Logo
আজঃ বুধবার ২২ মে ২০২৪
শিরোনাম

১৩৯ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১৪৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। আজ বুধবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়, চলবে একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলবে। আজ প্রথম ধাপে ১৩৯টি উপজেলায় নির্বাচন হচ্ছে।

এর মধ্যে ২২টি উপজেলায় ইভিএম এবং বাকি উপজেলাগুলোতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হবে।

ইসি সূত্রে জানায়, এই ধাপে মোট ১ হাজার ৬৩৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৫৭০, ভাইস চেয়ারম্যান ৬২৫ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪৪০ জন প্রার্থী রয়েছেন। প্রথম ধাপে চেয়ারম্যান পদে ৮, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১০ করে অর্থাৎ মোট ২৮জন প্রার্থী ইতিমধ্যে বিনা-প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হয়েছেন।

নির্বাচনে কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে প্রতি ভোটকেন্দ্রে ১৭ থেকে ১৮ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যসহ ছয়জন অস্ত্রধারী সদস্য থাকবেন। একই সঙ্গে প্রতিটি ইউনিয়নে ও উপজেলায় একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন।

এদিকে ভোটগ্রহণ উপলক্ষে বুধবার সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলোতে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার। গত সোমবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. কামরুজ্জামানের সই করা প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের চাহিদা অনুযায়ী ১৪১টি উপজেলা পরিষদের (সংযুক্ত তালিকা অনুযায়ী) সাধারণ নির্বাচন উপলক্ষে ভোট গ্রহণের দিন ৮ মে (বুধবার) সংশ্লিষ্ট নির্বাচনি এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হল।

এছাড়া নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সংশ্লিষ্ট ১৪১ উপজেলায় মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইসি। ৭ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২টা থেকে ৮ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত ট্যাক্সি ক্যাব, পিকআপ, মাইক্রোবাস ও ট্রাক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। এদিকে ৬ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২টা থেকে ৯ মে মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

আইন অনুযায়ী ভোটগ্রহণের ৩২ ঘণ্টা আগে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা শেষ করতে হয়। সে অনুযায়ী সোমবার মধ্যরাতে ১৪১ উপজেলায় নির্বাচনি প্রচারণা শেষ হয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন ভোট অবাধ ও নিরপেক্ষভাবে সম্পন্ন করতে কঠোর অবস্থানে রয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মঙ্গলবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশন ভবনে নিজ কার্যালয়ের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশন কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, উপজেলা নির্বাচনে কোনো মন্ত্রী-এমপি প্রভাব বিস্তার করলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর



ঝিনাইদহ সদর উপজেলা পরিষদ ও কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ১ম দফা নির্বাচন জমে উঠেছে

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ৭৮জন দেখেছেন

Image

কামরুজ্জামান ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:ঝিনাইদহ সদর উপজেলা পরিষদ ও কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের ১ম দফা নির্বাচন প্রচন্ড তাপদাহের মধ্যেও জমে উঠেছে। ঝিনাইদহ সদর উপজেলায় প্রার্থী হয়েছেন জেড এম রশিদুল আলম, মিজানুর রহমান মাছুম, গোলাম ছরওয়ার খান সঁউদ, এস এম আনিচুর রহমান, নূরে আলম বিপ্লব। সদর উপজেলা নির্বাচনে রশিদ ও মাছুমের প্রচারণা বেশি দেখা যাচ্ছে। সদরে ১৭টি ইউনিয়নে মোট ভোটার কেন্দ্র রয়েছে ১৬৫ টি। ৩ লাখ ৯০ হাজার ৯২৮ ভোটারের মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ৯৫ হাজার ৪০৬ জন ও মহিলা ভোটার এক লাখ ৯৫ হাজার ৫১৯ জন। কালীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন শিবলী নোমানী, জাহাঙ্গীর হোসেন সোহেল, মতিয়ার রহমান মতি, রাশেদ শমশের ও ইমদাদুল হক। ১১ টি ইউনিয়নে মোট ভোট কেন্দ্র ৯১ টি। মোট ভোটার ২ লাখ ৪৪ হাজার ৯২৪। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার এক লাখ ২৪ হাজার ৩২৮ জন ও মহিলা ভোটার এক লাখ ২০ হাজার ৫৫৩।  



আরও খবর



ডোমারে খাজা গরীবে নেওয়াজ মাদ্রাসা ও এতিম খানার ৫তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ৩২জন দেখেছেন

Image

মানিক, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর ডোমারে দারুল কোরআন খাজা গরীবে নেওয়াজ মাদ্রাসা ও এতিমখানার ৫তলা ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। 

সোমবার (২০ মে) সকাল ১১টায় মাননীয় সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকারের সম্মতিক্রমে আনুষ্ঠনিক ভাবে নির্মাণ কাজের শুভ উদ্বোধন করেন ডোমার পৌরসভার সফল মেয়র আলহাজ্ব মনছুরুল ইসলাম দানু। 

পরে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ¦ জুয়েল চৌধুরী’র সভাপতিত্বে অতিথি হিসাবে  বীর মুক্তিযোদ্ধা কমরেড মফিজার রহমান দুলাল, সৈয়দপুর জামেয়া আরবিয়া মাদ্রাসার শিক্ষা পরিচালক মাওঃ মুফতি আব্দুল মজিদ, ডোমার রিয়াজিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওঃ ফজলুল করিম, মাওঃ আব্দুল হামিদ হোসাইনী, ডোমার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব ও ঈমাম আলহাজ¦ মুফতি মাহমুদ বীন আলম, ডোমার বহুমূখি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল আলম, আলহাজ¦ অধ্যাপক করিমুল ইসলাম, আলহাজ¦ গোলাম মোস্তফা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হাফেজ সিরাজুল ইসলাম, সাংবাদিক আসদুজ্জামান হিল্লোল, অত্র মাদ্রাসার মোহতামিম মাওঃ মোঃ ময়নুল হক প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। উল্লেখ্য-বিগত ৮ বছর যাবত এই মাদ্রাটি জুয়েল চৌধুরী একক ভাবে পরিচালনা করে আসছেন, বর্তমানে সেখানে শাতাধীক ছাত্রসহ ৮জন শিক্ষক রয়েছে। ৫তলা ভবনের গ্রান্ড ফ্লোর ও ২য় তলায় মসজিদ এবং ৩য় থেকে ৫ম তলায় মাদ্রাসার ছাত্ররা পড়ালোখা করবে এবং সেখানে রাত্রী যাপনের সু-ুব্যবস্থা থাকবে। উক্ত মাদ্রাসা ও এতিমখানাটি সুষ্ট ও সুন্দর ভাবে পরিচালনা করতে দ্বীন এলেম শিক্ষার ছড়িয়ে দিতে সকলের সহযোগিতা ও দোয়া কামনা করেন প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ¦ জুয়েল চৌধুরী।  সহযাগিতা পাঠানোয় জন্য -বিকাশ/নগদ নম্বর- ০১৭৮০-৭৯৩৯২৩।


আরও খবর



ডিএসসিসি ৬৫ নং ওয়ার্ডে নালা নর্দমার ময়লা অপসারণ কাজ উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

সোহরাওয়ার্দীঃ

রাজধানীর কদমতলী থানার রায়ের বাগ মুজাহিদ নগর শাহী মসজিদ এলাকায় পয়ঃনিষ্কাশন ও নালা নর্দমা মেইনহোলের ময়লা পরিষ্কার কাজের উদ্বোধন করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ৬৫ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আলহাজ্ব সামসুউদ্দিন ভূঁইয়া সেন্টু। মঙ্গল বার ১৪ মে সকাল সাড়ে এগারোটায় এই কর্মসূচি উদ্বোধন হয়।মুজাহিদ নগর শাহী মসজিদ এর কোনা থেকে প্রধান সড়ক পর্যন্ত ১ কিলোমিটার এলাকা পরিষ্কার করার উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এছাড়াও কদমতলী থানা সংলগ্ন একতা ভিশন ভবনের সামনে ও নালা নর্দমা মেইন হোল পরিষ্কার অভিযান চলবে।


এ সময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৬৪'৬৫,৬৬ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর নিলুফা ইয়াসমিন লাকি,ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা শাখার উপ-সহকারী প্রকৌশলী সাইদুর রহমান,৬৫ নং ওয়ার্ডের সিআই রাজকুমার, রায়ের বাগ মুজাহিদ নগর পঞ্চায়েত কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক, ইসমাইল হোসেন, সিরাজুল ইসলাম, শাহীন আহমেদ সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।


ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ৬৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ্ব সামসুউদ্দিন ভূঁইয়া সেন্টু বলেন, বর্তমান মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সারা বাংলাদেশে উন্নয়নের অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগরীকে স্মার্ট নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে চান, সেই লক্ষ্যে তিনি সকল কাউন্সিলর কে ডেকে দিকনির্দেশনা দিয়েছেন এলাকার নাগরিকদের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য।"


তিনি আরো জানান, ডিএসসিসির ৬৫ নাম্বার ওয়ার্ডে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা শাখার অধীনে এলাকার সুয়ারেজ ব্যবস্থা সচল রাখতে নালা, নর্দমা এবং মেইন হোলের ভেতর জমে থাকা ময়লা আবর্জনা পরিষ্কার করতে সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে ৩২ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। আগামী ৯০ দিনের মধ্যে এই বরাদ্দ কৃত টাকা দিয়ে এলাকার নালা নর্দমা এবং মেইন হোলে জমে থাকা বর্জ্য অপসারণ করতে হবে। এই সময়ে বরাদ্দকৃত টাকায়প্রায় ১৫০০ থেকে ১৭০০ টন বর্জ্য অপসারণ করা হবে।


এছাড়াও কাউন্সিলর এসময় এলাকার সাধারণ মানুষের সাথে কুশল বিনিময় করেন এবং তাদের খোঁজ খবর নেন। পরে স্থানীয় মুজাহিদ নগর মেইন রোড জামে মসজিদের উন্নয়নের জন্য ৫০ হাজার টাকার চেক হস্তান্তর করেন।মুজাহিদ নগর মেইন রোড জামে মসজিদ কমিটির সভাপতি  ইউসুফ চেক গ্রহন করেন।







আরও খবর



খাগড়াছড়ি জেলা তথ্য অফিস,এর আয়োজনে নারী সমাবেশ ও মতবিনিময়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২০ মে ২০24 | ৮২জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:খাগড়াছড়ি জেলা তথ্য অফিসের আয়োজনে সরকার ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে  নারী সমাবেশ ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

সোমবার (৬ মে)  সকালের দিকে  খাগড়াছড়ি জেলা তথ্য অফিসের উদ্যোগে খাগড়াছড়ি  গোলাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উন্নত ও সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে নারী সমাবেশ ও মতবিনিময় সভায় খাগড়াছড়ি জেলা তথ্য অফিসার মোঃ বেলায়েত হোসেন এর সভাপতিত্ত্বে  সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন,  খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান,। 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার)।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ত্রুাইম এন্ড অপস) মো.জসীম উদ্দিন   খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শানে আলম,  খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাঈমা ইসলাম, গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান উল্ল্যাস ত্রিপুরা। 

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মুক্তা ধর পিপিএম (বার) বলেন, বাল্যবিবাহ নারীদের উন্নয়নের অন্যতম বাঁধা। নারীর ক্ষমতায়নে সরকার কাজ করে যাচ্ছে। অন্যান্য অতিথিবৃন্দ সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড, ভিশন-২০৪১, স্মার্ট বাংলাদেশ ধারনা, সর্বজনীন পেনশন স্কিম, নারীর ক্ষমতায়ন, বাল্যবিবাহ ও গুজব প্রতিরোধ করতে সকলকে এক সাথে কাজ করার আহবান জানান।

প্রধান অতিথি,র বক্তব্যে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. সহিদুজ্জামান বলেন, সরকার উন্নত ও সমৃদ্ধ স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। নাগরিকদের সামাজিক ও অর্থনৈতিক নিরাপত্তার জন্য সর্বজনীন পেনশন স্কিম চালু করেছেন। যা যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত। জনসাধারণের অংশগ্রহণ এবং সম্পৃক্ততার মাধ্যমে সরকারের এসব কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে হবে।

অনুষ্ঠানে ইউপি সদস্যবৃন্দ, হেডম্যান -কার্বারী সংবাদকর্মী, তৃণমূলের নারীরা অংশগ্রহণ করেন। 

আরও খবর



মেহেরপুরে পাটের আবাদ কমেছে

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১২৬জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃপাটের ন্যায্যমূল্য না পাওয়া, অনাবৃষ্টি আর পাট পচানোর পানি সংকটের কারণে পাটের আবাদ কমেছে মেহেরপুরে। চলতি বছরে পাটের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। চাষিদের দাবী, প্রতি বছরে পাট চাষে একরকম লোকসান গুণতে হয়। বাধ্য হয়ে অন্য ফসল আবাদ করছেন তারা। তবে কৃষি অফিস বলছে, পাট চাষে চাষিদেরকে উদ্বুদ্ধ করতে দেয়া হচ্ছে প্রণোদনা ও বিকল্প পদ্ধতিতে পাট পচানোর পরামর্শও দেয়া হচ্ছে।

মেহেরপুর জেলা কৃষি অফিসের তথ্যনুযায়ি, কৃষি নির্ভরশীল এ জেলায় চাষিদের অর্থনৈতিক ফসল হিসেবে বিবেচিত সোনালী আঁশ পাট। চলতি বছরে এ জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ২২ হাজার হেক্টর। আর পাট চাষ করা হয়েছে ১৬ হাজার ৬৩০ হেক্টর যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫ হাজার ৩৭০ হেক্টর কম। চাষিরা জেআরও ৫২৪, বি জে আর আই তোষাপাট-৮, ভারতীয় কৃষি কল্যাণ, মহারাস্ট্র ও চাকা জাতের পাট আবাদ করে থাকেন।

চাষিরা জানান, গেল বছর অনাবৃষ্টি থাকলেও তেমন তাপদাহ ছিল না তাই সেচ দিয়ে পাট চাষ করেছেন চাষিরা। কিন্তু পাট জাগ দেয়ার মতো পানির ব্যবস্থা ছিল না। অনেকেই কাদা মাটি দিয়ে পাটজাগ দেয়ার পাটের মান নষ্ট হওয়ায় ন্যায্য মূল্য থেকে বঞ্চিত হয়। চলতি মৌসূমে অনাবৃষ্টির সাথে যোগ হয় তীব্র তাপদাহ। ফলে অনেকেই পাট চাষ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। উপরন্ত পাট পচানোর জন্য কোন উম্মুক্ত জলাশয় না থাকায় চাষিরা পাট চাষ করতে অনীহা প্রকাশ করছেন। অনেকেই খাল বিল সংস্কার ও দখল হয়ে যাওয়া জলাশয় উম্মুক্ত ঘোষণা করার আহবান জানান।

গাংনীর পলাশীপাড়ার পাটচাষি জুলফিকার আলী জানান, প্রতিবছর চাষিরা এ পাট আবাদ করে মোটা অংকের টাকা আয় করেন। কিন্তু পানি সংকটের কারণে চাষিদের পাট পচাতে সইতে হয় নানা বিড়ম্বনা। অনেকেই খালে বিলে পানি না পেয়ে বাড়ির পাশে গর্তে সামান্য পানি দিয়ে পাট পচাতে দেন। এতে এক দিকে যেমন চাষিদের খরচ বেড়ে যায় তেমনি পাটের রং নষ্ট হয়। ফলে পাটের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হন।

পাটচাষি তেতুঁলবাড়িয়ার মিজান জানান, গেল বছর তিনি ৪ বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছিলেন। চলতি মৌসূমে তিনি দুই বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছেন। অনাবৃষ্টি ও তাপদাহের কারণে পানির স্তর নেমে যাওয়ায় পাট বীজ বপন করতে পারেনি। উপরন্ত পাটক্ষেতে সেচ দিতে না পারায় পানির অভাবে পাট গাছ বাড়ছে না। অন্যদিকে পাট পচানোর ব্যবস্থা না করতে পারলে সামনে বছর আর পাট চাষ করবেন না বলেও জানান এই চাষি।

পাটচাষি করমদি গ্রামের জিবন হোসেন জানান, চলতি মৌসূমে অনাবৃষ্টিতে পাট বপন করার সময় সেচ দিয়ে পাট বপন করতে হয়েছিল। পরবর্তীতে প্রচ- তাপদাহ ও অনাবৃষ্টির কারণে পাট ক্ষেত বিনষ্ট হয়। পাট বপনের দেড় মাস অতিবাহিত হলেও পাট উচ্চতায় বৃদ্ধি পায়নি। আর যারা সেচ দিয়ে পাট আবাদ করছেন তারা পাট পচানো নিয়ে বেশ চিন্তিত। চাষিদের দাবী, হাজা মজা খাল বিল সংস্কার করে পানি প্রবাহ ঠিক রাখলে পাট পচানো সম্ভব। চাষিরা উম্মুক্ত জলাশয়ে পাট জাগ দিতে পারলে পাট চাষ বৃদ্ধি পাবে।

গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার ইমরান হোসেন জানান, চলতি মৌসূমে পাটের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি। অনাবৃষ্টির কারণে অনেকেই পাট বীজ বপন করতে পারেনি। আর যারা আবাদ করেছেন পানির অভাবে পাটগাছ বাড়েনি। অন্যদিকে পাট পচানো নিয়েও চাষিরা নানা বিড়ম্বনায় পড়েন। তবুও চাষিদেরকে প্রণেঅদনাসহ অন্যান্য সুবিধা দেয়া হচ্ছে পাট চাষে আগ্রহী করে তোলার জন্য। বিকল্প পদ্ধদিতে পাট পচানোর পরামর্শ দেয়া হচ্ছে বলেও জানালেন এই কর্মকর্তা।


আরও খবর