Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ইংরেজি দক্ষতা বাড়াতে দেওয়া হবে প্রশিক্ষণ

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

দেশের বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন শিক্ষকদের ইংরেজি ভাষার দক্ষতা বাড়ানোর জন্য প্রশিক্ষণ কর্মশালা করার উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

পাশাপাশি নিজস্ব জনবল তৈরির উদ্যোগ হিসেবে ইংরেজি ভাষার ওপর বিশেষ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে মাস্টার ট্রেইনার তৈরি করা হবে। এ লক্ষ্যে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সঙ্গে শিগগির একটি সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি।

বুধবার (৩ আগস্ট) ঢাকার ব্রিটিশ কাউন্সিলের পরিচালক (এডুকেশন) ডেভিড মেনার্ডের সঙ্গে ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. বিশ্বজিৎ চন্দ এসব কথা বলেন। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের পেশাগত উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করেন তারা। এসময় ইউজিসি সদস্য বিশ্বজিৎ চন্দ এ তথ্য জানান।

বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, ‘চলতি বছরের অক্টোবরে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের জন্য চার মাসব্যাপী বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কার্যক্রম শুরুর পরিকল্পনা করছে ইউজিসি। ইউনিভার্সিটি টিচার্স ট্রেনিং একাডেমির আওতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন হাজার প্রভাষককে পর্যায়ক্রমে একাডেমিক ও প্রশাসনিক বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ইংরেজি ভাষায় দক্ষতা বৃদ্ধি ও মাস্টার ট্রেইনার তৈরির উদ্যোগে সহযোগিতার জন্য ব্রিটিশ কাউন্সিলের পরিচালককে আহ্বান জানান। এ উদ্যোগের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন শিক্ষকরা দক্ষভাবে ইংরেজি ভাষার চারটি ক্ষেত্র- পড়া, লেখা, শোনা ও বলা এবং উপস্থাপনা ও যোগাযোগ দক্ষতা অর্জন করতে সক্ষম হবেন বলেও আশা করেন তিনি।

ইউজিসি সদস্য বলেন, ‘এ একাডেমির আওতায় ইউজিসি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্যও বিজনেস কমিউনিকেশনসহ বিভিন্ন বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’

সভায় ডেভিড মেনার্ড আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত কিউএস র‌্যাংকিংয়ের আদলে বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য নিজস্ব র‌্যাংকিং ব্যবস্থা, আধুনিক শিক্ষাদান পদ্ধতি চালু ও স্মার্ট উপকরণ ব্যবহারের পরামর্শ দেন।

এর প্রেক্ষিতে অধ্যাপক বিশ্বজিৎ চন্দ বলেন, ‘র‌্যাংকিংয়ের জন্য ইউজিসি বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করেছে। এছাড়া দেশের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে স্মার্ট শ্রেণিকক্ষ রয়েছে। পর্যায়ক্রমে সব শ্রেণিকক্ষ স্মার্ট করা হবে। এছাড়া পাঠদান আনন্দদায়ক করতে বিভিন্ন উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

সভায় ইউজিসি ও ব্রিটিশ কাউন্সিলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



অর্ণবের নতুন গান ‘বন্ধুরা সব কই’

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
Image

অনেক দিন পর নতুন একটি মৌলিক গান প্রকাশ করতে যাচ্ছেন কণ্ঠশিল্পী ও সংগীতায়োজক শায়ান চৌধুরী অর্ণব। গানের শিরোনাম ‘বন্ধুরা সব কই’। এতে অর্ণবের সহশিল্পী হিসেবে কণ্ঠ দিয়েছেন রুবাইয়াত। এরই মধ্যে গানের ভিডিও নির্মাণ করা হয়েছে। ভিডিও পরিচালনা করেছেন আবরার আতাহার। এর আগে এই নির্মাতা অর্ণবকে নিয়ে মিউজিক্যাল ছবি 'আধখানা ভালো ছেলে আধা মস্তান' নির্মাণ করেছিলেন।

পরিচালক আবরার আতাহার জাগো নিউজকে বলেন ‘আমি এর আগে অর্ণবরে সঙ্গে কাজ করছি। আবারও নতুন একটা গানের মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করলাম। বান্দরবানে সুন্দর সুন্দর লোকেশন। গানটি খুব লাগবে দর্শকদের কাছে। টেলি কমিউনিকেশন ব্র্যান্ড এয়ারটেল ‘ফ্রেন্ডশিপ ডে’ উপলক্ষে গানটি তৈরি করেছে।

আয়োজকরা জানান, শিরোনাম থেকে শ্রোতারা কিছুটা অনুমান করতে পারেন, কোন বিষয় নিয়ে অর্ণবের এই নতুন আয়োজন। তবে গান সম্পর্কে আরও কিছু জানতে হলে চোখ রাখতে হবে এয়ারটেলের ফেসবুক পেজ এয়ারটেলবাজ-এ।

এদিকে অর্ণব ব্যস্ত সময় পার করছেন কোক স্টুডিও বাংলার বিভিন্ন আয়োজন নিয়ে। এরই মধ্যে এই আয়োজনের ‘নাসেক নাসেক’, ‘প্রার্থনা’, ‘সব লোকে কয়’, ‘চিলতে রোদে’, ‘বুলবুলি’, ‘ভবের পাগল’সহ আরও কিছু গান দর্শক-শ্রোতার মাঝে সাড়া ফেলেছে। তারকা থেকে শুরু তরুণ শিল্পীরা ফিউশনধর্মী এই আয়োজনে অংশ নিয়ে দর্শক-শ্রোতার প্রশংসাও কুড়িয়েছেন।


আরও খবর



এবার দিল্লিতে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত

প্রকাশিত:Sunday ২৪ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
Image

এবার ভারতের রাজধানী দিল্লিতে ৩১ বছর বয়সী এক ব্যক্তির দেহে মাঙ্কিপক্স শনাক্ত হয়েছে। তবে সম্প্রতি তিনি ভারতের বাইরে অন্য কোনো দেশে ভ্রমণ করেননি বলে বেশ কিছু সূত্র নিশ্চিত করেছে। এ নিয়ে দেশটিতে চারজনের দেহে এই ভাইরাসের উপস্থিতি ধরা পড়লো। এর আগে কেরালায় তিনটি কেস শনাক্ত হয়েছে। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

সংবাদ সংস্থা পিটিআই-এর এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, সম্প্রতি ওই ব্যক্তি হিমাচল প্রদেশের মানালিতে একটি পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন।

তিনদিন আগে পশ্চিম দিল্লির ওই ব্যক্তির দেহে কিছু লক্ষণ দেখা দেওয়ায় তিনি হাসপাতালে ভর্তি হন। গতকাল (২৩ জুলাই) ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ভাইরোলজিতে নমুনা পাঠানো হয়।

পরবর্তীতে তার মাঙ্কিপক্সে আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

বিশ্বের ৭৫টি দেশে ১৬ হাজারের বেশি মাঙ্কিপক্সে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে আফ্রিকায় এখন পর্যন্ত পাঁচজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এদিকে মাঙ্কিপক্স নিয়ে বিশ্বব্যাপী জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। শনিবার (২৩ জুলাই) ডব্লিউএইচও ঘোষণা দিয়েছে, বিশ্বব্যাপী মাঙ্কিপক্সের বিস্তার আন্তর্জাতিক উদ্বেগের পাশাপাশি জরুরি স্বাস্থ্য সতর্কতার পরিস্থিতি তৈরি করেছে। সারা বিশ্বের সরকারগুলো ক্রমবর্ধমান প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে কঠোরভাবে চেষ্টা চালালেও ভাইরাসটি আরও ছড়িয়ে পড়ার ‘সুস্পষ্ট ঝুঁকি’ রয়েছে।

জাতিসংঘের সংস্থাটির পক্ষ থেকে এটিই সর্বোচ্চ সতর্কতার মাত্রা। ২০০৭ সালে চালুর পর থেকে এখন পর্যন্ত ইবোলা, জিকা, কোভিড-১৯, পোলিওসহ মাত্র ছয়টি রোগের প্রাদুর্ভাবের জন্য এই সতর্কতা জারি করেছে তারা।

নাক, মুখ, চোখের পাশাপাশি আক্রান্তের পোশাক থেকেও সংক্রমিত হতে পারে এই ভাইরাস। এই ভাইরাসটি খুবই সংক্রামক বলে সতর্ক করা হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি এক বিশেষ ধরনের বসন্ত। জলবসন্ত বা গুটিবসন্তের প্রতিকার থাকলেও এই ভাইরাস এতই বিরল যে, এখনো পর্যন্ত এর নির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসাপদ্ধতি জানতে পারেননি চিকিৎসকরা। মূলত পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার কিছু দেশে এই ভাইরাসের খোঁজ মেলে। তবে নাম ‘মাঙ্কিপক্স’ হলেও একাধিক বন্যপ্রাণির মাধ্যমে ছড়াতে পারে এই ভাইরাস। এটি সবচেয়ে বেশি ছড়ায় ইঁদুরের মাধ্যমে।

এই ভাইরাসের উপসর্গ
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মাঙ্কিপক্সে আক্রান্তদের শরীরে প্রাথমিক উপসর্গের মধ্যে জ্বর, মাথাব্যথা, পিঠ ও গায়ে ব্যথার মতো লক্ষণ থাকে। এ থেকে হতে পারে কাঁপুনি ও ক্লান্তি। এর পাশাপাশি দেহের বিভিন্ন লসিকা গ্রন্থি ফুলে ওঠে। সঙ্গে ছোট ছোট ক্ষতচিহ্ন দেখা দিতে থাকে মুখে। ধীরে ধীরে তা পুরো শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞদের দাবি, আক্রান্ত ব্যক্তির আশেপাশে থাকা ব্যক্তির মধ্যে সহজেই ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ভাইরাস। শ্বাসনালি, ক্ষতস্থান, নাক, মুখ কিংবা চোখের মাধ্যমে এই ভাইরাস প্রবেশ করতে পারে সুস্থ ব্যক্তির দেহে। এমনকি আক্রান্তের ব্যবহার করা পোশাক থেকেও ছড়ায় সংক্রমণ।


আরও খবর



সহকারীসহ বাসচালক গ্রেফতার

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর মিরপুর বেড়িবাঁধে বাস-লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে তিনজন নিহতের ঘটনায় ঘাতক বাসচালক ও তার সহকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গাজীপুরের কাশিমপুর এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

সোমবার (১ আগস্ট) রাতে মিরপুর শাহ আলী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদী হাসান জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, গাজীপুরের কাশিমপুর এলাকা থেকে কিরণমালা পরিবহনের চালক তুষার ও তার সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে তারা পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। তবে চালকের নাম জানাতে পারেননি তিনি

এর আগে রোববার (৩১ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বেড়িবাঁধ এলাকায় বাস ও লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে জুবায়ের হোসেন (৪৫) নামে একজন ঘটনাস্থলে নিহত হন। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান মো. রবিউল ইসলাম রুবেল (৩৮) ও মো. মিলন গাজী (৪৫)।


আরও খবর



১ সেপ্টেম্বর থেকে চট্টগ্রাম-কলকাতা ফ্লাইট শুরু ইউএস-বাংলার

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রাম থেকে কলকাতায় ফ্লাইট পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। ১ সেপ্টেম্বর থেকে প্রতিদিন বেলা ১১টা ১০ মিনিটে চট্টগ্রামের হযরত শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কলকাতার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে এবং স্থানীয় সময় বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে কলকাতায় অবতরণ করবে।

একই দিন দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে কলকাতা থেকে উড্ডয়ন করে চট্টগ্রামে দুপুর ২টা ১০ মিনিটে পৌঁছাবে।

চট্টগ্রাম-কলকাতা রুটে ওয়ানওয়ের জন্য সর্বনিম্ন ভাড়া ৮ হাজার ৭৬০ টাকা এবং রিটার্ন ভাড়া ১৬ হাজার ৫৩৭ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ভাড়ায় সব ধরনের ট্যাক্স ও সারচার্জ অন্তর্ভূক্ত।

ইউএস-বাংলার মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলাম জানান, চট্টগ্রাম থেকে অসংখ্য পর্যটক, শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ীরা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে ভ্রমণ করে। চট্টগ্রাম থেকে কলকাতা ছাড়াও প্রতিদিন ঢাকা থেকে দুবার কলকাতা ও একবার চেন্নাই ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।


আরও খবর



বিএনপির সময়ে নিয়োগপ্রাপ্তদের নির্বাচনী দায়িত্বে চায় না আ’লীগ

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

বিএনপির নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে নিয়োগ পাওয়া পুলিশ, সিভিল প্রশাসন এবং নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কর্মকর্তাদের সংসদ নির্বাচনে দায়িত্বের বাইরে রাখার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। একই সঙ্গে নির্বাচনকালীন প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ নির্বাচন পরিচালনার জন্য আবশ্যকীয় সব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে ইসির অধীনে ন্যস্ত করাসহ ১১ দফা দাবি তুলে ধরেছে দলটি।

রোববার (৩১ জুলাই) নির্বাচন ভবনে অনুষ্ঠিত সংলাপে ইসির কাছে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এসব প্রস্তাব উত্থাপন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগের প্রস্তাবগুলো হলো-

১. নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা, নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা ঊর্ধ্বে রেখে সংবিধান ও আইনে প্রদত্ত দায়িত্ব পালনে সক্ষমতা প্রদর্শন।

২. নির্বাচনকালীন নির্বাহী বিভাগের সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়/সংস্থার দায়িত্বশীলতা।

৩. নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এবং এর মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্বশীল ও নিরপেক্ষ আচরণ। এটি সর্বজন স্বীকৃত, আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্যান্য সব সরকারের সময় নির্বাচন কমিশনকে দলীয়করণ করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনে একদিকে যেমন দলীয় আনুগত্যের ভিত্তিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল, অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত অশুভ জোট সরকারের সময় কর্মকর্তা পর্যায়ে হাওয়া ভবনের মাধ্যমে বিপুলসংখ্যক দলীয় ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়া হয়। ওইসব দলীয় ব্যক্তি এখন নির্বাচন কমিশনের আওতাভুক্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে রয়েছেন। নির্বাচনকে নিরপেক্ষ ও প্রভাবমুক্ত রাখার লক্ষ্যে এ বিষয়ে কমিশনকে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।

এছাড়া, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় দলীয়করণের অংশ হিসেবে পুলিশসহ সিভিল প্রশাসনে ব্যাপকভাবে দলীয় নেতাকর্মীদের দেওয়া হয়েছে। তাদের অনেকেই এখন জেলা পর্যায়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত অথবা দায়িত্ব পাওয়ার জন্য অপেক্ষমাণ। এসব কর্মকর্তাদের তালিকা প্রস্তুতপূর্বক তাদের সব ধরনের নির্বাচনী দায়িত্ব থেকে বাইরে রাখতে হবে।

৪. ছবিযুক্ত একটি নির্ভুল ভোটার তালিকা এবং ভোট গ্রহণের দিন নির্বাচন কেন্দ্রের সার্বিক নিরাপত্তা।

৫. ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম এর মাধ্যমে ভোটগ্রহণ বৃদ্ধি করা। বিশ্বের সর্ববৃহৎ গণতন্ত্রের দেশ ভারতের মতো প্রযুক্তির মাধ্যমে ভোট ডাকাতি ও ভোট কারচুপি বন্ধ করতে ইভিএমের কোনো বিকল্প নেই। ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের শুরুর দিকে কিছু কিছু ভোটারের অপছন্দ থাকলেও সময়ের পরিক্রমায় প্রমাণিত হয়েছে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে ভোট ডাকাতি, কেন্দ্র দখল, ভোট কারচুপি- এসব বন্ধ করে একটি টেকসই স্বচ্ছ নির্বাচন পদ্ধতি বাস্তবায়ন ইভিএম ব্যবস্থায় সম্ভব।

বর্তমান সরকারের অব্যাহত সহায়তা ও নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে এখন ১ লাখ ৫০ হাজারের অধিক ইভিএম মেশিন রয়েছে, যা দিয়ে মোট ৪৩ হাজার ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ১৩ হাজার কেন্দ্রে শতকরা মাত্র ৩১ শতাংশ কেন্দ্রে ইভিএম-এর মাধ্যমে ভোট নেওয়া সম্ভব। আগামী নির্বাচনে ইভিএম মেশিনের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি করতে হবে।

৬. বেসরকারি সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিবর্তে প্রজাতন্ত্রের দায়িত্বশীল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসার পদে নিয়োগ করা।

৭. আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত সদস্যদের নিরপেক্ষ ও দায়িত্বশীল আচরণ।

৮. দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষক নিয়োগে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা ও সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। প্রচলিত আইন ও বিধি-বিধান অনুযায়ী কোনোভাবেই কোনো দল বা প্রার্থীর প্রতি অনুগত বা কোনোভাবে সম্পর্কযুক্ত হিসেবে পরিচিত বা চিহ্নিত ব্যক্তি, গোষ্ঠী বা সংস্থাকে নির্বাচন পর্যবেক্ষণের দায়িত্ব প্রদান করা যাবে না।

৯. নির্বাচনে পেশিশক্তি ও অর্থের প্রয়োগ বন্ধ এবং ধর্মীয় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়সহ সব পর্যায়ের ভোটারের অবাধ ভোটদানের সুযোগ নিশ্চিত করা।

১০. নির্বাচনের পূর্বে ও পরে সর্বসাধারণের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

১১. নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময়ে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ নির্বাচন পরিচালনার জন্য আবশ্যকীয় সব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানকে নির্বাচন কমিশনের তত্ত্বাবধানে ন্যস্ত করা।

১২. নির্বাচনকালীন সরকারের কর্মপরিধি কেবলমাত্র আবশ্যকীয় দৈনন্দিন (রুটিন) কার্যাবলীর মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকা।

১৩. অ্যাডহক বা অন্তবর্তীকালীন ব্যবস্থার পরিবর্তে টেকসই সাংবিধানিক, আইনি ও রেগুলেটরি ব্যবস্থার উপর নির্ভর করা।

১৪) তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা একটি 'past and closed chapter'। দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ এই ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক এবং অবৈধ ঘোষণা করেছে। আইন সংবিধানের অনুচ্ছেদ ১১১-এর বিধান অনুযায়ী এই বিষয়ে অন্য কোনো কর্তৃপক্ষের ভিন্ন কোন সিদ্ধান্ত দেয়ার এখতিয়ার নেই। এই বিষয়ে সাংঘর্ষিক কোন মন্তব্য করা সংবিধান লংঘন করার শামিল।

এই প্রস্তাবগুলো ছাড়াও ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য দীর্ঘ সংগ্রাম করেছে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে রাজনৈতিক দল হিসেবে আওয়ামী লীগ সাংবিধানিক রেগুলেটরি কমিশন ‘নির্বাচন কমিশন’-কে সর্বাত্মকভাবে সহায়তা করবে।

সংলাপে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে ১৩ সদস্যের প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। প্রতিনিধিদলের মধ্যে ছিলেন উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, কর্নেল ফারুক খান, ড. আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

সংলাপে নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল ছাড়াও চার নির্বাচন কমিশনার ও ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর