Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম
কক্সবাজারে পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু বন্ধ শিল্প প্রতিষ্ঠান চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে: শিল্পমন্ত্রী বাংলাদেশের হার দিয়ে সুপার এইট শুরু গোদাগাড়ীতে রাসেল ভাইপারের চিকিৎসার দাবিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কাছে চিঠি দিয়েছে নাগরিক স্বার্থ-সংরক্ষণ কমিটি রূপগঞ্জে জমে উঠেছে কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচন যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ কর্মকর্তার বাবা মাকে কুপিয়ে হত্যা যানজট নিরসনে সংসদ সদস্যগণের সাথে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সমন্বয়সভা ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক বাজেট পাস হয়নি,অনেক কিছু পুনর্বিবেচনা করা সম্ভব: অর্থমন্ত্রী দেশের সব মহৎ অর্জন আ. লীগের মাধ্যমেই হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

২০২৬ বিশ্বকাপের লোগো উন্মোচন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ২৬১জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক: ২০২৬ ফুটবল বিশ্বকাপের অফিসিয়াল লোগো ও ব্র্যান্ডিং উন্মোচন করল ফিফা। যেখানে আগামী আসরের আয়োজক দেশ যৌথভাবে যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো ও কানাডা। খবর গোল ডট কমের।

১৯৯৪ সালের পর প্রথমবার উত্তর ও মধ্য আমেরিকায় ফুটবলের সবচেয়ে বড় আসর ফিরছে। সবশেষ যুক্তরাষ্ট্র এককভাবে আসরটি আয়োজন করেছিল।

আসছে বিশ্বকাপকে ঘিরে নতুন একটি স্লোগানও তৈরি হয়েছে। যা হলো, ‘আমরা ২৬’। এবারের লোগোতে ওপর-নিচ করে সাদা রঙের ‘২’ ও ‘৬’ বসানো হয়েছে। আর সামনে থাকছে বিশ্বকাপের ট্রফির ছবি। এবারই বিশ্বকাপের কোনো লোগোতে প্রথমবার বিশ্বকাপের ট্রফি ব্যবহার করা হয়েছে।

তবে একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, লোগোতে এমন কোনো রং ব্যবহার করা যাবে না যা তিনটি দেশের কাউকে প্রতিনিধিত্ব করে।

লোগোটি উন্মোচন করেন ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো ও ব্রাজিল কিংবদন্তি রোনালদো। পরে ইনফান্তিনো বলেন, ‘আমরা ২৬ একটি আওয়াজ। এটি এমন একটি মুহূর্ত যখন তিনটি দেশ এবং একটি সমগ্র মহাদেশ সম্মিলিতভাবে বলে, ‘'আমরা বিশ্বকে স্বাগত জানাতে এবং সর্বকালের সর্ববৃহৎ, সেরা এবং সর্বাধিক অন্তর্ভুক্তিমূলক ফিফা বিশ্বকাপ উপহার দেওয়ার জন্য একত্রিত৷'’ টুর্নামেন্ট প্রতিটি আয়োজক দেশ এবং অংশগ্রহণকারী দলকে নিজেদের ইতিহাস তুলে ধরবে।’

৩টি দেশের মোট ১৬টি শহরে বিশ্বকাপ গড়াবে। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের ১১, মেক্সিকোর ৩ ও কানাডার ২টি শহর। তবে টুর্নামেন্টে তিনটি দেশের আলাদা লোগোও দেখা যাবে। যা উন্মোচন হবে বৃহস্পতিবার।

এদিকে ২০২৬ বিশ্বকাপের ফাইনাল ম্যাচ কোথায় অনুষ্ঠিত হবে তা এখনও নির্ধারণ হয়নি। তবে ফিফা বস ইনফান্তিনো যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলসকে ইঙ্গিত করেছেন।

আগামী আসরে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হিসেবে খেলবে আর্জেন্টিনা। গতবছর কাতার বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় শিরোপা জিতেছিলেন লিওনেল মেসিরা। ২০২৬ সালের ১১ জুন থেকে ১৯ জুলাই আসরটি মাঠে গড়াবে।


আরও খবর



বন্যার্তদের পাশে থাকবে ছাত্রলীগ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার:সম্প্রতি অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি দলে সিলেট বিভাগ এবং কুড়িগ্রামের নদ নদী ঝরনা-জলসের পানি বৃদ্ধির কারণে সিলেট সুনামগঞ্জ কুড়িগ্রাম তৎ সংশ্লিষ্ট এলাকা বন্যা পরিস্থিতি উদ্ভাট হবার প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বন্যা পরিস্থিতি দুর্ভোগে পড়ার অসহায় মানুষের পাশে সহযোগিতার হাত জন্য উদাত্ত আহ্বান জানান। 

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালি আসিফ ইনান স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয় । 

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দদের এ সকল কাজ করতে। বন্যা সম্পর্কে সচেতন তৈরি, শুকনো প্রস্তুতকৃত খাবার সরবরাহ, বিশুদ্ধ খাবার পানি ও পানি  বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ,পানিবাহিত রোগ সম্পর্কে সচেতন তৈরি করা ও স্যালাইন বিতরণ, উদ্ধার কর্মকান্ড পরিচালনা করা, ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, স্বাস্থ্য ক্যাম্প পরিচালনা ও বিনামূল্য ওষুধ বিতরণ। 

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালি আসিফ ইনান বলেন,যেকোনো দুর্যোগে ছাত্রলীগ সবার আগে মানুষের পাশে থাকে। বন্যা তোদের পাশে আমরা সবসময় আছি ও থাকবো। ছাত্রলীগের যারা নেতাকর্মী আছেন তারা সব সময প্রস্তুত থাকবেন।

আরও খবর



খাগড়াছড়ি পুলিশের উদ্যোগে"নো হেলমেট, নো ফুয়েল" কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন পুলিশ সুপার মুক্তা ধর

প্রকাশিত:সোমবার ২৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ১১৪জন দেখেছেন

Image

জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়িতে সড়ক দূর্ঘটনা প্রতিরোধে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে মোটরসাইকেল চালক ও আরোহীর হেলমেট পরা নিশ্চতের পাশাপাশি জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে পেট্রোল পাম্পে" নো হেলমেট, নো ফুয়েল"  কার্যক্রম চালু সহ বিশেষ প্রচারণা অভিযান চালানো হয়েছে।

রবিবার (২৬ মে) দুপুরের দিকে  খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের উদ্যোগে জেলা শহরের কে. সি ফিলিং স্টেশনে "নো হেলমেট, নো ফুয়েল" কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ি জেলার পুলিশ সুপার  মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

পরে পেট্রোল পাম্পগুলোতে জেলা পুলিশের উদ্যোগে জনসচেতনতামূলক লিফলেট ও স্টিকার সাঁটানো সহ পাম্প কর্তৃপক্ষকে হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালকদের জ্বালানি না দিতে কঠোর নির্দেশনা প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে সেখানে বিশেষ প্রচারণা অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানকালে পুলিশ সুপার নিজে হেলমেট বিহীন  মোটরসাইকেল চালকদের মাঝে জনসচেতনা সৃষ্টির অংশ হিসেবে লিফলেট বিতরণ ও মোটরসাইকেলে স্টিকার সাঁটানো সহ হেলমেট বিহীন চালকদের সতর্ক ও হেলমেট পড়া চালকদের শুভেচ্ছা জানিয়ে চালকদের নিজের সেফটি নিশ্চিত করে ট্রাফিক আইন মেনে চলার আহ্বান জানান। 

খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার)  সাংবাদিকদের জানান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১৭ এর ধারা ১০ এর অধীন গঠিত উপদেষ্টা পরিষদ সভার সিদ্ধান্ত অনুয়ায়ী মোটরসাইকেল চালক এবং তার সহযাত্রীকে আবশ্যিকভাবে বিএসটিআই কর্তৃক নির্ধারিত মানের হেলমেট পরিধান করতে হবে। কোন মোটরসাইকেল চালক ও সহযাত্রী হেলমেট ব্যবহার না করলে উক্তমোটরসাইকেলে কোন প্রকার জ্বালানি সরবরাহ করা যাবে না। এই প্রেক্ষিতে সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮ এর ধারা ১২৪ এর ক্ষমতাবলে মোটরসাইকেলের চালক ও সহযাত্রীদের জন্য 'নো হেলমেট, নো ফুয়েল' নির্দেশনা জারি করা হয়।

মোটরসাইকেলের চালক/রিফুয়েলিং স্টেশনের মালিকগণ এই নির্দেশনা অনুসরণ করবেন। অন্যথায় আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কর্তৃক সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮ এর ৯২(১) ধারা অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, প্রতিদিন সড়ক-মহাসড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় যত মানুষ প্রাণ হারাচ্ছেন, তাদের অধিকাংশ হেলমেট ব্যতিত মোটরসাইকেল চালনা করার কারণে নিহত হয়েছে। মোটরসাইকেল চালকদের মাঝে শতভাগ হেলমেট পরিধান নিশ্চিত করা গেলে এই প্রাণহানি অনেকাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব। চলতি বছরে বেশ কয়টি মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহীরা মাথায় গুরুতর আঘাতে মারা গেছে।  ওইসব মোটরসাইলে আরোহীদের হেলমেট ব্যবহার থাকলে এ ধরনের ক্ষতি নাও হতে পারতো।তাই সড়ক দুর্ঘটনারোধে সচেতনতা জরুরি উল্লেখ করে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে "No Helmet, No Fuel" কার্যক্রম বাস্তবায়নে সচেতনতামূলক প্রচারণা চালাবে। পাশাপাশি ট্রাফিক আইন লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে জানিয়ে তিনি আরো বলেন, জেলার প্রতিটি পেট্রোল পাম্পে গাড়ি ছাড়া বোতল বা ড্রামে পেট্রোল-অকটেন বিক্রি না করতে পেট্রোল পাম্প মালিক ও খুচরা পেট্রোল ব্যবসায়ীদের আহবান জানান। এই কর্মসূচি বাস্তবায়নে প্রতিটি পাম্পে সচেতনতামূলক ব্যানার টানানোর আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, ২০/০৫/২৪ খ্রি. বাংলাদেশ সড়ক পরিবহনের প্রজ্ঞাপন ও পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সের নির্দেশনা মোতাবেক সড়কে চলাচল নিরাপদ করার লক্ষ্যে ‘নো হেলমেট, নো ফুয়েল’ কার্যক্রম বাস্তবায়নের পদক্ষেপ হিসেবে জেলা পুলিশের এই কার্যক্রম।

এসময় খাগড়াছড়ি জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ত্রুাইম এন্ড অপস মো.জসীম উদ্দিন খাগড়াছড়ি সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো.তফিকুল আলম, খাগড়াছড়ি ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সুপ্রিয় দেব সহ  পুলিশের পদস্থ  কর্মকর্তা  জেলা পেট্রোল পাম্প মালিক সমিতি'র নেতৃবৃন্দ, গণমাধ্যম কর্মীরা  উপস্থিত ছিলেন। 

আরও খবর



অপরাধীদের বাঁচাতে তদবির হচ্ছে: আনারকন্যা ডরিন

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:অপরাধীদের বাঁচাতে তদবির হচ্ছে দাবি করেছেন,এমপি আনোয়ারুল আজীম আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন ।কোনো তদবিরের চাপে বাবা হত্যার বিচার যাতে বন্ধ না হয়। হত্যার যাতে সঠিক বিচার হয়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামালের সঙ্গে দেখা করে এসব দাবি জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার (১২ জুন) বিকেলে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন এমপিকন্যা ডরিন। পরে সংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

ডরিন বলেন, কোনো তদবিরের চাপে বাবা হত্যার বিচার যাতে বন্ধ না হয়, সেই দাবি জানিয়েছি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে বলেছি যে, আমার বাবা হত্যাকাণ্ডের শিকার, সেটার যাতে সঠিক বিচার হয়, সঠিক বিচারটা যাতে আমাকে নিশ্চিত করা হয়, সেই দাবি জানিয়েছি।

আনারের মেয়ে আরও বলেন, এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এরইমধ্যে অনেককে আটক করা হয়েছে। অপরাধীদের বাঁচাতে অনেক জায়গা থেকে তদবির করা হচ্ছে। তাদের যেন ছেড়ে দেওয়া হয়।

কোনো তদবিরের চাপে পড়ে এ হত্যাকাণ্ডের বিচার যাতে বন্ধ করার চেষ্টা না করা হয়, চাপের মুখে যাতে সঠিক তদন্ত বন্ধ করা না হয়, সঠিক বিচার পান সেই দাবি জানিয়েছেন বলে জানান।

ডরিন বলেন, গিয়াস বাবু নামে যাকে আটক করা হয়েছে, তিনি বাবার প্রতিপক্ষ না। আমাদের সঙ্গে তার কোনো শত্রুতাও নেই। আমার মনে অনেক প্রশ্ন জাগছে। গত মাসের ১৭ তারিখে তার সঙ্গে ভাঙায় দেখা হয়েছে। সেখানে একটা টাকা দেওয়ার লেনদেনের কথা উঠেছে, যা আমি খবরে শুনেছি। আমার কথা হলো, এ টাকার যোগানদাতা কে? কেন তারা এটা করিয়েছে? আপনারা দেখেছেন, তাকে আটকের আগে থানায় তিনি জিডি করেছেন যে, তার তিনটি ফোন হারিয়ে গেছে। একই দিনে একজন মানুষের তিনটি ফোন কীভাবে হারিয়ে যায়, সেটাও আমার প্রশ্ন। এগুলো কী পরিকল্পিতভাবে করা হয়েছে, সে তো আমার বাবার শত্রু না। এই কাজগুলো কে করাচ্ছে, সেটা আমি বারবার বলেছি।

তিনি বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টুকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডিবি নিয়ে গেছে। অবশ্যই তাদের কাছে সত্যিকারের কোনো তথ্যপ্রমাণ আছে, সেটা আমি নিজেও জানি। সেই প্রমাণের সাপেক্ষেই তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আসলে এ হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে আইনে যেভাবে বলা হয়েছে, সেভাবে যাতে আমার বাবার হত্যার বিচার করা হয়, আমি সেই দাবি জানিয়েছি। আমি শুনেছি, অনেক তদবির করা হচ্ছে। অনেক বড় বড় জায়গা থেকে ফোন আসছে, তাদের ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সঠিক বিচাররের আশ্বাস দিয়েছেন জানিয়ে ডরিন বলেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, এক্ষেত্রে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। যেটা আইনে আসবে, যেটা সত্য ও সেটার বিচার হবে। আমি বিশ্বাস করি, অপরাধীদের তিল পরিমাণ ছাড় দেন না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ১২ মে চিকিৎসার জন্য ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ থেকে চুয়াডাঙ্গার দর্শনার গেদে সীমান্ত দিয়ে ভারতে যান সংসদ সদস্য আনার। ওঠেন পশ্চিমবঙ্গে বরাহনগর থানার মণ্ডলপাড়া লেনে গোপাল বিশ্বাস নামে এক বন্ধুর বাড়িতে। পরদিন ডাক্তার দেখানোর কথা বলে বাড়ি থেকে বের হন তিনি। এরপর থেকেই রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হন আনোয়ারুল আজিম।

২২ মে জানা যায়, কলকাতার পাশের নিউটাউন এলাকায় সাঞ্জিভা গার্ডেনস নামে একটি আবাসিক ভবনের বিইউ ৫৬ নম্বর রুমে সংসদ সদস্য আনার খুন হয়েছেন। ঘরের ভেতর পাওয়া যায় রক্তের ছাপ। তবে ঘরে মেলেনি মরদেহ।


আরও খবর



ল এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রবীণ বিদায় অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ | ১৩২জন দেখেছেন

Image
সাব্বির খান,ইবি প্রতিনিধি:৩০ মে রোজ বৃহস্পতিবার ল এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের শেখ রাসেল হলস্ত ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের বিদায়ী শিক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনুষ্ঠানটি শেখ রাসেল হলের সামনে শেখ রাসেল স্মৃতি মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে শেখ রাসেল হলের ল এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সকল শিক্ষার্থীরা৷ শেখ রাসেল হল থেকে প্রথম বারের মতো কোনো বিভাগ, ঐ বিভাগের প্রবীণ শিক্ষার্থীদের জন্য বিদায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে৷ 

অনুষ্ঠানটি শুরু হয় বিকাল ৪ টায়। অনুষ্ঠানে বিদায়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন,  সোলাইমান হোসাইন, আকাশ শেখ, সবুজ মন্ডল, মো:খাদেমুল ইসলাম, মো:শিমুল হোসাইন, মো:মুন্না আলী, মো:কাওসার, আনিসুর রহমান চৌধুরী, অং থিন মঙ মারমা, মো:তৌহিদুল ইসলাম, কে.এম.আশিকুজ্জামান, সুমন ইসলাম, মো:আরিফুল ইসলাম, মো:মোসাদ্দিকুল ইসলাম রিসাম এবং সম্পূর্ণ অনুষ্ঠানটির সঞ্চালনায় ছিলেন তানভির শরীফ রিপন। 

বিদায়ী শিক্ষার্থী সোলাইমান হোসাইন বলেন, ল এন্ড ল্যান্ড ম্যানেজমেন্ট বিভাগের জুনিয়রা এই বিদায়ী সংবর্ধনার আয়োজন করেছেন এজন্য তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ। শেখ রাসেল হল থেকে এটাই প্রথম বারের মতো কোনো বিভাগের বিদায়ী সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে৷ হলের জুনিয়র শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানের প্রতিটি কার্যক্রম এত সুন্দর ভাবে পরিচালনা করেছ, তাদের এই আয়োজনে আমরা সবাই মুগ্ধ হয়েছি। তাদের সবার প্রতি অশেষ ভালোবাসা জানাচ্ছি এবং তাদের সবার কাছে আমাদের জন্য দোয়া ও ভালোবাসা প্রত্যাশা করছি। 

ঐ বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তানভীর শরীফ রিপন বলেন, গত তিনটি বছর আমাদের ১ম ব্যাচের সিনিয়রদের সাথে অতিবাহিত করলাম। আমি ভাইদের সাথে কাটানো প্রতিটি মুহুর্তকে জীবনের শ্রেষ্ঠ উপহার বলবো। তাঁদের প্রতিটি দিকনির্দেশনা ছিল আমাদের মসৃণ পথের পাথেয়। তাদের দেখানো পথে আমরা আমাদের আগামী দিনগুলো অতিবাহিত করতে চাই। ভাইদের জন্য শুভ কামনা রইলো। ভাইদের অনাগত ভবিষ্যত জীবন আরও সুন্দর ও সাফল্যমণ্ডিত হয়ে উঠুক এই প্রত্যাশা করছি।

আরও খবর



বেনজীর আহমেদ যেকোনো জায়গায় যেতে পারেন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১১৮জন দেখেছেন

Image

পুলিশের সাবেক মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ যেকোনো জায়গায় যেতে পারেন, কারণ তার বিরুদ্ধে দেশত্যাগে কোনো নিষেধাজ্ঞা নেই,বলেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ।

সোমবার (৩ জুন) এন্টিগা ও নিউইয়র্ক সফর শেষে দেশে ফিরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বেনজীর আহমেদের দেশত্যাগে কোনো নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়নি। তিনি যেকোনো জায়গায় যেতে পারেন। ৬ জুন তিনি দুদকে উপস্থিত হন কি না, সেটা এখন দেখার বিষয়।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, দুদক এবং সরকার স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ করছে বলে আজিজ আহমেদ ও বেনজীরের বিষয়গুলো সামনে আসছে।

তিনি বলেন, জাতিসংঘের মহাসচিব বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের প্রশংসা করেছেন। জাতিসংঘের মহাসচিব যেখানে প্রশংসা করেছেন, সেখানে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদনের কোনো মূল্য নেই। এই প্রতিবেদন অসাড় ও অন্তঃসারশূন্য।

মালয়েশিয়ায় শ্রমিকরা যেতে না পারার পেছনে কেউ জড়িত কি না, তা খতিয়ে দেখা হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, মালয়েশিয়ায় যাওয়ার তারিখ বর্ধিত করা যায় কি না, সে বিষয়ে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।


আরও খবর