Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

আজ থেকে শুরু হচ্ছে ইলিশ ধরা

প্রকাশিত:Friday ২৯ April ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৪০জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

টানা দুই মাস পর শনিবার (৩০ এপিল) রাত ১২টার পর থেকে শুরু হচ্ছে ইলিশ ধরা। বর্তমানে জেলেরা নদীতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।


ঘাটের পাড়ে জাল এবং নৌকা ঠিক করায় ব্যস্ত সময় পার করছেন তারা।শনিবার রাত থেকে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে কর্মব্যস্ত হয়ে পড়বেন বেকার জেলেরা।এতোদিন যেসব আড়তে ছিল সুনশান নিরবতা সেইসব আড়ত জেলে, মৎস্যজীবী ও আড়তদারদের হাঁকডাকে মুখরিত হয়ে উঠবে। 


মাছ ধরে বিগত দিনের ধার-দেনা শোধ করে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী জেলেরা।ভোলা সদরের ইলিশা, তুলাতলী, ভোলার খাল, নাছির মাঝিসহ বিভিন্ন ঘাট ঘুরে দেখা গেছে, ইলিশ ধরার জন্য জেলেরা প্রস্তুতি নিচ্ছেন। শনিবার মধ্যরাত থেকে মাছ ধরা শুরু, তাই ঘাটে ঘাটে দেখা যাচ্ছে প্রস্তুতি। 


কেউ জাল বুনছেন কেউ নৌকায় রং দিচ্ছেন কেউবা ট্রলার-নৌকা মেরামত করছেন। নতুন উদ্যামে ফের নদীতে নামার প্রস্তুতি উপকূলের জেলেদের।  দুই মাস বেকার সময় পার করার পর ইলিশ ধরার উৎসবে মেতে উঠবেন এমন স্বপ্ন তাদের চোখ-মুখে। মেঘনা-তেঁতুলিয়া আহরিত সেই মাছ বিক্রি করে সংকট কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী তারা।


জেলে রহিম, বশির ও মহিউদ্দিন জানান, এতোদিন মাছ ধরা বন্ধ ছিল, তাই নদীতে যাইনি। এখন মাছ ধরা শুরু হচ্ছে। আমরা নদীতে নামার প্রস্তুতি নিচ্ছি। ভোলার খাল ঘাটে নৌকার ইঞ্জিন মেরামত করছিলেন। তারা জানালেন, মাছ ধরা শুরু হবে তাই ইঞ্জিন ঠিক করছি। কেউ আবার জাল প্রস্তুত করছেন।  মাছ ধরা বন্ধ থাকায় এতোদিন আড়তে ছিল সুনশান নিরবতা, সেইসব আড়তে জেলে, মৎস্যজীবী ও আড়তদারদের হাঁকডাকে মুখরিত হয়ে উঠবে।


আরও খবর



মাদকমুক্ত চা বাগানের স্বপ্ন সুনীলের, ছড়িয়েছেন শিক্ষার আলো

প্রকাশিত:Saturday ০৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

বাবা ছিলেন চা বাগানের শ্রমিক। নিজেও এখন কাজ করছেন একটি চা বাগানের হিসাব রক্ষক হিসেবে। ফলে একেবারে কাছ থেকে চা শ্রমিকদের জীবনযাপন দেখেছেন তিনি। জানেন তাদের অশিক্ষার কথা, কষ্টের কথা। তাই সমাজের এই অবহেলিত জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে নিজের ক্ষুদ্র অবস্থান থেকেই কাজ শুরু করেন। পেয়েছেন সফলতাও। তার প্রচেষ্টায় এখন চা শ্রমিকদের অনেকের সন্তান উচ্চশিক্ষিত হয়ে ভালো চাকরি করছেন।

বলছি হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার দেউন্দি চা বাগানের হিসাব রক্ষক সুনীল বিশ্বাসের কথা। চা শ্রমিক পরিবারে জন্ম নিয়েও নিজের প্রচেষ্টায় উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করেছেন। করেছেন শিক্ষকতাও। ভাই-বোন, সন্তানদেরও করেছেন উচ্চশিক্ষিত। শুধু নিজে আর নিজের পরিবার নয়, চা শ্রমিকদের শিক্ষিত আর নেশামুক্ত করতে সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন। গড়ে তুলেছেন থিয়েটার। নাটকের মাধ্যমে তাদের জাগ্রত করতে কাজ করছেন। তুলে ধরছেন তাদের বঞ্চনার কথা।

সুনীল বিশ্বাস জাগো নিউজকে জানান, ১৯৮১ সালে তিনি এসএসসি পাস করেন। এরপর ১৯৮৩ সালে এইচএসসি এবং ১৯৮৮ সালে বিয়ে পাস করেন। শিক্ষাজীবন শেষে ৬ বছর প্রধান শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পরে চা বাগানে এসে আরও চার বছর শিক্ষকতা করেছেন। পাশাপাশি ঢাকা থেকে নিয়েছেন পল্লী চিকিৎসকের প্রশিক্ষণ। ২০০০ সাল থেকে তিনি বাগানের হিসাব রক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি বাগান ও এর আশপাশের এলাকার মানুষকে চিকিৎসা সেবাও দেন।

তিনি বলেন, আমি যখন এসএসসি পাস করি তখন বাগান এলাকার কোনো মানুষ পড়ালেখা করতো না। আমার সঙ্গে আমাদের বিদ্যালয় থেকে মাত্র ১০ জন এসএসসি পাস করেছিলাম। নিজে শিক্ষক হওয়ার কারণে আমার ভাই মলিন বিশ্বাস ও বোন চামেলি বিশ্বাসকেও পড়ালেখা করিয়েছি। আমি প্রথম আর আমার ভাই দ্বিতীয় ব্যক্তি যে বাগানে থেকে এসএসসি পাস করেছি। আর মেয়েদের মধ্যে আমার বোন প্রথম যে এসএসসি পাস করেছিল।

সুনীল বিশ্বাস আরও বলেন, আমাদের বাবা হরিদাশ বিশ্বাস ছিলেন বাগানের ফ্যাক্টরির মেশিনম্যান। তিনি এ চাকরির পাশাপাশি কৃষিকাজ করতেন। তিনি জীবনে একদিনও মদ পান করেননি। আমি চা শ্রমিকদের জীবনকে খুব কাছ থেকে দেখেছি। এখান থেকেই মূলত আমরা শিক্ষাগ্রহণ করেছি। বাবা অনেক কষ্ট করে আমাদের পড়ালেখা করিয়েছেন। শিক্ষিত হয়ে আমরা বুঝতে শিখেছি যে মদ পান করা যাবে না। মাদক সেবন কখনোই কল্যাণ এনে দিতে পারে না।

jagonews24

তিনি জানান, তার দুই ছেলে। বড় ছেলে কানন বিশ্বাস প্রকৌশলী। তিনি ঢাকায় একটি বিদেশি কোম্পানিতে চাকরি করেন। ছোট ছেলে প্লাবন বিশ্বাস তবলা বাদকের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। বর্তমানে তিনি চার্টার্ড অ্যাকাউনট্যান্ট (সিএ) পড়ছেন।

সন্তানদের শিক্ষিত করার পাশাপাশি চা বাগানের প্রতিটি ছেলে-মেয়েকে শিক্ষিত করে গড়ে তুলনে চান সুনীল। চা শ্রমিকরা মাদক থেকে দূরে থাকবে এটা আর স্বপ্ন। সে জন্য ১৯৮৮ সালে চা শ্রমিকদের কথা তুলে ধরার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করেন প্রতীক থিয়েটার নামে একটি নাট্য সংগঠন। প্রতীক থিয়েটারের মাধ্যমে দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে সংগ্রাম করে চলেছেন তিনি। চা শ্রমিকদের জাগ্রত করতে কাজ করছেন। তাদের বঞ্চনার কথা তুলে ধরছেন।

চা শ্রমিকের সন্তান শাকিল বাউরী। তিনি সরকারি বৃন্দাবন কলেজে বিবিএস প্রথম বর্ষে পড়ছেন। শাকিল বলেন, সুনীল বিশ্বাস আছেন বলেই আমরা আজ চা শ্রমিকদের দুঃখ-কষ্টের কথা তুলে ধরতে পারছি। তার অনুপ্রেরণায় আজ আমরা পড়ালেখা করছি। দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে তার প্রতিষ্ঠিত থিয়েটারের মাধ্যমে তুলে ধরতে পারছি চা শ্রমিকদের জীবনধারার কথা।

স্থানীয় ব্যবসায়ী কাঞ্চন বিশ্বাস বলেন, বাগানের শুরু থেকে এখানে শিক্ষার কোনো ব্যবস্থা ছিল না। সুনীল বিশ্বাস যখন এসএসসি পাস করেন তার আগে বাগানে কেউ এসএসসি পাস করেননি। তার অনুপ্রেরণায় এখন এই বাগানের হাজারও ছেলে-মেয়ে শিক্ষিত হয়েছেন। সুনীল এ বাগানের উন্নয়নের কান্ডারি।

শায়েস্তাগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী মিলি ভূমিজ প্রতীক থিয়েটারের একজন কর্মী। তিনি বলেন, সুনীল বিশ্বাস যখন এসএসসি পাস করেন তখন বাগানে কেউ পড়াশোনা করতো না। কোনো ছাত্রছাত্রী ছিল না। সবাই তখন শ্রমিক ছিলেন। বাগানে কাজ করতেন। বর্তমানে তাকে দেখে বাগানের ছেলেমেয়েরা লেখাপড়া করছে। শুধু তাই নয়, তার প্রতিষ্ঠিত থিয়েটারের মাধ্যমে মাদক সম্পর্কে আমরা মানুষকে সচেতন করছি।


আরও খবর



সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতায় নাকাল শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৭০জন দেখেছেন
Image

পানি নিষ্কাশনের সুষ্ঠু ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতা দেখা দেয় পঞ্চাশী রেজাউল হক কাবেরিয়া দাখিল মাদরাসা মাঠে। ফলে এক ভবন থেকে অন্য ভবনে যাওয়া যায় না। নিয়মিত খেলাধুলাও করতে পারে না শিক্ষার্থীরা।

সমস্যা সমাধানে দীর্ঘদিন ধরেই মাঠটিতে মাটি ভরাট করে উঁচু করার দাবি জানিয়ে আসছেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তারা।

রোববার (৫ জুন) সকালে জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার আওনা ইউনিয়নে পঞ্চালী গ্রামে গিয়ে এমন দৃশ্য দেখা যায়। বৃষ্টিতে মাঠে হাঁটুপানি জমে আছে। এ পানি ডিঙিয়েই ছেলে-মেয়েরা ক্লাসে ঢুকছে।

বিদ্যালয় সূত্র জানায়, ১৯৮৭ সালে এক একর ১২ শতাংশ জায়গা নিয়ে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। একটি পুরাতন ভবনসহ মোট দুইটি ভবন রয়েছে। বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা সাড়ে তিনশ’। শিক্ষক রয়েছেন ১৩ জন। দুইজন কর্মচারীও রয়েছেন।

সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতায় নাকাল শিক্ষার্থীরা

বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রতি বছরই সমাপনী পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করে থাকে। পিছিয়ে নেই খেলাধুলায়ও।

দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী রুকন, মীম ও নাদীমসহ অনেকে জানায়, এটি এ এলাকার একটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠান। কিন্তু সামান্য বৃষ্টিতে বিদ্যালয়ের মাঠে জলাবদ্ধতা তৈরি হয়ে নানা সমস্যা সৃষ্টি হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বার বার জানিয়েও কোনো সুরাহা হচ্ছে না। তাই দ্রুতই জলাবদ্ধতা নিরসনে সুদৃষ্টি কামনা করে তারা।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এমএ মান্নান দুঃখ প্রকাশ করে জাগো নিউজকে বলেন, সামান্য বৃষ্টি হলেই মাঠসহ আশপাশের এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। ফলে এক ভবন থেকে অন্য ভবনে যাওয়া যায় না। জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় শিক্ষার্থীরা নিয়মিত খেলাধুলা করতে পারে না। অথচ জনপ্রতিনিধিরা কেউ এ বিদ্যালয়ের খোঁজ খবর নেন না।

সামান্য বৃষ্টিতেই জলাবদ্ধতায় নাকাল শিক্ষার্থীরা

উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দিন পাঠান জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি তার জানা নেই। সমস্যা সমাধানে দ্রুতই তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলবেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোজাম্মেল হক জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি জানার পর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। কবে নাগাদ এটি সমাধান হবে তা জানা নেই।


আরও খবর



সেশনজট কমাতে শেকৃবির গ্রীষ্মকালীন ছুটি বাতিল

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) গ্রীষ্মকালীন ছুটি বাতিল করা হয়েছে। শিক্ষাপঞ্জি অনুযায়ী আগামী ১২-১৫ জুন পর্যন্ত গ্রীষ্মকালীন ছুটি নির্ধারিত ছিল।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার শেখ রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত এক নোটিশে এ তথ্য জানানো হয়।

নোটিশে বলা হয়, করোনা পরিস্থিতির জন্য লেভেল-১, সেমিস্টার-১ এর ক্লাস দুই মাস বিলম্বে শুরু হওয়ার প্রেক্ষিতে একাডেমিক কার্যক্রম যথাসময়ে সম্পন্ন করার স্বার্থে ১২ জুন থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত নির্ধারিত গ্রীষ্মকালীন ছুটি সিন্ডিকেট সভায় বাতিল করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার শেখ রেজাউল করিম জানান, শিক্ষার্থীদের স্বার্থেই কোভিড-১৯ এর কারণে সৃষ্ট সেশনজট কাটাতে ছুটি বাতিল করেছি। আশা করছি শিক্ষার্থীরা সহযোগিতা করলে আমরা খুব দ্রুত সেশনজট কাটিয়ে উঠতে পারবো।

তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মনিরুল ইসলাম বলেন, করোনার কারণে আমরা সবাই অনেক পিছিয়ে গেছি। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি বিষয়ে প্রাক্টিক্যাল থাকায় এবং অনলাইনে প্রাক্টিক্যাল না হওয়াই অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরও বেশি পিছিয়ে গেছি।


আরও খবর



তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৭৫জন দেখেছেন
Image

গত কয়েকদিনে সারাদেশে বৃষ্টির প্রবণতা অনেকটাই কমে গেছে। আজও (সোমবার) এ অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে। তাই এ সময়ে দিনের তাপমাত্রা আরও বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সোমবার (৬ জুন) আবহাওয়ার নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃষ্টি কমে যাওয়ায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গরমে কষ্ট পাচ্ছে মানুষ। বৃষ্টি কমে গেলেও থাকছে মেঘের আনাগোনা। তাই বাতাসে আর্দ্রতা বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে অস্বস্তিকর গরম।

রোববার সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত রংপুর, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগে বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় সবচেয়ে বেশি ১১৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে কুড়িগ্রামের রাজারহাটে। একই সময় রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে তেমন কোনো বৃষ্টি হয়নি।

ঢাকা বিভাগের মধ্যে শুধু নিকলীতে ৫৫ মিলিমিটার, চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে ফেনীতে পাঁচ মিলিমিটার, হাতিয়ায় তিন মিলিমিটার ও কক্সবাজারে দুই মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

রোববার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৬ দশমিক চার ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিলো যশোরে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ৩৫ দশমিক এক ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ কে এম নাজমুল হক জানান, মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং এটি উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল থেকে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এ সময় সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও জানান এই আবহাওয়াবিদ।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, পাবনা, বগুড়া, ময়মনসিংহ এবং সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে এক নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



অবশেষে ফরিদপুর থেকে পদ্মা সেতু হয়ে বাস যাচ্ছে ঢাকায়

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

ফরিদপুরসহ দক্ষিণবঙ্গের মানুষের প্রাণের দাবি পদ্মা সেতু উদ্বোধন হয়েছে চলতি মাসের ২৫ জুন। এরপর থেকে সড়কপথে সেতুর ওপর দিয়ে যাতায়াত শুরু করেছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পরিবহনসহ বিভিন্ন যানবাহন।

দক্ষিণবঙ্গের সবকটি জেলা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকায় যাত্রীবাহী বাস চলাচল করলেও বিভিন্ন অজুহাতে অনেকটা অঘোষিতভাবে ফরিদপুর থেকে তা বন্ধ ছিল। ফলে দুদিন ধরে ভেঙে ভেঙে ঢাকায় যাতায়াত করতে হচ্ছে যাত্রীদের। তবে বুধবার (২৮ জুন) থেকে সরাসরি পরিবহন চলাচলের বিষয়টি জানিয়েছে বাস মালিকপক্ষ।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওইদিন করিম গ্রুপের মালিকানাধীন গোল্ডেন লাইনের বাস ফরিদপুর থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকার উদ্দেশ্য ছাড়বে। ঢাকা কদমতলি-বাবু বাজার ব্রিজ সংলগ্ন থেকে পদ্মা সেতু দিয়ে ফরিদপুর, গোপালগঞ্জ, নাজিরপুর, পিরোজপুর, বরিশাল পয়সারহাট, লাহুড়িয়া, বেনাপোল রুট দিয়ে নিয়মিত চলাচল করবে এ পরিবহন। প্রতি এক ঘণ্টা পরপর বাস ছাড়বে।

এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেনে গোল্ডেন লাইন পরিবহনের ব্যবস্থাপক মো. ইমরান হোসেন রিপন। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, বুধবার সকাল ৬টায় প্রথম ট্রিপ ফরিদপুর থেকে পদ্মা সেতু হয়ে যাত্রীবাহী বাস যাবে ঢাকায়। পরবর্তী এক ঘণ্টা পর পর ফরিদপুর থেকে বাস ছাড়া হবে।

ভাড়ার বিষয়ে তিনি বলেন, আপাতত ফরিদপুর থেকে ঢাকার গাবতলী পর্যন্ত যে ৩৫০ টাকা ভাড়া নিচ্ছি। সেটাই নির্ধারণ করা হয়েছে। পরবর্তীতে ভাড়া পুনর্নির্ধারণ করা হবে।


আরও খবর