Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

আশুলিয়া-নড়াইলের ঘটনায় ১৭ বিশিষ্ট নাগরিকের উদ্বেগ

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় এক শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দেশের ১৭ জন বিশিষ্ট নাগরিক।

বিবৃতিতে বিশিষ্ট নাগরিকরা বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সাম্প্রদায়িকসহ সব অপশক্তিকে কঠোর হাতে দমন করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চার মূলনীতির আলোকে শিক্ষা, প্রশাসনসহ রাষ্ট্রের সব কার্যক্রম পরিচালনা করতে প্রতিষ্ঠানগুলো ঢেলে সাজানো এখন সময়ের দাবি।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) বীর মুক্তিযোদ্ধা, নাট্যনির্দেশক, চলচ্চিত্র নির্মাতা নাসির উদ্দিন ইউসুফ গণমাধ্যমে এ বিবৃতিতে পাঠিয়েছেন।

বিবৃতিদাতারা হলেন- হাসান ইমাম, অনুপম সেন, সেলিনা হোসেন, রামেন্দু মজুমদার, সারোওয়ার আলী, ফেরদৌসী মজুমদার, আবেদ খান, আবদুস সেলিম, লায়লা হাসান, মফিদুল হক, শাহরিয়ার কবীর, মুনতাসির মামুন, হারুণ হাবীব, শফি আহমেদ, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, শিমূল ইউসুফ ও সারা যাকের।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, অত্যন্ত উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, বাংলাদেশের সমাজ ক্রমশ অসহিষ্ণু হয়ে উঠছে। মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ পথ হারানোর আগেই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণে সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

এতে বলা হয়, ঢাকার আশুলিয়ায় স্কুলছাত্রীকে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় উৎপল কুমার নামের এক শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা করেছেন এক বখাটে তরুণ। অন্যদিকে নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে লাঞ্ছিত করা হয়েছে। চলমান ঘটনায় প্রমাণিত হয়, বাংলাদেশ আজ সাম্প্রদায়িকতার ছোবলে ক্ষতবিক্ষত। দেশে মানবিক মর্যাদা ভূলুণ্ঠিত। সামাজিক মর্যাদা অদৃশ্য।


আরও খবর



ভারতের চাপে চীনের জাহাজ থামিয়ে দিলো শ্রীলঙ্কা

প্রকাশিত:Tuesday ০৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৬১জন দেখেছেন
Image

চীনের একটি জাহাজ চলতি সপ্তাহে শ্রীলঙ্কার বন্দরে পৌঁছানোর কথা ছিল। কিন্তু প্রতিবেশী দেশ ভারতের প্রতিবাদে সেটিকে আপাতত বন্ধ রাখতে বলেছে শ্রীলঙ্কা। মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

জানা গেছে, ইউয়ান ওয়াং-৫ নামের জাহাজটি আগামী বৃহস্পতিবার পাঁচ দিনের জন্য শ্রীলঙ্কার দক্ষিণে চীনের-নির্মিত ও লিজ নেওয়া হাম্বানটোটা বন্দরে পৌঁছানোর কথা ছিল।

নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা ইউয়ান ওয়াং-৫ কে চীনের সর্বশেষ প্রজন্মের স্পেস-ট্র্যাকিং জাহাজগুলোর মধ্যে একটি হিসাবে বর্ণনা করেছেন, যা স্যাটেলাইট, রকেট ও আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ পর্যবেক্ষণ করতে ব্যবহৃত হয়।

নয়াদিল্লি আশঙ্কা করছে তার বৃহত্তর ও আরও শক্তিশালী প্রতিদ্বন্দ্বী চীন হাম্বানটোটাকে ভারতের পিছনের উঠোনে একটি সামরিক ঘাঁটি হিসেবে ব্যবহার করবে। বন্দরটি এশিয়া থেকে ইউরোপে প্রধান শিপিং রুটের কাছাকাছি।

এদিকে শ্রীলঙ্কার সংবাদমাধ্যমে দাবি, ভারতের চাপের মুখে পড়েই সিদ্ধান্ত বদল করেছে রনিলের সরকার। হাম্বানটোটায় ওই জাহাজ ভিড়লে তা নিজেদের সুরক্ষার ক্ষেত্রে ঝুঁকির হতে পারে বলেও আশঙ্কা ভারতের। বিষয়টি শ্রীলঙ্কাকে অবগতও করে ভারত সরকার। এমনকি শ্রীলঙ্কার কাছে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদও করে ভারত। এর আগে চীনের জাহাজটিকে সবুজ সংকেত দিয়েছিল দ্বীপ রাষ্ট্রটি।


আরও খবর



অংশীজনের অভিযোগ-পরামর্শ আমলে নেয় না রেলওয়ে

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

# গত ৭ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে হয় সবশেষ অংশীজন সভা
# তালিকায় রনিসহ নতুন তিনজন

ট্রেনে নিয়মিত যাতায়াত করেন ও ট্রেনের সেবার মান নিয়ে অভিযোগ-পরামর্শ দেন এমন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠান নিয়ে অংশীজন তালিকা রয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ের। ট্রেনে যাত্রীসেবার মান বাড়াতে এই অংশীজনদের নিয়ে প্রতি চার মাস অন্তর সভা করা হয়। সভা অনুষ্ঠিত হয় একেক সময়, একেক রেলস্টেশন বা জেলায়।

তবে রেলওয়ের এই অংশীজন সভা যাত্রী কল্যাণে তেমন কোনো অবদান রাখছে বলে মনে করেন না অংশীজনরা। তাদের অভিযোগ, প্রতিটি সভায় ঘুরেফিরে ট্রেনের টিকিট কাটতে সার্ভারে জটিলতা, রেলে পাথর নিক্ষেপ, ব্যাগ ছিনতাই, বিনা টিকিটে ভ্রমণ, টিকিট কালোবাজারি, রেলের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা, স্টেশনে বিদ্যুৎ-পানি সমস্যা, অপরিচ্ছন্ন প্ল্যাটফর্ম-বগি অপরিষ্কার, ওয়াগন স্বল্পতা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্বে অবহেলাসহ নানান অভিযোগ তুলে ধরেন তারা।

সভায় অভিযোগগুলো শোনেন এবং তা সমাধানের আশ্বাস দেন রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। কিন্তু এসব সমস্যা কমার বদলে ক্রমেই বাড়ছে।

অংশীজনের অভিযোগ-পরামর্শ আমলে নেয় না রেলওয়ে

এমন অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগে সম্প্রতি ৬ দফা দাবি নিয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনে টানা ১৯ দিন অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মহিউদ্দিন রনি। এই আন্দোলনে সমর্থন দেন দেশের সব স্তরের মানুষ। এ নিয়ে গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা হয়। অবশেষে ২৫ জুলাই রাতে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশ্বাসে কর্মসূচি স্থগিত করেন রনি। ওই বৈঠকে রনিকে রেলের অংশীজনের তালিকায় রাখার সিদ্ধান্ত নেয় রেলওয়ে।

রেলওয়ের তালিকায় থাকা তিনজন অংশীজন অভিযোগ করেছেন, অধিকাংশ অংশীজন রেলওয়ে আয়োজিত সভায় অংশ নেন না। তার একটি বড় কারণ হলো, তারা রেলওয়েকে যেসব অভিযোগ ও পরামর্শ দেন, তার বাস্তবায়ন হয় না। ফলে দিন যত যাচ্ছে, রেলের অব্যবস্থাপনা ক্রমেই বাড়ছে। এছাড়া যারা অংশীজন সভায় অংশ নেন, তাদের যাতায়াত খরচও রেলওয়ে দেয় না। এতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন অংশীজনরা। এখন মহিউদ্দিন রনি যে ৬ দফা দাবি জানিয়েছেন, সেগুলো পরিপূর্ণ বাস্তবায়ন করতে রেলওয়ের কয়েক যুগ লেগে যাবে। রনিও একদিন অংশীজন সভায় অংশগ্রহণে আগ্রহ হারিয়ে ফেলবেন।

তবে বাংলাদেশ রেলওয়ের সংশ্লিষ্টদের দাবি, তারা অংশীজনদের দাবি আমলে নিচ্ছেন। যখন যে অভিযোগ বা পরামর্শ আসে তা সাদরে গ্রহণ করা হয়। ভবিষ্যতে অংশীজনদের অভিযোগ-পরামর্শ আরও গুরুত্ব দেওয়া হবে।

রেলওয়ের প্রশাসনিক বিভাগ সূত্র জানায়, প্রতি চার বা তিন মাস পরপর দেশের সব সংস্থা এবং প্রতিষ্ঠানে একবার করে অংশীজন সভা করতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনা রয়েছে। সে অনুযায়ী প্রতি চার মাস পরপর এই সভার আয়োজন করে রেলওয়ে। সবশেষ গত ৭ জুন নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় নারায়ণগঞ্জ এলাকার অংশীজনসহ রেলওয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এই সভায় রেলের নানান সমস্যা তুলে ধরেন অংশীজনরা। পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জে রেল সভা বাড়ানোরও পরামর্শ নেন তারা। তখন তাদের অভিযোগ এবং পরামর্শ আমলে নেওয়ার আশ্বাস দেন রেলওয়ের সংশ্লিষ্টরা।

অংশীজনের অভিযোগ-পরামর্শ আমলে নেয় না রেলওয়ে

রেলওয়ের অংশীজনদের তালিকার প্রথম দিকে রয়েছেন বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী। তিনি নারায়ণগঞ্জের অংশীজন সভায় অংশ নেন। আলাপকালে মোজাম্মেল হক চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, রেলওয়ে অবকাঠামো উন্নয়নে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নিচ্ছে। কিন্তু ছোট ছোট বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দিচ্ছে না। যেমন- তারা এখনো নিজ ব্যবস্থাপনায় টিকিট বিক্রি এবং কালোবাজারি বন্ধ করতে পারছে না। ট্রেন ফ্ল্যাটফর্ম নোংরা। টয়লেটে সাবান, টিস্যু থাকে না। এগুলো নিয়েই যাত্রীদের ভোগান্তি বেশি হয়। প্রতিটি সভায় এ বিষয়গুলো উপস্থাপন করছি। কিন্তু রেল বেশিরভাগ অভিযোগ ও পরামর্শই আমলে নেয় না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রেলওয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, রেলওয়ের অংশীজন কতজন থাকবেন, তা নির্ধারিত নয়। রেলওয়ে বা মন্ত্রণালয় যখন যাকে ইচ্ছা এই তালিকায় রাখে, বাদ দেয়। তবে তালিকায় সামাজিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলনে সম্পৃক্ত এমন ব্যক্তিদের গুরুত্ব দেওয়া হয়। এর মধ্যে নিরাপদ সড়ক চাই, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা), বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি, যাত্রী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, নৌ-সড়ক-রেল পথ রক্ষা জাতীয় কমিটিকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়। এর বাইরে রেল গবেষক, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকও রয়েছেন। এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মহিউদ্দিন রনিসহ রিফাত জাহান শাওন, কামরুন্নাহার মুন্নি নামে আরও তিনজন এই তালিকায় যোগ হবেন। তাদের অংশীজন করতে ফাইল তৈরির কাজ চলছে।

অংশীজনদের নিয়ে সভা করার কাজটি সমন্বয় করেন রেলওয়ের যুগ্ম সচিব আ স ম আশরাফুজ্জামান। তিনি বলেন, সাধারণত অংশীজন সভায় টিকিট কালোবাজারি, চোরাচালান, রেলের প্ল্যাটফর্ম অপরিচ্ছন্নের অভিযোগ বেশি আসে। এগুলো আমরা তাৎক্ষণিক সমাধান করার চেষ্টা করি। কিন্তু এ কাজটি নিয়মিত করা খুব কঠিন। তারপরও রেলওয়ে তা করে যাচ্ছে। অংশীজনদের গুরুত্ব দিচ্ছে।

মহিউদ্দিন রনিকে অংশীজন করতে ফাইল তৈরি করছে রেলওয়ে
রেলের অব্যবস্থাপনা নিয়ে টানা ১৯ দিন আন্দোলনের পর গত ২৫ জুলাই সন্ধ্যায় রেল মন্ত্রণালয় ও রেলওয়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র মহিউদ্দিন রনি। বৈঠকে তিনি ৬ দফা দাবি তুলে ধরেন। বৈঠকে রেলের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের আশ্বাসে তিনি আপাতত কর্মসূচি স্থগিত করেন। ওই বৈঠকেই রনিকে অংশীজনের তালিকায় রাখার সিদ্ধান্ত নেয় রেলওয়ে।

রনিকে অংশীজনের তালিকায় রাখার কাজ কতদূর এগিয়েছে, জানতে চাইলে রেলওয়ের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মাসুদ জাগো নিউজকে জানান, তারা রনিসহ তিনজনের নাম অংশীজনের তালিকায় রাখতে ফাইল তৈরি করছেন। শিগগির এ ফাইল রেলওয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হবে। তারা অনুমোদন দিলে চিঠি দিয়ে তা রনিকে জানানো হবে।


আরও খবর



স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যা, টয়লেটে মিললো মরদেহ

প্রকাশিত:Monday ১৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে ফরিদা খানম (১১) নামের এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার (১৪ আগস্ট) মধ্যরাতে উপজেলার রুপাপাত ইউনিয়নের ইছাডাঙ্গা গ্রামের রাশেদ শিকদারের ঘরের টয়লেট থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ সময় ধর্ষণের আলামতও পাওয়া যায়। পালিয়ে যাওয়ার সময় রাসেলকে (২২) আটকের পর পুলিশে দেন স্থানীয়রা।

নিহত ছাত্রীর বাবা মুক্তার শিকদার বলেন, ‘বাড়ির সামনে আমার ছোট একটি মুদিদোকান আছে। মেয়ে ওই দোকানে বেচাকেনা করছিল। রোববার সন্ধ্যার দিকে রাসেল বাকি টাকা দেওয়ার কথা বলে তার ঘরে ডেকে নেয়। দীর্ঘ সময় মেয়েকে না পেয়ে আমরা পুরো গ্রাম ও বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজি করি। রাত ১১টার দিকে রাসেলের বাড়িতে যাই। এ সময় রাসেল পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাকে আটক করা হয়। তার ঘরের টয়লেটের তালা ভেঙে মৃত অবস্থায় মেয়েকে পাই। এ সময় মেয়ের হাত-পা এবং মুখ বাঁধা ছিল।’

এ বিষয়ে বোয়ালমারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আব্দুল ওহাব জাগো নিউজকে বলেন, এ ঘটনায় নিহত মেয়েটির বাবা ধর্ষণের হত্যার একটি অভিযোগ দিয়েছেন। হত্যার আগে ধর্ষণের আলামতও পাওয়া গেছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।

ফরিদপুরের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (মধুখালী-বোয়ালমারী সার্কেল) সুমন কর জাগো নিউজকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মেয়েটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। এর সত্যতাও পাওয়া গেছে। মেয়েটির মরদেহ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর



২৬ হাজার পরিবার প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাচ্ছে আজ

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন ও গৃহহীনদের ভূমিসহ ঘর দেওয়ার কর্মসূচিতে এবার আরও ২৬ হাজার ২২৯টি ঘর দেওয়া হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) প্রধানমন্ত্রী এসব ঘর হস্তান্তর করবেন।

প্রধানমন্ত্রী গণভবন থেকে দেশের চারটি উপজেলার সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হবেন। এগুলো হলো- লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চরকলাকোপা আশ্রয়ণ প্রকল্প, বাগেরহাটের রামপাল উপজেলার গৌরম্ভা আশ্রয়ণ প্রকল্প, ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার চর ভেলামারী আশ্রয়ণ প্রকল্প, পঞ্চগড় সদর উপজেলার মাহানপাড়া আশ্রয়ণ প্রকল্প এবং মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার জঙ্গালিয়া আশ্রয়ণ প্রকল্প।

এদিন ৫২টি উপজেলাকে ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত ঘোষণা করবেন সরকারপ্রধান। এরইমধ্যে সব আয়োজন সম্পন্ন করছে উপজলা প্রশাসন।

সরকার আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় প্রথম পর্যায়ে ৬৩ হাজার ৯৯৯টি এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ৫৩ হাজার ৩৩০টি ঘর দিয়েছে। তৃতীয় পর্যায়ে ৬৭ হাজার ৮০০ ঘর দেওয়ার কাজ করছে। এরইমধ্যে ৩২ হাজার ৯০৪টি দেওয়া হয়েছে। ২১ জুলাই ২৬ হাজার ২২৯টি দেবে। পাশাপাশি ৮ হাজার ৬৬৭টি নির্মাণাধীন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার চর পোড়াগাছা ইউনিয়নে নদীভাঙণে ক্ষতিগস্ত ২১০টি পরিবারকে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে প্রতিটি পরিবারকে ২ দশমিক ৫ একর করে ভূমি বন্দোবস্ত প্রদান করে ছিন্নমূল ও অসহায় মানুষের পুনর্বাসন কার্যক্রম সর্বপ্রথম শুরু করেন। এখন বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত এ ইউনিয়নে কলাকোপা আশ্রয়ণ প্রকল্পে ৫ দশমিক ১৫ একর অবৈধ দখল উদ্ধারকৃত জমিতে নদীভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত জেলে, ভিক্ষুক, বিধবা ও অসহায় ১ হাজার ৪২৫ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হচ্ছে।

একইভাবে ‘আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প’র মাধ্যমে সারাদেশে ভূমিহীন গৃহহীনদের পুনর্বাসন করছে সরকার। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা- ‘বাংলাদেশের একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না’। এরইমধ্যে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে ৫ লাখ ৯ হাজার ৩৭০ পরিবারকে ভূমি ও সেমিপাকা ঘর করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্বাহী সেলের মাধ্যমে ৭ হাজার ৮০৯টি পরিবার, ভূমি মন্ত্রণালয় ৭২ হাজার ৪৫২টি পরিবার, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় ৪ হাজার ২৩৭টি পরিবার, বাংলাদেশের গৃহায়ন তহবিল থেকে ৮৮ হাজার ৭৮৬টি পরিবার এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ২৮ হাজার ৬০৯টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে। এভাবে সারাদেশে মোট ৭ লাখ ১১ হাজার ৬৩ পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।

ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত উপজেলাগুলো:
পঞ্চগড় ও মাগুরা জেলার সব উপজেলাসহ দেশের ৫২টি উপজেলা ভূমিহীন ও গৃহহীনমুক্ত হওয়ার ঘোষণা দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

উপজেলাগুলো হলো- ঢাকার নবাবগঞ্জ, মাদারীপুরের মাদারীপুর সদর, শরীয়তপুরের ডামুড্যা, কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী, টাঙ্গাইলের গোপালপুর, মানিকগঞ্জের ঘিওর, সাটুরিয়া, রাজবাড়ীর কালুখালী, ফরিদপুরের নগরকান্দা, নেত্রকোনার মদন, ময়মনসিংহের ভালুকা, নান্দাইল, ফুলপুর, ফুলবাড়িয়া, জামালপুরে বকশীগঞ্জ, চট্টগ্রামের পটিয়া, কর্ণফুলী, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া, লক্ষ্মীপুরের রায়পুর, রামগঞ্জ, ফেনীর ফেনী সদর, ছাগলনাইয়া, ফুলগাজী, পরশুরাম, গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ, পঞ্চগড়ের আটোয়ারী, পঞ্চগড় সদর, দেবীগঞ্জ, তেঁতুলিয়া, বোদা।

এছাড়া দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ, ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী, নীলফামারীর ডিমলা, নওগাঁর রাণীনগর, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি, রাজশাহীর মোহনপুর, চারঘাট, বাঘা, বগুড়ার নন্দীগ্রাম, দুপচাঁচিয়া নাটোরের বাগাতিপাড়া, পাবনার ঈশ্বরদী, চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ, ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু, সাতক্ষীরার তালা, মাগুরার মাগুরা সদর, শ্রীপুর, মোহম্মদপুর, শালিখা, ঝালকাঠির কাঠালিয়া, পটুয়াখালীর দশমিনা।


আরও খবর



চুল দ্রুত ঘন ও লম্বা করবেন যেভাবে

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

লম্বা ও ঘন চুল পেতে কে না চায়! তবে প্রতিদিনের দূষণ, চুলে তাপ দেওয়ার বিভিন্ন যন্ত্রসহ নানা ধরনের কেমিক্যালযুক্ত প্রসাধনী ব্যবহারের কারণে অনেকেই চুলের নানা সমস্যায় ভোগেন। যার মধ্যে অন্যতম হলো চুল পড়ার সমস্যা। অনেকের তো চুল পড়তে পড়তে টাক দেখা যায় মাথায়।

আপনিও যদি এই সমস্যায় ভোগেন তাহলে কয়েকটি প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহারের মাধ্যমেই চুল আরও ঘন ও লম্বা করতে পারবেন, তাও আবার দ্রুত। জেনে নিন করণীয়-

>> পেঁয়াজের রস চুলের জন্য খুবই উপকারী এক উপাদন। এতে থাকা পুষ্টিগুণ চুল ঘন ও লম্বা করতে সাহায্য করে। নারকেল তেল, লেবুর রস ও পেয়াঁজের রস একসঙ্গে মিশিয়ে চুলে ব্যবহার করুন। শুকিয়ে গেলে হালকা কোনো শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

>> চালের পানিও চুলের যত্নে দারুন কার্যকরী। সারারাত ভেজানো চালের পানি একটি স্প্রে বোতলে ঢেলে পুরো চুলে ব্যবহার করুন। নিয়মিত এটি ব্যবহারেই আপনি পাবেন ঘন ও লম্বা চুল।

>> চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ও নতুন চুল গজাতে ডিমের মাস্কের জুড়ি মেলা ভার। ঘরেই সপ্তাহে অন্তত একবার চুলে ব্যবহার করুন ডিমের মাস্ক।

>> ক্যানস্টর অয়েলও চুলের জন্য অনেক উপকারী। বিশেষ করে নতুন চুল গজাতে এই তেল দুর্দান্ত কাজ করে। মাথার ত্বকে আলতো হাতে ব্যবহার করুন এই তেল।

>> মেথি চুল আরও ঘন ও উজ্জ্বল করে। ৮-১০ ঘণ্টা মেথি ভিজিয়ে রেখে তা ব্লেন্ড করে ঘন পেস্ট তৈরি করে চুলে ব্যবহার করুন।

>> সালফেটমুক্ত শ্যাম্পু দিয়ে সপ্তাহে ২-৩ বার চুল ধুয়ে ফেলুন। এতে চুল ভালো থাকবে। কেমিক্যালযুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহারের কারণেও অনেক সময় চুল পড়ার সমস্যা বাড়ে।

>> চুল ঘন করতে চাইলে সঠিক খ্যাদ্যাভ্যাসও জরুরি। এজন্য পাতে রাখুন প্রোটিন, ফ্যাটি অ্যাডিস, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ও আয়রনসমৃদ্ধ খাবার।

>> চুলে অত্যধিক তাপ ব্যবহার করা বন্ধ করুন। এতে চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি বাঁধাপ্রাপ্ত হয়।

>> নিয়মিত চুল আঁচড়াতে হবে। তাহলে চুলের ফলিকলগুলো আরও সক্রিয় হয়ে চুল দ্রুত ঘন ও লম্বা করে।

>> ক্যাস্টর অয়েলের পাশাপাশি চুলে নিয়মিত ব্যবহার করুন জলপাই তেল। এই তেলে থাকে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড, যা চুলের জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ। হালকা গরম করে এই তেল মাথার ত্বকে মালিশ করুন।


আরও খবর