English Version

তানোরে বিএমডিএর সেচ প্রকল্প কৃষিক্ষেত্রে বড় ভূমিকা রাখছে

প্রকাশিতঃ জানুয়ারি ১৬, ২০১৮, ৬:৪৪ অপরাহ্ণ


তানোর প্রতিনিধিঃ রাজশাহীর তানোরে বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ) কৃষিক্ষেত্রে বড় ভূমিক রাখছে। তানোরের প্রচন্ড খরাপ্রবণ এলাকার ফসলের মাঠগুলো এখন সবুজে সবুজে ভরে উঠেছে। জানা গেছে, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) গভীর নলকুপ সেচ প্রকল্পের কল্যাণেই প্রচন্ড খরাপ্রবণ এসব এলাকায় এক সময়ের পতিত জমিতে এখন বছর জুড়েই বিভিন্ন রকমের ফসল উৎপাদন হচ্ছে। এছাড়াও ট্র্যাঙ্কির মাধমে এসব প্রচন্ড খরাপ্রবণ এলাকায় বসবাসরত প্রায় কুড়ি হাজার মানুষের মধ্যে সারা বছর বিশুদ্ধ খাবার পানি সরবরাহ করে চলেছে। গতকাল সরেজমিন, তানোরের প্রচন্ড খরাপ্রবণ কলমা ইউপি, পাঁচন্দর ও বাধাইড় ইউপির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গভীর নলকুপের সেচ দিয়ে বোরো ধান রোপণের প্র¯ত্ততি চলছে। এছাড়াও আলু গাছের সবুজ পাতায় মাঠের পর মাঠ ভরে উঠেছে।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে, তানোরে বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিএমডিএ) ৫৩৬ টি গভীর নলকুপের সেচ সুবিধার মাধ্যমে প্রায় ১৬ হাজার হেক্টর জমিতে ইরি-বোরোসহ বিভিন্ন রবি শস্যর চাষাবাদ হচ্ছে ও প্রায় ২৬ হাজার কৃষক পরিবার প্রত্যক্ষ বা প্ররাক্ষভাবে উপকার ভোগ করছেন। তানোরে আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে ৮৪টি গভীর নলকুপে প্রায় ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮৪ হাজার আন্ডার গ্রাউন্ড ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। এদিকে গভীর নলকুপের আন্ডার গ্রাউন্ড ড্রেন নির্মাণের ফলে জমি ও পানির অপচয় রোধ, সেচ পানির খরচ খম এবং পানি সেচে দীর্ঘসূত্রতা রোধ হয়েছে। এলাকার কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এক সময় তানোরের এসব এলাকায় প্রকৃতির বৃষ্টি ওপর নির্ভর বছরে একটি মাত্র ফসল হতো। কিšত্ত বিএমডিএ’র গভীর নুলকুপ স্থাপন করায় বর্তমানে তানোরে কৃষকরা সারা বছরই বিভিন্ন প্রকার ফসল ফলাচ্ছেন।
তানোরের গোল্লাপাড়া গ্রামের স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত আদর্শ কৃষক নুরমোহাম্মদ (৪৫) জানান, গভীর নলকুপ স্থাপন করায় অনাবাদী জমিগুলোতেও এখন চাষাবাদ করার ফলে কৃষিক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটেছে। তিনি বলেন, গভীর নলকুপ স্থাপনের আগে এলাকার জমির দাম কম থাকলেও সেই জমি গুলোর দাম এখন পাঁচ থেকে দশগুণ বেশী। তানোরে চৈত্র-বৈশাখ মাসে দুপুরের প্রচন্ড রোদে মাঠের ক্ষেতের দিকে তাকাতে সমস্যা হলেও বিকেলে ওই মাঠের দিকে দৃষ্টি রাখলে অপরুপ শোভা ছড়ায় সবুজ ধান গাছের পাতা। চারিদিকে সবুজ বিভিন্ন ফসলে খেত দুরে দেখা যায় এক একটি সবুজ গ্রাম। সবুজের খেতে আকাশটি হেলে পড়ায় দিগন্তে মিশে গেছে। এ এক মনোমুগ্ধকর দৃশ্যে। এলাকার কৃষকরা জানান, বরেন্দ্র বহুমুখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ)’র গভীর নলকুপ স্থাপন করায় এখন সারা বছর জুড়েই চাষাবাদ করা সম্ভব হয়েছে। তারা জানান, বিএমডিএর গভীর নলকুপ সেচ প্রকল্পের কল্যাণে এলাকার কৃষিক্ষেত্রে বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধিত হয়েছে। এ ব্যাপারে বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিএমডিএ)-এর তানোর জোনের সহকারী প্রকৌশলী শরিফুল ইসলাম বলেন, তারা শুধু গভীর নলকুপ নয় এসবের পাশাপাশি এক সময় মজা খাল ও পুকুর খনন-পুনঃখনন করেছেন, এছাড়াও ক্রসড্যাম নির্মান, বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ, বনায়ন ও গ্রামীণ সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন।

প্রকাশকঃ
মোঃ মামুনুর হাসান (টিপু)

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক:
খন্দকার আমিনুর রহমান

৫০/এফ, ইনার সার্কুলার, (ভি আই পি) রোড- নয়া পল্টন ,ঢাকা- ১০০০।
ফোন: ০২-৯৩৩১৩৯৪, ৯৩৩১৩৯৫, নিউজ রুমঃ ০১৫৩৫৭৭৩৩১৪
ই-মেইল: khoborprotidin24.com@gmail.com, khoborprotidin24news@gmail.com

.::Developed by::.
Great IT