Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

বিমানবাহিনী একাডেমিতে রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১৪৩জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ৮০তম বাফা কোর্স ও ডিরেক্ট এন্ট্রি ২০২২ কোর্সের কমিশন প্রাপ্তি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ (গ্রীষ্মকালীন) অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) যশোরে অবস্থিত বিমান বাহিনী একাডেমি প্যারেড গ্রাউন্ডে এ কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠিত হয়। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশ বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান প্রধান অতিথি হিসেবে কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ করেন। কুচকাওয়াজ পরিদর্শন ও সালাম গ্রহণ শেষে তিনি গ্রাজুয়েটিং অফিসারদের মধ্যে ট্রফি এবং ফ্লাইং ব্যাজ বিতরণ করেন।

এর আগে প্রধান অতিথি প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছালে বাংলাদেশ বিমান বাহিনীর ‘বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান’ ঘাঁটির অধিনায়ক প্রধান অতিথিকে স্বাগত জানান।

আইএসপিআর জানায়, অফিসার ক্যাডেট মো. জহির উদ্দিন বাবর ৮০তম বাফা কোর্সে সেরা চৌকস কৃতিত্বের জন্য ‘সোর্ড অব অনার’, উড্ডয়ন প্রশিক্ষণে সেরা কৃতিত্বের জন্য ‘বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমান ট্রফি’ এবং জেনারেল সার্ভিস প্রশিক্ষণে সেরা কৃতিত্বের জন্য ‘কমান্ড্যান্টস্ ট্রফি’ লাভ করেন।

বিমানবাহিনী একাডেমিতে রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ

৮০তম বাফা কোর্সে (গ্রাউন্ড ব্রাঞ্চ) সেরা কৃতিত্বের জন্য অফিসার ক্যাডেট পারমিতা শারমিন ‘বিমান বাহিনী প্রধানের ট্রফি’ লাভ করেন। এছাড়া ১ নম্বর স্কোয়াড্রন চ্যাম্পিয়ন বিবেচিত হয়ে একাডেমি পতাকা লাভের গৌরব অর্জন করেন।

ট্রফি দেওয়া শেষে বিমানবাহিনী প্রধান প্রশিক্ষণ সমাপ্তকারী অফিসার ক্যাডেটদের উদ্দেশে দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্য দেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে তিনি বলেন, জাতির জনক একটি আধুনিক বিমানবাহিনীর স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং তারই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শিতা ও দিকনির্দেশনায় বাংলাদেশ বিমানবাহিনী পরিচালন ও কৌশলগত দিক থেকে বর্তমানে আরও আধুনিক ও যুগোপযোগী হয়ে গড়ে উঠছে।

তিনি সদ্য কমিশনপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের সাফল্যমণ্ডিত কর্মজীবন কামনা করেন এবং কর্মক্ষেত্রে নিষ্ঠা ও পেশাদারি মনোভাবের মাধ্যমে মাতৃভূমির প্রতি দায়িত্ব পালনের জন্য তাদের আহ্বান জানান।

বিমানবাহিনী একাডেমিতে রাষ্ট্রপতি কুচকাওয়াজ

এ কুচকাওয়াজের মাধ্যমে নয়জন নারী অফিসার ক্যাডেটসহ মোট ৩০ জন অফিসার ক্যাডেট কমিশন লাভ করেন। অফিসার ক্যাডেট একাডেমি আন্ডার অফিসার মো. জহির উদ্দিন বাবর আনুষ্ঠানিক কুচকাওয়াজের নেতৃত্ব দেন। কুচকাওয়াজ শেষে বিমানবাহিনী একাডেমির বিভিন্ন প্রকার বিমানের সমন্বয়ে একটি আকর্ষণীয় ফ্লাইপাস্ট অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব গোলাম মো. হাসিবুল আলমসহ উচ্চপদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং সদ্য কমিশনপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



স্কুল থেকে ফেরার পথে খালে পড়ে শিশু নিহত, নিখোঁজ ১

প্রকাশিত:Thursday ০৪ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১৫জন দেখেছেন
Image

ভোলায় স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় সাঁকো থেকে খালে পড়ে নিশাদ (৬) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় মো. ইয়াছিন (৬) নামে নিশাদের আরেক সহপাঠী নিখোঁজ রয়েছে।

নিহত নিশাদ ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার জাহানপুর ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড ওমরাবাজ গ্রামের আবু জাহারের ছেলে এবং নিখোঁজ ইয়াছিন একই গ্রামের মো. জামাল উদ্দিনের ছেলে। তারা দুজনই ওই গ্রামের পশ্চিম ওমরাবাজ আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির ছাত্র।

বুধবার (৩ আগস্ট) দুপুরে ঘটনাস্থলের একটু দূর থেকে নিশাদের মরদেহ উদ্ধার করা হলেও নিখোঁজের সন্ধান পায়নি বলে জানিয়েছেন চরফ্যাশন উপজেলার ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার মো. আসাদুজ্জামান।

নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, প্রতিদিনের মতো বুধবার (৩ আগস্ট) সকালেও নিশাদ ও ইয়াছিন স্কুলে যায়। দুপুরের দিকে স্কুল ছুটি হলে মরকখালী খালের ওপর সাঁকো পার হয়ে বাড়ি ফিরছিল তারা। ওই সময় হঠাৎ সাঁকো থেকে তারা দুজন পড়ে গিয়ে নিখোঁজ হয়।

স্কুল ছুটির পরও বাড়ি না ফেরায় স্কুলে ছুটে যান তাদের পরিবারের সদস্যরা। স্কুলে গিয়ে জানতে পারেন তারা স্কুল ছুটির পর বাড়ির উদ্দেশে রওনা হয়েছে। পরে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। এ সময় ওই খালের সাঁকোর এক প্রান্তে শিশুদের পায়ের জুতা দেখতে পেয়ে তারা খালে খুঁজতে থাকেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন।

শশীভূষণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মিজানুর রহমান বুধবার রাতে জাগো নিউজকে জানান, নিখোঁজ দুই শিশুর মধ্যে এক শিশুর মরদেহ পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা উদ্ধার করেছেন। নিখোঁজ অপর শিশুর সন্ধানে এখনও ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ সদস্যরা কাজ করছেন।


আরও খবর



প্রকল্পের নামে অর্থের অপচয় করা যাবে না: তাজুল ইসলাম

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, প্রকল্প গ্রহণের নামে সরকারি অর্থের অপচয় করা যাবে না। ইমপ্যাক্ট এবং আউটপুট বিশ্লেষণ করে প্রকল্প নেওয়ার তাগিদ দিয়ে অপ্রয়োজনীয় প্রকল্প পরিহার করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

রোববার (৩১ জুলাই) বিকেলে মন্ত্রণালয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত চট্টগ্রাম মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে গৃহীত পদক্ষেপসমূহের অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা জানান।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, চট্টগ্রাম সিটি মেয়র রেজাউল করীম চৌধুরী সভায় উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম দেশের ইকোনমিক হাব হিসেবে পরিচিত। এই শহরটি দেশের আইডল সিটি হবে হিসেবে গড়ে তোলার সুযোগ রয়েছে। দেশের অর্থনীতির অন্যতম এই শহরকে কোনোভাবেই অবমূল্যায়ন করার উপায় নেই। চট্টগ্রামের জলাবদ্ধতা নিরসনে যেসব প্রকল্প নেওয়া হয়েছে সেগুলো কতটা কার্যকর হয়েছে তা দেখা প্রয়োজন। যদি কার্যকর না হয় অথবা যাচাই বাছাই না করে গ্রহণ করা হলে তা অত্যন্ত দুঃখজনক।

খাল ও ড্রেনগুলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার নির্দেশ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, আপনারা খাল দখল করে অবৈধভাবে বিল্ডিং বানিয়ে পানি প্রবাহ বন্ধ করে রেখেছেন। খালের উপর দোকান-পাট বানিয়েছেন। এগুলোর কারণে শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। সবাইকে সচেতন হতে হবে। কিছু মানুষের জন্য কোটি কোটি মানুষের জীবন অতিষ্ট হতে পারে না। এসময় সব খাল দখলমুক্ত করারও নির্দেশ দেন তিনি।

তিনি জানান, বর্জ্য সমস্যা বর্তমানে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দাঁড়িয়েছে। গৃহস্থালি বর্জ্যের পাশাপাশি ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল বর্জ্য, মেডিকেল বর্জ্য, নির্মাণসামগ্রীর বর্জ্যসহ অন্যান্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সরকার উদ্যোগ নিয়েছে। আর তা হলো বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন। খুব শিগগির ঢাকা, গাজীপুর এবং চট্টগ্রামসহ অন্যান্য সিটি করপোরেশনগুলোতে বর্জ্য থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু হবে।

সভায় তথ্যমন্ত্রী বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে প্রকল্পের কাজ দ্রুত এগিয়ে নিতে হবে। চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনে চাকতাই খাল খনন, কর্ণফুলী নদীর ড্রেজিংসহ সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা তুলে ধরে প্রকল্প সংশ্লিষ্ট সমস্যাসহ অন্যান্য সমস্যা সমাধানে মেয়র এবং সংশ্লিষ্ট সবাইকে তাগিদ দেন তিনি।

স্থানীয় সরকার বিভাগের সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ্ উদ্দিন চৌধুরী, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব শহীদ উল্লা খন্দকারসহ স্থানীয় সরকার বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, চট্টগ্রাম উন্নয়ন ও বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তর ও সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



বরিশালে পানিতে ডুবে শিশুসহ দুজনের মৃত্যু

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় পানিতে ডুবে মো. ইব্রাহিম (দেড় বছর) নামের এক শিশু ও ইয়াসিন ফড়িয়া (২০) নামের এক তরুণের মৃত্যু হয়েছে।

সোমবার (১ আগস্ট) দুপুরে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে ইয়াসিন ফড়িয়ার মৃত্যু হয়। বেলা ১১টার দিকে বাড়ির পাশের একটি পুকুর থেকে মো. ইব্রাহিম নামের ওই শিশুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

ইয়াসিন উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের ফুল্লশ্রী গ্রামের শাহাজালাল ফড়িয়ার ছেলে। ইব্রাহিম একই উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের চাঁদত্রিশিরা গ্রামের মোজাম শিকদারের ছেলে।

ইয়াসিনের স্বজনরা জানান, দুপুরে পুকুরে একা গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ হন ইয়াসিন। পরে পরিবারের লোকজন পুকুর থেকে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ইয়াসিনের বাবা শাহাজালাল ফড়িয়া বলেন, ‘ইয়াসিন মৃগী রোগে আক্রান্ত ছিল। গোসল করতে গিয়ে হয়তো সে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিল। এ কারণে পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়েছে।’

ইব্রাহিমের স্বজনরা জানান, ইব্রাহিম বাড়ির পাশে অন্য শিশুদের সঙ্গে খেলা করছিল। একপর্যায়ে দীর্ঘক্ষণ তাকে দেখতে না পেয়ে বিভিন্ন স্থানে খুঁজতে থাকেন পরিবারের সদস্যরা। পরে বড়ির পাশের একটি পুকুরে ইব্রাহিমকে ভাসতে দেখা যায়। উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আগৈলঝাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ফারহানা ইসলাম বলেন, ইয়াসিন ও ইব্রাহিমকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল। তখন আর কিছু করার ছিল না।

আগৈলঝাড়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাজহারুল ইসলাম জানান, পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় মরদেহ দুটি দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



‘একচেটিয়া’ বাসভাড়া প্রত্যাখ্যান, সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণের দাবি

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

জ্বালানি তেলের মূল্য বাড়ানোর সঙ্গে সমন্বয় করে বর্ধিত ভাড়াকে ‘একচেটিয়া’ উল্লেখ করে তা প্রত্যাখ্যান করেছে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি। একই সঙ্গে সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণ করে নতুনভাবে বাস ভাড়া নির্ধারণের দাবি জানিয়েছে তারা।

রোববার (৭ আগস্ট) সকালে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে সংগঠনের মহাসচিব মো. মোজাম্মেল হক চৌধুরী এ দাবি জানান।

তিনি বলেন, গেল নভেম্বরে জ্বালানি তেলের মূল্য লিটারপ্রতি ১৫ টাকা বৃদ্ধির সময়ে বাস ভাড়া ৩৫ শতাংশ হারে বাড়ানো হয়। এর ৯ মাসের মাথায় আবারও জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণ ব্যতিরেকে এক লাফে বাস ভাড়া আবারো ২২ শতাংশ হারে বাড়ানো হয়। প্রতিটি পুরনো লক্কড়-ঝক্কড় বাসকে শো-রুম থেকে নামানো নতুন বাসের দাম, ব্যাংক সুদ ও অন্যান্য নতুন বাসের সুযোগ-সুবিধার হিসাব ধরে ব্যয় বিশ্লেষণ করা হলেও সিটি সার্ভিসে ৯৮ শতাংশ বাস-মিনিবাস চলাচলের অযোগ্য।

আন্তঃজেলা দুরপাল্লায় ৪৮ শতাংশ বাস ২০ বছরের বেশি সময় ধরে চলছে। এসব বাস অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। পুরোনো এসব বাসের যাত্রী সেবার মান তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। গতকালের বাস ভাড়া বৃদ্ধির সভায় এসব বাসকে চকচকা নতুন বাস হিসেবে ব্যয় বিশ্লেষণ করায় যাত্রীস্বার্থ চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিনি নতুন বাস এবং পুরাতন বাস আলাদা আলাদা ব্যয় বিশ্লেষণ ও আলাদা আলাদা ভাড়া নির্ধারণের দাবি জানান।

তিনি আরও বলেন, সরকার বাস মালিকদের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ভাড়া নির্ধারণ করলেও কোনো বাসে সরকার নির্ধারিত ভাড়া কার্যকর নেই। সরকার নির্ধারিত ভাড়ার বেশ কয়েকগুণ বর্ধিত ভাড়া বাসে বাসে আদায় হলেও সরকার কার্যত এসব বাসের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারে না। সিটি সার্ভিসে সরকার কিলোমিটার প্রতি ভাড়া নির্ধারণ করলেও বাসে বাসে ওয়েবিলে যাত্রীর মাথা গুনে গুনে ভাড়া আদায় করা হয়। ঢাকা মহানগরীর কথিত সিটিং সার্ভিসে স্বল্প দুরুত্বে যাতায়াত করলেও সর্বশেষ গন্তব্য পর্যন্ত ভাড়া পরিশোধ করতে হয়।

‘ঈদ ও পূজা-পার্বণে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের নৈরাজ্যে দিশেহারা হয়ে পড়েন যাত্রী সাধারণ। এ পরিস্থিতি তুলে ধরে দেশের ১৬ কোটি যাত্রী সাধারণের দুর্ভোগের কথা বলতে যাত্রী কল্যাণ সমিতি বাস ভাড়া নির্ধারণের সভায় প্রতিনিধিত্ব করতে বার বার আবেদন নিবেদন করলেও সরকার বাস মালিকদের বিশেষ সুবিধা দিতে যাত্রী প্রতিনিধি ছাড়া বার বার বাস ভাড়া নির্ধারণ করে থাকেন।’

অনতিবিলম্বে বর্ধিত বাস ভাড়া প্রত্যাহার করে সঠিক ব্যয় বিশ্লেষণপূর্বক নতুন ভাড়া নির্ধারণের দাবী জানান তিনি।


আরও খবর



এসএসসি শেষে কানাডায় মায়ের কাছে ফেরার কথা ছিল ইশামের

প্রকাশিত:Friday ২৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার এস নজু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল ইশাম (১৬)। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে তার পরীক্ষা শুরুর দিনক্ষণ ঠিক ছিল। পরীক্ষা দিয়েই কানাডায় মায়ের কাছে চলে যাওয়ার কথা ছিল ইশামের। তবে মায়ের কোলে আর ফেরা হলো না ইশামের। চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে মাইক্রোবাসে ট্রেনের ধাক্কায় না ফেরার দেশে পাড়ি জমিয়েছে মেধাবী ইশাম।

শুক্রবার (২৯ জুলাই) দুপুর দেড়টার দিকে খৈয়াছড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় ইশামের সঙ্গে থাকা আরও ১০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও সাতজন। তাদের মধ্যে পাঁচজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

jagonews24

ইশাম যে স্কুলের শিক্ষার্থী ছিল, সেই নজু মিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোস্তফা আরজু। তিনি জাগো নিউজকে জানান, ইশাম জন্মের পরপরই বাবাকে হারান। ২০০৭ সালে তার বাবা মারা যান। তার মা বর্তমানে কানাডায় থাকেন।

মোস্তফা আরজু বলেন, ‘ইশামরা দুই ভাই ও দুই বোন। তার এক ভাই অস্ট্রেলিয়া থাকেন। বোনদের মধ্যে একজন মায়ের কাছে কানাডায় থাকেন। ঢাকায় লেখাপড়া করেন আরেকজন। নানাদের পরিবারের অনেকে কানাডাপ্রবাসী। এসএসসি পরীক্ষা শেষ করে ইশামেরও কানাডা চলে যাওয়ার কথা ছিল। তার আগেই সবকিছু শেষ হয়ে গেলো।’

jagonews24

তিনি আরও বলেন, ‘বাবা মারা যাওয়ার পর ইশাম ও তার ভাই-বোনরা সবাই চাচা আকবর হোসেন মানিকের কাছে থেকে বড় হয়েছে। ইশাম মেধাবী ছাত্র ছিল। সব পরীক্ষায় সে ভালো ফল করতো। মর্মান্ত্বিক দুর্ঘটনায় মেবাধী ছেলেটি সবাইকে কাঁদিয়ে ওপারে পাড়ি জমালো।’

ইশামের মৃত্যুর খবর পেয়েই চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ছুটে এসেছেন চাচা আকবর হোসেন মানিক। হাসপাতালের জরুরি বিভাগে বিলাপ করছিলেন তিনি। বার বার বলছেন, ‘ইশাম, আমি তোর মাকে কী বুঝ দেবো?’

এদিকে, মিরসরাইয়ের খৈয়াছড়ায় দুর্ঘটনায় হতাহতদের সবার বাড়ি চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার আমান বাজারে। তারা সবাই ‘আরএনজে কোচিং সেন্টার’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ও শিক্ষক।


আরও খবর