Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

৬ জুলাই থেকে চলবে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেন

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৫৫জন দেখেছেন
Image

আসন্ন কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে পশু খামারিদের ভোগান্তি কমাতে ও স্বল্প খরচে পশু ক্রেতাদের কাছে পৌঁছাতে ‘ক্যাটল স্পেশাল’ ট্রেনের ব্যবস্থা করেছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। ৬ জুলাই চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকা পর্যন্ত ট্রেনটি গবাদিপশু পরিবহন করবে।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরও বলেন, ৬ জুলাই থেকে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনের ব্যবস্থার জন্য রেল মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছি। আশা করা যায় ওই দিন থেকেই ট্রেনটি চালু হবে। ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনে গরু প্রতি খরচ পড়বে ৫৯১ টাকা ৪০ পয়সা। প্রতি ওয়াগনে ২০টি করে গরু বহন করা যাবে।

অসীম কুমার তালুকদার বলেন, কোরবানির ঈদের আগে ট্রাকে গরু নিয়ে ঢাকা যেতে সময় লাগে প্রায় ২০ থেকে ২২ ঘণ্টা। এতে অনেক গরু অসুস্থ হয়ে যায়। এ চিন্তা থেকেই ক্যাটল ট্রেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ট্রেনে সময় লাগবে মাত্র ১২ ঘণ্টা। নির্ধারিত সময়ে ট্রেনগুলো ঢাকা গিয়ে পৌঁছাবে। আর পশুর সঙ্গে পরিচর্যাকারী একই ওয়াগনে ভ্রমণ করতে পারবেন, সেই ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।

পশু পরিবহনে কাভার্ড ওয়াগনগুলোতে বায়ু চলাচলের ব্যবস্থা থাকবে। তবে রোদ-বৃষ্টি প্রবেশের সুযোগ নেই। ফলে পশুগুলো অসুস্থ হওয়ার ভয় নেই বলেও জানান এ রেল কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, অনুমতি পেলে ক্যাটল স্পেশাল ট্রেনটি ৬ জুলাই বিকেল সাড়ে ৪টায় ছেড়ে কাঁকনহাট, রাজশাহী স্টেশন হয়ে চাটমোহর, উল্লাপাড়া, বঙ্গবন্ধু সেতু (পশ্চিম) জয়দেবপুর, টঙ্গি, তেজগাঁও হয়ে ঢাকা পৌঁছাবে প্রায় ভোর ৫টায়।


আরও খবর



ঘন ঘন ঘুমালেই বাড়বে স্ট্রোকের ঝুঁকি, বলছে গবেষণা

প্রকাশিত:Friday ২৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের উচিত দৈনিক ৭-৮ ঘণ্টা গভীর ঘুম। তবে জীবনধারণে অনিয়মের কারণে অনেকেই সময়মতো ঘুমান না।

আবার ঘুম পূরণের জন্য ঘন ঘন অল্প করে ঘুমানোর অভ্যাস করেন। তবে ঘন ঘন ঘুমের অভ্যাস উচ্চ রক্তচাপ বাড়ানোর জন্য দায়ী হতে পারে। এর থেকে স্ট্রোকের ঝুঁকিও বেড়ে যায়। এমন তথ্যই উঠে এসেছে গবেষণায়।

গবেষণাটি ‘হাইপারটেনশন’ নামক একটি আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশন জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। চীনের হুনান প্রদেশের চাংশা সেন্ট্রাল সাউথ ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক এটি পরিচালনা করেছেন।

গবেষণায় কী পাওয়া গেছে?

সমীক্ষায় দেখা গেছে, যারা ঘন ঘন ঘুমান তাদের উচ্চ রক্তচাপ ও স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি। ঘুম শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে অসময়ে কয়েক ঘণ্টার ঘুম স্বাস্থ্যকে আরও ঝুঁকিতে ফেলে।

সমীক্ষা ঘুম সম্পর্কে কী বলে?

গবেষণায় বলা হয়েছে, ঘুম স্বাস্থ্যের জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ হলেও রাতে যারা অপর্যাপ্ত ঘুমান ও দিনে একাধিকবার কয়েক ঘণ্টার জন্য ঘুমান তাদের মধ্যে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি বেশি। রাতে খারাপ ঘুম একজন ব্যক্তির সামগ্রিক স্বাস্থ্যে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে।

গবেষণাটি ইউকের বায়োব্যাঙ্কের ৩ লাখ ৫৯ হাজার ৪৫১ জন অংশগ্রহণকারীদের উপর করা হয়েছিল। যারা গবেষণার শুরুতে উচ্চ রক্তচাপ বা স্ট্রোক মুক্ত ছিলেন।

গবেষকরা দেখেছেন, নির্ঘুম থাকার চেয়ে ঘন ঘন ঘুমানো উচ্চ রক্তচাপ, স্ট্রোক ও ইস্কেমিক স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।

৪ বছরের গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের নিয়মিত ভিত্তিতে রক্ত, প্রস্রাব, লালার নমুনা ও ঘুমের সময়কাল নিয়ে অধ্যয়ন করা হয়।

অতিরিক্ত ঘুম কেন স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ায়?

শুধু এই গবেষণাই নয়, আরও অনেক গবেষণায় অতিরিক্ত ঘুমানোর ঝুঁকির কথা বলা হয়েছে। ১৯৯৬ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, দিনের বেলা যারা ঘুমান তাদের মধ্যে হতাশা ও বিষণ্নতা বেশি। যারা দিনের বেলা ঘন ঘন ঘুমান তাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্যেই খারাপ প্রভাব পড়ে।

ইউরোপীয় সোসাইটি অব কার্ডিওলজি কংগ্রেসে উপস্থাপিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, যারা দীর্ঘক্ষণ শুয়ে থাকেন তাদের মধ্যে কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি ৩৪ শতাংশ বেড়ে যায়।

কখন ও কতক্ষণ ঘুমানো উচিত?

ঘুমের বেশ কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে। তবে তা হতে হবে সঠিক সময়ে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা দিনের বেলা ঘণ্টার পর ঘণ্টা ঘুমানোর পরিবর্তে কয়েক মিনিটের পাওয়ার ন্যাপ নেওয়ার পরামর্শ দেন।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঘুম ক্লান্তি দূর করে ও মস্তিষ্ককে কার্যক্ষম রাখে। দিনের বেলা ঘুমানোর আদর্শ সময়কাল ৩০-৬০ মিনিটের মধ্যে। যা একবারই নেওয়া উচিত। আর রাতে অবশ্যই একটানা ৬-৮ ঘণ্টা ঘুম জরুরি।


আরও খবর



কাবাডি খেলায় লাফ দিতে গিয়ে মর্মান্তিক মৃত্যু (ভিডিও)

প্রকাশিত:Friday ২৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

খেলার মাঠে ফের ঘটে গেলো মর্মান্তিক এক ঘটনা। কাবাডি খেলতে গিয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়লেন ভারতের তামিলনাড়ুর সালেম জেলার মন্নাদিকুপম গ্রামের কাছে পাঁরুতির তরুণ এক খেলোয়াড়।

২২ বছরের এই তরুণের নাম বিমলরাজ। সালেম জেলার একটি বেসরকারি কলেজে প্রাণিবিদ্যা নিয়ে দ্বিতীয় বর্ষের স্নাতক করছিলেন তিনি। সপ্তাহান্তে তিনি বাড়িতে বেড়াতে আসেন। এসেই জেলা স্তরের এক কাবাডি টুর্নামেন্টে খেলতে নামেন। কে জানতো, সেটিই তার এমন মৃত্যু ডেকে আনবে!

খেলার সময় একটি লাফ দিয়েছিলেন বিমলরাজ, সেই লাফেই সব শেষ। ভিডিওতে দেখা যায়, মাটিতে পড়ার পর অল্প সময়ের মধ্যে ছটফট করে নিস্তেজ হয়ে পড়েন ২২ বছরের বিমল।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে বিমলরাজের। তবে পুলিশ তদন্ত চালাচ্ছে। অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে।


আরও খবর



১৪ বছরেই রুশোর এমআইটি-হার্ভার্ড-স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সনদ

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

বয়স মাত্র ১৪। এই বয়সেই জটিল সব গাণিতিক সমস্যার সমাধান করে তাক লাগিয়ে দিয়েছে রুশো। সমাধান করছে বিশ্ববিদ্যালয় স্তরের সব অঙ্ক ও বিজ্ঞানের নানা সূত্র। এই কিশোরের পুরো নাম মাহির আলি রুশো।

রাজধানীর মনিপুর হাইস্কুলের নবম গ্রেডের শিক্ষার্থী রুশো। রুশোর এমন সব আগ্রহ দেখে উচ্ছ্বসিত তার বাবা-মা, স্কুলের শিক্ষকরা। তারা চান, রুশোর প্রতিভা আরও বিকশিত হোক, দেশ এবং বিশ্ব দেখুক, বাংলাদেশের এক ক্ষুদে বালক গাণিতিক আর বৈজ্ঞানিক সমাধানে সবাইকে হার মানাচ্ছে।

রুশোর বাবা-মা দুজনেই চিকিৎসক। ছোটবেলা থেকে ছেলের বিজ্ঞান আর গণিতের প্রতি ঝোঁক দেখে কিছুটা অবাক হয়েছেন। প্রথমদিকে নিজেরাও বিশ্বাস করতে চাননি। কিন্তু যখন দেখলেন, একের পর এক জটিল এবং উচ্চপর্যায়ের গাণিতিক সমস্যার সমাধান করছেন, তখন তারা ছেলের প্রতিভা বিকাশে হাতে তুলে দিতে থাকেন বইপত্র। তারা চান, ছেলে যা করছে সেটা করুক একদম জেনে-বুঝে। তার জানা-শোনায় যেন কোনো ফাঁকফোকর না থাকে।

রুশোর প্রতিভার কথা বলতে গিয়ে তার বাবা সেন্ট্রাল মেডিক্যাল হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের প্রধান প্রফেসর মোহাম্মদ আলী বলেন, সে যখন ক্লাস ফাইভে পড়ে, তখন থেকেই তার বিজ্ঞানের প্রতি প্রচণ্ড ঝোঁক ছিল। সেসময় আমার একটা ল্যাপটপ ছিল, সেটাও খুব বেশি ভালো ছিল না। কিন্তু একটা পর্যায়ে আমি খেয়াল করি, সে আমার ল্যাটপটে ভিডিও দেখছে। এসব ভিডিও ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি, ম্যাথের ভিডিও। সবগুলো তার চেয়ে অনেক আপার লেভেলের। সেসব ক্লাসের ভিডিও দেখে।

তিনি বলেন, এরপর আমি একদিন তাকে ডেকে নিয়ে বলি, বাবা তুমি যেসব ভিডিও দেখো সেসব কি তুমি বুঝো, নাকি শুধু দেখো? তার উত্তর ছিল- বাবা আমি এসবই বুঝি। এরপর তার সঙ্গে কয়েকদিন আমি নিয়মিত কথা বলি। দেখলাম আসলেই সে বোঝে।

সেসময় রুশো তার বাবা-মায়ের কাছে একটি আবদার করে বসে। সে প্রতিদিন অন্তত দুই ঘণ্টা ইউটিউবে ভিডিও দেখতে চায়। প্রথমে বাবা-মা এতো সময় ভিডিও দেখায় কিছুটা আপত্তি করলেও পরে শর্ত দেয় যে, প্রতিদিনের পড়াটুকু ঠিকভাবে সেরে সকালে এক ঘণ্টা এবং রাতে এক ঘণ্টা করে ইউটিউব দেখতে পারবে। তাতেই রাজি হয় রুশো।

মোহাম্মদ আলী বলেন, তার বয়স যখন ১১ বছর, তখন সে ক্যালকুলাস এবং জ্যামিতিক বিভিন্ন সমাধান রপ্ত করে ফেলে। ১২ বছর বয়সে কলেজ পর্যায়ের গণিত ও ফিজিক্স অনায়াসে করতে পারতো রুশো। এই জানাশোনার বিষয়টা আরও বেড়ে যায় করোনাভাইরাস সংক্রমণের সময় স্কুল বন্ধ হলে। তখন অনেক বেশি সময় রুশো বিজ্ঞানের এসব বিষয়ে জানতে ব্যয় করতে থাকে। ২০২০ সালের মার্চ থেকে সে অনলাইনে বিভিন্ন দেশি-বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয়ের গণিত, ক্যালকুলাস, ফিজিক্স, কেমিস্ট্রি বিষয়ে অসংখ্য অনলাইন কোর্সে অংশ নেয়।

তার মধ্যেই রুশো জানতে পারে অনলাইনে ‘সেন্ট জোসেফ ন্যাশনাল পাই অলিম্পিয়াড’ সম্পর্কে, অংশ নেয় এবং হয়ে যায় চ্যাম্পিয়ন। তার মনোবল বেড়ে যায়। পর্যায়ক্রমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অনলাইন কোর্সে অংশ নিতে থাকে। এখন পর্যন্ত রুশো ৫০টিরও বেশি অনলাইন কোর্স সম্পন্ন করেছে বিশ্বের স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে। এসব বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, স্ট্যামফোর্ড ইউনিভার্সিটি, হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি, ইউনিভার্সিটি অব এডিনবার্গ অন্যতম।

রুশোর মা চিকিৎসক রুমা আক্তার বলেন, তাকে অনেক ছোটবেলা থেকেই দেখেছি পড়ালেখার প্রতি ভীষণ ঝোঁক। আমার জন্য যখন কোনো বই কিনেছি, তখন তার জন্যও আমি কিনেছি। আসলে সন্তানকে বুঝতে হবে। সে কী চায় সেটাই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা অনেক সময় তার চাওয়ার থেকে আমাদের চাওয়াকে বেশি গুরুত্ব দেই, যা তাদের বিকাশকে বাধা দেয়।

কিশোর মাহির আলি রুশো তার অর্জনে গর্বিত। তার কাছে মনে হয়, সায়েন্স আসলে ভয়েস অফ গড, যার মধ্যে ডমিনেন্ট করে ফিজিক্স। আর এর মূলে রয়েছে ম্যাথ। যা জানার কোনো বিকল্প নেই।

রুশো জানায়, সে আসলে কোনো কিছু কীভাবে, কেমন করে হচ্ছে সেটা জানতে চেয়েছে। আর এর জন্য অবশ্য পড়োশোনা এবং জ্ঞান অর্জন করতে হবে। কেউ কাউকে শেখাতে পারে না। নিজে থেকে শিখতে হয়। আমাদের সবসময় অ্যাকাডেমিক বইয়ের বাইরে পড়ার অভ্যাস তৈরি করতে হবে। কেননা আমরা নিজের বই তো পড়বোই, তার বাইরে সেটা কেন হচ্ছে সেটা জানতে অন্য বইও পড়বো। আমরা আসলে যা পড়ি সেটা খুব শর্টকাট। সেখানে গভীরভাবে কোনো কিছু দেখানো হয় না। তাই সেটা জানতে হলে পড়াশোনার বিকল্প নেই।

বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ও অর্জন

এই ক্ষুদে জিনিয়াস দেশে এবং দেশের বাইরের অসংখ্য প্রতিযোগিতা ও অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ওপেন কনটেস্ট অলিম্পিয়াডে রুশোকে প্রতিযোগিতা করতে হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় স্কলারদের সঙ্গে এবং রুশো প্রায় সবগুলোতেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

‘ওয়ার্ল্ড গ্লোবাল চাইল্ড প্রডিজি অ্যাওয়ার্ড কমিটি’ মাহির আলি রুশোর সম্মানসূচক অর্জনগুলোর প্রসংসা করেছেন। কমিটি জানিয়েছে, তারা রুশোকে নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করবে।

সেন্ট জোসেফ ন্যাশনাল পাই অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়ে নটরডেমের শিক্ষার্থীকে হারিয়ে হয়েছেন চ্যাম্পিয়ন। বাংলাদেশ ম্যাথমেটিক্স অলিম্পিয়াড, বাংলাদেশ ফিজিক্স অলিম্পিয়াড, জামাল নাল কেমিস্ট্রি অলিম্পিয়াড চ্যাম্পিয়ন এবং জামাল নাক্রল জ্যোতির্বিদ্যা উৎসব, ন্যাশনাল সাইবার অলিম্পিয়াড, বাংলাদেশ জ্যোতির্বিদ্যা অলিম্পিয়াডসহ অসংখ্য প্রতিযোগিতায় আঞ্চলিকভাবে বিজয়ী হয়েছে রুশো।

এছাড়া বাংলাদেশ আইকিউ অলিম্পিয়াডে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে এবং ভারতের সিপিএস অলিম্পিয়াডে বাংলাদেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছে রুশো। বাংলাদেশ বিজ্ঞান সংগঠন থেকে ‘গুগল-আইটি অলিম্পিয়াডে চ্যাম্পিয়ন পদক পেয়েছে। `Higsinno Biology Olympiad' বিজয়ীও হয় রুশো। এছাড়াও বিভিন্ন মেধা প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা এবং অর্জন

দেশের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক `Online Physics Olympiad-2021' এ তার দল Invitational Round বিজয়ী; তার অধিনায়কত্বে ১৫ সদ্যসদ্যের একটি দল আন্তর্জাতিক `Perple Math Comet Met' প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান দখল করে।

ভারতে জ্যোতির্বিদ্যার সর্বোচ্চ আসর আইওএসএ-২০২১ একক প্রতিযোগিতায় গোল্ড মেডেল অর্জন করে এবং আন্তর্জাতিক আসরে `School Connection Math, Science And Artificial Intelligence Contest' এ স্বর্ণপদক পায়। `Stemco international Physics, Chemistry, Biology' প্রদত্ত বিষয়ে `Besty Award' পায় এবং সেরা মেধা তালিকায় থাকার গৌরব অর্জন করে।

এই মেধাবি কিশোর দেশভিত্তিক আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা `Owlpya Science And Tech Contest' এ পরপর দুবার রৌপ্য, একবার স্বর্ণপদক এবং দুবার ব্রোঞ্জ পদক নিয়ে বিজয়ী হয় এবং বিশ্বব্যাপী চ্যালেঞ্জের জন্য ২০২২ সালের জুনে যুক্তরাজ্য সফরের জন্য আমন্ত্রণপত্রও পায়।

রুশো যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক অলিম্পিয়াড `Genius Cerebrum Olympiad' থেকে আর্ট, জেনারেল নলেজ এবং সাইবারে জিনিয়াস পদক পায়।

এছাড়া সম্প্রতি হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটি স্নাতকোত্তর স্টুডেন্ট কর্তৃক চালিত `Internationonal Leadership ethics and life skill Olympiad' এ শ্রেষ্ঠ ৫০ জনের মধ্যে স্থান পেয়েছে।

গবেষণা ও প্রকাশনা

রুশো ৫০টিরও বেশি অনার্স ও মাস্টার্স কোর্স শেষ করেছে এবং এমআইটি, হার্ভার্ড, স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি থেকে সনদ লাভ করেছে। রুশো বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি, ক্যামব্রিজের আওতায় ম্যানুফ্যাকচার ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে মাইক্রোমাস্টার্স কোর্সে অধ্যয়নরত।

একই সঙ্গে সে বিশ্বখ্যাত হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটিতে কেমিস্ট্রিতে মাইক্রোমাস্টার্স কোর্সে সুযোগ করে নিয়েছে। ১৪ বছর বয়সে আইজেএসআর, আইওএসআর, কোয়েস্ট-এ তার অনেক জার্নাল ও গবেষণাপত্র প্রকাশিত হয়েছে।


আরও খবর



৬ বছর আগে ভারতের স্টার্টআপ ছিল ৪৭১, এখন ৭২৯৯৩

প্রকাশিত:Saturday ২৩ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

২০১৬ সালে ভারতে স্বীকৃত স্টার্টআপ ছিল মাত্র ৪৭১টি। কিন্তু পরের ছয় বছরেই তা বেড়ে হয়েছে ৭২ হাজারের বেশি। শুক্রবার (২২ জুলাই) ভারতের বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী সোম প্রকাশ এ তথ্য জানিয়েছেন।

রাজ্যসভায় এক লিখিত জবাবে ভারতীয় মন্ত্রী বলেছেন, স্টার্টআপ ও প্রযুক্তি ইকোসিস্টেম যে কোনো দেশের জন্য প্রবৃদ্ধির চালিকাশক্তি। এটিকে স্বীকার করে সরকার ২০১৬ সালের ১৬ জানুয়ারি ‘স্টার্টআপ ইন্ডিয়া’ কর্মসূচি চালু করে, যার লক্ষ্য ভারতের স্টার্টআপ সংস্কৃতিকে লালন করার জন্য একটি শক্তিশালী ইকোসিস্টেম গড়ে তোলা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও উদ্যোক্তাদের সমর্থন এবং বৃহৎ আকারে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি।

তিনি জানান, ২০১৬ সালে যেখানে ভারতে স্বীকৃত স্টার্টআপ ছিল মাত্র ৪৭১টি। ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭২ হাজার ৯৯৩টি। অর্থাৎ গত ছয় বছরে ভারতে স্টার্টআপের সংখ্যা বেড়েছে ১৫৪০০ শতাংশ।

৫৬টি বৈচিত্র্যময় খাতের স্টার্টআপগুলোকে স্বীকৃতি দিয়েছে ভারতের শিল্প ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য প্রচার বিভাগ (ডিপিআইআইটি)। ইন্টারনেট অব থিংস (আইওটি) রোবোটিক্স, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, বিশ্লেষণের মতো উদীয়মান প্রযুক্তি সম্পর্কিত খাতে সাড়ে চার হাজারের বেশি স্টার্টআপ স্বীকৃতি পেয়েছে।

ভারতের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগ (ডিএসটি) ২০১৬ সালে ন্যাশনাল ইনিশিয়েটিভ ফর ডেভেলপিং অ্যান্ড হার্নেসিং ইনোভেশনস (নিধি) নামে একটি কর্মসূচি শুরু করে, যা সফল স্টার্টআপের ধারণা ও উদ্ভাবনকে (জ্ঞান-ভিত্তিক এবং প্রযুক্তি-চালিত) সমর্থন করে। এর কর্মসূচির আওতায় উদ্যোক্তা হতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের ফেলোশিপ প্রদান থেকে শুরু করে বিভিন্নভাবে সহায়তা করা হয়।

জৈবপ্রযুক্তি খাতে উদ্ভাবনে উদ্বুদ্ধ করার জন্য বায়োটেকনোলজি ইন্ডাস্ট্রি রিসার্চ অ্যাসিসট্যান্স কাউন্সিল (বিআইআরএসি) এর মাধ্যমে সহযোগিতা দিচ্ছে ভারতের জৈবপ্রযুক্তি বিভাগ। দ্য ইনোভেশন ফর ডিফেন্স এক্সিলেন্স (আইডিইএক্স) চালু করেছে ভারতীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রতিরক্ষা উৎপাদন বিভাগ। এটি প্রতিরক্ষা ও মহাকাশ সংক্রান্ত উদ্ভাবন ও প্রযুক্তির উন্নয়নে উৎসাহিত করে এবং এর জন্য প্রয়োজনীয় অনুদান দেয়।

এসব উদ্ভাবনী প্রোটোটাইপের বিকাশে অনুদান হিসেবে দেড় কোটি রুপি পর্যন্ত অনুদান দেওয়া হয়েছে। সারা দেশে ছড়িয়ে থাকা আইআইটি, আইআইএম এবং অন্যান্য বেসরকারি ইনকিউবেটরগুলোর কাছ থেকেও প্রচুর সমর্থন পেয়েছে স্টার্টআপগুলো।

সূত্র: এনডিটিভি


আরও খবর



সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ ২২ আগস্ট

প্রকাশিত:Monday ০১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

নব্বই দশকে জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরী হত্যা মামলা সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়ে আগামী ২২ আগস্ট দিন ধার্য করেছেন আদালত।

সোমবার (১ আগস্ট) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক জাকির হোসেনের আদালতে মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ধার্য ছিল। তবে মামলার বাদী দেশের বাইরে থাকায় রাষ্ট্রপক্ষ সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য সময়ের আবেদন করেন। আদালত সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ২২ আগস্ট পরবর্তী দিন ধার্য করেন।

১৯৯৮ সালের ১৭ ডিসেম্বর রাজধানীর বনানীতে ট্রাম্পস ক্লাবের নিচে সোহেল চৌধুরীকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় তার ভাই তৌহিদুল ইসলাম চৌধুরী গুলশান থানায় মামলা করেন। সোহেল চৌধুরী নিহত হওয়ার পরপরই এই হত্যাকাণ্ডে চলচ্চিত্র প্রযোজক ও ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠে।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, হত্যাকাণ্ডের কয়েক মাস আগে আজিজ মোহাম্মদ ভাইয়ের সঙ্গে সোহেল চৌধুরীর কথা-কাটাকাটি হয়। এর প্রতিশোধ নিতে সোহেল চৌধুরীকে হত্যা করা হয়।

ঘটনার রাতে সোহেল তার বন্ধুদের নিয়ে ট্রাম্পস ক্লাবে ঢোকার চেষ্টা করেন। এসময় ভেতরে ঢুকতে তাকে বাধা দেওয়া হয়। রাত আড়াইটার দিকে আবারও তিনি ঢোকার চেষ্টা করেন। তখন সোহেলকে লক্ষ্য করে ইমন, মামুন, লিটন, ফারুক ও আদনান গুলি চালান। আসামিদের মধ্যে আদনান খুনের পরপরই ধরা পড়েছিলেন।

মামলাটি তদন্ত শেষে ১৯৯৯ সালের ৩০ জুলাই গোয়েন্দা পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার আবুল কাশেম ব্যাপারী নয়জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন। ২০০১ সালের ৩০ অক্টোবর ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। এর দুই বছর পর মামলাটির বিচার দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য ঢাকার দুই নম্বর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়।

ওই বছরই আসামিদের মধ্যে একজন হাইকোর্টে আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০০৩ সাল থেকে দীর্ঘ ১৯ বছর হাইকোর্টের আদেশে মামলাটি স্থগিত ছিল। সর্বশেষ গত ২৭ ফেব্রুয়ারি স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার হলে ফের মামলাটিতে সাক্ষ্যগ্রহণের প্রক্রিয়া শুরু হয়।

এ মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলেন- আদনান সিদ্দিকী, ট্রাম্পস ক্লাবের মালিক আফাকুল ইসলাম ওরফে বান্টি ইসলাম, ব্যবসায়ী আজিজ মোহাম্মদ ভাই ওরফে আব্দুল আজিজ, তারেক সাঈদ মামুন, সেলিম খান, হারুন অর রশীদ ওরফে লেদার লিটন ওরফে বস লিটন, ফারুক আব্বাসী, শীর্ষ সন্ত্রাসী সানজিদুল ইসলাম ইমন ও আশিষ রায় চৌধুরী ওরফে বোতল চৌধুরী। এদের মধ্যে দুই আসামি শীর্ষ সন্ত্রাসী সানজিদুল ইসলাম ইমন ও আশিষ রায় চৌধুরী ওরফে বোতল চৌধুরী পলাতক।

১৯৮৪ সালে এফডিসির নতুন মুখের সন্ধানে নামের প্রতিযোগিতার মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন সোহেল চৌধুরী। ওই একই প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত হয়েছিলেন তার স্ত্রী দিতিও।


আরও খবর