Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

৫,৪০০ জনের ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট সফলভাবে সম্পন্ন করলো ব্রিটিশ কাউন্সিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৭৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এস্টাবলিশমেন্ট অফ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন প্রকল্প (২য় সংশোধিত)’-এর ৫,৪০০ জন প্রার্থীর ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট (এফইটিএস) সফলভাবে সম্পন্ন করা উপলক্ষে ‘সনদ ও পুরস্কার বিতরণ কর্মসূচি’র আয়োজন করেছে ব্রিটিশ কাউন্সিল। ঢাকার রেডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেনের উৎসব ব্যাঙ্কোয়েট হলে আজ (১২ জুন) এ অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়।  

২০১৯ সাল থেকে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের আওতাধীন ‘শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন প্রকল্প (২য় সংশোধিত)’-এর গর্বিত অংশীদার হিসেবে ব্রিটিশ কাউন্সিল ১৬ হাজার তরুণ কর্মী ও প্রার্থীদের  ইংরেজি ভাষার দক্ষতা মূল্যায়ন করেছে। সম্প্রতি, দেশের ৮টি স্থানে ৫,৪০০ জনের ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট পরিচালনা করেছে ব্রিটিশ কাউন্সিল। এই টেস্ট কর্মী ও প্রার্থীদের ইংরেজি দক্ষতা বাড়াতে এবং তাদের পেশাগত জীবনে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন নিয়ে আসতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। 

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের সচিব মো. সামসুল আরেফিন। এ বিষয়ে তিনি বলেন, “আজ আমরা 'শেখ কামাল আইটি ট্রেইনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার প্রকল্পের (২য় সংশোধিত)' প্রার্থীদের সাফল্যের সাথে এফইটি সম্পন্ন করার কৃতিত্ব উদযাপনের পাশাপাশি এ প্রকল্পের সার্বিক সাফল্য উদযাপন করতে পেরে আনন্দিত। প্রার্থীদের সফল তা নিশ্চিত করতে ব্রিটিশ কাউন্সিল ও প্রশিক্ষকগণ নিবেদিতভাবে কাজ করেছেন। এজন্য তাদের প্রতি আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা।”

ফাউন্ডেশন ইংরেজি টেস্টে সহজে ও সমভাবে প্রাথমিক পর্যায়ে ইংরেজি দক্ষতার মূল্যায়ন করা হয়। যেসব প্রার্থীদের এন্ট্রি-লেভেল ইংরেজি দক্ষতার (কমন ইউরোপিয়ান ফ্রেমওয়ার্ক অব রেফারেন্সে (সিইএফআর) এ১ ও বি১ লেভেল) সনদ প্রয়োজন, তারা এ টেস্টে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। টেস্টটি দ্রুত শেষ করা যায় এবং একইসাথে অর্থ সাশ্রয়ী।

এ বিষয়ে ব্রিটিশ কাউন্সিল বাংলাদেশের এক্সাম ডিরেক্টর ম্যাক্সিম রাইম্যান বলেন, “ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট সফলভাবে সম্পন্নকারী সকল পরীক্ষার্থীকে আমরা অভিনন্দন জানাই। বর্তমানে আমরা আমাদের এফইটি এক্সাম ডেলিভারি পার্টনারদের মাধ্যমে কারিগরি স্কুল, সরকারি দপ্তর ও অন্যান্য সংগঠনের জন্য এফইটি পরীক্ষা প্রদান করছি। আমরা আশা করছি, এই এফইটি পরীক্ষা ‘এস্টাবলিশমেন্ট অফ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন প্রকল্প (২য় সংশোধিত)’-এর মত সংস্থাদের তাদের প্রার্থীদের ইংরেজি ভাষা দক্ষতা বোঝার ক্ষেত্রে সহায়তা করবে, যা তীব্র প্রতিযোগিতামূলক চাকরির বাজারে তাদের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াবে।”

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন ‘এস্টাবলিশমেন্ট অফ শেখ কামাল আইটি ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপন প্রকল্প (২য় সংশোধিত)’-এর প্রকল্প পরিচালক মো. হুমায়ন কবীর, ব্রিটিশ কাউন্সিলের এক্সামস ডিরেক্টর বাংলাদেশ ম্যাক্সিম রাইম্যান, গ্লোবাল অ্যাসেসমেন্টের ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট গ্লোবাল প্রোডাক্ট ম্যানেজার মিরিয়াম সেবেরিও, গ্লোবাল কমার্শিয়াল ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার শেইরেন অং, ডিরেক্টর অপারেশনস জুনায়েদ আহমেদ এবং ডিরেক্টর অব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট সারওয়াত রেজা। 

এই কার্যক্রমের সফলতায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ব্রিটিশ কাউন্সিলের এফইটি এক্সাম ডেলিভারি পার্টনারদের   পুরস্কৃত করা হয়। এর মধ্যে রয়েছে - কোডার্সট্রাস্ট বাংলাদেশ, ইজ্জি টেকনোলজি লিমিটেড, এডি সফট লিমিটেড, শুটিং স্টার লিমিটেড, ওয়েবপার্স লিমিটেড, লজিকাল ট্রায়াঙ্গেল-এনআরবি জবস-জায়ানজারা লিমিটেড জেভি, ডিক্রাউড আইটি লিমিটেড অ্যান্ড জেভি, ডিজিকন টেকনোলজিস পিএলসি। ফাউন্ডেশন ইংলিশ টেস্ট সফলভাবে সম্পন্নকারী ৫,৪০০ জনের সনদ বিতরণের জন্য এফইটি এক্সাম ডেলিভারি পার্টনারদের কাছে তুলে দেওয়া হয়।


আরও খবর

রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




শিক্ষার্থীদের অবরোধ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায়, সড়ক অচল

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১১০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সোমবার (৮ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৪টা শাহবাগ, বাংলামোটর, কারওয়ানবাজার, ফার্মগেট, সায়েন্স ল্যাব মোড় ও গুলিস্তান জিরো পয়েন্টসহ ঢাকার বিভিন্ন এলাকায়,সরকারি কোটা বাতিলের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো পূর্বঘোষিত ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালন করছে শিক্ষার্থীরা। সড়ক অবরোধ করেছেন আন্দোলনকারীরা।

এদিকে, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা সড়ক আটকে দেওয়ায় গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। যেখানে যেসব গাড়ি ছিল, সেখানেই সেগুলো দাঁড়িয়ে গেছে।

সরকারি চাকরিতে কোটাব্যবস্থা বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকারের জারি করা পরিপত্র পুনর্বহালসহ চার দফা দাবি আদায়ে শিক্ষার্থীরা এই আন্দোলন করছেন। বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’ ব্যানারে মিছিল বের করেন তারা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক ঘুরে শাহবাগ মোড়ে আসে বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে। মিছিলের সামনের অংশটি সড়ক অবরোধ করতে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল ও বাংলামোটর মোড়ের দিকে চলে যায়। পেছনের অংশটি শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয়।

বিকেল ৩টা ৫৫ মিনিটের দিকে ঢাকা কলেজের মূল ফটকের সামনে সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত হন। এরপর একটি মিছিল নিয়ে সায়েন্সল্যাব মোড়ে এসে অবরোধ করেন তারা। এর ফলে এলিফ্যান্ট রোড, মিরপুর রোড এবং ধানমন্ডি ২ নম্বর সড়কের যানচলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা ২০১৮ সালের পরিপত্র পুনর্বহালের পাশাপাশি আরও তিনটি দাবি জানাচ্ছেন। এগুলো হলো ২০১৮ সালের পরিপত্র বহাল সাপেক্ষে কমিশন গঠন করে দ্রুত সময়ের মধ্যে সরকারি চাকরিতে সব গ্রেডে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাদ দিতে হবে, সে ক্ষেত্রে সংবিধান অনুযায়ী শুধু অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর কথা বিবেচনা করা যেতে পারে; সরকারি চাকরির নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা–সুবিধা একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না ও কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্য পদগুলোতে মেধা অনুযায়ী নিয়োগ দিতে হবে এবং দুর্নীতিমুক্ত, নিরপেক্ষ ও মেধাভিত্তিক আমলাতন্ত্র নিশ্চিত করতে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



তালতলীতে রিমাল এ ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে টিন ও নগদ টাকা বিতাড়ন

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৫০জন দেখেছেন

Image

রাসেল হোসেন নিরব,স্টাফ রিপোর্টার:ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে নির্মাণ সামগ্রী (ঢেউটিন) ও নগদ অর্থ সহায়তা দিয়েছে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা গুড নেইবারস বাংলাদেশ।

বিকেলে উপজেলার কড়ই বাড়িয়া ইউনিয়ন গুড নেইবারস বাংলাদেশ এর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্টে অফিস প্রাঙ্গণে,  সিডিপি’র ম্যানেজার নাইমুর রহমান শোভন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে  উপস্থিত ছিলেন স্যোসাল এন্টার প্রাইজ টিম, জিএনবি এর,ম্যানেজার টমাস মন্ডল, কড়ই বাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইব্রাহীম শিকদার পনু, কমিউনিটি ডেভলপমেন্ট কমিটির সভাপতি  আজিজুল হক শিকদার,তালতলী সিডিপি, জনাব মোঃ জামাল হোসেন, প্রধান শিক্ষক, আলীরবন্দর মোহাম্মদ মেনাজ উদ্দীন মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক মো.জামাল হোসেন প্রমুখ। 

এ সময় স্যোসাল এন্টার প্রাইজ টিম, জিএনবি এর,ম্যানেজার টমাস মন্ডল বলেন,বিপদে মানুষের পাশে থাকা আমাদের অঙ্গীকার। ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাহায্যের জন্য এই উদ্যোগ আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতার প্রতিফলন। আমরা ইতিবাচক পরিবর্তন আনার জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বিশ্বাসী।

গুড নেইবারস বাংলাদেশ তালতলী সিডিপি’র ম্যানেজার নাইমুর রহমান শোভন বলেন,দুর্যোগ দূর্বিপাকে, বিপদে আপদে আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা গুড নেইবারস বাংলাদেশ সব সময় মানুষের পাশে ছিল, মানুষের পাশে থাকে। তাই ঘূর্ণিঝড় রিমাল এর পর এবারও দূর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গিয়েক্ষতিগ্রস্ত ১৬০ টি পরিবারকে খুঁজে বের করে তাদের ঘর ঘর মেরামত এর জন্য টিন ও প্রত্যেক পরিবারকে ৫ হাজার ৬শটাকা করে বিতরণ করেছি।


আরও খবর



পত্নীতলায় আদিবাসী পরিবারের উপর হামলা-ভাংচুর, আহতরা হাসপাতালে ভর্তি

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬২জন দেখেছেন

Image

দিলিপ চৌহান, পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:পত্নীতলায় এক আদিবাসী পরিবারের উপর দফায় দফায় হামলা চালিয়ে বাড়ী-ঘর ভাংচুর ও নারী-পুরুষকে মারপিট করে লুঠতরাজ চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আহতরা পত্নীতলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়েছে।

জানাগেছে পত্নীতলায় পূর্বশত্রুতার জের ধরে এক আদিবাসী পরিবারের ঘরবাড়ি ভাংচুর সহ খড়ের পালায় আগুন দিয়ে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন করে দুর্বৃত্তরা। এব্যাপারে থানায় গত মঙ্গলবার অভিযোগ হলে পুলিশি তদন্ত চলাকালীন সময়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আবারও দুর্বৃত্তরা লাঠিসোটা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ঐ পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে বাড়ীঘর, দোকানঘর ভাংচুর করে লুটতরাজ করে এবং নারী সহ বৃদ্ধদের জখম করলে ঐ পরিবারের লোকজন দুর্বৃত্তদের হাত থেকে বাঁচার জন্য থানা ও ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে থানা পুলিশ তাদের উদ্ধার করে। এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার উষ্টি গ্রামের আদিবাসী হরেন এর ছেলে শনিরাম (৪৩) তার পরিবারকে নিয়ে উষ্টি গ্রামে বসবাসরত অবস্থায় বাড়ির পাশে উষ্টি তকিপুর পুরাতন জামে মসজিদের জায়গা লীজ নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত সেখানে টিনের চালা দিয়ে মুদি দোকানের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল।

এমতাবস্থায় প্রায় ছয় মাস পূর্বে তকিপুর হাটপুকুর এলাকার মৃত সানচ্চার ছেলে বিষ্ণু তিগ্যা সহ তার সঙ্গীরা শনিরামের ঐ জায়গা দখলের চেষ্টা করে ও শনিরাম সহ তার পরিবারকে বেধে মধ্যযুগিয় কায়দায় মারপিট, ভাংচুর ও লুটতরাজ চালায়। এ ব্যাপারে মামলা চলমান অবস্থায় গত মঙ্গলবার আবারো বিষ্ণু তিগ্যা (৪৪), একই এলাকার মৃত মংলুর ছেলে দিনেশ তিগ্যা (৩৫), মৃত শুকা তিগ্যার ছেলে রবীন্দ্রনাথ তিগ্যা (৪৮), রবীন্দ্রনাথের ছেলে সুজন তিগ্যা (২২), মৃত নবীন তিগ্যার ছেলে লিটন তিগ্যা (৩২), মৃত সুরেন তিগ্যার ছেলে দুলাল তিগ্যা (৫০), মৃত নবানুরের ছেলে মহাদেব (৩৬), মৃত সৃনাচ্চার ছেলে নরেশ তিগ্যা (৫১), মৃত সাঞ্চার ছেলে কালু তিগ্যা (৪১), বিষ্ণু তিগ্যার ছেলে রাজ কুমার (২০), মালেক হোসেন (৪৫), মৃত মানছা তির্গার ছেলে নকুল তিগ্যা (৩২), গবরা তিগ্যার ছেলে কালিপদ তিগ্যা (৫৫), মৃত হাকিম উদ্দিনের ছেলে সামসুল হক (৫৬), নেওয়ার ছেলে মালেক (৪৫) লাঠিসোটা, লোহার রড, হাসুয়া নিয়ে জোর পূর্বক ঐ জায়গা-জমি দখলের উদ্দেশ্যে শনিরামের উপর হামলা চালায়। শনিরামের চিৎকারে তার স্ত্রী মিনা সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা ছুটে আসলে তাদেরকেও আঘাত সহ শ্লীলতাহানির চেষ্টা করে দুর্বৃত্তরা। একপর্যায়ে তাদের চিৎকার-চেঁচামেচিতে গ্রামের লোকজন ছুটে আসলে দুর্বৃত্ত বিষ্ণু সহ তার সঙ্গীরা দ্রুত সেখান থেকে পালিয়ে যায়।

এসময় দুর্বৃত্তরা শনিরামের বসতবাড়ি, দোকানের ফ্রিজ সহ অন্যান্য জিনিসপত্র ভাংচুর করে, খড়ের পালায় আগুন ধরিয়ে দেয়, ৩০টি আমের গাছ উপরে ফেলে এবং তার জমির চারপাশের বাঁশের বেড়া ভেঙ্গে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি সাধন করে মালামাল লুটতরাজ করে নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় শনিরাম পত্নীতলা থানায় উক্ত দুর্বৃত্তদের নামে অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশের তদন্ত চলমান থাকা অবস্থাতেই আবারও বিষ্ণু তিগ্যা সহ তার সঙ্গীয়রা বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় শনিরামের পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে গুরত্বর আহত করে, ভাংচুর ও লুটতরাজ চালিয়ে নারী ও বৃদ্ধদের জখম করে। আহতরা হলো, বক্স এর স্ত্রী আরতি (৩০), হরেন (৫৮), হরেন এর স্ত্রী মালতি (৫০) ও শনিরামের স্ত্রী মিনা (৩৫)।

এ ঘটনায় উষ্টির তকিপুর পুরাতন জামে মসজিদ কমিটির সহিদুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে, দুর্বৃত্তদের দ্রুত বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাফফর হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, আসামীদের ধরতে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



মাগুরা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীদের কর্মবিরতি পালিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১০৫জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরা পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীরা মঙ্গলবার সকালে তাদের কার্যালয় প্রাঙ্গনে কর্মবিরতি কর্মসুচি পালন করে। এ সময় বক্তরা বলেন,

বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড ও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সমুহকে একীভূতকরণসহ অভিন্ন চাকুরী বিধি বাস্তবায়ন এবং সকল চুক্তিভিত্তিক ও অনিয়মিত কর্মচারীদের চাকুরী নিয়মিতকরণের দাবি ও পল্লী বিদ্যুৎ  সমিতির কর্মকর্তা কর্মচারীদের উপর নির্যাতন - নিপীড়ন শোষন এবং পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কতৃক মানহীন বৈদ্যুতিক মালামাল  ক্রয়ের কারনে গ্রাহক ভোগান্তি বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের ৮০ টি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় ৪০ হাজার কর্মকর্তা  কর্মচারী গত ৫ মে জরুরী বিদ্যুৎ সেবা চালু রেখে কর্মবিরতিতে নামে এবং স্মারকলিপি প্রদান করে। এর ফলে বিআরবি সারা দেশে সাময়িক বরখাস্থ, সংযুক্তি, স্ট্যান্ড রিলিজ ও হয়রানীমূলক বদলী শুরু করে। এ কারনে আন্দোলনকারীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। এ ঘটনায় যৌতিক যে কোন দাবি পূরনে প্রধানমন্ত্রী ও বিদ্যুৎ বিভাগের নির্দেশনা উপেক্ষা করে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড কতৃক পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি সমুহে নির্যাতন বন্ধের দাবিতে মাগুরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির প্রায় তিন শতাধীক কর্মকর্তা তাদের অফিস প্রাঙ্গনে জড় হয়ে কর্মবিরতির সাথে মানব বন্ধন করে। এসময় বক্তব্য রাখেন মাগুরা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম রঞ্জন কুমার ঘোষ, ডিজিএম মোঃ রাহাত,ডিজিএম আলোমগীর হোসেন, এজিএম মাসুদ রানা,  বিলিং সহকারি শাহনাজ প্রমুখ।


আরও খবর



মিজান গ্রুপের বাধায় শরিফ উদ্দিনের সংবর্ধনা পন্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৫৮জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোর উপজেলা  বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক  মিজান গ্রুপের বাধায় অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল ও চেয়ারপার্সন উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য  শরিফ উদ্দিনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান পন্ড হয়ে গেছে। সোমবার বিকেলে উপজেলা কৃষক দলের আয়োজনে তানোর পৌর এলাকার গোকুল গ্রামের বিএনপি নেতা বাদলের খৈলানে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কিন্তু সোমবার দুপুর থেকেই মিজান গ্রুপের নেতাকর্মীরা পৌর এলাকার বিভিন্ন মোড়ে লাঠিসোটা নিয়ে অবস্থান নেয়। উভয় গ্রুপের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় নির্ধারিত স্থানে সভা করতে পারেনি শরিফ গ্রুপ। সংবাদ পেয়ে উভয় গ্রুপকে সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন পুলিশ প্রশাসন। বিএনপির কঠিন সময়ে নিজেদের এমন দ্বন্দ্বে চরম ভাবে হতাশ তৃনমুলের নেতাকর্মী রা।
দলীয় সুত্রে জানা গেছে,  বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম জিয়ার উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য হওয়ায় অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল শরিফ উদ্দিন কে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন তানোর উপজেলা কৃষক দল। অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন কৃষক দলসহ বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সোমবার বিকেলের দিকে পৌর এলাকার গোকুল গ্রামের বিএনপি নেতা বাদলের খৈলানে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হওয়ার কথা। এদিকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠান পন্ড করতে পৌর এলাকার বিভিন্ন মোড়ে লাঠিসোটা নিয়ে অবস্থান নেয় মিজান গ্রুপের নেতাকর্মীরা। 
প্রত্যাক্ষদর্শীরা জানান, সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যাওয়ার অবস্থা ছিল চাপড়া ব্রীজ পার হয়ে গোকুল মোড় দিয়ে এবং তালন্দ বাজার দিয়ে। চাপড়া ও তালন্দ বাজারে অবস্থান নেয় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র মিজান গ্রুপের নেতাকর্মীরা। তালন্দ বাজারে দুই গ্রুপের মধ্যে মারপিট ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে নেতাকর্মীর দিকবিদিক ছুটাছুটি শুরু করেন। 
এদিকে কলমা ইউপির দিক থেকে গাড়ী বহর নিয়ে অনুষ্ঠানে আসছিলেন শরিফ উদ্দিন। তিনি সুমাসপুর ও হরিদেবপুর গ্রামের মাঝখানে গাড়ি বহর নিয়ে আটকা পড়েন। পরিবেশ শান্ত করার জন্য পুলিশ সেখান থেকে তাদেরকে সরিয়ে দেন।শরিফ উদ্দিন হ্যান্ড মাইকে নেতাকর্মীদের কলমা বাজারের দিকে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তার কথা মত নেতাকর্মীরা কলমা বাজারে রওনা হয়।কামারগাঁ ইউপির বেশকিছু তৃনমুলের নেতাকর্মীরা তানোর টু চৌবাড়িয়া রাস্তার তালন্দ সুমাসপুর মোড় পার হয়ে পৌর এলাকার শেষ সীমানায় অবস্থান নেয়। তারা জানায় গোকুল গ্রামে অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় মিজান গ্রুপের নেতাকর্মীরা বাধা দেন এবং মারপিটসহ বাইকে আঘাত করে। কোনভাবেই সভাস্থলে যেতে দেয়নি। পরে পুলিশ এসে সবাইকে সরিয়ে দিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নিজেদের মধ্যে কাঁদা ছোড়াছুড়ি করে অন্যদের কাছে হাসির পাত্র হয়েছি। দীর্ঘ দিন পর একটা সভা তাও আবার নিজেদের জন্য পন্ড হয়ে গেল।

সুমাসপুর গ্রাম পার হয়ে তালন্দ কলমা রাস্তায় দলীয় নেতাকর্মী থেকে শুরু করে উপজেলা কৃষক দলের আহবায়ক আব্দুর রশিদ ও সদস্য সচিব আব্দুল মালেক অবস্থান করছিলেন। তারা জানান, মিজান গ্রুপ সভা পন্ড করার জন্য ক্ষমতা সীন দলের এজেন্ট বাস্তবায়ন করেছেন। সে নিজ গ্রাম ও কিছু সোন্ডা পান্ডাদের দিয়ে এমন ঘটনার জন্ম দিয়ে নতুনভাবে বিভেদ সৃষ্টি করলেন। এর মাসুল তাকে দিতেই হবে।দুপুরে দিকে মালেক তার ফেসবুক আইডিতে সভার প্রস্তুতি সম্পন্ন বলে পোস্ট করেন। সেখানে মিজান গ্রুপের কয়েকজন কমেন্ট করে লিখেন মিজান বাহিনী মোড়ে মোড়ে অবস্থান করছে।দুপুরের দিকে মিজানের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি ঢাকায় আছি, এসব বিষয়ে কিছুই জানিনা।শরিফ উদ্দিনের সাথে কথা বলতে চাইলে তিনি কোন কথা না বলে কলমা বাজারে যেতে নেতাকর্মী দের আহবান করেন। কলমা বাজারে শরিফ উদ্দিন কে সংবর্ধনা দেয়া হয় এবং পরবর্তী তে তানোর পৌরসভায় সভা করবেন বলে জানান নেতাকর্মীরা।জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শ্রী বিশ্বনাথ সরকার বলেন, তানোর ও গোদাগাড়ী তে লবিং গ্রুপিংয়ের রাজনীতি শুরু করেছেন মেজর শরিফ উদ্দিন। যার কারনে আজকে এমন ঘটনার সুত্র পাত হয়েছে। তবে সভা পন্ড করা সঠিক হয়নি।

থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম বলেন, উভয়গ্রুপকে ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে দিয়ে পরিবেশ শান্ত করা হয়েছে। বর্তমানে কোন উত্তেজনা নেই, পরিবেশ আমাদের অনুকূলে রয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও খবর