English Version
২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, বুধবার | ৫ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, শরৎকাল

সাকিবকে দোষ দেওয়ার আগে ভাবুন

প্রকাশিতঃ সেপ্টেম্বর ১২, ২০১৭, ১০:৫০ পূর্বাহ্ণ


আনুষ্ঠানিক ঘোষণাও চলে এসেছে। দক্ষিণ আফ্রিকায় টেস্ট দলে সাকিব আল হাসান থাকছেন না। খেলোয়াড়ের ইচ্ছেকে সম্মান জানিয়ে দল সাজানোর পরিকল্পনা করছে বাংলাদেশ।
সাকিব দলে না থাকা মানে আসলে দুজনকে হারিয়ে ফেলা। ব্যাটে এবং বলে সাকিব এখনো দলের সেরা নির্ভরতা। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্ট জয়ের নায়কও ছিলেন। সাকিবের ছুটি চাওয়ার প্রসঙ্গ স্বাভাবিকভাবেই আলোচনার জন্ম দিয়েছে। পক্ষে বলছেন কেউ, বিপক্ষেও।
সাকিব ক্লান্ত হতেই পারেন। তিন সংস্করণেই বাংলাদেশ দলের ভার সামলানো তো আছেই, সেই সঙ্গে বিশ্বজুড়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি-ভিত্তিক লিগগুলোতেও যে নিয়মিত হাজিরা দিতে হয় তাঁকে। কখনো বাংলাদেশে খেলছেন তো কদিন পরেই কলকাতায়। দুবাইয়ে পিএসএলে বোলিং করছেন আবার জ্যামাইকায় ব্যাটিংয়ে হচ্ছেন গেইল ঝড়ের সঙ্গী। এভাবে টানা ক্রিকেটের মাঝে থাকতে থাকতে ক্লান্ত সাকিব—এ কারণেই ছয় মাসের জন্য ছুটি চাচ্ছেন টেস্ট ক্রিকেট থেকে।
দেশের চেয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট বড় হয়ে গেল—এই বিতর্ক এখন বাংলাদেশও সংক্রমিত হলো; ওয়েস্ট ইন্ডিজে যেটা দীর্ঘদিন ধরে চলছে। ক্রিস গেইলসহ আরও কজন সেরা খেলোয়াড়কে ছাড়াই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে হয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। বাংলাদেশের জন্য অভিজ্ঞতাটা অভূতপূর্ব। এ কারণে আলোচনাটা হয়তো বেশি হচ্ছে। বিশেষ করে টেস্টে মাত্রই বাংলাদেশ অন্য একটা ধাপে পা রাখতে চাইছে বলে আরও বেশি করে সাকিবকে প্রয়োজন। সেই তাগিদও বিতর্কের পেছনে বড় কারণ।
কিন্তু ক্রিকেটের বর্তমান মানচিত্রটাও বুঝতে হবে; বুঝতে হবে বাস্তবতা। এমন কিছু বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য নতুন কিছু হতে পারে কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এ এমন কিছু নয়। এবি ডি ভিলিয়ার্স থেকে ডেল স্টেইন, ক্রিস গেইল থেকে মহেন্দ্র সিং ধোনি—ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই রাজত্ব করা এ ক্রিকেটাররা এখন কোনো না কোনো খেলা থেকে ছুটি নিয়ে নিয়েছেন। বাংলাদেশের জন্য সাকিবকে ছাড়া খেলা বিলাসিত, দক্ষিণ আফ্রিকার জন্য ডি ভিলিয়ার্সও তা-ই।
আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের দৃশ্যপট বদলে যাচ্ছে। টিভি-স্বত্বের যুগে এটা অবশ্য স্বাভাবিক। দর্শক আগ্রহের চিন্তা করে প্রায় প্রতিটি দেশ শুরু করেছে ঘরোয়া ক্রিকেট লিগ। ঘরোয়া সে লিগগুলোতে খেলে বেড়ান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাররা। অস্ট্রেলিয়া কিংবা ইংল্যান্ডের কয়েকজন ক্রিকেটার শুধু আইপিএল কিংবা নিজেদের দেশের লিগেই প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। কিন্তু বাদবাকিরা চষে বেড়াচ্ছেন পুরো বিশ্ব, কয়েকটি মুখকে তো প্রতিটি লিগেই দেখা যায়।
সামনের দিনগুলোতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের ছবিটা আরও বদলাবে। কিছুদিন আগেই অস্ট্রেলিয়াকে ভিন্ন দুটি স্কোয়াড পর্যন্ত গড়তে হয়েছিল। নিজ দেশে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি খেলার পরদিন যে ভারতে টেস্ট ছিল তাদের। ভিন্ন দুটি মহাদেশে খেলা, ভিন্ন দুই সংস্করণে!
বিশ্বজুড়ে এই যে টি-টোয়েন্টি লিগের জয়জয়কার, তার ভিড়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলারই সময় পাওয়া যাচ্ছে না ইদানীং! ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত চলেছে পাকিস্তান সুপার লিগ। এপ্রিল থেকে মে মাস পুরোটা দখল করে নিয়েছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ বা আইপিএল। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর ন্যাটওয়েস্ট টি-টোয়েন্টি (ইংল্যান্ডের টি-টোয়েন্টি লিগ)। আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরে ক্যারিবীয় প্রিমিয়ার লিগ। নভেম্বর-ডিসেম্বরে প্রায় একই সময়ে চলবে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) ও সিএসএ গ্লোবাল টি-টোয়েন্টি লিগ (দক্ষিণ আফ্রিকার টি-টোয়েন্টি লিগ)। ওই ডিসেম্বরেই শুরু হয়ে জানুয়ারিতে শেষ হবে বিগ ব্যাশ টি-টোয়েন্টি (অস্ট্রেলিয়া)।
অর্থাৎ শুধু জুন ও অক্টোবর মাসেই কোনো ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি নেই! শ্রীলঙ্কা যদি তাদের এসপিএল চালু রাখত, তবে সে ‘ঘাটতিটা’ও থাকত না ক্রিকেটে। এই লিগগুলো চলার মধ্যে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ হয়। কিন্তু সেগুলোর সব কটিতে দর্শক আগ্রহ থাকে না। ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ ছেড়ে জাতীয় দলে ফেরার মধ্যেও কোনো কোনো ক্রিকেটারের অসন্তোষ থাকতেও পারে। এ বাস্তবতা সামনে আরও বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সূচির জন্য।
এমন ব্যস্ত সময়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাররা বিশ্রাম চাইতেই পারেন। বিশ্বের বিভিন্ন লিগে খেলার সুযোগ নেই ভারতীয় ক্রিকেটারদের। তবু যে সিরিজেই সম্ভব, তখনই বিরাট কোহলি কিংবা রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে বিশ্রামে পাঠায় ভারত। আবর্তন পদ্ধতির কথা ভাবছে আরও কিছু বোর্ড। দলের সেরা তারকাদের এক সিরিজের জন্য বিশ্রামে রাখা তাই আমাদের জন্য নতুন হলে আসলে নতুন নয়।
টানা ক্রিকেটের চাপে অবসাদগ্রস্ত হয়ে অবসর নেওয়ার ঘটনাও দেখেছে ক্রিকেট। স্টেইন বেছে বেছে ক্রিকেট খেলতে চেয়ে বাংলাদেশের সমর্থকদের উষ্মার শিকার হয়েছিলেন। কিন্তু বাস্তবতা হলো, ক্রিকেটের এ যুগে বেছে বেছে খেলতে চাইবেন এখন সবাই।
সাকিবের বিশ্রামের জন্য অনুরোধ তাই খুবই স্বাভাবিক। বিশ্রাম নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে যদি তরতাজা সাকিব ফিরে আসেন, তবে সেটাই ভালো!

প্রকাশকঃ
মোঃ মামুনুর হাসান (টিপু)

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক:
খন্দকার আমিনুর রহমান

৫০/এফ, ইনার সার্কুলার, (ভি আই পি) রোড- নয়া পল্টন ,ঢাকা- ১০০০।
ফোন: ০২-৯৩৩১৩৯৪, ৯৩৩১৩৯৫, নিউজ রুমঃ ০১৫৩৫৭৭৩৩১৪
ই-মেইল: khoborprotidin24.com@gmail.com, khoborprotidin24news@gmail.com

.::Developed by::.
Great IT