Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

বই উৎসব শুরু

প্রকাশিত:Thursday ৩০ December ২০২১ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৪৯৪জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিয়ে বই উৎসবের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ বৃহস্পতিবার সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিনামূল্যে বই বিতরণের উদ্বোধন করেন তিনি। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে এবারও নিজের হাতে শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিতে না পারার দুঃখটা রয়েই গেল।’

নতুন শিক্ষাবর্ষের প্রথম দিন বই উৎসব করার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এ বছর তা হচ্ছে না। তবে বছরের প্রথমদিন থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বই বিতরণ কার্যক্রম চলবে।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এবং প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যের পাঠ্যবই তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী। এ ছাড়া দুই মন্ত্রণালয়ের সচিব, সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



মিরপুরে পুলিশ পরিচয়ে চাঁদা দাবি, গ্রেফতার এক

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর মিরপুর এলাকায় পুলিশ পরিচয় দিয়ে চাঁদা দাবির অভিযোগে খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (৩ আগস্ট) সন্ধ্যায় জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন দারুস সালাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জামাল হোসেন।

মোস্তাফিজুর রহমানের গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ীর পাংশা থানার হাবাসপুর গ্রামে। তিনি ঢাকায় কাফরুলের বাইশটেক এলাকায় বসবাস করতেন।

দারুস সালাম থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জামাল হোসেন বলেন, সোমবার (১ আগস্ট) রাত ১১টা ৪৫ মিনিটে রাজধানীর মিরপুর-১ এ রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে থাকা এক ব্যক্তির কাছে মোটরসাইকেলে করে এসে মোস্তাফিজুর রহমান নিজেকে পুলিশ পরিচয় দেন। এসময় ওই ব্যক্তির কাছে থাকা ব্যাগটি দাবি করেন মোস্তাফিজ।

ব্যাগ দিতে অস্বীকার করলে ভয় দেখিয়ে ৫ হাজার টাকা দাবি করেন পুলিশ পরিচয় দেওয়া এ ব্যক্তি। এসময় ভুক্তভোগী ব্যক্তির চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এসে পুলিশ পরিচয় দেওয়া মোস্তাফিজুর রহমানকে আটক করে। পরে টহল পুলিশ এসে মোস্তাফিজুরকে হেফাজতে নেয়। তার কাছ থেকে রেজিস্ট্রেশনবিহীন একটি মোটরসাইকেল জব্ধ করে পুলিশ।

পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জামাল হোসেন আরও বলেন, রেকর্ডপত্র পর্যালোচনা করে দেখা গেছে গ্রেফতার ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ডিএমপির শাহবাগ ও শেরেবাংলা নগর থানায় আরও দুটি মামলা রয়েছে। আর এবার ভুয়া পুলিশ পরিচয়ে গ্রেফতার হওয়ায় আরও একটি মামলা যুক্ত হলো।


আরও খবর



তরুণদের জন্য ব্যাংকিং পেশা কেন আকষর্ণীয়?

প্রকাশিত:Wednesday ২০ July ২০22 | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান। পড়াশোনা করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করলেও বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ধামরাই উপজেলার বালিয়া শাখায় ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সম্প্রতি তার ব্যাংকে চাকরি, ভবিষ্যৎ স্বপ্ন ও সফলতার গল্প শুনিয়েছেন জাগো নিউজকে। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ফিচার লেখক ইসমাম হোসেন

জাগো নিউজ: শৈশবের গল্প দিয়ে শুরু করতে চাই—
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: আমার দুরন্ত শৈশব কেটেছে নিজ গ্রামে। জন্ম ও বেড়ে ওঠা বগুড়ায়। শৈশবে মাছ ধরা, ডাংগুলি, গোল্লাছুট, ফুটবল, ক্রিকেট খেলে এবং দৌড়ঝাঁপ করেই সময় কেটেছে। তবে পড়াশোনার ব্যাপারে মায়ের ছিল কড়া শাসন। সন্ধ্যার পর বাড়ির বাইরে যাওয়া ছিল প্রায় অসম্ভব। প্রথম শ্রেণি থেকেই রোল ১, ২, ৩ এর মধ্যে থেকেছে। পড়াশোনার হাতেখড়ি গৃহশিক্ষক রফিকুল ইসলামের হাতে। পরে ভর্তি হই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখান থেকেই স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও এমফিল ডিগ্রি অর্জন করি। এ ছাড়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমবিএ শেষ করি। বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘কৃষি অর্থনীতি’ নিয়ে পিএইচডি গবেষণারত।

জাগো নিউজ: পড়াশোনায় প্রতিবন্ধকতা ছিল কি না?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: না। পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো প্রতিবন্ধকতা ছিল না। আমরা চার ভাই। সবার জন্যই আমাদের বাড়িতে একজন গৃহশিক্ষক থাকতেন। স্যারের নিবিড় তত্ত্বাবধানে ও কড়া অনুশাসনে পড়াশোনা করেছি। আমার পড়াশোনার নেপথ্যের কারিগর আমার মা।

জাগো নিউজ: এত পেশা থাকতে ব্যাংকিং পেশা কেন বেছে নিলেন?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: সত্য বলতে, আমার চাকরিজীবী বা ব্যাংকার হওয়ার কোনো ইচ্ছাই কখনো ছিল না। প্রবল ইচ্ছা ছিল, চাকরি করব না। আমি অন্যকে চাকরি দেব। সেজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স তৃতীয় বর্ষে অধ্যয়নরত অবস্থায় কিছু কাছের বন্ধুকে নিয়ে ব্যবসা শুরু করি। কিছুদিন ব্যবসা করার পর অনভিজ্ঞতা ও পুঁজি সংকটের কারণে ব্যবসা থেকে আশানুরূপ রিটার্ন পাচ্ছিলাম না। এদিকে দেশের অন্য দশটা পরিবারের মতো আমার পরিবারও সরকারি চাকরি করার জন্য চাপ দিচ্ছিল। পরিবারের চাপ এবং সামাজিক মর্যাদার কারণে চাকরির পড়াশোনা শুরু করি স্নাতকোত্তর পাসের পর। প্রথমে উত্তরা বিশ্ববিদ্যালয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা দিয়ে চাকরি জীবনে প্রবেশ করি। পরে ২০১২ সলে গণমানুষের ব্যাংক বলে খ্যাত বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকে ‘সিনিয়র অফিসার’ হিসেবে যোগদান করি। বর্তমানে ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার বালিয়া শাখার ম্যানেজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।

জাগো নিউজ: কে বেশি অনুপ্রেরণা দিয়েছে? কার কথা মনে পড়ে?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: অবশ্যই আমার মা-বাবা। আমার জীবনে যতটুকু সফলতা, তার মূল কারিগর আমার মা। তিনিই আমাকে সর্বদা সার্বিক সহযোগিতা ও সাহস জুগিয়েছেন। পাশাপাশি আমার প্রতি আমার সুহৃদদের যে প্রত্যাশা, সেটাও আমার জন্য অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে। এ ছাড়াও আমার অগ্রজ তিন ভাই আব্দুল মান্নান, আব্দুল হান্নান, আব্দুল খালেক, আব্দুল মান্নান স্যার, রফিক স্যার, আ. আজিজ স্যার, বাসেত স্যার, রেজাউল স্যার, আতোয়ার স্যার, আব্দুল হালিম বেগ স্যার ও বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে আমার মেন্টর ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আতাউর রহমান মিয়াজী স্যারসহ সবার প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা। তাদের সবার অবদান অনস্বীকার্য।

জাগো নিউজ: ব্যাংকে চাকরি পাওয়ার গল্পটি শুনতে চাই—
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: শুরুতেই বলেছি, বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় আমার ইচ্ছা ছিল না, আমি চাকরি করব। তা হোক সরকারি বা বেসরকারি। কিন্তু ব্যবসায়ে অল্প সময়ে সফলতা না পাওয়া এবং পারিবারিক চাপে একটু দেরীতে বিসিএসসহ অন্যান্য চাকরির জন্য প্রস্তুতি নিতে শুরু করি। ২০১১ সালে বিকেবির বিজ্ঞপ্তি দেখে আবেদন করি। ২০১২ সালে লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা দিয়ে বিকেবিতে যোগদান করি।

জাগো নিউজ: ভাইবার প্রস্তুতি কীভাবে নিয়েছিলেন?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: ভাইবার জন্য নিজ জেলা, অনার্সের পঠিত বিষয়, মহান মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কার্যাবলী এবং সমসাময়িক ঘটনাবলি সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকলেই ভালো করা সম্ভব। মনে রাখতে হবে, সফল হতে হলে লেগে থাকতে হবে। জীবনে দু’একটি খুচরা সমস্যা আসবেই। তা বলে ভেঙে পড়লে চলবে না। ভাইবার ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস সহায়ক ভূমিকা পালন করে। সুতরাং হতাশ না হয়ে এগিয়ে যেতে হবে।

জাগো নিউজ: ব্যাংকার হিসেবে প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছেন কি?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: অনেকের ধারণা, যারা বাণিজ্য বিভাগ থেকে পড়াশোনা করে; তারাই ব্যাংকার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ে তোলে। আমাদের দেশে বিসিএসের মতো যে কোনো বিষয়ের স্নাতকরা ব্যাংকে ক্যারিয়ার গড়তে পারেন। তবে এ কথা ঠিক যে, অন্যান্য বিষয়ের স্নাতকদের তুলনায় বাণিজ্য বিভাগের স্নাতকরা সহজেই ব্যাংকিংয়ের বিষয়াদি বুঝে উঠতে পারেন। আমি কলা অনুষদের শিক্ষার্থী হওয়ায় শুরুতে কাজ করতে কিছুটা অসুবিধা হলেও অভিজ্ঞ সহকর্মীদের সহযোগিতায় ছোটখাটো প্রতিবন্ধকতা দ্রুতই কেটে উঠতে সক্ষম হয়েছি। এ জন্য আমার প্রথম কর্মস্থলের সহকর্মী তৎকালীন ম্যানেজার ইনামুল স্যার, উত্তম দাদা, ওলী ভাই, দেলোয়ার ভাই এবং বারেক ভাইয়ের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা। পরের কর্মস্থল ফেনীর সাবেক মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মো. মুস্তাফিজুর রহমান স্যার, শরীয়তপুরের মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্ব) কাজী কামরুজ্জামান স্যার ও প্রধান কার্যালয়ের ভিজিল্যান্স স্কোয়াড বিভাগের উপমহাব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্ব) শাহ মুহাম্মাদ মাঈনুল হাসান স্যার ব্যাংকিং বুঝতে নিরন্তর সহযোগিতা করে চলেছেন। বর্তমানে ঢাকার মুখ্য আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মুহাম্মদ রাশিদুল ইসলাম স্যারের সহযোগিতার জন্য স্যারের প্রতি জানাচ্ছি কৃতজ্ঞতা।

জাগো নিউজ: আগামী দিনের পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাই—
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: ছাত্রজীবনের সুপ্ত বাসনা বা যে চিন্তা ছিল, তা আমি গণমানুষের বাংলাদেশে কৃষি অর্থায়নে সর্ববৃহৎ বিশেষায়িত ব্যাংক বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকে দায়িত্ব পালনকালীন প্রত্যক্ষভাবে না হলেও পরোক্ষভাবে বাস্তবায়ন করার চেষ্টা করছি। বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের প্রান্তিক পর্যায়ে বিস্তৃত ১০৩৮টি শাখা রয়েছে। তার মধ্যে একটি শাখার ব্যবস্থাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আমার শাখার আওতায় ৫টি ইউনিয়নব্যাপী প্রায় ৬০০০ ঋণগ্রহীতাকে ঋণ দেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ যে আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছে, সে ক্ষেত্রে বৃহৎ ভূমিকা পালন করছে কৃষকদের অর্থলগ্নীকারী রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক। বিশেষত শস্য, মৎস্য, প্রাণিসম্পদ খাতে গ্রামীণ অর্থনীতিকে চাঙা করার জন্য আমরা ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তৈরি করছি। যা দেশের
কর্মসংস্থান বাড়াতে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। এ ক্ষেত্রে কিছুটা ভূমিকা পালন করতে পেরে ভালো লাগছে। দেশ মাটি ও মানুষের জন্য নিজের সেরাটা দিয়ে কাজ করে যেতে চাই।

জাগো নিউজ: নতুন প্রজন্মের যারা ব্যাংকার হতে চান, তাদের জন্য আপনার পরামর্শ কী?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: আমি মনে করি, যারা সৎ উপায়ে আর্থিকভাবে স্বচ্ছল জীবনযাপন করতে চান, তাদের জন্য অবশ্যই ব্যাংকিং ক্যারিয়ার আকর্ষণীয়। কারণ ব্যাংকে বেতনের পাশাপাশি স্বল্প সুদে কোটি টাকার উপরে গৃহনির্মাণ বা ফ্ল্যাট ঋণ, মোটরগাড়ি ঋণ, মোটরসাইকেল ঋণ, কম্পিউটার ঋণ, ব্যক্তিগত ঋণ ও লাঞ্চ সাবসিডিসহ অন্যান্য আর্থিক সুবিধার কারণে একজন ব্যাংকার স্বল্প সময়ে সৎ উপায়ে বাড়ি-গাড়ির মালিক হতে পারেন। যে কারণে বর্তমানে তরুণদের কাছে আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে ব্যাংকের চাকরি।

জাগো নিউজ: নিজেকে একজন ব্যাংকার হিসেবে কতটুকু সফল মনে হয়?
মুহাম্মাদ মাছুদুর রহমান: আমি সফল না ব্যর্থ, তা আমার সম্মানিত গ্রাহকগণ, সহকর্মী ও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যথাযথভাবে বলতে পারবেন। তবে আমাকে আমার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ যখন যে দায়িত্ব দিয়েছে, তা সর্বদা নিষ্ঠার সাথে পালন করার চেষ্টা করেছি।


আরও খবর



ভুলনীতি-দুর্নীতির কারণে জ্বালানি জ্বরে ভুগছে দেশ: নাগরিক সমাজ

প্রকাশিত:Saturday ০৬ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ১৬ August ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ সাধারণ নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, জ্বালানি খাতের দুই-চারজন ব্যক্তির ভুলনীতি ও দুর্নীতির কারণে দেশের জনগণ জ্বালানি জ্বরে ভুগছে।

শনিবার (৬ আগস্ট) জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন তিনি।

মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, শুক্রবার রাতে ইতিহাস ভঙ্গ করে ডিজেল, কেরোসিন, পেট্রল আর অকটেনের যে মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে, এর খেসারত পুরো জাতিকে জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেবে। এতে কোনো সন্দেহ নেই।

তিনি আরও বলেন, অকটেন ও পেট্রল দীর্ঘদিন যাবত আমদানি না করে গ্যাস ও ডিজেল রিফাইন কনডেন্সার থেকে এ দুটি জ্বালানি উৎপাদন করা হয়। এ দুটি জ্বালানির পর্যাপ্ত মজুদ আমাদের রয়েছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক বাজারের দোহাই দিয়ে দেশে উৎপাদিত এই দুটি জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে, যা মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়।

‘অন্যদিকে, বিদ্যুতের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতি না রেখেই বেসরকারি খাতে উৎপাদিত বিদ্যুৎ, ক্যাপটিভ পাওয়ার ও ক্যাপাসিটি চার্জের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা সুবিধা দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে। আর এর জন্য জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রতিমন্ত্রী, জ্বালানি উপদেষ্টাসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার এসব সিন্ডিকেট বাণিজ্যের জন্য দায়ী বলে আমরা মনে করি। তাদের ভুলনীতি ও দুর্নীতির দায়ভার দেশের জনসাধারণ নিতে পারে না।’

‘সরকারের কাছে আমাদের দাবি- খুব দ্রুত বর্তমান যে মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে, তা প্রত্যাহার করে যুক্তিসঙ্গত মূল্য ঠিক করে জনগণকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। আজ সড়কে ডিজেলচালিত গণপরিবহন ও পণ্য পরিবহনের পাশাপাশি মোটরসাইকেল চলাচল কমে গেছে।’

‘হয়তো দুই-একদিনের মধ্যেই গণপরিবনের ভাড়াও বেড়ে যাবে, যা সাধারণ নাগরিকদের সামর্থ্যের বাইরে চলে যাবে। পণ্য পরিবহন খরচ বৃদ্ধি পেলে, বেড়ে যাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। এর ফলে দেশে দেখা দিতে পারে চরম নৈরাজ্য ও দুর্ভিক্ষ।’

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, দেশকে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় রাখতে ও জীবনযাত্রা সহনীয় পর্যায়ে রাখতে আপনার প্রতি অনুরোধ- বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার করুন।


আরও খবর



৭ ঘণ্টা পর কক্সবাজার সৈকতে নিখোঁজ শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:Wednesday ২০ July ২০22 | হালনাগাদ:Tuesday ১৬ August ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

কক্সবাজার সৈকতের ইনানী পয়েন্টে গোসলে নেমে নিখোঁজ হওয়া ঢাকার স্কুল শিক্ষার্থীর মরদেহ উদ্ধার হয়েছে। নিখোঁজের দীর্ঘ সাত ঘণ্টা পর ইনানী সৈকত থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

বুধবার (২০ জুলাই) বেলা ১১টার দিকে চার কাজিন গোসলে নেমে এ নিখোঁজের ঘটনা ঘটেছিল। মৃত আবদুল্লাহ (১৬) ঢাকার মহাখালী ডিওএইচএসর বাসিন্দা কর্নেল ডা. শহিদের ছেলে। সে বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল থেকে এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

ট্যুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার রিজিয়নের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, সাগরে হারিয়ে যাওয়া আবদুল্লাহর মরদেহ বুধবার বিকেল ছয়টায় ডেলপাড়া এলাকার বিচে ভেসে আসে। মরদেহটি ট্যুরিস্ট পুলিশ, সি সেইফ লাইফগার্ড ও বিচ কর্মীদের সহযোগিতায় উদ্ধার করা হয়। পরে বাবা কর্নেল শহিদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও বলেন, সামরিক বাহিনীর চিকিৎসক কর্নেল শহীদ পরিবার ও স্বজনদের নিয়ে রয়েল টিউলিপ হোটেলে ওঠেন। বুধবার বেলা ১১টার দিকে কর্নেল শহীদের ছেলে আবদুল্লাহ তার চার কাজিন মিলে অভিভাবকদের না জানিয়ে বে-ওয়াচ আর সি পার্ল বিচ রিসোর্ট অ্যান্ড স্পার মাঝামাঝি বিচে গোসলে যায়। উত্তাল ঢেউয়ে গোসল শেষে তিনজন ওপরে উঠতে পারলেও আবদুল্লাহ ঢেউয়ের সঙ্গে ডুবে যায়।


আরও খবর



স্পেনে মূল্যস্ফীতি বেড়ে ১৯৮৪ সালের পর সর্বোচ্চ

প্রকাশিত:Friday ২৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেনে হামলার পর রাশিয়ার ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইউরোপ। এর পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে অঞ্চলটিতে জ্বালানি সরবার উল্লেখযোগ্য মাত্রায় কমিয়েছে রাশিয়া। এতে ইউরোপে লাফিয়ে বাড়ছে মূল্যস্ফীতির হার। চলতি মাসে স্পেনের ভোক্তা মূল্যসূচক বেড়ে ১৯৮৪ সালের পর সর্বোচ্চ হয়েছে। দেশটির পরিসংখ্যান বিভাগ এ তথ্য জানিয়েছে। শুক্রবার (২৯ জুলাই) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

স্পেনের জাতীয় পরিসংখ্যান ইনস্টিটিউটের (আইএনই) প্রকাশিত প্রাথমিক তথ্যে বলা হয়েছে, পণ্যের মূল্য বার্ষিকভিত্তিতে ১০ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়েছে। জুনে এই হার ছিল ১০ দশমিক ২ শতাংশ।

করোনা মহামারির পর ইউরোপের দেশগুলো যখন অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার কার্যক্রম শুরে করে ঠিক তখনই ইউক্রেনে হামলা চালায় রাশিয়া। এতে স্পেনসহ ইউরোপের অধিকাংশ দেশ উচ্চ মূল্যস্ফীতির সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।

অর্থনীতি মন্ত্রী নাদিয়া ক্যালভিনো এই সপ্তাহে সতর্ক করেছেন যে মূল্যস্ফীতি স্প্যানিশ অর্থনীতির জন্য প্রধান চ্যালেঞ্জ।

আইএনই জানিয়েছে, অ্যালকোহল মুক্ত পানীয়, খাদ্য ও বিদ্যুতের দাম বেড়ে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতি বেড়ে গেছে।

স্পেনের প্রধানমন্ত্রী বলেন, আশা করা হচ্ছে চলতি বছরের শেষের দিকে মূল্যস্ফীতি কমবে। তবে মানুষের ভোগান্তি ও ব্যবসায়-বাণিজ্য রক্ষায় ভর্তুকিসহ নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর