Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস আজ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ১১৯১জন দেখেছেন

Image

লাইফস্টাইল ডেস্ক: যক্ষ্মা পৃথিবীর প্রাচীন রোগগুলোর একটি। বাংলাদেশে দীর্ঘদিন থেকে যক্ষ্মা সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগে চিকিৎসায় কাজ চলছে। কিন্তু যক্ষ্মা থেকে রক্ষা পাওয়া যাচ্ছে না। বরং যক্ষ্মা থেকেও মারাত্মক মাল্টিড্রাগ রেজিস্ট্যান্স (এমডিআর) যক্ষ্মা দিন দিন বাড়ছে। দেশে এখন ১০ হাজারের বেশি এমডিআর যক্ষ্মা রোগী রয়েছে।

আজ বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস। এ বছরের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, ‘হ্যাঁ আমরা যক্ষ্মা নির্মূল করতে পারি।

সাধারণ যক্ষ্মা রোগীদের সঠিক চিকিৎসা না হওয়া, অর্ধেক ওষুধ খেয়ে সুস্থ বোধ করলেই অনেকেই সাধারণ যক্ষ্মার ওষুধের পুরো কোর্স সম্পন্ন করেন না। ফলে যক্ষ্মার জীবাণুরা আরো শক্তিশালী হয়ে এমডিআর টিবিতে পরিণত হয়। একজন এমডিআর যক্ষ্মারোগী অন্যদের মধ্যে ভয়ঙ্কর এমডিআর যক্ষ্মাই ছড়িয়ে থাকে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, প্রচলিত ওষুধে না গিয়ে টিকা ব্যবহারের দিকে আমাদের যাওয়া উচিত। পৃথিবীর কয়েকটি দেশে যক্ষ্মার বিরুদ্ধে টিকা ব্যবহারে সফলতা এসেছে।

এ ব্যাপারে জাতীয় যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির বিভাগীয় যক্ষ্মা বিশেষজ্ঞ ডা: আহমেদ পারভেজ জাবীন বলেন, ‘দক্ষিণ আফ্রিকা, কেনিয়া ও জাম্বিয়ায় গ্ল্যাক্সো অ্যান্ড স্মিথক্লাইনের (জিএসকে) তৈরি টিবি ‘ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট এম৭২/এএসও আইই’ নামক যক্ষ্মার টিকার দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে।’ এই দেশগুলোতে জিএসকের ৯ হাজার ভায়াল টিকার সফল পরীক্ষা হয়েছে বলে ডা: জাবীন জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘যক্ষ্মার টিকাকে সব দেশেই উৎপাদনের অনুমতি দিয়ে যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণে অবদান রাখার সুযোগ দেয়া হোক।’

যে হারে সাধারণ যক্ষ্মা থেকে এমডিআর যক্ষ্মা হচ্ছে এবং এমডিআর যক্ষ্মার জীবাণুও ওষুধ প্রতিরোধী হয়ে আরো ভয়ঙ্কর এক্সটেনসিভলি ড্রাগ রেজিস্ট্যান্স টিবি (এক্সডিআর। জীবাণুতে পরিণত হচ্ছে এবং এই এক্সডিআর টিবি থেকে আরো ভয়ঙ্কর যক্ষ্মার জীবাণু আরআর টিবি হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যক্ষ্মা রোগে ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিক থেকে এখন বের হয়ে আসা উচিত এবং টিকার দিকে যেতে হবে।

১৯৯৫ থেকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশে প্রায় ত্রিশ লাখ যক্ষ্মা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। যার মধ্যে শিশু রয়েছে প্রায় ২০ হাজার।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের যক্ষ্মা নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির লাইন পরিচালকের দফতর থেকে জানানো হয়েছে, ‘বাংলাদেশে ২০২১ সালে প্রতি ১২ মিনিটে একজন মানুষ যক্ষ্মায় মারা গেছে। ২০২১ সালে বাংলাদেশে প্রায় তিন লাখ ৭৫ হাজার মানুষ লোক যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয় এবং ৪২ হাজার মৃত্যুবরণ করে। অর্থাৎ প্রতি ১২ মিনিটে যক্ষ্মার কারণে একজনের মৃত্যু হয়েছে।’


আরও খবর



মধ্যপাড়া পাথর খনিতে দৈনিক পাথর উত্তোলনে নতুন রেকর্ড

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দেশের উত্তর অঞ্চলের একমাত্র দিনাজপুরের মাধ্যপাড়া পাথর খনিতে পাথর উত্তোলনে একের পর এক নয়া রেকর্ড তৈরী করে নতুন মাইল ফলক গড়েছে খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জার্মানীয়া- টেস্ট কনসোটিয়াম (জিটিসি) ।

জানা গেছে, খনি থেকে সর্বোচ্চ পাথর উত্তোলন করে নয়া মাসিক রেকর্ড গড়ার পর এবার প্রায়ই দৈনিক ৬ হাজারের অধিক মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করে নতুন এই মাইল ফলক গড়েছে জিটিসি। চলতি মাসের ২৫ তারিখেও এক দিনে ৬ হাজার মেট্রিক টনের উপর পাথর উত্তোলন করা হয়েছে ।

প্রতিমাসেই মাসিক উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত রেকর্ড পরিমানে পাথর উত্তোলনের পর এবার দৈনিক পাথর উত্তোলনের নির্ধারিত লক্ষ্যমাত্রা  ছাড়িয়ে সকল মাসেই একাধিকবার দৈনিক ৬ হাজারের অধিক মেট্রিক টন পাথর উত্তোলন করছে জিটিসি। ফলে দৈনিক উৎপাদানের অতীতের সকল রেকর্ড ছাড়িয়েছে এবং নতুন নতুন রেকর্ড গড়ে চলেছে। এখানে উল্লেখ্য যে, মধ্যপাড়া পাথর খনিতে দৈনিক পাথর উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা রয়েছে সাড়ে ৫ হাজার মেট্রিক টন।

একমাত্র দেশীয় এই মাইনিং কোম্পানী  জার্মানিয়া- ট্রেস্ট কনসোটিয়াম (জিটিসি) পাথর খনির দায়িত্বভার গ্রহনের শুরু থেকে খনি কর্তৃপক্ষের নানা ধরনের অসহযোগিতা, নানা প্রতিবন্ধকতা , দুষ্ট চক্রের নানামুখী অপতৎপরতা মোকাবিলা করে এবং খনি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক জিটিসি-এর পাওনা বিল প্রদানে গড়িমসি করে বিল আটকানোর পরেও প্রতিষ্ঠানটি বর্তমান সরকারের উন্নয়নে অবদান রাখতে এবং দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের কথা বিবেচনা করে আর্থিক সংকটের মাঝেও রেকর্ড পরিমানের পাথর উত্তোলন অব্যাহত রেখেছে। জিটিসি’র হাতে গড়া মাসিক এবং দৈনিক পাথর উত্তোলনের এই সকল রেকর্ড খনির পাথর উত্তোলনের ইতিহাসে এক নয়া মাইল ফলক।

মধ্যপাড়া পাথর খনিতে পাথর উত্তোলন ও উন্নয়নের চুক্তি বদ্ধ হওয়ার পর জিটিসি খনিটিকে লাভজনক প্রতিষ্ঠানের পরিনত করে দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখছে। ফলে লোকসানী এই পাথর খনিটি পর পর ৫ম বার লাভের মুখ দেখেছে।

খনি সচেতন মহল মনে করছেন,সরকারের জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয় এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা পেলে জিটিসি খনির উন্নয়ন এবং পাথর উত্তোলনের এই রেকর্ড অব্যাহত রাখতে পারবে এবং দেশের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখবে।

জিটিসি কর্তৃক পাথর উত্তোলনের দৈনিক এবং মাসিক রেকর্ড নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে সচল রাখতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সহ সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন বলে খনি এলাকাবাসী মনে করছেন। দিনাজপুরের মধ্যপাড়া পাথর খনিতে বে-সরকারী সংস্থা জিটিসি খনিটি হাতে নেওয়ার পর উৎপাদনে রেকর্ড গড়েছেন এই পাথর দেশের বিভিন্ন উন্নয়ন কাজে ব্যবহৃত হচ্ছে।


আরও খবর



নোয়াখালীতে পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের ব্যবসা পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধি:পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের নোয়াখালী অঞ্চলের উন্নয়ন কর্মকর্তাদের নিয়ে ব্যবসা পর্যালোচনা সভা  অনুষ্ঠিত হয়েছে।শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি ) সকালে নোয়াখালীতে কোম্পানীর নিজস্ব ভবনের অফিস রুমে  এ ব্যবসা পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। 

পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ইসলামী বীমা তাকাফুল  প্রকল্পের মহা-ব্যবস্থাপক ও জেলা সমন্বয়কারী আহসানুল ইসলামের সভাপতিত্বে ব্যবসা পর্যালোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী সদস্য  বি এম ইউসুফ আলী। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক বি এম শওকত আলী, একক বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ব্রাঞ্চ কন্ট্রোল) সৈয়দ মোতাহার হোসেন, আল আমীন বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ- ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু তাদের, ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উপ- ব্যবস্থাপনা পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার।

এ সময়ে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আল বারাকাহ ইসলামী একক বীমা প্রকল্পের উর্দ্ধতন নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক এনামুল হক, ইসলামী বীমা তাকাফুল প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক সাজ্জাদ মাহমুদ কিশোর, ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও জেলা সমন্বয়কারী সোলাইমান হোসেন সোহাগ ।


আরও খবর



অমর একুশে বইমেলায় আসছে জোনায়েত হোসেন জিদানের 'প্রিন্ট অন ডিমান্ডে হাতেখড়ি'

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৫জন দেখেছেন

Image
সাব্বির খান, ইবি প্রতিনিধি:অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষে আসছে ফ্রিল্যান্সার ও তরুণ উদ্যোক্তা জোনায়েত হোসেন জিদান এর প্রথম বই 'প্রিন্ট অন ডিমান্ডে হাতেখড়ি'। 

বইটি প্রকাশ করেছে দেশের স্বনামধন্য প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান শব্দশৈলী প্রকাশনী। ১৫২ পৃষ্ঠার বইটির মলাট মূল্য ৩৮০ টাকা। ইতোমধ্যে বইটির প্রি-অর্ডার শুরু হয়েছে রকমারিতে। মেলায় শব্দশৈলীর ৯ নম্বর প্যাভিলিয়ন থেকে পাঠক বইটি সংগ্রহ করতে পারবেন।

বইটি সম্পর্কে প্রকাশক জানান, “প্রিন্ট অন ডিমান্ডে হাতেখড়ি” বইটি মূলত ফ্রিল্যান্সিং ও ই-কমার্স ভিত্তিক। প্রিন্ট অন ডিমান্ড বর্তমানে বিশ্বব্যাপী খুবই জনপ্রিয় একটি ব্যবসা মডেল। এই ব্যবসার মডেলটি এমন, যেখানে প্রোডাক্ট এর যখন ডিমান্ড হবে (গ্রাহকের চাহিদা হবে) তখনই সেটি প্রিন্ট হয়ে গ্রাহকের কাছে পৌঁছে যাবে। যার ফলে গ্রাহকের পছন্দ মত প্রোডাক্ট ডিজাইন করে কাঙ্ক্ষিত সেবা দেওয়া যায়। বইটিতে লেখক প্রিন্ট অন ডিমান্ড এর পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং এর বেসিক বিষয় নিয়েও আলোচনা করেছেন। 

বইটি সম্পর্কে লেখক জানান, 'বইটিতে কীভাবে প্রিন্ট অন ডিমান্ড এর ব্যবসা শুরু করা যাবে এবং কী কী বিষয় জানা লাগবে, সে বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। সেই সাথে একজন নতুন মানুষ কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং সেক্টর নিয়ে তার ক্যারিয়ার শুরু করবে সেটারও আলোচনা করা হয়েছে। তাই তিনি মনে করেন, যদি কেউ ইন্টারনেট এর মাধ্যমে তার ক্যারিয়ার শুরু করতে চায় তাহলে এই বইটির দেওয়া  বিষয় গুলো ধরে ধরে প্র‍্যাক্টিস করলে অবশ্যই এই বইয়ের মাধ্যমে অনলাইন সেক্টরের ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।'

প্রসঙ্গত, জোনায়েত হোসেন জিদান একজন শিক্ষার্থী। তিনি বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নেত্রকোনা সরকারি কলেজ এ অনার্স ৩য় বর্ষে রসায়ন বিভাগ নিয়ে অধ্যয়নরত আছেন। পড়ালেখার পাশাপাশি তিনি একজন দক্ষ ফ্রিল্যান্সার ও উদ্যেক্তা। তিনি বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ করছে সেই সাথে ই-কমার্স ভিত্তিক প্রিন্ট অন ডিমান্ড এর সেলার হিসাবে কাজ করছেন।

আরও খবর

আজ বইমেলা শুরু হচ্ছে

বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নারায়ণগঞ্জে কয়েল জ্বালানো আগুনে পুড়ে দগ্ধ একই পরিবারের ৬ জন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৪জন দেখেছেন

Image

মোঃআবু কাওছার মিঠু নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:-

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একটি বাড়িতে কয়েল জ্বালাতে গিয়ে আগুনে পুড়ে দগ্ধ হয়েছেন একই পরিবারের ৬ জন।তাদেরকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে।বুধবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার বার্মাশীল বাগপাড়া এলাকার একটি টিনশেড বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।


দগ্ধরা হলেন—সুখী আক্তার (৩২), তার মেয়ে সাদিয়া আক্তার (১০), বোন জান্নাতি আক্তার (১৮), ভাই আরিফ হাওলাদার (২১), ফুপাতো বোন রহিমা আক্তার (৩২) ও রহিমার মেয়ে ঋতু আক্তার (১৩)।স্বজনদের ধারণা—গ্যাস লিকেজ হয়ে ঘর ভর্তি হয়ে ছিল। সেখান থেকে অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে।দগ্ধ রহিমা আক্তারের স্বামী জাহাঙ্গির হাওলাদার জানান, বাগপাড়া এলাকার বাসাটির পাশাপাশি সুখীর পরিবার ও তার পরিবার ভাড়া থাকেন। সুখীর স্বামী নূর মোহাম্মদ চাকরি করেন।


১৬-১৭ দিন আগে সুখীর একটি সন্তান হয়। সেই সন্তানকে দেখতে রহিমা ও তার মেয়ে সুখীর বাসায় গিয়েছিলেন। রাতে বাসায় কয়েল ধরাতে গেলে হঠাৎ বিস্ফোরণ হয়ে আগ্নিকাণ্ড ঘটে। খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।বার্ন ইনস্টিটিউটের আবাসিক চিকিৎসক ডা. তরিকুল ইসলাম জানান, তারা ১০ থেকে ৪৫ শতাংশ পর্যন্ত দগ্ধ হয়েছে। একজনকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে। বাকিদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



কালিয়াকৈরে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিক নিহত

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬০জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে নির্মাণাধীন একটি ভবনের চার তলা থেকে পড়ে এক নির্মাণ শ্রমিক নিহত হয়েছেন। শনিবার সকালে উপজেলার ভান্নারা বেলতলা এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত হলেন, কালিয়াকৈর উপজেলার জামালপুর দোয়ানিচালা এলাকার আব্দুর রহমানের ছেলে জসিম উদ্দিন (৩৫)।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত এগার বছর যাবত জসিম তার স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কালিয়াকৈর উপজেলার কালেরভিটা এলাকার শওকত হোসেনের বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। সেখানে বাসা ভাড়া থেকে তিনি বিভিন্ন এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনের রড মিস্ত্রি হিসেবে কাজ করতেন। এর ধারাবাহিকতায় শনিবার সকালে ভান্নারা বেলতলা এলাকার আজম খানের ৫ম তলা নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করতে যান। সকাল ১০টার দিকে ওই ভবনের ঠিকাদারের নির্দেশে নির্মাণ শ্রমিক জসিম উদ্দিন চারতলার ছাদে বারান্দায় সেন্টারিং খুলতে যান। এসময় তিনি হঠাৎ করে ছিটকে ওই ভবনের নিচে পড়ে যান। পরে তার সহকর্মীরা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক জসিমকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে কালিয়াকৈর থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে।

কালিয়াকৈর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ এফ এম নাসিম জানান, ওই ঘটনার পর নিহতের লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। তবে বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর

কালিয়াকৈরে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত-৩

সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪