির খলিল আকন, খুলনার দাকোপ উপজেলার কোয়েস্ট একোয়াকালচারের মো. মাহবুবুল আলম হানিফ, এসিআই এগ্রোলিংক লিমিটেডের একেএম ফারায়েজুল হক আনসারী, ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত জেলা টাস্কফোর্স, বরিশাল ও মৎস্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

jagonews24

রৌপপদকপ্রাপ্তরা হলেন- ময়মনসিংহের মুস্তাকিম হ্যাচারি অ্যান্ড ফিশারিজের মো. মনিরুল ইসলাম, ফিশটেক হ্যাচারির মোহাম্মদ তারেক সরকার, রাজশাহীর মো. মসিরুদ্দীন, কক্সবাজারের বলাকা হ্যাচারির মো. নজিবুল ইসলাম, সাতক্ষীরার ফরিদ নাইন স্টারস এগ্রোর মো. বেলাল হোসেন, সালাম সি ফুডসের মো. আইনুল হক, হালতি বিল জীববৈচিত্র্য ব্যবস্থাপনা মৎস্যজীবী সংগঠন, ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার জ্যেষ্ঠ মৎস্য কর্মকর্তা।

ব্রোঞ্জপদকপ্রাপ্তরা হলেন- মৌলভীবাজারের মতিগঞ্জ গ্রামের ব্র্যাক ফিশ হ্যাচারি অ্যান্ড ব্রুড ফিশ উন্নয়নকেন্দ্র, মাছের গুণগতমানের পোনা উৎপাদনে মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার জয় মৎস্য খামারের বিনয় মালো, নরসিংদীর নরসিংদী এগ্রোর মো. হাফিজুর রহমান, প্রিয়াম ফিশ এক্সপোর্টের শেখ মো. আব্দুল কাদের ও নরসিংদী জেলার মৎস্য কর্মকর্তারা।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিমের সভাপতিত্বে মৎস সপ্তাহের উদ্বোধন ও জাতীয় মৎস পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। স্বাগত বক্তব্য দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মোহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী।


আরও খবর



প্রথমবারের মতো এআইপি সম্মাননা পেলেন ১৩ জন

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য প্রথমবারের মতো ১৩ ব্যক্তিকে ‘কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি (এগ্রিকালচারালি ইম্পর্ট্যান্ট পারসন-এআইপি)’ সম্মাননা-২০২০ প্রদান করা হয়েছে। এআইপিরা সিআইপির মতো বিভিন্ন সুবিধা পাবেন।

বুধবার (২৭ জুলাই) রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তাদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসিবে উপস্থিত ছিলেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। বিশেষ অতিথি ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার।

এআইপি নীতিমালা অনুযায়ী প্রতি বছর মোট ৫টি বিভাগে সর্বোচ্চ ৪৫ জনকে এআইপি সম্মাননা প্রদান করা হবে। এআইপি কার্ডের মেয়াদ এক বছর।

এআইপি সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন- কৃষি উদ্ভাবন বিভাগে বাউধান-৩ এর জাত উদ্ভাবনের জন্য বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান, দুটি বীজ আলুসহ মোট ১০টি সবজির জাত উদ্ভাবন ও বাজারজাতকরণে এ আর মালিক সিডসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আতাউস সোপান মালিক, মেহগনি ফলের বীজ থেকে তেল তৈরির জন্য ফিউচার অর্গানিক ফার্মের সৈয়দ আব্দুল মতিন, আলীম পাওয়ার ট্রিলার উদ্ভাবনের জন্য আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের আলীমুছ ছাদাত চৌধুরী।

কৃষি উৎপাদন বা বাণিজ্যিক খামার স্থাপন ও কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প বিভাগে এআইপি সম্মাননা প্রাপ্ত ৬ জন হলেন- নাটোর সদরের দৃষ্টান্ত অ্যাগ্রো ফার্ম অ্যান্ড নার্সারির মো. সেলিম রেজা, ঠাকুরগাঁওয়ের চামেশ্বরীর মো. মেহেদী আহসান উল্লাহ চৌধুরী, ঝালকাঠি সদরের এশা ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রিকালচার ফার্মের মো. মাহফুজুর রহমান, পিরোজপুর জেলার নাজিরপুরের জাগো কেঁচো সার উৎপাদন খামারের মালিক মো. বদরুল হায়দার বেপারী, পটুয়াখালী জেলার বাউফল উপজেলার নুর জাহান গার্ডেনের মো. শাহবাজ হোসেন খান এবং কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের বিছমিল্লাহ মৎস বীজ উৎপাদন কেন্দ্র ও খামারের মো. সামছুদ্দিন (কালু)।

jagonews24

কৃষি সংগঠন বিভাগে নওগাঁর শাহ্ কৃষি তথ্য পাঠাগার ও জাদুঘরের জাহাঙ্গীর আলম এআইপি মনোনীত হয়েছেন। এছাড়া বঙ্গবন্ধু কৃষি পুরস্কারে স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত বিভাগে নির্বাচিত দুজন হলেন- পাবনার ঈশ্বরদীর মোছা. নুরুন্নাহার বেগম এবং মো. শাহজাহান আলী বাদশা।

বাণিজ্যিক গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি-সিআইপি’র ন্যায় কৃষিক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ন ১৩ ব্যক্তিকে এআইপি (এগ্রিকালচারাল ইমপর্টেন্ট পারসন) সম্মাননা দেওয়া হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয় বলছে, কৃষিখাতসহ দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে কৃষিবিজ্ঞানী, উদ্যোক্তা, উৎপাদনকারী, বাণিজ্যিক কৃষি খামার স্থাপনকারী, কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকারী ও কৃষি সংগঠকদের প্রতি বছর এআইপি সম্মাননা দেওয়া হবে।

৫টি বিভাগের মধ্যে ‘ক’ বিভাগে কৃষি উদ্ভাবন ‘জাত ও প্রযুক্তি’ ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ১০ জন পাবেন এ সম্মাননা। ‘খ’ বিভাগে কৃষি উৎপাদন এবং বাণিজ্যিক খামার স্থাপন ও কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প ক্ষেত্রে সম্মাননা পাবেন সর্বোচ্চ ১৫ জন। একটি প্রশাসনিক বিভাগ থেকেও সম্মাননা পাবেন সর্বোচ্চ ২ জন। ‘গ’ বিভাগে রপ্তানিযোগ্য কৃষিপণ্য উৎপাদনে সর্বোচ্চ ১০ জন এ সম্মাননা লাভ করবেন। ‘ঘ’ বিভাগে স্বীকৃত বা সরকার কর্তৃক রেজিস্ট্রিকৃত কৃষি সংগঠনের সর্বোচ্চ ৫ জন এবং ‘ঙ’ বিভাগে বঙ্গবন্ধু কৃষি পুরস্কারে স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত সর্বোচ্চ ৫ জন এআইপি সম্মাননায় ভূষিত হবেন।

কৃষি মন্ত্রণালয় ৪টি কমিটির মাধ্যমে এআইপি নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করছে। এর মধ্যে রয়েছে- ইউএনওর সভাপতিত্বে উপজেলা কমিটি, চেয়ারম্যান, স্থানীয় সরকার পরিষদ (৩টি পার্বত্য জেলার জন্য) এবং জেলা প্রশাসকের সভাপতিত্বে জেলা কমিটি, যুগ্ম সচিব (সম্প্রসারণ, প্রশাসন, পিপিবি) ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের আহ্বায়ক হিসেবে প্রাথমিক বাছাই কমিটি। এছাড়া সচিব, কৃষি মন্ত্রণালয়ের সভাপতিত্বে চূড়ান্ত বাছাই কমিটি।

জানা গেছে, সিআইপির সুযোগ-সুবিধার মতোই এআইপিরা পাবেন বিশেষ কিছু সুযোগ-সুবিধা। এগুলো হলো- এআইপি কার্ডের সঙ্গে মন্ত্রণালয় থেকে একটি প্রশংসাপত্র। একজন এআইপিকে দেওয়া প্রদত্ত সুবিধাদির মেয়াদ থাকবে সম্মাননা প্রদানের তারিখ থেকে পরবর্তী এক বছর। এআইপিরা সচিবালয়ে প্রবেশের জন্য পাবেন বিশেষ পাস। বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান ও সিটি কিংবা মিউনিসিপ্যাল করপোরেশন কর্তৃক আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় আমন্ত্রণ পাবেন। বিমান, রেল, সড়ক ও জলপথে ভ্রমণকালীন সরকার পরিচালিত গণপরিবহনে পাবেন আসন সংরক্ষণ অগ্রাধিকার।

একজন এআইপির ব্যবসা বা দাপ্তরিক কাজে বিদেশে ভ্রমণের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভিসাপ্রাপ্তির নিমিত্তে বিশেষ সুবিধা পাবেন। একজন এআইপি তার স্ত্রী, পুত্র, কন্যা, মাতা, পিতা ও নিজের চিকিৎসার জন্য সরকারি হাসপাতালের কেবিন সুবিধা প্রাপ্তিতে অগ্রাধিকার পাবেন। এছাড়া বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ-২ ব্যবহার সুবিধা পাবেন এআইপিরা।


আরও খবর



নিওরের সামার ফেস্ট অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
Image

বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় নিওর ব্র্যান্ডের কসমেটিকস পণ্য বাংলাদেশে আরও বৃহৎ পরিসরে বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে সম্প্রতি ঢাকার একটি হোটেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে নিওর সামারফেস্ট। বর্ণাঢ্য ফ্যাশন শো আর মনোমুগ্ধকর এই আয়োজনে প্রধান অতিথি ছিলেন আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশের (অ্যামচেম) প্রেসিডেন্ট সৈয়দ এরশাদ আহমেদ।

তিনি বলেন, নিওর একটি জনপ্রিয় ও অতিপরিচিত ব্র্যান্ড। নিয়মিত গবেষণা, অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মিশেলে নিওর কসমেটিকসের উন্নত মানের কারণেই এই জনপ্রিয়তা অর্জন সম্ভব হয়েছে। প্রতি বছর ‘ইউএস ট্রেড শো’চলাকালেই আমরা দেখি নিওরের স্টলে উপচে পড়া ভিড়।

তিনি বলেন, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিওর আগামী দিনেও কসমেটিকস বাজারে সমান জনপ্রিয়তা বজায় রাখতে পারবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

গত ছাব্বিশ বছর ধরে বাংলাদেশে জনপ্রিয় এই কসমেটিকস ব্র্যান্ডের সঙ্গী হয়ে দেশ সেরা অভিনেতা অভিনেত্রীরাও যোগ দিয়েছেন অনুষ্ঠানে। নায়িকা অপু বিশ্বাস, নায়ক ফেরদৌস, ইমন, নীরবের বক্তৃতায় উঠে এসেছে অভিনয় জগতেও নিওর কসমমেটিকস ব্যবহার ও এর জনপ্রিয়তার কথা। অনুষ্ঠানের পুরো সময় জুড়ে যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের কর্মকতাদের উপস্থিতি অনুষ্ঠানকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলে। তারা বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও জনপ্রিয় ব্র্র্যান্ড নিওর নিয়ে বেশ আশাবাদী।

চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস বলেন, পুরোটাদিন আমাদের মেকাপ নিয়ে কাজ করতে হয়। ক্যারিয়ারের প্রথমে যখন ভালোভাবে মেকাপ প্রোডাক্ট চিনতাম না, তখন আমার আর্টিস্ট আমাকে নিওর দেন। এরপর থেকে আমি শুটিংয়ের মেকাপে নিওর ব্যবহার করি।

নায়ক ফেরদৌস বলেন, রিমার্কের মাধ্যমে আজকের এই অনুষ্ঠান নিওরের প্রতি আমাদের আস্থা বাড়িয়েছে। নিওর কসমেটিকস বাজারে আরও নতুন মাত্রা যোগ করবে বলে আমার প্রত্যাশা।

নায়ক ইমন বলেন, নিওর আমাদের জন্য বড় পাওয়া। বাংলাদেশের নায়িকারা, মডেলরা নিওরের পণ্য ব্যবহার করছেন। নিওর এখন নির্ভরতার প্রতীক।

বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) রাতে অনুষ্ঠিত জমকালো আয়োজনে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রিমার্কের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশরাফুল আম্বিয়া। তিনি বলেন, নিওর বিশ্বের অন্যতম স্কিনকেয়ার ব্র্যান্ড। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে স্কিনকেয়ার ইন্ডাস্ট্রিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে যাচ্ছে এই ব্র্যান্ড। আজকের ইভেন্ট রিমার্ক আয়োজন করেছে নিওরের প্রোডাক্টগুলো বাংলাদেশের বাজারে আরও ছড়িয়ে দিতে। সবার সহযোগিতা পেলে বাংলাদেশে নিওর দ্রুতই ছড়িয়ে যাবে। তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী ব্যাপক চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশি ও বিদেশি চাহিদা মেটানোর জন্য নিওর বাংলাদেশে ইন্ডাষ্ট্রি স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। সর্বোচ্চ প্রযুক্তি নির্ভর এই ইন্ডাস্ট্রি হবে দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ।

অনুষ্ঠানে নিওর কসমেটিকসের ব্যবহারিক দিকগুলো তুলে ধরেন দেশের খ্যাতনামা মেকআপ আর্টিস্ট ও ট্রেইনার শাহিদা আহসান ও বিখ্যাত ডার্মাটোলজিস্ট ডা. শারমিনা হক। শাহিদা হাসান বলেন, আমি এই ব্র্যান্ডের প্রতি পার্সোনালি উইক। মেকআপ আর্টিস্ট হিসেবে আমি ক্লায়েন্টকে নিওরের ডিফারেন্ট প্রোডাক্ট ব্যবহার করতে বলি। কারণ, নিওরের সঙ্গে জেনারেশন টু জেনারেশনের সম্পর্ক। আর এখন এটি আরো মডার্ন আরও গুণগতমান সম্পন্ন। তিনি বলেন, আমরা অনেকেই এলার্জির জন্য আইলাইনার ব্যবহার করতে পারি না। কিন্তু নিওর সে সমস্যা থেকে মুক্ত রেখে আইকনিক লুক তৈরি করে।

ডা. শারমিনা হক বলেন, একজন ডার্মাটোলজিস্ট হিসবে আমি এপ্রিসিয়েট করি নিওরকে। কারণ আমাদের দেশে হোক বিদেশে হোক, নিওরের স্কিন কেয়ার পণ্যগুলো কার্যকরী উপাদানে ভরপুর। আমরা সবাই চাই সুন্দর স্কিন, যেটা নিওরের স্কিনকেয়ারের মাধ্যমেই সম্ভব।

রিমার্কের প্রেসিডেন্ট মিজানুর রহমান সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, নিওরের বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়তায় আমরাও শামিল হচ্ছি। আমাদের অংশীদারত্ব শক্তিশালী হচ্ছে। যদিও নিওর উচ্চবিত্তের পণ্য, আমাদের জোরালো প্রচেষ্টা থাকবে এটিকে ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়া। কারণ, এটি খুবই প্রয়োজনীয় একটি পণ্য। আমাদের আর্থসামাজিক অবস্থারও উন্নতি ঘটেছে। তাই সময়ের তাগিদে এটি ব্যবহার করা এখন মানুষের অধিকার। সে কারণেই আমরা প্রতিটি ঘরে পৌঁছে দিতে চাই নিওরের পণ্য।

এরপর মনোজ্ঞ ফ্যাশন শো ও নৈশভোজের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়।


আরও খবর